September 24, 2018

৯০ পার হল, ছেলেমেয়েরা দেখে না তাই পেটের দায়ে রিক্সা চালায়

মো: আবুল খায়ের
ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ
ঠাকুরগাঁও শহরের পুলিশ লাইনের সামনে রিক্সার সিটে ঠেস দিয়ে বসে আছে এক বৃদ্ধা। বয়সের ভারে গায়ের চামড়া গুলো কেমন জানি অনেকটা ঢিলে হয়ে আছে। যেন  এ বয়সে ও জীবন যুদ্ধে লড়াই করছেন তিনি। অপেক্ষা করছেন যাত্রী জন্য।অনেক রিক্সা আসছে যাত্রি নিয়ে চলে ও যাচ্ছে।

বৃদ্ধার অপেক্ষার প্রহর শেষ হচ্ছে না। রাস্তার ওপর পাশে পুলিশ লাইন স্কুল ও কলেজ পুলিশ ফাড়ি ,অনেক পুলিশের যাতায়াত করছে সে  পথে।  বৃদ্ধার মনে আশা এই বুঝি ডাক পড়বে তার। এক পুলিশ কর্মকর্তা যাওয়ার কথা বলে ডাক দিলেন তাকে পরে কি মনে করে আবার অন্য রিক্সাতে উঠলেন। বৃদ্ধার অপেক্ষার রুদ্রশ্বাস আর যেন থামছেনা। প্রচন্ড গরমে কপাল থেকে গাম ঝরা শুরু হয়েছে মাঝে মাঝে কোমরে বাধা গামচা টি খুলে মুখ মুছচেন তিনি।

আর কান দুটো সজাগ করে রাখছেন কেউ যদি ডাক দেয় তাহলে যেন সবার আগে রিক্সা নিয়ে পৌছাতে পারে। দু’একজন যাত্রী পেলে ও তাদের মধ্যে দেখা যায় মতবিরোধ একজন উঠতে চাইলে অন্যজন বলে বৃদ্ধা মানুষ আস্তে চালাবে রিক্সা তড়িগড়ি করে পৌছাতে হবে,বাবার বয়সী উঠতেও কেন জানি বিবেক বাধা দেয়। এবার ও বৃদ্ধাকে হতাশ হতে হল।

সব শেষে কাঠাল গাছের নিচে রিক্সাদার করিয়ে আপন মনে তাকিয়ে আছেন তিনি, মনে হচ্ছে এক পৃথিবীর চিন্তা এখন তার মনে। কাছে গিয়ে জানতে চাইলাম নাম কী দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বলেন আবুল কাশেম। বাড়ি ঠাকুরগাঁওয়ের ১৬ নং ইউ.পি কোনপাড়া বোচা পুকুরে। যে সম্পদটুকু রেখে ছিলেন সেটুকু হারাতে হয়েছে বড় মেয়ের চিকিৎসার জন্য  তাকে। এর পর থেকে ৩০ বছর থেকে রিক্সা চালিয়ে জীবন চলছে আবুল কাশেমের। আবুল কাশেমের দীর্ঘ শ্বাসের পিছনের কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন,কেউ কেউ মনে করেন বয়স বেশি,জোরে চালাতে পারবোন্ তাই যাত্রী ও তেমন পাইনা।

আর যে দু’একজন যাত্রী  পাই সেই টাকা দিয়ে চাল কিনলে তর্কারী কেনা যায়না। কাশেম মিয়া বলেন,আল্লাহ দিছে দুই ছেলে, দুই মেয়ে, সবাই বড় হয়েছে নিজেরা রুজি রোজগার করতে ও জানে, তবে তারা আমাদের কোন খোঁজ খবর নেয় না বাসায় ও আসে না। তাই পেটের দায়ে রিক্সা নিয়ে বের হতে হয় প্রতিদিন।

রিক্সা ভাড়া দিয়ে যে আয় হয় তা দিয়ে সংসার চলে না। আবার ও দীঘ্য শ্বাস ছেড়ে বলেন, বয়স তো ৯০ বছর পার হল আর পারছিনা শরীলের বিভিন্ন জায়গা রাত হলে ব্যাথা শুরু হয়। আর খাটুনি সহ্য করতে চাইনা আজ এ অসুখ কাল ওই অসুখ এভাবে কাটছে দিন।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি ২১ জুন ২০১৬

Related posts