September 21, 2018

৮০০ কোটি খরচে ইজরায়েলি প্রযুক্তিতে দেশের সীমান্ত মুড়ে ফেলছে ভারত

nayadilleউরি হোক বা নাগরোটা, সীমান্তে জঙ্গিহানার ঘটনা ঘটেই চলেছে। আর এই জঙ্গিহানা রুখতে সবরকমের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে কেন্দ্র। এবার ৮০০ কোটি টাকা খরচ করে সুরক্ষিত করা হচ্ছে সীমান্ত। ইনস্টল করা হচ্ছে বিশ্বের আধুনিকতম প্রযুক্তি। আর এই প্রযুক্তিতে সাহায্য করছে ইজরায়েল ও ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ ম্যানেজমেন্ট(IIM)-এর ছাত্ররা। জম্মু, সাম্বা, কাঠুয়া ঘিরে ১৯৮ কিলোমিটার জুড়ে সীমান্তে বাসনো হবে এই প্রযুক্তি। এই প্রজেক্টের জন্য ইতোমধ্যে মিলেচে অনুমোদন।কাঁটাতার টপকে কিংবা টানেল দিয়ে যেভাবেই জঙ্গিরা ঢুকতে যাক না কেন, তাতেই তারা বাধা পাবে। যে কোনও রাস্তাতেই ফাঁদে পড়বে জঙ্গিরা। এই প্রজেক্টের প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরিক্ষা বেশ সফল বলেও জানা গিয়েছে। লেজার ভিত্তিক এই প্রযুক্তির জন্য ৮০০ কোটি টাকা খরচ বহন করবে সরকার। এই প্রথম ভারত কোনও প্রজেক্টে সরাসরি ইজরায়েলের সাহায্য নিচ্ছে। জম্মু থেকে শুরু হবে এই প্রজেক্টের কাজ। দ্বিতীয় পর্যায়ে কাজ হবে পঞ্জাবে। প্রাথমিকভাবে লখনপুর থেক আখনুর পর্যন্ত পাঁচ ইলোমিটার জুড়ে এই কাজ হবে। সেটা সফল হলেই এগোবে কাজ।

এই প্রজেক্টে ঠিক কি কি থাকছে, সে বিষয়ে বিশদে কিছু জানানো হয়নি। তবে পুরোটাই প্রযুক্তি নির্ভর হবে বলে জানা গিয়েছে। নদীর জন্য সীমান্তে যেসব জায়গায় ফাঁক রয়েছে, সেগুলোও ভরাট হবে এই প্রযুক্তিতে। যে কোনও ভাবে জঙ্গিদের ধরাই এই প্রজেক্টের মূল লক্ষ্য। ইজরায়েলের এই সংক্রান্ত প্রযুক্তি সবথেকে উন্নত। তাই সেই দেশের সাহায্য নেওয়া হচ্ছে।

সাম্প্রতিক অতীতে দেখা গিবেছে, মূলত জম্মু ও পঞ্জাবের সীমান্ত ব্যবহার করেই ভারতে ঢুকেছে পাক-জঙ্গিরা। সাম্বা, কাঠুয়া কিংবা পাঠানকোট জঙ্গি হামলার জন্য সবথেকে আতঙ্কের জায়গা। গোয়েন্দা সূত্রে জানা গিয়েছে, সীমান্তের খুব কাছেই ঘাঁটি গেড়ে রয়েছে প্রচুর পাক জঙ্গি। যে কোনও সময় ঢুকে পড়বে তারা। তাই এই ধরনের ঘটনা থেকে দেশকে রক্ষা করার স্বার্থেই বসানো হচ্ছে এই প্রযুক্তি।

Related posts