September 25, 2018

সৃজনশীলে নম্বর বেড়েছে

hহাতে আর তেমন সময় নেই। নতুন করে কিছু পড়তে হবে না,

যা যা পড়া আছে, সেগুলোতেই চোখ বুলাও। বিষয়বণ্টন ও সময়বণ্টন করে পরীক্ষাপূর্ব পরিকল্পনা ঠিক করবে, যাতে পরীক্ষা শুরুর আগেই সব বিষয়ের রিভিশন দিতে পারো।

যা যা পড়া আছে আর যেসব বিষয়ে দুর্বলতা আছে—তার ওপর ভিত্তি করে পরিকল্পনা সাজাতে হবে। পরীক্ষার হলে কত নম্বর প্রশ্নের জন্য কত মিনিট সময় রাখবে, তাও আগে থেকে ঠিক করে রাখতে হবে।

গুরুত্বপূর্ণ কোনো টপিকে দুর্বলতা থাকলে এখনই কাটিয়ে নাও।

প্রস্তুতি যেমনই হোক, টেনশন নেওয়া যাবে না। এতে ফায়দা নেই, মনটাকে স্থির করে ঠাণ্ডা মাথায় ঠিক করবে—কবে কোন বিষয়ের কী কী শেষ করবে।

মনে করো, উদ্দীপক কোন ব্যাপারে ইঙ্গিত করেছে, তা বুঝতে পারছ না। তাহলে কোন অধ্যায়ের বিষয়বস্তুর আলোকে উদ্দীপকটি করা হয়েছে, তা জানলে ব্যাপারটি স্পষ্ট হয়ে যাবে।

 

এবারের পরীক্ষায়

♦  মান বণ্টনে পরিবর্তন এসেছে।

♦  সৃজনশীল/বর্ণনামূলক বা তত্ত্বীয় অংশে নম্বর বেড়েছে।

 

বিশেষ নির্দেশনা

♦  প্রথমে বহু নির্বাচনী ও পরে সৃজনশীল/রচনামূলক (তত্ত্বীয়) পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে এবং উভয় পরীক্ষার মধ্যে কোনো বিরতি থাকবে না।

♦  পরীক্ষার্থীরা তাদের নিজ নিজ উত্তরপত্রের ওএমআর ফরমে তার পরীক্ষার রোল নম্বর, রেজিস্ট্রেশন নম্বর, বিষয় কোড ইত্যাদি যথাযথভাবে লিখে বৃত্ত ভরাট করবে।

♦  কোনো অবস্থায়ই উত্তরপত্র ভাঁজ করা যাবে না।

♦  পরীক্ষার্থীকে সৃজনশীল/রচনামূলক (তত্ত্বীয়), বহু নির্বাচনী ও ব্যবহারিক অংশে পৃথকভাবে পাস করতে হবে।

♦  সৃজনশীল/রচনামূলক (তত্ত্বীয়), বহু নির্বাচনী ও ব্যবহারিক পরীক্ষায় পরীক্ষার্থীর উপস্থিতির জন্য একই উপস্থিতিপত্র ব্যবহার করতে হবে।

♦  পরীক্ষার্থীরা তাদের প্রবেশপত্র নিজ নিজ প্রতিষ্ঠান প্রধানের কাছ থেকে পরীক্ষা আরম্ভের কমপক্ষে তিন দিন আগে সংগ্রহ করবে।

♦  পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষায় সাধারণ সায়েন্টিফিক ক্যালকুলেটর ব্যবহার করতে পারবে।

♦  কেন্দ্র সচিব ছাড়া অন্য কোনো ব্যক্তি/পরীক্ষার্থী পরীক্ষাকেন্দ্রে মোবাইল ফোন আনতে এবং ব্যবহার করতে পারবে না।

Related posts