April 25, 2019

হাসিনার শত কোটি টাকা লোপাট, দুর্নীতি খুঁজতে নতুন টিম

নেতাকর্মীদের মালা দিয়ে বরণ করছেন ঢাকা জেলা পরিষদের প্রশাসক বেগম হাসিনা দৌলা

ঢাকাঃ  ঢাকা জেলা পরিষদের প্রশাসক বেগম হাসিনা দৌলার দুর্নীতি অনুসন্ধানে টিম গঠন করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। তার বিরুদ্ধে আসা বিভিন্ন প্রকল্পের নামে ১০০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ অনুসন্ধান করবে এ নতুন টিমটি।

সম্প্রতি রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে এ সিদ্ধান্ত নেয় কমিশন। এ নিয়ে তার বিরুদ্ধে আসা দুর্নীতি অনুসন্ধানের জন্য তৃতীয়বারের মতো কর্মকর্তা পরিবর্তন করা হলো। এবার দুদকের উপ-পরিচালক (সমন্বিত জেলা কার্যালয়, ঢাকা-১) মো. আবু বকর সিদ্দিকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের টিমকে অভিযোগ অনুসন্ধানের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

টিমের বাকি সদস্যরা হলেন- দুদকের প্রধান কার্যালয়ের উপ-পরিচালক শেখ আবদুস ছালাম ও সহকারী পরিচালক একেএম ফজলে হোসেন। এর আগে প্রথমপর্যায়ে দুদকের উপ-পরিচালক মো. তৌফিকুল ইসলামকে ও দ্বিতীয় পর্যায়ে উপ-পরিচালক এসএমএম আখতার হামিদ ভূঞাকে অনুসন্ধানের দায়িত্ব দিয়েছিল কমিশন।

দুদকে আসা অভিযোগে বলা আছে, ২০১২-১৩ অর্থবছরে ২৩ লাখ টাকা প্রাক্কলিত মূল্যে ঢাকার নবাবগঞ্জের ‘যন্ত্রাইল কবরস্থান উন্নয়ন’র জন্য একটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়। এক্ষেত্রে কোনো কাজ না করেই প্রায় দেড় বছর আগেই প্রথম চলতি বিলে কাজের ৭৯ শতাংশ অর্থাৎ ১৭ লাখ ২১ হাজার টাকা পরিশোধ করা হয়। ১০ লাখ টাকা প্রাক্কলিত মূল্যের ঢাকার নবাবগঞ্জ ‘অফিসার্স ক্লাব সংস্কার’ প্রকল্পে কোনো সংস্কার কাজ না করেই জেলা পরিষদ থেকে চূড়ান্ত বিল প্রদান করা হয়। ২৬ লাখ টাকা প্রাক্কলিত মূল্যের নবাবগঞ্জ আধুনিক মার্কেট মেরামত প্রকল্পে বিভিন্ন ধরনের অনিয়ম ও দুর্নীতি করে বিরাট অংকের অর্থ আত্মসাৎ করা হয়েছে।

এভাবে বিভিন্ন প্রকল্প থেকে প্রায় ১০০ কোটি টাকা অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয় পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটির কাছে প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয়। পরে ওই তদন্ত কমিটির দেয়া প্রতিবেদন দুদকে অভিযোগ আকারে এলে, তা আমলে নিয়ে অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয় দুদক।

তবে এর আগে গত ২১ অক্টোবর সকাল সাড়ে ১০টায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করেছিলেন দুদকের ততকালীন অনুসন্ধানী কর্মকর্তা মো. তৌফিকুল ইসলাম। কিন্তু তিনি সেই জিজ্ঞাসাবাদে উপস্থিত হননি।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডে

Related posts