November 20, 2018

হেরেও ভাগ্য ঝুলে আছে সাকিবের দলের

Global Pic

স্পোর্টস  ডেস্ক: ফের ব্যর্থ সাকিব আল হাসান, জয় তুলে নিতে ব্যর্থ তার দল করাচি কিংসও। পাকিস্তান সুপার লিগে বুধবার দুবাইয়ের ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে পেশোয়ার জালমির সঙ্গে ১২ বলে সাকিব করেছেন ১১ রান। ইনিংসটিতে ছিল না কোনো বাউন্ডারি। ড্যারেন স্যামির বলে আব্দুর রেহমানের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে বিদায় নেন তিনি।

সাকিবের দল করাচি কিংসও বেশি দূর এগোতে পারেনি। প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে করে ১৫২ রান। জবাবে ৫ উইকেট হারিয়ে ৯ বল হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় পেশোয়ার জালমি। সাকিবের দল করাচি কিংস তামিমহীন পেশোয়ারের কাছে হেরে যায় ৫ উইকেটের ব্যবধানে। এই জয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষে ওঠে গেছে তামিমের দল।

হেরেও সেমিফাইনালের ভাগ্য ঝুলে আছে সাকিবের দল করাচির। তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে ইসলামাবাদ ইউনাইটেড ও লাহোর কালান্দার্সের মধ্যকার পরবর্তী ম্যাচের দিকে। ওই ম্যাচে ইসলামাবাদ জিতলেই সেমিতে খেলতে পারবে সাকিবের দল। তবে কালান্দার্স জিতলে বিদায় নিতে হবে সাকিবদের। বর্তমানে লাহোর ও করাচির পয়েন্ট সমান, ৪। করাচি খেলে ফেলেছে রাউন্ড রবিন লিগের সব ম্যাচ, ৮টি। লাহোর খেলেছে ৭ ম্যাচ।

এদিকে লক্ষ্য তাড়া করতে নামা পেশোয়ারের উদ্বোধনী জুটিতে ছিলেন না তামিম ইকবাল। তার পরিবর্তে মোহাম্মদ হাফিজের সঙ্গে ওপেনিংয়ে নামেন দাউদ মালান। কিন্তু তামিমের মতো মালানের ব্যাট হাসেনি। করতে পেরেছেন মোটে ৮ রান। যোগ্য সঙ্গ না পেয়ে হাফিজও সাজঘরে ফিরেছেন খুব দ্রুত। মোহাম্মদ আমিরের শিকার হওয়ার আগে করেছেন ৪ রান। তার পরেও পেশোয়ারের জয় পেতে সমস্যা হয়নি। পেশোয়ারের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান ব্র্যাড হজ একাই যেন করাচিকে হারিয়ে দেন। ৪৫ বলে ছয়টি করে চার ও ছক্কায় ৮৫ রান করে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন অস্ট্রেলিয়ার এই তারকা। অসাধারণ এই ইনিংস খেলার সুবাদে ম্যাচসেরা নির্বাচিত হন তিনি। ৩১ রান করেন জিম অ্যালেনবি।

৩ ওভারে ১৩ রান দিয়ে কোনো উইকেট পাননি সাকিব। করাচির পক্ষে সেরা বোলার বিলওয়াল ভাট্টি। দুই উইকেট পকেটে পুরেছেন তিনি। একটি করে উইকেট নিয়েছেন ওসামা মির ও মোহাম্মদ আমির।

এর আগে টসে জিতে ব্যাট করতে নামা করাচি কিংসের সূচনাটা অবশ্য ভালোই ছিল। দলীয় ৪১ রানে প্রথম উইকেট হারায় তারা। হাসান আলীর বলে কামরান আকমলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ক্রিজ ছাড়েন ওপেনার শাহজাইব হাসান। ১৭ বলে একটি করে চার ও ছয়ে ১৮ রান করেন তিনি। আরেক ওপেনার সিমন্স ফিরেছেন ১ রানের আক্ষেপ নিয়ে। শহিদ আফ্রিদির বলে সরাসরি বোল্ড হওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ৪৯ রান। ক্যারিবীয়ান এই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের ৩৭ বলের ইনিংসটি ছিল ৬টি চার ও ২টি ছক্কায় সমৃদ্ধ।

এদিন ব্যাট হাতে জ্বলে উঠতে পারেননি টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক রবি বোপারা। ২২ বলে ২৩ রান করে শিকারে পরিণত হন ইমরান খানের। অধিনায়ক শোয়েব মালিক ও বিলওয়াল ভাট্টির ব্যাট থেকে আসে সমান ১৫ রান করে। ২১ রান খরচায় ১ উইকেট নেন পেশোয়ারের বোলার আমির ইয়ামিন। এ ছাড়া একটি করে উইকেট দখলে নেন ইমরান খান, হাসান আলী, শহিদ আফ্রিদি ও ড্যারেন স্যামি।

প্রসঙ্গত,  করাচি কিংস ও পেশোয়ার জালমির মধ্যকার ম্যাচ মানেই সাকিব বনাম তামিমের লড়াই। কিন্তু এ ম্যাচেও খেলতে পারেননি পেশোয়ার জালমির হয়ে দুরন্ত ফর্মে থাকা তামিম ইকবাল। তবে করাচির একাদশে সাকিব থাকলেও এই ম্যাচে বাদ পড়েন আরেক বাংলাদেশি ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিম। তার পরিবর্তে করাচির উইকেটের পেছনে ছিলেন রিকি ওয়েসেলস।

Related posts