November 20, 2018

৫ খুনের ঘটনাস্থল পরিদর্শন এসপির; এক নজরে নারায়ণগঞ্জ

260

রফিকুল ইসলাম রফিক,নারায়ণগঞ্জঃ  নারায়ণগঞ্জের আলোচিত দুই শিশুসহ একই পরিবারের ৫ জনকে নৃশংসভাবে হত্যার ঘটনাস্থল আবারো পরিদর্শন করেছেন পুলিশ সুপার ড. খন্দকার মহিদউদ্দিন। রাত সাড়ে ৮টার দিকে শহরের বাবুরাইলে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান পুলিশ সুপার। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মোখলেছুর রহমান, সদর মডেল থানার ওসি আব্দুল মালেক, তদন্তকারী সংস্থা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) এম এ খায়েরসহ অন্যরা।
পরিদর্শন শেষে পুলিশ সুপার সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বলেন, এটি একটি জঘন্যতম হত্যাকান্ড। আমরা নিরবিচ্ছিন্ন তদন্ত করছি। এজন্য আমরা রাত দিন প্রতি মূহুর্ত কাজ করছি। তদন্তের স্বার্থেই আমাদের এখানে একাধিকবার আসতে হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় আজকে এখানে আসা হয়েছে। কারন তদন্তের অনেক বিষয় একটির সঙ্গে অপরটি সম্পর্কিত থাকে সেগুলোকে জোড়া দিতে হয়। এছাড়া ঘটনার কারণ ও সময়গত অবস্থানের বিষয়টিও নিশ্চিত হতে হয়। এজন্য আমাদের বারবার আসতে হচ্ছে। তবে আমি নিশ্চিতভাবে বলতে পারি তদন্তে যথেষ্ট অগ্রগতি হয়েছে। যত দ্রুত সম্ভব রহস্যের উন্মোচন হবে। যতদ্রুত সম্ভব প্রকৃত অবস্থা আপনাদের জানাবো।

নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের মানববন্ধনে প্রতিবাদ : পুলিশ উসকে দিয়েছে

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় ত্রিপক্ষীয় সংঘর্ষে ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ সঙ্গীতাঙ্গন সহ বেশ ক’টি সংস্কৃতিক অঙ্গনে জ্বালাও পোড়াওয়ের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক অঙ্গনের নেতারা। সেই সঙ্গে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত বিচার দাবি করেন তারা। এছাড়াও নেতারা এ ধরনের ঘটনার জন্য পুলিশ প্রশাসনের ব্যর্থতার অভিযোগ করে বলেন, ‘পুলিশ চাইলে সমস্যা সমাধান করতে পারতো কিন্তু তা না করে বরং উসকে দিয়ে ধ্বংস করা হয়েছে বাংলা ঐতিহ্যবাহী ও সুর স¤্রাট আলাউদ্দিন খাঁ সহ সকল সাংস্কৃতি অঙ্গন।’
এদিকে এধরনের সংঘর্ষে বাংলার সাংস্কৃতিক ধ্বংসের অভিযোগ করে সাংস্কৃতিক জোটের উপদেষ্টা রফিউর রাব্বি বলেন, কোন জাতিকে ধ্বংস করতে প্রথমে সে দেশের সাংস্কৃতিকে বেছে নেয়। আর ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে তাই করা হয়েছে।’
বুধবার (২০ জানুয়ারি) বিকাল ৫টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে বৈরী আবহওয়ায় নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে ওই ঘটনার অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধনে বক্তারা এসব কথা বলেন।
অন্যদিকে সম্প্রতি ঘটে যাওয়া নারায়ণগঞ্জ শহরের ২ নং বাবুরাইল এলাকায় দুই শিশুসহ পাঁচজনকে শ্বাসরুদ্ধে হত্যা করার জন্য নারায়ণগঞ্জের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতি ও দেশে বিচারহীনতার সংস্কৃতিক করণেই খুন খারাবি বাড়ছে বলেও অভিযোগ করেন নেতারা।
বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক সুজিত সরকার বলেন, ঘটনার সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত কোন অপরাধীকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। বরং আন্দোলনকারীদের দাবি অনুযায়ী দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। কিন্তু ঘটনার মূল চক্রান্তকারীকে এখন খোঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হয়নি। যার নির্দেশে সংর্ঘষ তাকে দ্রুত বিচার আওতায় আনতে হবে।
ন্যাপের সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন বলেন, ‘মাওলানা কিংবা ওলামাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ না এটা ইসলামের নামে যারা দেশের সম্পদ ধ্বংস করে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে তাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ মানববন্ধন।’

জিয়াউল ইসলাম কাজল বলেন, প্রসাশন চাইলে সমস্যা গুলো সমাধান করতে পারতো কিন্তু তারা তা না করে উসকে দেয়ার করণে ধ্বংস করা হয়েছে। অবিলম্বে ইসলামের নামে যারা ধ্বংস যজ্ঞ চালিয়েছে এছাড়াও শিশু হত্যার জন্য যেসকল ছাত্রলীগের নেতাকর্মী এবং পুলিমের যেসকল সদস্যের ব্যর্থতায় এসব কর্মকান্ড হয়েছে তাদেরকে গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।
নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি জিয়াউল ইসলামের কাজলের সভাপতিত্ব ও সাধারণ সম্পদাক ধীমান সাহা জুয়েলের স ালনায় উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ), নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক সভাপতি ভবানী শংকর, প্রদীপ ঘোষ বাবু, গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতি জেলার অহবায়ক অঞ্জন দাস, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন জেলার সাধারণ সম্পাদক সজিব শরিফ প্রমুখ।
প্রসঙ্গত গত ১২ জানুয়ারি ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে কান্দিপাড়া জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুছিয়া মাদ্রাসার এক ছাত্রের বাগবিতন্ডা হয়।  এর জের ধরে সন্ধ্যায় মাদ্রসার ছাত্ররা জেলা পরিষদ মার্কেটের বিজয় টেলিকমের মালিক রনি আহমেদকে মারধরসহ দোকানে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে। এর কিছুক্ষণ পর ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও পুলিমের সঙ্গে মাদ্রাসার ছাত্রদের সংঘর্ষ হয়। এ সংঘর্ষে আহত এক ছাত্রের মৃত্যুর জের ধরে পরদিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহর জুড়ে সহিংস বিক্ষোভ ও ভাঙচুর চালায় মাদ্রসার ছাত্ররা। তারা রেলস্টেশন, আওয়ামী লীগের কার্যালয়, ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ সংগীতাঙ্গনসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে হামলা ও ভাঙচুর করে।

শীতে কাঁপছে নারায়ণগঞ্জ, মৃদু বাতাসের সঙ্গে বৃষ্টি

বুধবার সকাল থেকেই বৃষ্টি হয়েছে নারায়ণগঞ্জে বিভন্ন স্থানে। গত দু-তিন দিন যাবৎ শীতের শুষ্ক আবহাওয়ার পর সকাল থেকেই আকাশ মেঘাচ্ছন্ন ছিল, সাথে ছিল হালকা ও দমকা হাওয়া। হঠাৎ করেই বিকেল থেকে নামলো বৃষ্টি। মাঘ মাসের প্রথম সপ্তাহের শেষ বিকেলের এই বৃষ্টি সঙ্গে নিয়ে এসেছে হালকা মৃদু বাতাস যা কিনা মানুষের হাড়কেও কাপিয়ে তুলছে।
ধারণা করা হচ্ছে বৃষ্টির প্রভাবে আগামী কয়েকদিন শীতের তীব্রতা বাড়বে। এতে সমস্যায় পড়বে পথশিশুসহ নগরবাসী ও কর্মব্যস্ত মানুষরা।
বৃষ্টির বিকেলে কর্মস্থল থেকে বাসায় ফিরে যাবার সময় হাসান জাহিদ জানান, গত কয়েকদিনের মৃদু শীতের পর আজকের বৃষ্টির ফলে শীতের তীব্রতা বেড়ে গেছে। এতে করে সাধারন মানুষের অনেক কষ্ট হবে।
এদিকে বুধবারের নারায়ণগঞ্জের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৮ ডিগ্রী সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়।
এ সপ্তাহের মধ্যভাগে বেড়ে যেতে পারে শীতের তীব্রতা। তাপমাত্রা নেমে যেতে পারে ১১ ডিগ্রিও নিচে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।
বুধবার (২০ জানুয়ারি) আবহাওয়া অধিদফতরের দেওয়া পূর্বভাস অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার ছাড়া আরও কয়েক দিন দেশের কোনো কোনো এলাকায় বৃষ্টিপাত হতে পারে।
এদিকে শীত বাড়লে জেলার নিম্নবিত্ত পরিবার ও পথশিশুসহ অনেক পরিবারের সদস্যদের জন্য ব্যাপক সমস্যা দেখা দেবে। ইতোমধ্যে শীতের তীব্রতায় শহরের অনেক স্থানে মানুষকে আগুন জালিয়ে জটলা বেঁধে তাপ পোহাতে দেখা গেছে।

বাবুরাইলের বাড়িটি এখন ‘খুনের বাড়ি’

নারায়ণগঞ্জ শহরের বাবুরাইলে যে বাসায় ৫ খুনের ঘটনা ঘটেছে ওই বাড়িটি ঘিরে এখনো মানুষের কৌতুহল কাটছে না। বরং মানুষ এখনও উকি দিয়ে দেখছে এ বাসাটি। অথচ কয়েকদিন আগেও যে বাড়িটি ছিল মুখরিত সেটা এখন ক্রমশ ‘খুনের বাড়ি’ হিসেবেই মানুষ টিট করছে।
বুধবার সকালে ২নং বাবুরাইল এলাকার ইসমাইল হোসেনের বাড়ির নিচ তলার ওই বাসায়টি গিয়ে দেখা গেছে এ দৃশ্য। যেখানে গত শনিবার (১৬ জানুয়ারি) রাতে একই পরিবারের পাঁচজনকে হত্যা করে দুর্বত্তরা। যেখানের দুই জন নারী ও একজন পুরুষের সঙ্গে দুইজনকে শিশুকেও হত্যা করে তারা।
নিহত দুই শিশুর নাম মো. শান্ত (১০) ও তার ছোট বোন সুমাইয়া (৫)। ওই ঘটনায় তার মা তাসলিমা বেগম ও তার মামা মোরশেদুল ওরফে মোশারফ এবং চাচী লামিয়াকে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। তাদেরকে মাথায় ভোতা অস্ত্রের আঘাতে ও কয়েকজনকে শ্বাসরোধে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।
বেলা ১১টায় বাবুরাইলের ওই বাসায় যাওয়ার প্রথমে চোখে পড়ে বাড়ির রাস্তায় দুইজন পুলিশ টহল দিচ্ছেন। এছাড়াও ওই বাড়িতে যাওয়ার রাস্তা বাশ দিয়ে আটকে রাখা হয়েছে। কোন যানবাহন ওই গলির রাস্তায় প্রবেশ করতে না পারলেও স্থানীয় লোকজন প্রবেশ করতে কোন সমস্যা হচ্ছে না।
এদিকে ইসমাইল হোসেনের ছয়তলা ভবনের নিচ তলা গিয়ে দেখা গেছে বাড়িটার ভিতরে নিরবতা। নেই কোন মানুষ কিংবা কোন পশু পাখিও। নিচতলার ওই বাসায় সামনে গিয়ে প্রথম চোখে পড়ে বড় একটা তালা লাগানো আছে। আশে পাশে ফ্ল্যাটের দরজাও লাগানো। নিচ তলার আরো দুইটি ফ্ল্যাটের একটিতে লোকজন থাকলেও অপরটি ছিল বন্ধ। তবে ওই পরিবারের সদস্যদের মধ্যে আতঙ্কে রয়েছেন।
পাশের ফ্ল্যাটের রহিমা বেগম  জানান, ঘটনার রাতে পুলিশ লাশ নিয়ে যাওয়ার পর তারাই ওই বাসায় তালা লাগিয়ে দিয়ে যায়। এরপর থেকে পুলিশের লোকজন ছাড়া আর কেউ এখানে আসেনি। এমনকি তিনি নিহত পরিবারের কোন সদস্যকে ওই বাসায় আসতেও দেখনি।
এছাড়াও ওই দিনের ঘটনা সম্পর্কে তিনি  জানান, ওই দিন যা কিছু ঘটেছে তারা কিছু তারা ভালো ভাবে বলতে পারবেন না। কারণ ওইদিন সারাদিন ঘরে দরজায় তালা দেয়া ছিল। নিহত পরিবারের সদস্যরাই ঘরের তালা ভেঙে ঘরের ভিতরে প্রবেশ করে পাঁচজনের লাশ দেখে পুলিশে খবর দেয়। এরপর সব কিছু পুলিশই দেখছেন।
সরেজমিনে ঘরের ভিতরে গিয়ে দেখা গেছে, এখনও একটি রুমে রক্তের দাগ লেগে আছে। ঘরের ভিতরের আসবাবপত্রগুলো এলোমেলো ভাবেই পড়ে আছে। ওই রুমের বিছানার উপর বালিশ, লেপ, তোষক এলোমেলো ভাবে পড়ে আছে। এছাড়াও আরো কিছু জিনিস পত্র এলোমেলো ভাবে পড়ে আছে। অন্য রুমে থালা বাসন, হাড়ি পাতিলসহ বেশ কিছু আসবাবপত্র এলোমেলো ভাবেই পড়ে আছে।
প্রতিবেশি হাফিজা বেগম  বলেন, দুইদিন ধরে পুলিশ ছাড়া কাউকে এদিকে আসতে দেখি নাই। পুলিশ আসলে কিছু মানুষের ভীড় জমে কিন্তু পুলিশ যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে একবারে নিরব হয়ে যায়। কেউ খুনের ভয়ে ওই বাসার আশে পাশেও যায় না। ওই বাড়ির ভিতরের রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে বাড়ি মালিক। তাই এখন ভিতরের রাস্তাও বন্ধ। যার জন্য কোন মানুষ এদিক দিয়ে যাওয়া আশা করছে না।
প্রসঙ্গত, গত শনিবার রাতে নারায়ণগঞ্জ শহরের ২নং বাবুরাইল খানকা মোড় এলাকার একটি ফ্লাট বাড়িতে একই পরিবারের পাঁচজনকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। নিহতরা হলেন-তাসলিমা (৩৫), তার ছেলে শান্ত (১০), মেয়ে সুমাইয়া (৫), তাসলিমার ছোট ভাই মোরশেদুল (২২) ও তাসলিমার জা লামিয়া (২৫)। এ ঘটনায় ২ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। এছাড়াও গত রোববার সকালে নিহত তাসলিমার স্বামী শফিকুল ইসলাম বাদি হয়ে ভাগ্নে মাহফুজ, ঢাকার কলাবাগানের নাজমা ও শাহজাহানের নাম উল্লেখ করে তাদেরকে সন্দেহ করে সদর মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। রোববার রাতে মামলাটি জেলা গোয়েন্দা পুলিশের কাছে হস্তান্তরের নির্দেশ দেন পুলিশ সুপার।

৫ খুনের ঘটনার রহস্য উদঘাটন দ্রুত

নারায়ণগঞ্জ শহরের বাবুরাইলে একটি ফ্লাট বাসায় একই পরিবারের ৫জনকে খুনের ঘটনায় অতি দ্রুত চূড়ান্ত ফলাফল আসবে জানিয়েছেন তদন্তকারী সংস্থা ডিবি কর্মকর্তারা। তারা বলছেন, তারা চূড়ান্তের শেষ পর্যায়ে আছে যে কোন সময়ে একটি পজেটিভ রেজাল্ট জানানো হবে।
নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য মাহফুজ দিয়েছে এমনটাই নিশ্চিত করেছে মামলা তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। তারা জানিয়েছেন, কখনো কখনো মাহফুজ একেক ধরনের তথ্য দিচ্ছে।
এর আগে গত ১৮ জানুয়ারী আদালত মাহফুজের ৭ দিনের রিমা- মঞ্জুর করে আদালত। পরে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে মামলার তদন্তকারী সংস্থা ডিবি। এছাড়া পুলিশ ও র‌্যাবের একাধিক কর্মকর্তাও মাহফুজকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে।
অন্যদিকে ১৯ জানুয়ারী গ্রেপ্তার ১২ লাখ টাকা ঋণদাতা ঢাকার কলাবাগান এলাকার নাজমা আক্তারকে ৫দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ডিবি।
এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও  জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) এম এ খায়ের জানান, পাঁচ খুনের ঘটনায় এ পর্যন্ত ২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এবং তাদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।
জেলা পুলিশ সুপার ড. খন্দকার মহিদ উদ্দিন জানান, পাঁচখুনের রহস্য উদঘাটনে আমরা অনেকদূর এগিয়েছি। আশা করি সহসাই বিস্তারিত জানাতে পারব।
প্রসঙ্গত ১৬জানুয়ারী রাতে বাবুরাইল এলাকা থেকে তাসলিমা, তার ছেলে শান্ত ও মেয়ে সুমাইয়া, ভাই মোরশেদুল ওরফে মোশারফ ও জা লামিয়ার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তাদেরকে মাথায় ভোতা অস্ত্রের আঘাতে ও কয়েকজনকে শ^াসরোধে হত্যা করে ঘাতকরা। রবিবার সকালে নিহত তাসলিমার স্বামী শফিকুল ইসলাম বাদি হয়ে ভাগ্নে মাহফুজ, ঢাকার কলাবাগানের নাজমা ও শাহজাহানের নাম উল্লেখ করে তাদেরকে সন্দেহ করে সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ওইদিন রাতেই মামলাটি জেলা গোয়েন্দা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

নারায়ণগঞ্জ বিএনপিতে প্রকাশ্য আসছে কোন্দল, বাড়ছে জেলা ও নগর বিএনপির দূরত্ব

বিএনপির এই দুর্দিনেও দলের ঐক্যের পরিবর্তে দলের কোন্দল বাড়ছে প্রতিনিয়তই। জেলা বিএনপি ও নগর বিএনপির মধ্যে ব্যাপক দূরত্বের সৃষ্টিও হচ্ছে। জেলা বিএনপির নেতাকর্মীরা বিভিন্ন কর্মসূচীতে নগর বিএনপির কর্মীদের যেমন তাচ্ছিল্য করছে তেমনি নগর বিএনপিও দলের অন্যান্য বিভিন্ন গ্রুপের নেতাকর্মীদের সাথে মিলে জেলা বিএনপির বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে।

দলের এমন দুঃসময় যখন প্রয়োজন দলের জন্য কাজ করা, দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করে দলের জন্য রাজপথে কাজ করা, জনসচেতনতা বৃদ্ধি করা ঠিক সেসময় তা না করে নিজেদের স্বার্থ রক্ষায় নিজেদের জেদ বজায় রেখে দলের নেতাকর্মীদের কোন্দল এবং সংঘর্ষের দিকে ঠেলে দিচ্ছে দুটি সংগঠনের নেতারা। এমন অবস্থায় সাধারন নেতাকর্মীরা এই কোন্দলের মধ্যে কার রাজনীতি করবেন তা নিয়ে দেখা দিয়েছে প্রশ্ন। তাদের এই কোন্দলের কারনে বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনও ইতোমধ্যে দলের কর্মসূচী পালন থেকে নিজেদের দূরে রাখছে।
দিন দিন প্রকাশ্যে আসছে জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার ও তার সমর্থিত নেতাকর্মীদের সাথে নগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক এটিএম কামাল ও তার সমর্থকদের বিরোধ। ১৯ জানুয়ারি দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের জন্মদিনের দিন সকালে তৈমূরপন্থী  নেতাকর্মীরা কার্যালয়ে এটিএম কামালের সাথে অসৌজন্যমুলক আচরণ করে যা দলের একজন সিনিয়র নেতার জন্য অনেকটা অসম্মানের। তারই ধারাবাহিকতায় বিকেলে দলের সাবেক একজন জেলা ছাত্রদলের সভাপতির নেতাকর্মীদের নিয়ে পরবর্তীতে নগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক এটিএম কামাল কার্যালয়ে হাজির হন। তারা যখন হাজির হন তখন কার্যালয়ে কর্মসূচী পালন করছিলেন মহানগর যুবদল ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। এরা মূলত জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার বলয়ের নেতাকর্মী হিসেবেই পরিচিত। এদের মধ্যে মহানগর যুবদলের আহবায়ক মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদও সেখানে উপস্থিত ছিলেন যিনি তৈমূর আলম খন্দকারের আপন ছোট ভাই। এসময় কার্যালয়ে একই সময়ে কর্মসূচী পালন নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। কার্যালয়ের উপর থেকে তখন নগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক এটিএম কামালকে উদ্দেশ্য করে বিভিন্ন মন্তব্য করা হয় এবং নিচ থেকেই উপরের খোরশেদের নেতাকর্মীদের বিভিন্নভাবে গালিগালাজও করা হয়। দুপক্ষের মধ্যে এমন উত্তেজনাকর পরিস্থিতি দেখে অনেক নেতাকর্মী সেখান থেকে কর্মসূচী পালন না করে ফিরে আসেন।
জেলা বিএনপি ও নগর বিএনপির এহেন কার্যক্রমে দলের মধ্যে বিভেদের সৃষ্টি হবে বলেই দলের নেতাকর্মীরা মনে করছেন। আর তাদের এই ব্যক্তিগত রেষারেষি ব্যক্তিগত না রেখে তা দলের নেতাকর্মীদের মাঝে ছরিয়ে দেয়ার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন দলের অনেক নেতাই। প্রকাশ্যে না করলেই নিজেদের মধ্যে আলোচনায় দলের এই দুই নেতার বিষদগার করেছেন দলের প্রায় সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।
জানা যায়, আগে জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকারের সাথে ঘনিষ্ঠতা ছিল নগর বিএনপির এটিএম কামালের। তবে সম্প্রতি এটিএম কামাল জেলে যাবার পর থেকে সেই সম্পর্ক নষ্ট হয়ে যায়। তৈমুর যেমন কামালের খোঁজখবর নেননি তেমনি কামালও জোট বেঁধেছেন জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক কাজী মনির, জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি শাহ আলম, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন, নগর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক শওকত হাসেম শকুর সাথে। এতে করে তাদের মধ্যে বিরোধ প্রকাশ্য রূপ ধারণ করে। দলের নেতাকর্মীরা বিভক্ত হয়ে পড়ে দুটি গ্রুপ।
তবে জেল থেকে বের হবার পর কয়েকবার জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকারের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেছেন এটিএম কামাল তবে এতে সাড়া দেয়নি তৈমুর। এ ছাড়া একজন সিনিয়র সাংবাদিককে ম্যানেজ করে তৈমুরের সাথে তার ঢাকার মেহেরবা পাজায় সমঝোতা করতে যেয়েও পরবর্তীতে সেই সমঝোতা করতে সক্ষম হননি তিনি। সেখানে জেলা বিএনপির নেতাকর্মীরা থাকায় এবং বিএনপির নেতাকর্মীদের মাঝে এই সমঝোতার খবর ছড়িয়ে পড়লে সেখানে গিয়েও তার অফিসে না ঢুকে অফিসের নিচ থেকে ফিরে আসেন কামাল।

তবে জেলা বিএনপি ও নগর বিএনপির এই দূরত্ব দলের এই দুঃসময়ে দলকে শুধু বিভক্তই করবে বলে মনে করছেন বিএনপির বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা। তারা প্রত্যাশা করেন অবিলম্বেই জেলা বিএনপি ও নগর বিএনপির মাঝে চলমান এই কোন্দল নিরসন হয়ে দলদুটি আবার আগের মত সম্মিলিতভাবে দলের সকল কর্মসূচী পালন করবে। কারণ ঐক্যবদ্ধভাবে কর্মসূচী পালন করলে সেখানে জেলা বিএনপি, নগর বিএনপির সাথে দলের বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরাও স্বতঃস্ফূর্তভাবে  উপস্থিত থাকবে।

পালপাড়ায় দুইদিন ব্যাপী অনুকূল চন্দ্র ঠাকুরের অনুষ্ঠান

ঠাকুর অনুকূলচন্দ্রের ১২৮তম আবির্ভাব-বর্ষ স্মরণ মহোৎসব উপলক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ জেলা সৎসঙ্গের উদ্যোগে নারায়ণগঞ্জ শহরের নতুন পালপাড়া এলাকায় শ্রী শ্রী ঠাকুর অনুকূলচন্দ্র সৎসঙ্গ আশ্রমে ২দিনব্যাপী ধর্মসভার প্রথম দিনের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান এবং দ্বিতীয় দিনে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত আইভী।
বুধবার (২০ জানুয়ারি) জেলা সৎসঙ্গের প্রেরিত বার্তায় জানান, আগামী ২২ জানুয়ারি সকালে ৭টায় স্মৃতিচারণ, সমবেত প্রার্থনা, সদগ্রন্থাদি পাঠ, বিগ্রহ সমীপে প্রণাম ও অর্ঘ্যাঞ্জলি নিবেদনের ও সকাল ৯টায় নগর পরিক্রমার মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করবেন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক আনিছুর রহমান মিঞা।
এছাড়াও একই দিনের সন্ধ্যায় ৬টায় মহতী ধর্মসভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমানসহ অন্যান অতিথিরা। পরে রাত ৯টায় ঠাকুরের জীবনী ভিত্তিক নাটক ‘প্রেমের ঠাকুর’ পরিবেশন করা হবে।
পরদিন ২৩ জানুয়ারি সকাল ৭টায় প্রাত:কালীন সমবেত প্রার্থনা মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানের শুরু ও পরে সন্ধ্যা ৬টায় ধর্মসভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত আইভী সহ অন্য অতিথিরা। পরে রাত ৮টায় ভক্তিমূলক সংগীত পরিবেশনসহ ভক্তদের উদ্দেশ্যে প্রসাদ বিতরণ করা হবে।

নারায়ণগঞ্জে হত্যা, ধর্ষণ ও মাদকের মামলায় ৭ জন রিমান্ডে

নারায়ণগঞ্জে হত্যা, ধর্ষণ ও মাদকের পৃথক ৩টি মামলায় গ্রেফতারকৃত ৭ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। বুধবার দুপুরে গ্রেফতারকৃতদের ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এর মধ্যে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাইদুজ্জামান শরীফের রূপগঞ্জের পোশাক শ্রমিককে গণধর্ষণ মামলার আসামী নাজমুল ও মাঈনুলকে ১ দিন এবং রূপগঞ্জের সাবেক সিবিএ নেতা আনোয়ার হত্যা মামলায় গ্রেফতারকৃত রাজিবকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ২ দিনের রিমান্ড, অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট অশোক কুমার দত্তের আদালতে বন্দরে র‌্যাবের অভিযানে পণ্যবাহী ট্রাকে তল্লাশী চালিয়ে ২০ হাজার পিছ ইয়াবাসহ গ্রেফতারকৃত ৪ জন হযরত আলী, আব্দুল জলিল, মোহাম্মদ আলী ও শাহজাহানকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৪ দিন রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন। নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক হাবিবুর রহমান এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

রূপগঞ্জের গণধর্ষণ মামলায় ২ জন রিমান্ডে
২০১৫ সালের ৪ আগষ্ট নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার গোলাকান্দাইল নীলভিটা এলাকায় সিঁধ কেটে ঘরে প্রবেশ করে এক পোশাক শ্রমিককে হাত-পা, চোখ ও মুখ বেঁধে গণধর্ষণ করে দুর্বৃত্তরা। ওই ঘটনায় ইতিপূর্বে মেহেদী হাসান ও মোতালিব মিয়াকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বুধবার গ্রেফতারকৃত নাজমুল ও মাইনুলকে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে হাজির করা হলে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাইদুজ্জামান শরীফ ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

৪ মাদক ব্যবসায়ী রিমান্ডে
সোডা বোঝাই ট্রাকে করে স্কুলব্যাগ ও উরুতে বেধে পাঁচারকালে ২০ হাজার পিছ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ গ্রেফতারকৃত ৪ মাদক ব্যবসায়ীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট অশোক কুমার দত্তের আদালত। এর আগে ১৭ জানুয়ারী রাতে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার কামতাল তদন্ত কেন্দ্রের অদূরবর্তী বনলতা গ্যাস এন্ড ফিলিং স্টেশনের সামনে থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় র‌্যাব সদস্যরা তাদের কাছ থেকে মাদক বিক্রির নগদ সাড়ে ৯৭ হাজার টাকা উদ্ধার করে। গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে চাপাই নবাবগঞ্জ জেলার বারখরিয়া থানাধীন লক্ষীপুর গ্রামের এমদাদুল হকের ছেলে হযরত আলী (২৫), কক্সবাজার জেলার ঈদগা থানাধীন মধ্যম ফুকখালি গ্রামের ইসহাক মিয়ার ছেলে আব্দুল জলিল(৪৫), একই জেলার উখিয়া থানাধীন লেংগুরবিল গ্রামের আব্দুস সোবহানের ছেলে মোহাম্মদ আলী (৫০) ও পশ্চিম পালংখালি গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে শাহজাহান(৪৫)। এ ব্যাপারে র‌্যাব-১ ঢাকা উত্তরা সিপিসি-১ এর ডিএডি মোহাম্মদ নান্নু মিয়া বাদী হয়ে সোমবার সকালে বন্দর থানায় মাদক আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

আনোয়ার হত্যা মামলায় রাজিব রিমান্ডে
২০১৫ সালের ১০ ফেব্রুয়ারী রূপগঞ্জের কা ন পৌরসভার বিরাব এলাকায় আনোয়ার হোসেন (৫৫) নামের এক সিবি নেতাকে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। ওই ঘটনায় আসামীদের দেয়া স্বীকারোক্তিতে নাম আসা রাজীবকে গ্রেফতার করে তদন্তকারী সংস্থা সিআইডি। পরে আদালত রাজীবকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন বলে জানান সিআইডির নারায়ণগঞ্জ জোনের পরিদর্শক শামীম শিকদার।

৫ খুনে উঠে আসছে দুইজন নারী বিতর্ক

নারায়ণগঞ্জের আলোচিত একই পরিবারের ৫ জনকে হত্যার ঘটনায় নিহত দুই নারীকে নিয়েই সৃষ্টি হয়েছে রহস্যের বেড়াজাল। এর মধ্যে একজনকে নিয়ে ত্রিভুজ প্রেমের বিরোধ ও অপরজনের ঋনের লেনদেন। মামলা তদন্ত সংশ্লিষ্টরা এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। তবে ৫ খুনের ঘটনায় তিনজনের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনের কল রেকর্ড ও সেখানকার ভয়েস রেকর্ডের উপর নির্ভর করছে মামলার চূড়ান্ত কাজটি। শহরের বাবুরাইলে ফ্ল্যাট বাসায় একই পরিবারের ৫ জনকে হত্যার ঘটনার সন্তোষজনক পর্যায়ে পৌছেছে পুলিশ। সোমবার বিকেলে ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে গ্রেফতারকৃত ভাগ্নে মাহফুজকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।
দুই জা তাসলিমা ও লামিয়াকে নিয়ে রহস্যের বেড়াজাল : তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানান, শহরের বাবুরাইলের আলোচিত ৫ খুনের ঘটনায় নিহত দুই জা তাসলিমা ও লামিয়াকে নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে রহস্যের বেড়াজাল। কারণ তাসলিমা ও লামিয়ার দুই জা এর স্বামীরাই চাকুরীর সুবাদে বাড়ির বাহিরে থাকতেন। তাদের গৃহিনীদের চলাফেরা সম্পর্কে তাদের তেমন একটা ধারণা ছিলনা। যেমন শফিকুলের সঙ্গে তাসলিমার বিয়ে হয় ১২ বছর আগে। ঢাকার কলাবাগান এলাকায় বসবাসরত অবস্থায় আদম ব্যবসায়ী নাজমার কাছ থেকে চক্রবৃদ্ধি সুদে ৮ লাখ টাকা ঋন নিয়েছিল তাসলিমা। এছাড়া শাহজাহানসহ আরো কয়েকজনের কাছ থেকেও ঋন নিয়েছিল তাসলিমা। যার পরিমাণ দাড়িয়েছিল ১২ লাখ টাকা কিংবা তার উপরে। এসব নিয়ে প্রায়শই পাওনাদাররা হুমকি দিত। কিন্তু কি কারনে তাসলিমা ঋন নিয়েছিল সেটা অনেকবার জিজ্ঞেস করেও জানতে পারেননি শফিকুল। এ নিয়ে তাদের মধ্যে একটি মনস্তাত্বিক দূরত্ব ছিল। পাওনা টাকার বিষয় নিয়েও পরিবারে ছিল নানা অশান্তি। অপরদিকে নিহত তাসলিমার জা লামিয়ার সঙ্গে শফিকুলের ভাগ্নে মাহফুজের পরকীয়া সম্পর্ক ছিল বলে ধারনা তদন্ত সংশ্লিষ্টদের। যদিও মামলায় বলা হয়েছে ঢাকার কলাবাগানে যখন ভাড়া বাসায় থাকতো তখন লামিয়াকে যৌন সম্পর্কের জন্য চাপ দিত মাহফুজ। কিন্তু মামলার তদন্তকারীরা বলছেন, তাদের মধ্যে পরকীয়া সম্পর্ক থাকতে পারে। তদন্ত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দু’টি কারনেই মূলত শফিকুল তার পরিবারকে ঢাকার বাসা ছেড়ে নারায়ণগঞ্জের বাসায় আসার অনুমতি দেয়। যার একটি ছিল নিজ স্ত্রীর ঋন ও লামিয়ার সঙ্গে ভাগ্নে মাহফুজের যৌন কেলেংকারী। বাবুরাইলের বাসায় আসার পরেও লামিয়াকে বিরক্ত করতো মাহফুজ। এসব নিয়ে পরিবারে দেখা দেয় অশান্তি। এর মধ্যে ওই পরিবারের সঙ্গে তাসলিমার ভাই মোর্শেদুল বসবাস করায় বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ ছিল মাহফুজের। কারণ মাঝেমধ্যে লামিয়াকে যখন মাহফুজ এড়িয়ে চলতো তখন তার ধারণা ছিল হয়তো লামিয়ার সঙ্গে মোর্শেদুলের সম্পর্ক আছে। এসব নিয়ে এক পর্যায়ে মাহফুজ খুবই ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। তখন পরিবারের লোকজনদের দেখে নেয়ার হুমকিও দেয় মাহফুজ। তদন্ত সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র মামলার বরাত দিয়ে জানিয়েছে, মামলায় শফিকুল ইসলাম মূলত দুটি কারণ উল্লেখ করলেও তারা ভাগ্নে মাহফুজকে নিয়েই একটু বেশী এগুচ্ছে। তবে এখানে মামলায় যে দুটি বিষয় উল্লেখ করা হয় সেটি ছাড়াও পারিবারিক বিরোধের বিষয় নিয়ে কাজ করছেন তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। পুলিশের একটি সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, নিহত ৫জনের মধ্যে তাসলিমা, মোর্শেদুল ওরফে মোশাররফ ও লামিয়ার মোবাইল ফোনের ভয়েস রেকর্ড তদন্ত করেই এগুচ্ছে পুলিশ। তবে ইতোমধ্যে আটককৃতদের কাছ থেকে বেশ কিছু তথ্য পাওয়া গেছে যা তদন্তে সহায়ক হয়েছে। আর্থিক লেনদেন ও নারীঘটিত পারিবারিক সমস্যা দু’টি ক্ষেত্রকে গুরুত্ব দিয়ে তারা এগোচ্ছেন। তবে পারিবারিক বিরোধের বিষয়টিও উড়িয়ে দিচ্ছেন না তারা।

অ্যাডভোকেট শাকিলের মৃত্যু ‘হত্যাকা-’ ল্যাবএইডের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে আইনজীবী সমিতি

নারায়ণগঞ্জ আদালতের তরুণ আইনজীবী অ্যাডভোকেট আল মামুন শাকিলের মর্মান্তিক মৃত্যর ঘটনায় দায়ী করা হয়েছে ঢাকার ল্যাবএইড হাসপাতালকে। ওই হাসপাতালের চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসার কারনেই তার এমন অস্বাভাবিক মৃত্যু ঘটেছে বলে দাবি করেছেন আইনজীবীরা। নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতির উদ্যোগে বুধবার দুপুরে মরহুম অ্যাডভোকেট আল মামুন শাকিল স্মরণে শোক ও দোয়া মাহফিলে আইনজীবীরা ওই হাসপাতালের বিরুদ্ধে আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানায়।
ওই হাসপাতালের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য আহ্বান করেছেন আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান, অ্যাডভোকেট আব্দুল বারী ভূইয়া, সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট মাসুদ উর রউফ, সাবেক পিপি অ্যাডভোকেট নবী হোসেন, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল হামিদ খান ভাসানী ভূইয়া, সিনিয়র অ্যাডভোকেট রুহুল আমিন সহ অধিকাংশ আইনজীবী। তারা দাবি করেন এমন ভুল চিকিৎসার বিরুদ্ধে রুখে না দাঁড়ালে অ্যাডভোকেট আল মামুন শাকিলের মত আরো প্রাণ যাবে। তারা এও বলেছেন, এটা স্বাভাবিক মৃত্য না। এটা হত্যাকান্ড। তাই এ হাসপাতালের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা উচিত।
এ ব্যাপারে স্মরণ সভায় আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট হাসান ফেরদৌস জুয়েল বলেন, আমরা ওই হাসপাতালকে আইনী নোটিশ করব। চিকিৎসার জন্য কিভাবে অ্যাডভোকেট আল মামুন শাকিল মারা গেলেন তা জানতে চাওয়া হবে। তার আগে মরহুমের পরিবারের সাথে কথা বলে আমরা আইনজীবী এ সিদ্ধান্ত নিব। পরবর্তীতে আইনী প্রক্রিয়ায় যাবো।
উল্লেখ্য যে, আইনজীবীরা জানিয়েছে গত সোমবার ঢাকার ল্যাবএইড হাসপাতালে নাকের পলিপাস অপারেশন করতে গেলে অ্যাডভোকেট আল মামুন শাকিলকে অজ্ঞান করতে ৬টি ইনজেকশন করা হয়। পরবর্তীতে তার মৃত্যু ঘটে।
আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু এ শোক সভার সভাপতিত্ব করেছেন। স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট আব্দুর রহিম, সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট রুহুল আমিন, সমিতির সাবেক সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট সৈয়দ মশিউর রহমান শাহিন, অ্যাডভোকেট আশরাফুল আলম সিরাজী রাসেল সহ উপস্থিত ছিলেন শহীদ জিয়া আইনজীবী সংসদ সভাপতি অ্যাডভোকেট আজিজ আল মামুন, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এসএম গালিব, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট শরীফুল ইসলাম শিপলু, বঙ্গবন্ধু মহিলা আইনজীবী পরিষদের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট উম্মে হাবিবা মুক্তা ও সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট রাজিয়া আমিন কানচি সহ অন্যান্য আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন।
আইনজীবী সমিতির নেতাদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট হাসান ফেরদৌস জুয়েল, সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান হাবিব, সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল করিম, যুগ্ম সম্পাদক অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ মোহসীন মিয়া, ক্রীড়া সম্পাদক অ্যাডভোকেট আল মামুন ভুইয়া, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট ফাহমিদা আক্তার সিমি, মানবধিকার বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট শরীফ হোসেন, কার্যকরী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট সুমন মিয়া সহ সমিতির অন্যান্য কার্যকরী কমিটির নেতারা।

পাইকপাড়ায় শীতবস্ত্র দিল আমরা নারায়ণগঞ্জবাসী

অরাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন  ‘আমরা নারায়ণগঞ্জবাসী’ সংগঠনের ১৭ নং ওয়ার্ডের পাইকপাড়া শাখার উদ্যোগে বুধবার (২০ জানুয়ারি) সকাল ১১টায় শহরের পাইকপাড়া ছোট কবরস্থান এলাকায় সুবিধা বি ত মানুষের মধ্যে কয়েকশতাধিক শীতবস্ত্র কম্বল ও চাঁদর বিতরণ করা হয়।
সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি নূর উদ্দিন আহমেদ বলেন, আমরা নারায়ণগঞ্জবাসী সংগটন অবহেলিত নারায়ণগঞ্জের উন্নয়ন গ্যাস সংকট নিরসন, বিশুদ্ধ পানি এবং ওয়াসা কর্তৃক অযৌক্তিক কর ধার্য্যের বিরুদ্ধে আন্দোলন, পরিবেশ দূষণমুক্ত করণসহ ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ ডাবল রেইল লাইন দ্রুত বাস্তবায়নের দাবীতে নারায়ণগঞ্জবাসীকে নিয়ে আন্দোলনের পাশাপাশি প্রতি বতসর জনকল্যাণ মূলক কার্য্যক্রম অসহায় সুবিধা বি ত মানুষের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ, বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও ওষুধ বিতরণ, অসহায় বালকদের সুন্নতে খাতনা করে আসছে। তিনি আরো জানান,  আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি কাশিপুর হাজীপাড়া এলাকায় সংগঠনের পক্ষ থেকে সুন্নতে খাতনার কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে।

সংগঠনের পাইকপাড়া শাখার সভাপতি সাবেক কাউন্সিলর মুক্তিযোদ্ধা অলিউদ্দিন ভূইয়ার সভাপতিত্ব এবং সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হোসেন কাজলের পরিচালনায় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি নূর উদ্দিন আহমেদ, সভাপতি ম-লীর সদস্য অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান ইসমাইল, মুক্তিযোদ্ধা মো. আব্দুল কাদির, কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা শেখ ওয়াজেদ আলী বাবুল, সাধারণ সম্পাদক মো. নাসির উদ্দিন মন্টু, মহিলা শাখার আহবায়িকা আঞ্জুমান আরা আকসির, মহিলা শাখার যুগ্ম আহাবায়ক রোকসানা খবির, মহিলা শাখার যুগ্ম আহবায়িকা কাউন্সিলর খোদেজা খানম নাসরিন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাহমুদ হোসেন, রমজানুল রশিদ, মো. মনির হোসেন, মো. সেলিম হোসেন, শফিকুল ইসলাম খান, মো. আবুর সরদার, কামাল দেওয়ানন ও মাকিদ মোস্তাকিম শিপলু প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, আগামীতেও এ ধরনের জনহিতকর কর্মসূচী গ্রহণ করা হলে সার্বিক সহযোগীতা প্রদান করা হবে বলে আশ্বস্ত করেন এবং ১৭ নং ওয়ার্ড শাখাকে অভিনন্দন জানান।

অসহায়দের শীতবস্ত্র দিলেন কাউন্সিলর শকু, সঙ্গে ছিলেন এটিএম কামাল

নারায়ণগঞ্জ শহরের ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শওকত হাশেম শকুর উদ্যোগে ৫শ পিছ শীতবস্ত্র (কম্বল) বিতরণ করা হয়েছে। ওই সময়ে তাঁর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন এটিএম কামাল যিনি নগর বিএনপির সেক্রেটারী। শহরের ডনচেম্বারে ওয়ার্ড কাউন্সিল অফিস প্রাঙ্গনে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ওই শীতবস্ত্র বিতরণ চলে
১২ নং ওর্য়াড কাউন্সিলর শওকত হাসেম শকু জানান, আমার ওয়ার্ডের অনেক শীতার্ত গরীব মানুষের জন্য এবার তেমন কিছু সহযোগিতা করতে পারিনি। তবে সেলিম ওসমান এমপি মহোদয় এর দেয়া ৭৫০ পিস শাল পেয়ে  আমার ওয়ার্ডের জনগন ওনার কাছে চির কৃতজ্ঞ। একটি ওয়ার্ডে সকলের চাহিদা মেটানো সম্ভব নয়। তারপরও যারা শীত বস্ত্র পায়নি তাদের জন্য ৫শ কম্বল দেয়ার ব্যবস্থা আল্লাহর রহমতে করতে পেরে আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করছি।

চোখের জলে বিশিষ্ট সাংবাদিক মোমতাজ আহমেদের চির বিদায় দাফন সম্পন্ন

নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের স্থায়ী সদস্য বিশিষ্ট সাংবাদিক মোমতাজ আহমেদের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বুধবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে জানাযা শেষে পরে বাদ জোহর শহরের বেপারী পাড়া জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা শেষে কাশীপুর ঈদগাহ্ মাঠ সংলগ্ন কবরস্থানে তাঁর বাবা মায়ের কবরের পাশে  দাফন করা হয়। প্রেস ক্লাবের সামনে যখন আনা হয় তখন অনেক সহকর্মী সাংবাদিকদের চোখের নোনা জল ফেলতে দেখা গেছে। প্রবীণ এ সাংবাদিকের প্রতি বিন¤্র শ্রদ্ধা জানান সাংবাদিকেরা।
এর আগে মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তার দুই নম্বর বাবুরাইলের নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেছেন।
বুধবার  বেলা সাড়ে ১১ টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব চত্ত্বরে মরহুমের মরদেহ আনা হয়। এসময় শহরের সর্বস্তরের মানুষ তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে আসেন। নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব, নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়ন, সাংবাদিক সংগ্রাম পরিষদ, দৈনিক খবর প্রতিদিন পরিবার, নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতি মরহুমের মরদেহে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। শ্রদ্ধা নিবেদনের পর মরহুমের প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। নামাজে জানাজা পরিচালনা করেন হাফেজ মোঃ শামীম।
প্রয়াত সাংবাদিক মোমতাজ আহমেদ ১৯৪৬ সালের ৪ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করেন। কর্মময় জীবনে তিনি দৈনিক দেশ পত্রিকায় যোগদানের মাধ্যমে সাংবাদিকতায় আসেন। পরে দীর্ঘদিন দৈনিক আল মুজাদ্দেদ পত্রিকার চীফ রির্পোটার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। দৈনিক প্রতিদিন সকাল পত্রিকার উপদেষ্টা সম্পাদক হিসেবে কাজ করেছেন। মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ থেকে প্রকাশিত দৈনিক খবর প্রতিদিন পত্রিকার সাথে জড়িত ছিলেন। তিনি জাতীয় প্রেসক্লাবের স্থায়ী সদস্য এবং বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টাস এসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন। সাংবাদিকতার পাশাপাশি তিনি বিভিন্ন ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলেন। ছাত্রজীবনে তিনি নারায়ণগঞ্জ সরকারী তোলারাম কলেজের জিএস ছিলেন।
আগামী ২২ জানুয়ারি শুক্রবার বাদ আসর শহরের বেপারীপাড়া জামে মসজিদে তার কুলখানি উপলক্ষে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। উক্ত দোয়া মাহফিলে সকলকে অংশগ্রহণ করার জন্য মরহুমের পরিবার অনুরোধ জানিয়েছেন।
নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি হালিম আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শ্রদ্ধা নিবেদন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের প্রশাসক আব্দুল হাই। ক্রীড়া ব্যাক্তিত্ব কুতুব উদ্দিন আকসির, নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক নাফিজ আশরাফ, সাবেক সভাপতি হাবিবুর রহমান বাদল, ফজলুল হক, মাহবুবুর রহমান মাসুম, আরিফ আলম দীপু, রুমন  রেজা, ক্লাবের নির্বাহী সদস্য বিমল রায়, সাবেক সাধারণ সম্পাদক খন্দকার শাহ্ আলম, আবু সাউদ মাসুদ, সাংবাদিক বিমান ভট্রাচার্য, ফজলুল বারী, শংকর কুমার দে, ফজলুর রহমান, হাফিজুর রহমানি মিন্টু, নাহিদ আজাদ, অরুন কুমার দে, শরীফউদ্দিন সবুজ, বিল্লাল হোসেন রবিন, রফিকুল ইসলাম জীবন, রফিকুল ইসলাম রফিক, আমির হুসাইন স্মিথ, শফিকুল ইসলাম, পুলক হাসান, আবু আল আমিন খান, নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির সভাপতি এডভোকেট এ বি সিদ্দিক, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির নেতৃবৃন্দ, নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নেতৃবৃন্দ, দৈনিক খবর প্রতিদিনের সম্পাদক এসএম ইকবাল রুমি ও নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক সংগ্রাম পরিষদের নেতৃবৃন্দ প্রমুখ। এছাড়া নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকমের এডিটর ইন চিফ শাহজাহান শামীম সহ নিউজ নারায়ণগঞ্জ পরিবার ও দৈনিক সময়ের নারায়ণগঞ্জ তাঁর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন।

রূপগঞ্জে ওলামাদলের মিলাদ মাহফিলে তৈমূরকে স্থায়ী কমিটিতে রাখার দাবী

সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৮০তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার তারাব পৌর ওলামাদল ২০ জানুয়ারি বুধবার আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করেন। তারাব পৌর ওলামাদলের সভাপতি মো. কামাল খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ওলামাদলের কেন্দ্রিয় কমিটির সহসভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ জেলা ওলামাদলের সভাপতি মুন্সি সামছুর রহমান খান বেনু। এ সময় উপস্থিত ছিলেন রূপগঞ্জ থানা ওলামাদলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাই তালুকদার, প্রচার সম্পাদক বকুল মিয়া, তারাব পৌর ওলামাদলের দপ্তর সম্পাদক আবুল কালাম মোল্লা, প্রচার সম্পাদক শাহ আলম, কায়েতপাড়া ইউনিয়ন ওলামাদলের সভাপতি শাহজাদা, নাজিম ভুঁইয়া, মুড়াপাড়া ইউনিয়নের সহসভাপতি মজিবর মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক কবির হোসেন, তারা মিয়া, সামসুদ্দোহা খান, মনসুর মিয়া, সোনারগাঁও থানা ওলামাদলের প্রচার সম্পাদক আলী হোসেন প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন, বিএনপি শান্তিপূর্ণ নেতৃত্বে বিশ্বাসী। নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে একটি জাতীয় নির্বাচন দাবি করেন তারা। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সরকারকে নিরপেক্ষ থেকে সুষ্ঠু নির্বাচন গ্রহণের দাবি জানান। এ সময় তারা নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি এডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারে বিএনপির স্থায়ী কমিটিতে রাখারও আহবান জানান। বক্তারা আরো বলেন, বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে ওলামাদল ঐক্যবদ্ধ আছে। পরে জিয়াউর রহমানের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া শেষে তবারক বিতরণ করা হয়।

সিদ্ধিরগঞ্জে ৪ দিন যাবত নিখোঁজ বাক প্রতিবন্ধী
গত ৪ দিন যাবত সিদ্ধিরগঞ্জে এক বাক প্রতিবন্ধী নিখোঁজ রয়েছে। ছেলেটিকে না পেয়ে তার মা-বাবা অসুস্থ্য হয়ে পড়েছে। বিভিন্নস্থানে খোঁজ নিয়েও তাকে পাওয়া যাচ্ছে না। এলাকাবাসী জানায়, সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি পূর্বপাড়া মজিববাগ এলাকা থেকে ১৬ জানুয়ারী বিকালে হারিয়ে যায় আল-আমিন নামের ১৭ বছর বয়সের এক বাক প্রতিবন্ধী। সে থেকে তাকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। আল-আমিনের দরিদ্র পিতা-মাতা তাকে না পেয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়েছে। তার স্বজনরা তাকে খুঁজছে সম্ভাব্য বিভিন্নস্থানে। কিন্তু তারা তাকে পাচ্ছে না। এ ঘটনায় আল-আমিনের মা কুলসুম বেগম সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় ১৭ জানুয়ারী একটি জিডি (নং-৩০৭) এন্ট্রি করে। বাক প্রতিবন্ধী আল-আমিনের উচ্চতা আনুমানিক ৪ ফুট। গায়ের রং শ্যামলা। মুখ মন্ডল লম্বা। তার কোন খোঁজ পেলে ০১৯২০৭২৬৯৭৩ নাম্বারে যোগাযোগ করতে অনুরোধ করেছেন তার মা কুলসুম বেগম।

সিদ্ধিরগঞ্জে শ্রেণী কক্ষে এক ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে ছাত্রকে গ্রেফতার

সিদ্ধিরগঞ্জে স্কুলের শ্রেণী কক্ষে ৮ম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে দ্বাদশ শ্রেণীর এক ছাত্রকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার সকালে সিদ্ধিরগঞ্জের জালকুড়ি হাই স্কুল এন্ড কলেজের ৫ম তলায় এ ঘটনাটি ঘটে। এসময় ওই ছাত্রীর আত্মচিৎকারে সহপাঠী ও শিক্ষকরা তাকে আটক করে বখাটে সোহান প্রধানকে পুলিশে সোপর্দ করে।
এ ব্যাপারে মঙ্গলবার রাতে কলেজের অধ্যক্ষ বাদী হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করে। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি সরাফত উল্লাহ জানান, সকালে সাড়ে ৮টার দিকে অন্যান্য সহপাঠি বান্ধবীদের সাথে ৪র্থ তলায় লুকোচুরি খেলা করছিল এসময় ৮ম শ্রেনীর এক ছাত্রী। লুকোচুরি খেলার এক পর্যায়ে ঐ ছাত্রী ৫ তলায় গিয়ে একটি শ্রেণী কক্ষে লুকায়। এসময় দ্বাদশ শ্রেনীর ছাত্র সোহান প্রধান (১৯) তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এসময় ওই ছাত্রীর আত্মচিৎকারে সহপাঠি ও শিক্ষকরা তাকে আটক করে বখাটে সোহান প্রধানকে পুলিশে সোপর্দ করে। গ্রেফতারকৃত সোহান জালকুড়ি মধ্যপাড়া এলাকার নূর উদ্দিন প্রধানের ছেলে। এ বিষয়ে মঙ্গলবার রাতে করেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শিক্ষক আমিরুল ইসলাম মোমেনীন বাদী হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন।

কারাবন্দি নেতাদের মুক্তি দাবি জাফর ও কামালের ‘আন্দোলন দমবে না’

‘দেশে গনতন্ত্র আজ অবরুদ্ধ, সুশাসন সুদূরপরাহত। অবৈধ সরকারের দুঃশাসনে দিশেহারা দেশের মানুষ। গনতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য যারা লড়াই করছে তাদেরকে কারাগারে পাঠানো হচ্ছে। মিথ্যা বানোয়াট মামলায় হাজার হাজার নেতাকর্মী আজ কারাবন্দি। আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়েও নেতাকর্মীরা রেহাই পাচ্ছে না। বিএনপিকে সাংগঠনিক ভাবে দূর্বল করার জন্যই নেতাকর্মীদের একের পরে এক মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাগারে প্রেরন করে নির্যাতন করা হচ্ছে। তবে শত নির্যাতন করেও এই স্বৈরাচার সরকার বিএনপির গনতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলন দাবিয়ে রাখতে পারবে না। দেশের জনগন তাদের সমূচিত জবাব দেওয়ার জন্য প্রস্তুত রয়েছে। গনবিস্ফোরন বা ভোট বিপ্লবে এই অবৈধ সরকারের পতন সময়ের ব্যাপার মাত্র।’
সদর ও আড়াইহাজার থানার দুটি নাশকতার মামলার হাজিরা দিয়ে আদালতে থেকে আইনজীবীদের নিয়ে বেড়িয়ে যাওয়ার সময় উপস্থিত নেতাকর্মী ও সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে নারায়ণগঞ্জ নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল এসব কথা বলেন।
বুধবার ২০ জানুয়ারি সকাল ১০টায় মামলার হাজিরা দিতে আদালতে আসেন নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল সহ ২০ দলীয় জোটের নেতৃবৃন্দ। আদালতে এটিএম কামাল ও ২০ দলীয় জোটের নেতৃবৃন্দদের পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম নেতা অ্যাডভোকেট খোরশেদ মোল্লা ও অ্যাডভোকেট সিদ্দিকুর রহমান।
এসময় এটিএম কামাল সদ্য কারাবন্দি সোনারগাঁও থানা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী নজরুল ইসলাম টিটু, পৌর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির রফিক, থানা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রউফ, জেলা জাসাস নেতা শাহজাহান মেম্বার, জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক হারুন উর রশিদ মিঠু, ছাত্রদল নেতা খায়রুল ইসলাম সজীব, আশরাফ মোল্লা, বিএনপি নেতা সেলিম, জুয়েল হোসেন, মাসুদ, আল-আমিন, হাবুল, বাহাউদ্দীন, ইব্রাহীম, মুকবুল হোসেন, মোহাম্মদ আলী, শাহজাহান, মাসুম আহম্মেদ মোল্লা, আলিনূর, তোফাজ্জল হোসেন, স্বপন, আলেক, মহসিন, বিল্লাল হোসেন, মন্টু, আতাউর রহমান, খোরশেদ, সেলিম, মেহাল উদ্দীন, রানা, আক্কাস আলী, মনির হোসেন, শাহপরাণ, আরিফ, লুৎফর রহমান, রমজান, জুয়েল সহ কারাবন্দি সকল নেতাকর্মীর অবিলম্বে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও মুক্তি দাবী করেন।
এদিকে কারাবন্দী নেতাদের মুক্তি দাবী করেছে সোনারগাঁও থানা বিএনপির সভাপতি খন্দকার আবু জাফর।

নারায়ণগঞ্জে ৪ কারখানাকে ১৫ লাখ টাকা অর্থদ-

দূষণবিরোধী অভিযানের কার্যক্রম হিসেবে নারায়ণগঞ্জে চারটি শিল্প কারখানাকে ১৫ লাখ ৩০ হাজার টাকা অর্থদ- করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর। বুধবার পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক (মনিটরিং অ্যান্ড এনফোর্সমেন্ট) একেএম মিজানুর রহমান সদর দপ্তরে ওই কারখানা মালিকদের তলব করে শুনানী শেষে এ দ- করেন।
পরিবেশ অধিদপ্তর তাদের প্রেরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, ত্রুটিপূর্ণ ইটিপির মাধ্যমে কারখানা পরিচালনা করে পরিবেশ ও প্রতিবেশের ক্ষতিসাধনের অপরাধে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার ক্রিয়েটিভ পেপার মিলস লিমিটেডকে ৭লাখ টাকা, একই অপরাধে একই উপজেলার মেসার্স নাভানা ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেডকে ৩০ হাজার টাকা, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার সেহাচর এলাকার চাঁদ ডাইং অ্যান্ড প্রিন্টিং কারখানাকে ২লাখ ও ফতুল্লার কুতুবপুর এলাকার কদম রসুল ডাইং কারখানাকে ৬ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ ধার্য করা হয়।

আড়াইহাজারে রোগাক্রান্ত গরুর মাংস বিক্রি, গ্রেফতার ২
নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকম : আড়াইহাজারে রোগাক্রান্ত গরুর মাংস বিক্রির অভিযোগে ২ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার দুপুরে উপজেলার মানিকপুর বাজার থেকে এদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলেন, উপজেলার গহরদী গ্রামের মজিবুর রহমান (৪৫) ও তার ছেলে সফিকুল (২২)।
আড়াইহাজার থানার ওসি সাখাওয়াত হোসেন জানান, মঙ্গলবার রাতে গরুর মালিক মজিবুর মানিকপুর বাজারের কসাই জহিরের সাথে কমদামে বিক্রির চুক্তি করেন। পরে বুধবার সকালে মাংস গুলো নিয়ে মানিকপুর আসেন মজিবুর ও তার ছেলে। গোপনে খবর পেয়ে পুলিশ তাদের প্রায় ৩ মণ মাংসসহ  গ্রেফতার করে।
ওসি আরো জানান, মাংস গুলো মাটিতে পুতে ফেলা হয়। আর গ্রেফতারকৃতদের কোর্টে প্রেরণ করা হয়।

আড়াইহাজারে কোয়েল পাখির খামারে আগুন

আড়াইহাজারে একটি কোয়েল পাখির খামারে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার রাতে উপজেলার পোপালদী পৌর সভার টোকসাদী গ্রামের মিয়া চানের খামারে এই ঘটনা ঘটে। খামারের মালিক মিয়া চান জানান, রাত সাড়ে ৩টার দিকে কেবা কারা আমার কোয়েল পাখির খামারে আগুন ধরিয়ে দেয়। আগুনে খামারে দুপাশের পর্দার কাপড় পুড়ে যায়। এসময় খামারে থাকা শতাধিক কোয়েল পাখি আগুনে পুড়ে যায়। আগুন নিয়ন্ত্রণ করার সময় প্রায় হাজার হাজার পাখি উড়ে চলে যায়।
আড়াইহাজার থানার ওসি সাখাওয়াত হোসেন জানান, এটি দুর্ঘটনা নাকি নাশকতা তা তদন্ত  করা হচ্ছে। মালিক জানান, সাড়ে ৬ হাজার পাখি খামারে ছিল।

সিদ্ধিরগঞ্জে স্বর্ণের দোকানে চুরি
সিদ্ধিরগঞ্জের স্বর্ণের দোকানে চুরির ঘটনা সংঘঠিত হয়েছে। এসময় চোরের দল সাড়ে ১২ ভরি স্বর্ণ ও ৩৫০ ভরি রোপা চুরি করে বলে দোকান মালিক থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। সিদ্ধিরগঞ্জের রসুলবাগ বটতলা এলাকায় হক জুয়েলার্স নামক দোকানে এ চুরির ঘটনাটি ঘটে।
হক জুয়েলার্স এর মালিক মনির হোসেন জানান, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে দোকান বন্ধ করে বাসায় চলে যাই। সকালে এসে দেখি দোকানের সিলিং কাটা। আসবারপত্র এলামেলো তালা ভাঙ্গা। দোকানে রক্ষিত  ৩৫০ ভরি রোপা ও সাড়ে ১২ ভরি স্বর্ণ নাই। পরে দোকান মালিক মনির হোসেন বাদী হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি সরাফত উল্লাহ জানান, চুরির ঘটনায় অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওযা হবে।

সিদ্ধিরগঞ্জে মাদক ব্যবসায় বাধা দেয়ায় গুলি : জসিমের বাড়িতে র‌্যাবের অভিযান

নারায়ণগঞ্জ মহানরের সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল মাঝিপাড়া এলাকায় জসিমউদ্দিনের বাড়িতে অভিযান চালিয়েছিল র‌্যাব। ওই সময়ে জসিম বাড়িতে না থাকায় তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি র‌্যাব। মঙ্গলবার রাতে র‌্যাব-১১ এর একটি দল ওই অভিযানটি চালায়।

মাদক ব্যবসা বাধা দেওয়ার ঘটনায় গুলি ও হামলার ঘটনায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করলেও রহস্যজনক কারনে পুলিশ কোনো আসামীকে গ্রেফতার করেনি। মামলার পর জসিম ওরফে গলাকাটা জসিম এলাকায় থাকছে না।
উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার বিকালে নিউ লক্ষ্মীনারায়ণ কটন মিলস্ স্কুল সংলগ্ন এলাকায় মাদক আটককে কেন্দ্র করে রুবেল মাদবর ও শামীম মাদবর নামের দুই যুবককে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটে। পরে এ হামলার ঘটনায় মামলা দায়ের করা হলেও এখন পর্যন্ত পুলিশ কোন আসামী গ্রেফতার না হওয়ায় এবং জসিমের অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার না হওয়ায় এলাকায় চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। আহত রুবেল মাদবরের পিতা মোঃ মনির হোসেন বাদী হয়ে গলাকাটা ফেন্সী জসিমকে প্রধান আসামী করে ৪ জনের নাম উল্লেখ করা ছাড়াও অজ্ঞাত ৫/৬ জনকে আসামী করা হয়েছে।
১০ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মনির হোসেন বলেন, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমানের নির্দেশে এলাকাকে মাদকমুক্ত করতে তারা কাজ করছেন। এর ধারাবাহিকতায় মাদক বিক্রয়ে বাধা দিলে এ ঘটনা ঘটে।
সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সরাফত উল্লাহ জানান, মারামারি ও লাটপাটের ঘটনায় থানায় মামলা নেওয়া হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।

কারাবন্দী সোনারগাঁও বিএনপির ৩৭ নেতাকর্মীর মুক্তি দাবি স্বেচ্ছাসেবক দলের

সদ্য কারাবন্দি সোনারগাঁও থানা বিএনপির ৩৭ নেতাকর্মীর নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেছেন সোনারগাঁও থানা স্বেচ্ছা সেবক দল। বুধবার প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে নেতাকর্মীদের মুক্তি দাবি করেন সোনারগাঁও থানা স্বেচ্ছা সেবক দলের আহ্বায়ক মোঃ সালাউদ্দিন সালু ও সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আবু সিদ্দিক মোল্লা।
প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করেন, সোনারগাঁও থানার ২টি নাশকতার মামলায় বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের ৩৭ নেতাকর্মী আদালতে আত্মসমর্পণ করলে বিচারক তাদের জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন। গত সোমবার দুপুরে তারা নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক মিয়াজী শহিদুল আলম চৌধুরী আদালতে আত্মসমর্পন করলে তাদের জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন তিনি।
সোনারগাঁও পৌর বিএনপির সহ-সভাপতি শাহজাহান মেম্বার, সোনারগাঁও থানা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাজী নজরুল ইসলাম টিটু, সোনারগাঁও পৌর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির রফিক, থানা যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি আতাউর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রউফ, জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক হারুন উর রশিদ মিঠু, ছাত্রদল নেতা আশরাফ মোল্লা, মোগরাপাড়া ইউনিয়ন যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক খোরশেদ আলম, ছাত্রনেতা খায়রুল ইসলাম সজীব ও থানা শ্রমিক দলের সাধারন সম্পাদক জুয়েল রানাসহ ৩৭ নেতাকর্মীর নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেছেন সোনারগাঁও থানা স্বেচ্ছা সেবক দল।
সোনারগাঁও থানা স্বেচ্ছা সেবক দলের আহ্বায়ক মোঃ সালাউদ্দিন সালু বলেন, দেশে গনতন্ত্র আজ অবরুদ্ধ, সুশাসন সুদূরপরাহত। অবৈধ সরকারের দুঃশাসনে দিশেহারা দেশের মানুষ। গনতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য যারা লড়াই করছে তাদেরকে কারাগারে পাঠানো হচ্ছে। মিথ্যা বানোয়াট মামলায় হাজার হাজার নেতাকর্মী আজ কারাবন্দি। আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়েও নেতাকর্মীরা রেহাই পাচ্ছে না। বিএনপিকে সাংগঠনিক ভাবে দূর্বল করার জন্যই নেতাকর্মীদের একের পরে এক মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাগারে প্রেরন করে নির্যাতন করা হচ্ছে। তবে শত নির্যাতন করেও এই স্বৈরাচার সরকার বিএনপির গনতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলন দাবিয়ে রাখতে পারবে না। দেশের জনগন তাদের সমূচিত জবাব দেওয়ার জন্য প্রস্তুত রয়েছে। গনবিস্ফোরন বা ভোট বিপ্লবে এই অবৈধ সরকারের পতন সময়ের ব্যাপার মাত্র।

বন্দরে আছিয়া খাতুন নিখোঁজ

আছিয়া খাতুন (৯৫) নামে এক বৃদ্ধা মহিলা নিখোঁজ হয়েছে। গত সোমবার সকাল ১১টায় বন্দর থানার মাহমুদনগর কেএনসেন রোডস্থ  বাড়ী থেকে রাস্তায় হাটার জন্য বের হয়ে আর বাড়ি ফিরেনি। বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুজি করে না পেয়ে নিখোঁজ বৃদ্ধার ছেলে সাদেক মিয়া বুধবার দুপুরে বন্দর থানায় জিডি এন্ট্রি করেছেন। জিডি নং- ৮৫৭ তাং- ২০-১-১৬ইং। নিখোঁজ মহিলা আছিয়া খাতুন একই এলাকার মৃত কুদরত আলীর স্ত্রী।

বন্দরে বিভিন্ন মামলার ওয়ারেন্টে গ্রেপ্তার-২

বন্দর থানা পুলিশ মাদক ও চুরি মামলার ২ জন ওয়ারেন্টভুক্ত পলাতক আসামীকে গ্রেপ্তার করেছে। গত মঙ্গলবার রাতে বন্দর থানার সোনাকান্দা ও সেনেরবাড়ি এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলো বন্দর থানার সোনাকান্দা এলাকার মোহাম্মদ আলী মিয়ার ছেলে মাদক মামলার পলাতক আসামী আলমগীর ওরফে টেপা (৩৫) ও ধামগড় সেনেরবাড়ী এলাকার শহিদুল্লাহ মিয়ার ছেলে চুরি মামলার আসামী কবির হোসেন (৩৫)। গতকাল বুধবার সকালে তাদের আদালতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

Related posts