November 13, 2018

সিলেটের এক ইমামের কান্ড!

আবুল কাশেম রুমন, সিলেট ব্যুরো: সিলেটের জকিগঞ্জে ঘটেছে নির্মম ভাবে শিশু নির্যাতনের ঘটনা। সরকার আইন করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিশু নির্যাতন বন্ধ করলেও মানা হচ্ছেনা তা। প্রায়ই স্কুল বা মাদ্রাসা থেকে আসছে শিশু নির্যাতনের খবর। তবে স্কুল বা মাদ্রসায় নয় এবার শিক্ষার্থী নির্যাতন করা হয়েছে মক্তবে। জকিগঞ্জ সুলতান পুর ইউনিয়নের রহিমপুর জামে মসজিদের ইমাম আব্দুল ওয়াদুদ (৩৫) পাষন্ডের মত পিটিয়েছেন মসজিদে মক্তবে আরবী পড়তে আসা আম্বিয়া বেগম (১২) কে।

সে স্থানীয় গনিপুর কামালগঞ্জ স্কুল এন্ড কলেজের ষষ্ট শ্রেনীর ছাত্রী। মক্তব শিক্ষক ওয়াদুদের বেদম প্রহারে সে বর্তমানে সিলেট ওসমানি মেডিকেল কলেজে ভর্তি। এ ব্যাপারে জকিগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ করেছেন আহত আম্বিয়ার ভাই সালেহ আহমদ।
অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, গত ৯ নভেম্বর বুধবার সকালে এলাকার মসজিদে আরবী পড়তে যায় আম্বিয়া ও তার বোন আমিনা (১৪)। আরবী পড়ার এক পর্যায়ে আম্বিয়া পেছনে ফিরে তাকালে মক্তব শিক্ষক ওয়াদুদ তাকে বাশের লাঠি দিয়ে ক্রমাগত পেঠাতে থাকেন । মার খেয়ে আম্বিয়া উচ্চ স্বরে কান্না শুরু করলে আরো বেশি উন্মুক্ত হয়ে পড়েন মসজিদের ইমাম ওয়াদুদ।

এ সময় তিনি মক্তবে অধ্যয়নরত সকল শিশু কে ছুটি দিয়ে আম্বিয়া কে ইমামের কক্ষে নিয়ে দরজা বন্ধ করে পেঠাতে থাকেন। এতে আম্বিয়ার হাত,দুই পায়ের পাতা, কোমরের নিম্নাংশ গুরুত্বর ভাবে জখম হয়। এ সময় সাথে থাকা বোন আমিনা বাসায় এসে বিষয়টি জানালে বাড়ির মানুষ জন মসজিদে এসে দেখতে পান ইমাম ওয়য়াদুদের কক্ষ বন্ধ। ভেতর থেকে ভেসে আসছে আম্বিয়ার আর্তচিৎকার। তাদের ডাকে ওয়াদুদ দরজা খুললে আম্বিয়া কে আহত অবস্থায় উদ্ধার করেন তার ভাই সালেহ আহমদ ও চাচাতো ভাই জাকির।

 

Related posts