November 21, 2018

হঠাৎ এরশাদের ‘দুর্নীতি মামলা’ সচল করার উদ্যোগ নিল দুদক!

ঢাকাঃ উচ্চ আদালতে আটকে থাকা হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের একটি দুর্নীতি মামলা দুই যুগ পর সচল করার উদ্যোগ নিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

সেনানিবাস থানায় দায়ের হওয়া ওই মামলার আপিলটি কার্যতালিকায় আনার জন্য সোমবার হাই কোর্টের একটি বেঞ্চে আবেদন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন এ মামলার দায়িত্বপ্রাপ্ত দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান।

তিনি বলেন, “বিচারপতি ভবানীপ্রসাদ সিংহের বেঞ্চে মঙ্গলবারের কার্যতালিকায় মামলাটি আসবে। আমরা শুনানির জন্য দিন চাইব।”

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের বিরুদ্ধে ১৯৯১ সালের ৮ জানুয়ারি দায়ের করা এ মামলায় এক কোটি ৯০ লাখ ৮১ হাজার ৫৬৫ টাকার আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ আনা হয়েছে।

ঢাকার বিশেষ জজ আদালত ১৯৯২ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি এ মামলার রায়ে এরশাদকে তিন বছরের কারাদণ্ড দেয়।

এরশাদ ওই বছরই হাই কোর্টে আপিল করলে দণ্ড স্থগিত হয়ে যায়। পরে ২০১২ সালে দুর্নীতি দমন কমিশন এ মামলায় পক্ষভুক্ত হয়।

মামলাটি শুনানির জন্য একবার আদালতে উপস্থাপনও করা হলেও পরে তা আর এগোয়নি বলে ২০১৪ সালে জানিয়েছিলেন খুরশীদ আলম।

১৯৯০ সালে গণআন্দোলনের মুখে এরশাদ সরকারের পতনের পর বিভিন্ন অভিযোগে প্রায় তিন ডজন মামলা হয় তার বিরুদ্ধে। এর মধ্যে তিনটি মামলায় তার সাজার আদেশ হয় এবং একটিতে তিনি সাজা খাটা শেষ করেন।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে এরশাদ নির্বাচন কমিশনে যে হলফনামা দেন, তাতে তখনও আটটি মামলা থাকার কথা বলা হয়। বাকি মামলাগুলো থেকে তিনি খালাস বা অব্যাহতি পেয়েছেন, অথবা মামলার নিষ্পত্তি হয়ে গেছে।

এই আট মামলার মধ্যে চারটির কার্যক্রম উচ্চ আদালতের আদেশে স্থগিত রয়েছে। মঞ্জুর হত্যাসহ তিনটি মামলা বর্তমানে চালু। আর রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে পাওয়া উপহার সামগ্রী আত্মসাতের অভিযোগে একটি মামলা বর্তমানে হাই কোর্টে রয়েছে।

Related posts