April 21, 2019

সেই রনির মুক্তির দাবিতে ফুঁসছে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগ

ইব্রাহিম খলিল, চট্টগ্রামঃ  চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনির মুক্তির দাবিতে ফুঁসছে ছাত্রলীগ। আজ রবিবার চট্টগ্রাম আদালত পাড়ায় দিনভর অবস্থান কর্মসূচি ও সভা-সমাবেশ করেছে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। এর আগে গত শনিবার রাতে হাটহাজারী ও নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে সড়ক অবরোধও করেছিল ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।

তবে সব ধরণের কর্মসূচি উপেক্ষা করে প্রশাসন নুরুল আজিম রনিকে হাটাহাজারী জেলহাজতেই আটক রাখে। আজ রবিবার সকালে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রেরণ করা হয় তাকে।

গতকাল শনিবার দুপুরে হাটহাজারী উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মির্জাপুর ইউনিয়নের চারিয়া বোর্ড স্কুল কেন্দ্রে নৌকা প্রতিকের পক্ষে প্রভাব বিস্তার ও ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের অভিযোগে অস্ত্র ও গুলিসহ নুরুল আজিম রনিকে আটক করে ম্যাজিস্ট্রেট। এ সময় জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হারুনুর রশিদ নুরুল আজিম রনিকে দু‘বছরের কারাদন্ড প্রদান করেন।

সেই সাথে অস্ত্র আইনে হাটাহাজারী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় একটি নাইন এম এম পিস্তল ও ১৫ রাউন্ড তাজাগুলি, ২৬ হাজার টাকা উদ্ধারের বিষয়টি উপাদান হিসেবে লিপিবদ্ধ করেন বলে জানান হাটহাজারী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইসমাইল হোসেন।

নুরুল আজিম রনি এ সময় সাংবাদিকদের বলেন, আমি কোন অন্যায় করিনি। জননেত্রী শেখ হাসিনার নৌকা প্রতিকের পক্ষে কাজ করেছি শুধুমাত্র। আমি ষড়যন্ত্রের শিকার। দলীয় দ্বন্দের বলী। এ সময় তিনি ছাত্রলীগ থেকে অব্যহাতির কথাও জানান সাংবাদিকদের।

চট্টগ্রাম কলেজ শাখা ছাত্রলীগ নেতা মাহমুদুল করিম জানান, আটকের পর রাগে ক্ষোভে নুরুল আজিম রনি ছাত্রলীগের সবরকম পদ ও পদবি থেকে অব্যাহতি চেয়েছেন। গণমাধ্যমে পাঠানোর জন্য এ ধরণের একটি লিখিত বিবৃতি তিনি আমার হাতে দিয়েছেন।

তিনি বলেন, রনি নগর আওয়ামীলীগের দুই নেতার দ্বন্ধের বলী হয়েছেন। এতে বিএনপি জামায়াত লাভবানের বিষয়টি পর্যন্ত ভাবেননি প্রতিপক্ষ প্রভাবশালী নেতারা।

মাহমুদুল করিম আরও বলেন, দীর্ঘ দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে শিবিরের দখলে থাকা চট্টগ্রাম কলেজ-মহসিন কলেজ মুক্ত করার পর বিএনপি ও জামায়াত চক্র নুরুল আজিম রনির বিরুদ্ধে চক্রান্ত শুরু করে। বিএনপি-জামায়াতের এসব নেতাদের সাথে নগর আওয়ামী লীগের ওই প্রভাবশালী নেতার উঠা-বসা ও ব্যবসা রয়েছে। যারা চক্রান্ত করে এই প্রভাবশালী নেতার লালসার শিকার বানানো হয়েছে নুরুল আজিম রনিকে।

নগর ছাত্রলীগ নেতা ইকবাল হোসেন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, নুরুল আজিম রনি ছাত্রলীগের একজন আদর্শবান নেতা। তিনি শুধু ছাত্রলীগ নয়, আওয়ামী লীগের জন্যও একটি ফ্যাক্টর। সকল অনিয়ম, দুর্নীতির মুর্তিমান আতঙ্ক। দুর্নীতিগ্রস্ত কিছু পুলিশের রোষানলেও পড়েছেন তিনি। ছাত্রলীগের নেতা হিসেবে তার কোন কলঙ্ক নেই।

তিনি বলেন, নুরুল আজিম রনির মুক্তির দাবিতে নগর ছাত্রলীগ আজ রবিবার চট্টগ্রাম আদালত পাড়ায় অবস্থান ধর্মঘট পালন করেছে। চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করেছে। এসময় রনির মুক্তির দাবিতে স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠে পুরো আদালতপাড়া। সমাবেশ থেকে আজকের মধ্যে রনিকে মুক্তি না দিলে আদালত চত্বরে লাগাতার অবস্থান ধর্মঘট পালনের ঘোষণা দেয়া হয়।

সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা আজিজুর রহমান, ইলিয়াস উদ্দিন, জিল্লুর রহমান, নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু, যুবলীগ নেতা হেলাল উদ্দিন, কোতোয়ালী থানার আওয়ামী লীগের সাধারণ স¤পাদক আবুল মনসুর ও নগর ছাত্রলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মী।

এর আগে শনিবার রাতে রনির মুক্তির দাবিতে নগরী ও হাটহাজারীর বালুচড়া, বায়েজিদের অক্সিজেন, মুরাদপুর, জিইসি, ষোলশহর ২ নম্বর গেট, বাকলিয়া, আগ্রাবাদ, মোহরায় এলাকায় সড়ক অবরোধ করে সংগঠনটির নেতাকর্মীরা।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন ছাত্রলীগের অবস্থান ধর্মঘট ও সভা-সমাবেশের কথা স্বীকার করে বলেন, ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা রনির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের কথা আমাকে বলেছেন। এ ব্যাপারে যতটুকু সম্ভব রনির মুক্তির জন্য আমি সহযোগীতা করব বলেছি।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন ডেরি/৮ মে ২০১৬

Related posts