September 21, 2018

হিন্দু পেশোয়ার মুসলিম বউ

1438244368_some-facts-of-bajirao-mastani-1

হিন্দু পেশোয়া বিয়ে করছেন এক মুসলিম রমণীকে৷ ইতিহাসে এমন নজির বড় দেখা যায় না৷ বরং উলটোটারই আধিক্য বেশি৷ তা সত্ত্বেও যোধা-আকবরের মতোই জনপ্রিয় এই হিন্দু পেশয়া বাজিরাও ও তাঁর মুসলিম স্ত্রী মস্তানির কাহিনিও৷

কে এই মস্তানি? জানা যায়, তিনি বুন্দেলখন্ডের রাজা ছত্রসলের কন্যা৷ বাবা হিন্দু হলেও তাঁর মা ছিলেন একজন মুসলিম৷ যদিও তাঁর পিতৃপরিচয় নিয়ে ইতিহাসবিদদের মধ্যে মতভেদ আছে৷ কেউ কেউ বলেন তিনি হায়দরাবাদের নিজামের কন্যা৷যাঁরই কন্যা হোন না কেন, মস্তানি যে জন্মসূত্রে মুসলিম পরিবারের সঙ্গে জড়িত ছিলেন তা নিয়ে সন্দেহ নেই৷ ছত্রশলের কন্যা হলেও তাঁকে আধা-মুলিম বলা যায়৷

এই মস্তানির সঙ্গে বাজিরাওয়ের আলাপও বেশ ধোঁয়াশার৷ কোনও কোনও ইতিহাসবিদের মতে, বাজিরাওয়ের সাহায্যে রাজা ছত্রশল যুদ্ধ জিতলে কৃতজ্ঞতাস্বরূপ রাজ্যের একাংশ ও মেয়ে মস্তানিকে বাজিরাওয়ের হাতে তুলে দেন৷ কেউ কেউ মনে করেন মস্তানি বাঈজি ছিলেন৷ ধনী মুসলিমদের কোঠায় তিনি নাচ-গান পরিবেশন করতেন৷ মুসলিমদের বিরুদ্ধে বাজিরাওয়ের যুদ্ধ হলেও, মস্তানির রূপলাবণ্যে মুগ্ধ হন তিনি৷ তাঁকে বিয়ে করেন৷ কিন্তু এ বিয়ে সুখের হয়নি৷ বাজিরাওয়ের প্রথম স্ত্রী কাশীবাঈ এবং বাজিরাওয়ের পরিবার খানিকটা ঈর্ষায় আর খানিকটা সংস্কারের বশে মস্তানিকে পরিবারের একজন হিসেবে মেনে নিতে পারেননি৷

কিন্তু বাজিরাও তাঁকে পাগলের মতো ভালবাসতেন৷ শোনা যায়, বাড়িতে হোক কিংবা যুদ্ধক্ষেত্রে তিনি মস্তানিকে সবসময় নিজের পাশে রাখতেন৷ মস্তানির গর্ভে পেশোয়া বাজিরাওয়ের এক ছেলে হয়৷ বাজিরাও নিজে তাঁর নাম রাখেন শামসের বাহাদুর৷ কিন্তু শামসেরকে তিনি পরিবারে প্রতিষ্ঠা দিতে পারেননি৷

আনুষ্ঠানিক রীতি পালন করতে অস্বীকার করেন পরিবারের পুরোহিত৷ আর সেই সূত্রেই বাজিরাওয়ের পরিবারের সদস্যরা মস্তানিকে তাঁর থেকে আলাদা করে দেয়৷ এরপরেই বাজিরাও গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন৷ ১৭৪০ সালে তাঁর মৃত্যু হয়৷ সে বছর মৃত্যু হয় মস্তানিরও৷ কেউ কেউ বলেন, মস্তানি সতীদাহ প্রথা পালন করে সতী হয়েছিলেন৷

ইতিহাসে হিন্দু-মুসলিম বিবাহ অবশ্য নতুন কিছু নয়৷ মুঘল আমলে এর ভুরি ভুরি উদাহরণ পাওয়া যায়৷ মুঘল সম্রাট আকবর রাজপুত রমণী যোধাবাঈকে বিয়ে করেছিলেন বলে শোনা যায়৷ যদিও সে তথ্য নিয়ে মতভেদ আছে৷ আরও রাজপুত রমণীর নাম উঠে আসে এই সূত্রে৷ যোধাবাঈকে আকবর বিয়ে করেছিলেন কি না, নাকি ছেলের সঙ্গে বিয়ে দিয়েছিলেন, তা নিয়ে সংশয় থাকলেও রাজপুত রমণীরা যে মুঘল সম্রাটদের অন্তঃপুরে জায়গা করে নিয়েছিলেন তা নিয়ে কোনও সংশয় নেই৷ কেননা আকবর পরবর্তী মুঘল সম্রাটদের ক্ষেত্রেও হিন্দু স্ত্রীর উল্লেখ পাওয়া যায়৷

তুলনায় হিন্দু কোনও রাজার মুসলিম ঘরণীর নিদর্শন প্রায় বিরল৷ বাজিরাও ও মস্তানির কাহিনি তাই সে নিরিখে স্বতন্ত্র৷ শোনা যায়, ছত্রপতি শিবাজী একবার এক মুসলিম রাজকুমারীক দেখে পছন্দ করেছিলেন৷ তিনি নিজে না বিয়ে করলেও, ছেলের সঙ্গে সেই রাজকুমারীর বিবাহ দেবেন ঠিক করেছিলেন৷ কিন্তু শেষপর্যন্ত সে সিদ্ধান্ত তিনি বদল করেন৷

কেননা তাঁর মনে হয়েছিল, মুসলিমদের রাজ্য বিজয় করলেও তিনি তাঁদের বিয়ের সিদ্ধান্তে হস্তক্ষেপ করতে পারেন না৷ অবশ্য মধ্যযুগে হিন্দু ও মুসলিম সংস্কৃতির যে মিশ্রণ ঘটেছিল তাতে অনেকটাই ভূমিকা নিয়েছিল দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে বৈবাহিক আদানপ্রদান৷

বাজিরাও, মস্তানির ঘটনা স্বতন্ত্র বলেই বারবার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে চলচ্চিত্র পরিচালকদের৷ ধীরুবাই দেশাই ১৯৫৫ সালে তাঁদের জীবন নিয়ে ‘মস্তানি’ নামে একটি সিনেমা করেন৷ এন এস ইনামদারের উপন্যাস অবলম্বনে নয়ের দশকে মারাঠি সিরিয়াল ‘রাও’তে উঠে এসেছিল তাঁদের জীবনকথা৷ ‘শ্রীমন্ত পেশয়া বাজিরাও মস্তানি’ নামে আরও এক সিরিয়ালে এসেছিল তাঁদের কথা৷

এই কাহিনির টানেই পরিচালকসঞ্জয় লীলা বনশালি তৈরি করেছেন তাঁর ‘বাজিরাও মস্তানি’৷ ১৮ ডিসেম্বর মুক্তি পাচ্ছে সে ছবি৷ ইতিহাস থেকে উদ্ধার করে, নানা মতভেদের বেড়া টপকে সঞ্জয় এ কাহিনিকে কীভাবে পরদায় তুলে আনবেন, তা দেখতেই এখন উদগ্রীব অপেক্ষা সিনেপ্রেমীদের৷

Related posts