November 21, 2018

স্ত্রী-সন্তান হত্যার অপরাধে স্বামীর মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে চাঁদপুরের আদালত

1

এ কে আজাদ, চাঁদপুর ঃ চাঁদপুরে মতলব দক্ষিণ উপজেলার আশ্বিনপুর গ্রামে পারিবারিক কলোহের জের ধরে স্ত্রী হোসনে আরা (২৪) ও শিশু কন্যা নাজমিনকে (৯মাস) হত্যার অপরাধে স্বামী নাজমুল হাসানকে (৩৫) মৃত্যুদন্ড দিয়েছে আদালত। ৭ ফেব্র“য়ারি মঙ্গলবার বিকাল ৪টায় চাঁদপুরের জেলা ও দায়রা জজ মোঃ সালেহ উদ্দিন আহমদ এই রায় দেন। নাজমুল হাসান মতলব দক্ষিন উপজেলার আশ্বিনপুর গ্রামের বড় বৈদ্য বাড়ীর এলাকা সংলগ্ন নুরুল আমিনের ছেলে। হোসনে আরা পাশ্ববর্তী এলাকার আবুল কাশেমের মেয়ে। মামলার বিবরণ সূত্রে জানা যায়, ২০১০ সালের ২৪ জুলাই হোসনে আরার পিতা আবুল কাশেম তার মেয়ে নিখোঁজ হওয়ার কারণে মতলব দক্ষিণ থানায় নাজমুল হাসানের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরী করে। সেই আলোকে পুলিশ ওইদিনই নাজমুলকে আটক করলে সে স্ত্রী সন্তানকে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যার কথা স্বীকার করে এবং পুলিশ তাকে পরদিন আদালতে প্রেরন করে। সরকার পক্ষের আইনজীবী অ্যাডঃ আমান উল্যাহ জানান, ২০১০ সালের ১৯ জুলাই রাত আনুমানিক সাড়ে ১১টায় নাজমুল নিজ ঘরে প্রথমে স্ত্রীকে হত্যা করে। শিশু কন্যা কান্নাকাটি করলে তাকেও একই কায়দায় হত্যা করে বাড়ীর পাশ্ববর্তী একটি পরিত্যাক্ত ঘরে মাটির নীচে পুতে রাখে। ২৪ জুলাই সাধারণ ডায়েরীর আলোকে পুলিশের কাছে নাজমুল তথ্য প্রদান করলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দু’টি মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে। সরকার পক্ষের আইনজীবী আরো জানান, তদন্তকারী কর্মকর্তা মতলব দক্ষিণ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল মান্নান একই সালের ৩১ জুলাই আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। দীর্ঘ প্রায় ৭ বছর মামলাটি চলমান অবস্থায় আদালত ১৬ জনের স্বাক্ষ্য গ্রহণ করেন। আদালত স্বাক্ষ্য প্রমানের ভিত্তিতে আসামী নাজমুল হাসান অপরাধ স্বীকার করায় ৩০২ ধারায় মৃত্যুদণ্ড এবং ৫হাজার টাকা জরিমানা করেন। আসামী নাজমুল হাসান এর উপস্থিতিতেই আদালত বিচার কার্য সম্পন্ন হয়। সরকার পক্ষের সহকারী আইনজীবী (এপিপি) ছিলেন অ্যাডঃ মোক্তার হোসেন অভি এবং আসামী পক্ষের আইনজীবী (স্টেট ডিফেন্স ল’ইয়ার) ছিলেন অ্যাডঃ মো. তাফাজ্জল হোসেন।

Related posts