September 19, 2018

”৩০০মিলিয়ন ডলারের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী পুত্রের বক্তব্য দাবী” (ভিডিও)

নাজমুল হোসেন, লন্ডন থেকেঃ মার্কিন আদালতে জমা দেয়া রিপোর্টে প্রধানমন্ত্রী পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়কে অপহরণ কিংবা দৈহিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করার অভিযোগ আদালত গ্রহণ করেনি। তা সত্বেও ভিত্তিহীন অভিযোগে ঢাকায় পুলিশ শফিক রেহমানের বিরুদ্ধে মামলা করেছে বলে অভিযোগ করেছেন আজ মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যে অনুষ্ঠিত একটি সংবাদ সম্মেলনে।        (নীচে ভিডিওযুক্ত)

শফিক রেহমান প্রতিষ্ঠিত সংগঠন সাপোর্ট লাইফ ইউকে’র উদ্যোগে পূর্ব লন্ডনের স্থানীয় একটি রেস্টুরেন্টে সলিসিটর বিপ্লব পোদ্দারের পরিচালনায় লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠক ও বিশিষ্ট সাংবাদিক শামসুল আলম লিটন। আর শফিক রেহমানের মামলার চার্জশীট ও রায়ের তথ্য পর্যালোচনা করে উপস্থাপন করেন ব্যারিস্টার মাহাদী হাসান।

লিখিত বক্তব্যে বলেন, আদালতে পেশকৃত মার্কিন সরকারের ডকুমেন্টে উল্লিখিত ব্যক্তি অর্থাৎ সজীব ওয়াজেদ জয়ের ৩০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার যা প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকার সন্দেহজনক লেনদেনের বিষয়ে সকলে সরকারের কাছে জানতে চাই। শেয়ার মার্কেট ও ব্যাংকগুলোর যে হাজার হাজার কোটি টাকা লুট হয়েছে তারও কোনো বিচার হচ্ছে না। এই দুই বিষয়ের মধ্যে কোনো যোগসূত্র আছে কি না- এটা জানার অধিকার অবশ্যই সকলের আছে। আর তাই সকলে এ ব্যাপারে নিরপেক্ষ ও কার্যকর তদন্ত চায়।

সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, বিবিসির প্রাক্তন সাংবাদিক শফিক রেহমান একজন ‘অনুসন্ধানী সাংবাদিক’। কোনো বিষয় না খতিয়ে ও প্রমান সংগ্রহ ছাড়া লেখেন না। তিনি সাংবাদিক হিসেবে হয়তো তথ্য সংগ্রহ করে রেখেছেন।তাতে তো তাঁর কোন অপরাধ হতে পারে না।

কিন্তু প্রধানমন্ত্রী পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয় একের পর এক অনলাইনে যেভাবে স্ট্যাটাস’ দিয়ে যাচ্ছেন, তাতে তদন্তকাজ অবশ্যই প্রভাবিত হচ্ছে ও তিনি সুবিচারের অধিকার হারাচ্ছেন।

সাংবাদিক শফিক রেহমানের স্ত্রী তালেয়া রেহমান তার বয়স, অসুস্থতা ও রিমাণ্ডের নামে নির্যাতনের ফলে তার জীবনহানির যে আশঙ্কা করেছেন তাঁর সাথে সংবাদ সম্মেলনে একমত পোষণ করে উদ্ধিগ্নতা প্রকাশ করা হয়।

শফিক রেহমানকে শীগ্রই মুক্তি না দিলে সম্মেলন থেকে তাদের পরবর্তী কর্মসূচী ঘোষণা করা হয়ঃ

১. আগামী ১৭ মে যুক্তরাজ্যে (লন্ডন, বার্মিংহাম ও ম্যানচেস্টার), ইউরোপ ও দক্ষিন আমেরিকার বিভিন্ন শহরে বাংলাদেশ মিশনে স্বারকলিপি পেশ।

২. জুন মাস ব্যাপী জনসংযোগ এবং বিভিন্ন কুটনৈতিক ও আন্তর্জাতিক কতৃপক্ষের দপ্তরে সভা ও জনসংযোগ।

৩. ১২ জুলাই মঙ্গলবার হাইডপার্কে একই দাবিতে সমাবেশ।

৪. দুর্নীতি ও সন্ত্রাস নিয়ে কনভেনশন- জুলাই শেষ সপ্তাহে ২০১৬ (তারিখ ও স্থান পরে জানানো হবে )।

আজকের সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত সাংবাদিক ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ভয়েস ফর জাস্টিস’এর প্রধান ড. এম হাসনাত হোসেইন, বাংলাদেশ জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন ইউ কে’র প্রেসিডেন্ট আবু তাহের চৌধুরী, ব্যারিস্টার আলিমুল হক লিটন, ব্যারিস্টার হাসনাত, সাংবাদিক অলিউল্লাহ নোমান ও সাংবাদিক নাজমুল হোসেন প্রমুখ।

এছাড়াও বিশ্বের বিভিন্ন দেশ যেমন আমেরিকা, কানাডা, সুইডেন, ইটালি থেকে বিভিন্ন মানবাধিকার কর্মীরা শফিক রেহমানের আশু মুক্তির দাবীতে একাত্মতা প্রকাশ করেন।

 ভিডিওঃ বিশিষ্ট সাংবাদিক শফিক রেহমান-এর অবিলম্বে মুক্তির দাবিতে সংবাদ সম্মেলন (লন্ডন ২৬ এপ্রিল ২০১৬)

Related posts