September 20, 2018

সুন্দরবন ঘেঁষে হানিফের চিংড়িঘের

Captureখুলনা;:

সুন্দরবনের চারপাশে ১০ কিলোমিটার এলাকায় কোনো বাণিজ্যিক কর্মকাণ্ড ও স্থাপনা নির্মাণ আইনে নিষিদ্ধ হলেও এই এলাকার ভেতরে ৩৫ একর জমিতে একটি চিংড়ির খামার প্রতিষ্ঠা করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। সুন্দরবনের এক কিলোমিটার সীমানার মধ্যে খুলনার দাকোপ উপজেলার সুতারখালী ইউনিয়নে ওই খামারের মধ্যে একটি দোতলা ও একটি একতলা ভবনও নির্মাণ করা হয়েছে।

পরিবেশ সংরক্ষণ আইন অনুযায়ী চিংড়িঘের তৈরির জন্য পরিবেশগত প্রভাব সমীক্ষা (ইআইএ) করা এবং এর ভিত্তিতে পরিবেশ ছাড়পত্র নেওয়া বাধ্যতামূলক করা হলেও এই চিংড়িঘেরের ক্ষেত্রে তা করা হয়নি। গত বছর থেকে এটি বাণিজ্যিক কর্মকাণ্ড শুরু করেছে।

খামারের সীমানার মধ্যে আগে থেকে একটি পুকুর ও কালীমন্দির ছিল। পুকুরটি ইতিমধ্যে ভরাট করা হয়েছে। ঘের স্থাপনের জন্য বেড়িবাঁধ কেটে সুন্দরবনের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া পশুর নদ থেকে লবণপানি তোলা হয়েছে।

মাহবুব উল আলম হানিফের মালিকানাধীন কোয়েস্ট অ্যাকুয়াকালচার ও ফিশ প্রসেসিংস লিমিটেড এবং বাংলাদেশ ব্যাংক ও ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি) যৌথভাবে এই খামার স্থাপন করেছে বলে খামারের প্রধান ফটকের সাইনবোর্ডে দাবি করা হয়েছে। বলা হয়েছে, ওই দুই রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের সমমূলধনি তহবিল (ইইএফ) থেকে প্রকল্পটিতে অর্থায়ন করা হয়েছে।

তবে বাংলাদেশ ব্যাংক ও আইসিবির সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা জানায়, কোয়েস্টের খামারে অর্থায়ন বরাদ্দ হলেও তা এখনো বিতরণ করা হয়নি।

পরিবেশ সংরক্ষণ আইনে সুন্দরবনের ১০ কিলোমিটার এলাকায় সেখানকার প্রাকৃতিক পরিবেশ, ভূমিরূপের পরিবর্তন হয় এমন কোনো স্থাপনা করা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এ ধরনের কোনো কর্মকাণ্ড যাতে না করা হয়, সে জন্য সুন্দরবনের চারপাশের ১০ কিলোমিটার এলাকায় ১৫টি বড় সাইনবোর্ড স্থাপন করা হয়েছে। সেখানে ওই এলাকায় অবৈধ হিসেবে চিহ্নিত কার্যক্রমগুলো না করার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

জানতে চাইলে খুলনা পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক হাবিবুল হক খান প্রথম আলোকে বলেন, পাঁচ একরের ওপরে চিংড়িঘেরের জন্য পরিবেশগত ছাড়পত্র নেওয়া বাধ্যতামূলক। কিন্তু বেশির ভাগ চিংড়িঘের তা নেয় না। কোয়েস্ট অ্যাকুয়াকালচার অ্যান্ড ফিশারিজ নামে কোনো প্রতিষ্ঠান তাদের কাছে পরিবেশ ছাড়পত্রের জন্য আবেদন করেনি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে হানিফ প্রথম আলোকে বলেন, চিংড়িঘেরের জন্য পরিবেশ ছাড়পত্রের দরকার হয় এমন কোনো নিয়ম তাঁর জানা নাই। তিনি বলেন, ‘আমাদের এই খামারটি
করা হয়েছে আধুনিক পদ্ধতিতে চিংড়ি চাষের জন্য। ওই এলাকায় কোনো ঘের এ ধরনের ছাড়পত্র নেয় বলে আমার জানা নাই। ঘেরটি ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব যাঁদের হাতে দেওয়া হয়েছে, তাঁরা হয়তো এটা জানতেন না। তবে আমি তাঁদের বলেছি, তাঁরা যাতে পরিবেশের ছাড়পত্র নেওয়ার জন্য আবেদন করে।’

পুকুর ভরাট ও কালীমন্দিরের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে জানতে চাইলে হানিফ বলেন, ‘ওই মন্দিরের জমিটি আমরা ইজারা নিয়েছি। খামারের বাইরে আমরা আরেকটি মন্দির বানিয়ে দিচ্ছি। আর আগে যে পুকুরটি ছিল, তাতে গুইসাপ ও নানা পোকামাকড় থাকত। তাই ওই পানি বিশুদ্ধ ছিল না। আমরা গ্রামের মানুষের জন্য একটি পানি পরিশোধনযন্ত্র স্থাপন করে দিয়েছি। সেখান থেকে দিনে ৫ হাজার লিটার পানি গ্রামবাসীদের সরবরাহ করা হচ্ছে। আর নতুন মন্দিরের ছাদ ঢালাই চলছে, খুব দ্রুত আগের মন্দিরের পূজা কমিটির সদস্যদের দিয়ে তা উদ্বোধন করানো হবে।’

পরিবেশ সংরক্ষণ আইনের ৫ ধারাবলে সরকার ১৯৯৯ সালে সুন্দরবনের সংরক্ষিত বনের চারপাশের ১০ কিলোমিটার এলাকাকে প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা (ইসিএ) ঘোষণা করা হয়েছে। ২০১৫ সালের ১৮ জানুয়ারি সরকার সুন্দরবনের ইসিএ এলাকার স্থলভাগের সীমানা নির্ধারণ করে গেজেট প্রকাশ করে। হানিফের খামারের স্থান, অর্থাৎ খুলনার দাকোপ উপজেলাও নিষিদ্ধ এলাকার মধ্যে রয়েছে।

পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব ইসতিয়াক আহমেদ গতকাল রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘সুন্দরবনের চারপাশে ১০ কিলোমিটার এলাকায় কোনো ধরনের বড় শিল্পপ্রতিষ্ঠান ও স্থাপনা নির্মাণের অনুমতি আমরা দিচ্ছি না। সুন্দরবনকে রক্ষা করার জন্য এটা করা হচ্ছে।’

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশে ২০১৬ সালের আগস্টে পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে ইসিএ এলাকায় স্থাপিত শিল্পকারখানা ও স্থাপনার একটি তালিকা তৈরি করা হয়। তাতে দাকোপ উপজেলায় স্থাপিত ৩৪টি শিল্পকারখানা ও স্থাপনার নাম রয়েছে। সেখানে চারটি চিংড়িঘের ও হ্যাচারির নাম রয়েছে। কিন্তু মাহবুবুল আলম হানিফের চিংড়ির খামারের নামের উল্লেখ নেই।

Related posts