September 21, 2018

সেই এনামুল আর নতুন মেহেদী!

স্পোর্টস ডেস্কঃ  অর্ধশতকে লিগ শুরু করেছেন এনামুল হক, তবে বের হতে পারেননি ডট বলের চক্র থেকে। জাতীয় দলে জায়গা হারানো আরেক ওপেনার শামসুর রহমানও করেছেন অর্ধশতক। আর লিস্ট ‘এ’ ম্যাচে অভিষেকেই দুর্দান্ত এক শতক করেছেন মেহেদী হাসান। তিন ব্যাটসম্যানের নৈপুণ্যে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবকে উড়িয়ে দিয়ে প্রিমিয়ার লিগ অভিযান শুরু করল গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স।

প্রথম বিভাগ থেকে এবারই প্রিমিয়ারে উঠে আসা গাজী গ্রুপ ১০৬ রানে হারিয়েছে প্রাইম ব্যাংককে। মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে টস হেরে ৪ উইকেটে ৩০৩ রান তুলেছিল গাজী গ্রুপ। প্রাইম ব্যাংক গুটিয়ে যায় ৪৬.৩ ওভারে ১৯৭ রানে।

দারুণ ব্যাটিং উইকেটে গাজী গ্রুপকে শক্ত ভিত গড়ে দেয় শামসুর ও এনামুলের উদ্বোধনী জুটি। তবে দুজনের ব্যাটে ছিল দুই রকম সুর। শামসুর শুরু থেকেই ছিলেন সাবলীল, এনামুল ধুঁকেছেন প্রান্ত বদলাতে। ১৫ ওভার শেষে শামসুরের রান যখন ৪২ বলে ৪০, এনামুলের তখন ৪৮ বলে ২০!

রেকর্ড ভালো থাকার পরও মূলত অতিরিক্ত ডট বল খেলার প্রবণতার কারণেই জাতীয় দলে জায়গা হারিয়েছেন এনামুল। লিগের প্রথম ম্যাচে তাকে দেখা গেল সেই পুরোনো চেহারাতেই। ইনিংসের প্রথম ২৫ ওভারে এনামুল একাই মেডেন খেলেছেন প্রায় ১০ ওভার (৫৫টি ডট)! শেষ পর্যন্ত আউট হয়েছেন ১০১ বলে ৬৩ রান করে। চারটি ছিল চার, তিনটি ছক্কা। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য, ডটবল ৬৫টি!

এনামুলের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে আগেই রান আউট হয়ে ফিরেছেন শামসুর। ৬২ বলে করেছন ৫৬। উদ্বোধনী জুটি ছিল ১১৩ রানের।

তিনে নামা অভিষিক্ত মেহেদীর ব্যাটে ছিল না বিন্দুমাত্র অস্বস্তির ছাপ। শুরু থেকেই ছিলেন দারুণ সপ্রতিভ। নিয়মিত বদলেছেন প্রান্ত, খেলেছেন চোখধাঁধানো কিছু শট। ৫৮ বলে স্পর্শ করেছিলেন অর্ধশত, পরের পঞ্চাশ মাত্র ৩০ বলে। রুবেল হোসেনকে হুক করে বাউন্ডারি মেরে শতক ছুঁয়েছেন ৮৮ বলে। পরের বলেই এলবিডব্লিউ হয়ে গেছেন ফুল টসে স্কুপ করতে গিয়ে। ৮৯ বলে ১০৩ রানের ইনিংসে ছিল ৮ টি চার আর ৫টি ছক্কা।

শেষ দিকে রান বাড়াতে গিয়ে আউট হন বর্ষীয়ান পাকিস্তানি অলরাউন্ডার সাঈদ আনোয়ার জুনিয়র (৩৭ রান)। তবে গাজী এরপর উপহার দেয় আরেক ব্যাটিং প্রতিভাকে। এর আগে প্রথম বিভাগে খেলা এবং মেহেদীর মতোই প্রিমিয়ারে অভিষিক্ত ফারুক হোসেন মাঠ মাতান ক্ষণিকের উপস্থিতিতেই। তিনটি চার ও একটি ছক্কায় অপরাজিত থাকেন ৮ বলে ২২ রান করে!

এই রান তাড়ায় ঝড়ো উদ্বোধনী জুটি গড়ার সামর্থ্য ছিল প্রাইম ব্যাংকের দুই ওপেনারের। কিন্তু মেহেদি মারুফ ও শ্রীলঙ্কান দিলশান মুনাবিরা, দুই আক্রমণাত্মক ওপেনারই ফিরেছেন অল্পতে।

‘আইকন’ সাব্বির রহমান দারুণ কিছু শট খেলে স্টাম্পড হয়েছেন সাঈদ আনোয়ারের বাঁহাতি স্পিনে। নিয়মিত উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় প্রাইম ব্যাংক।

সাতে নেমে খানিকটা লড়াই করেছেন ইয়াসির আলি, তবে ফিরে গেছেন ফিফটির পরপরই। শেষ দিকে রুবেল হোসেনের ব্যাট খানিকটা কমিয়েছে ব্যবধান। বাউন্সারে রুবেলকে (৪৫ বলে ৪৫) ফিরিয়ে ৩৪ রানের শেষ জুটির ইতি টানেন মোহাম্মদ শরীফ।

গাজী গ্রুপের আরও দুই অভিষিক্ত, অফ স্পিনার মুস্তাফিজুর রহমান নিয়েছেন ১ উইকেট, বাঁহাতি স্পিনার মইনুল ইসলাম ২ উইকেট। আর দারুণ সেঞ্চুরির পর অফ স্পিনে ১০ ওভারে ২২ রান দিয়ে ১ উইকেট, ম্যাচ-সেরায় মেহেদীর ছিল না কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

গাজী গ্রুপ: ৫০ ওভারে ৩০৩/৪ (এনামুল ৬৭, শামসুর ৫৬, মেহেদী ১০৩, সাঈদ আনোয়ার জুনিয়র ২৭, অলক ১৫*, ফারুক ২২*; নাজমুল অপু ১/৩৪, আজিম ১/৪৭, রুবেল ১/৬৮)।

প্রাইম ব্যাংক: ৪৬.৩ ওভারে ১৯৭ (মুনাবিরা ৪, মেহেদি মারুফ ৭, সাব্বির ৩১, শুভাগত ৪, তাইবুর ৩০, নুরুল ৫, ইয়াসির ৫৬, নাজমুল অপু ৮, রুবেল ৪৫, মনির ০, আজিম ৩*; সাঈদ আনোয়ার ৩/৩১, শরীফ ২/২২, মইনুল ২/৪৯, মুস্তাফিজুর ১/১৭, মেহেদী ১/২২, দেলোয়ার ১/২২)।

ফল: গাজী গ্রুপ ১০৬ রানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: মেহেদী হাসান।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন ডেরি/২২ এপ্রিল ২০১৬

Related posts