September 21, 2018

সামনে কঠিন পরীক্ষা নূরুল-রনির

362
স্পোর্টস ডেস্কঃ   শুরু হয়েছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মূল প্রস্তুতি পর্ব। খুলনা শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে গতকাল প্রধান কোচ হাথুরুসিংহের নেতৃত্বে অনুশীলন করেন মাশরাফিরা। বিকাল তিনটা থেকে প্রায় দেড়ঘণ্টার এই অনুশীলনে জোর দেয়া হয় ব্যাটিং আর বোলিংয়ের ওপর। দুটি গ্রুপে ভাগ হয়ে অনুশীলন করেন ক্রিকেটাররা। শুধু তামিম ইকবাল ছাড়া এশিয়া কাপ ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য ঘোষিত ২৫ সদস্যের সবাই উপস্থিত ছিলেন। এরই মধ্যে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে চার ম্যাচের সিরিজ ড্র করেছে বাংলাদেশ। মূলত দল নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার কারণেই প্রথম ম্যাচ জিতলেও শেষ দুই ম্যাচে হেরে যায় টাইগাররা। তবে সামনে বড় দু’টি আসরের জন্য দলের নতুন পুরনো মিশেলে শক্তি কি হবে তা অনেকটাই স্পষ্ট। বিশেষ করে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে অভিষিক্ত নূরুল হাসান সোহান ও পেসার আবু হায়দার রনির সম্ভাবনাই বেশি উজ্জ্বল। সোহান চারটি ম্যাচে উইকেটের পিছনে নিজেকে যেমন প্রমাণ করেছেন তেমন দলের বিপদে ব্যাট হাতেও ছোট ছোট অবদান রেখেছেন।

অন্যদিকে শেষ দুই ম্যাচে অভিষেক হওয়া পেসার আবু হয়দার রনি শুরুটা ভালো না হলেও শেষ পর্যন্ত নিজের যোগ্যতারও প্রমাণ দিয়েছেন। তবে ভারতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগের এই দুই তরুণকে পরীক্ষা দিতে হবে নিজদেশের মাটিতে এশিয়া কাপে। অভিষেক নিয়ে আত্মবিশ্বাসী সোহান বলেন, ‘আসলে অভিষেকের পর থেকে আমি চাপ নেয়া বন্ধ করে দিয়েছি। উইকেটে কিপার ব্যাটসম্যান হিসেবে দলের জন্য যতটা অবদান রাখার তা রাখবো।’ অন্যদিকে আবু হায়দার রনি বলেন, ‘শুরুতে একটু নার্ভাস ছিলাম। আশা করি যত দিন যাবে নিজের সেরাটাই দেয়ার চেষ্টা করবো।’

ফেব্রুয়ারির ২৪ তারিখ থেকে ৬ই মার্চ পর্যন্ত এশিয়া কাপের আসর বসবে বাংলাদেশে। অন্যদিকে টাইগারদের বিশ্বকাপ মিশন শুরু হবে ৯ই মার্চ। বাংলাদেশ দল যদি এশিয়া কাপের ফাইনাল খেলে তবে ৭ মার্চ ভারতের উদ্দেশে রওনা দিতে হবে। আর সেটি না হলে গ্রুপ পর্ব শেষে ৫ তারিখ রওনা দিতে হবে ভারতে। এশিয়া কাপের জন্য নতুন ভেন্যু ধর্মশালাতে দু’টি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলা হচ্ছে না টাইগারদের। যে কারণে এশিয়া কাপই  হবে বাংলাদেশ দলের চূড়ান্ত প্রস্তুতির সুযোগ। তাই দল নিয়ে খুব একটা পরীক্ষা-নিরীক্ষার সুযোগ নেই। তবে  নূরুল হাসান সোহানকে একটি শেষ পরীক্ষা দিতে হবে এশিয়া কাপে। টাইগারদের ৪৩টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে ছিলেন মুশফিকুর রহীম। তার পরিবর্তে প্রথমবার নূরুল হাসানই কিপার হিসেবে টানা চারম্যাচে উইকেটের পিছনে দায়িত্ব পালন করেছেন। এর আগে আরও তিনজন উইকেটের  দায়িত্ব পালন করেছেন কেবল একটি করে ম্যাচ।

আন্তর্জাতিক ম্যাচে উইকেট কিপিংয়ের সঙ্গে ব্যাটিং করা কতটা চ্যালেঞ্জের তা নিয়ে নূরুল হাসান বলেন, ‘চ্যালেঞ্জতো অবশ্যই। কিন্তু প্রথম থেকে আমি নির্ভার থাকার চেষ্টা করেছি। যতটা সম্ভব চেষ্টা করেছি কোন ধরনের চাপ না নিয়ে খেলার। এ কারণেই আমার কাছে খুব কঠিন মনে হয়নি। ব্যাটিংটাও তাই। কিন্তু যেটা উপলব্ধি হয়েছে তা হলো- এখনও শিখার অনেক অনেক কিছু বাকি। সেটি উইকেট কিপিং হোক আর ব্যাটিং। কোচ এরই মধ্যে আমাকে নিয়ে কাজ করছেন। তার কাছ থেকে ব্যাটিং নিয়ে বেশকিছু টিপস পেয়েছি। আমি এখন তা নিয়ে কাজ করছি।’ সোহান এশিয়া কাপে উৎরে গেলে বিশ্বকাপ দলেও থাকবেন। কারণ মুশফিকুর রহীমকে দল চায় এখন শুধু একজন অভিজ্ঞ স্পেশালিস্ট ব্যাটসম্যান হিসেবে।’
অন্যদিকে নিজের অভিষেক ম্যাচটা নড়বড়ে হলেও আত্মবিশ্বাসী রনি। ইনজুরির কারণে  পেসার রুবেল হোসেন দলে নেই। খানিকটা ইনজুরিতে আছেন মুস্তাফিজুর রহমানও।

আল আমিন হোসেন ফিট হলে তারও ছোট খাটো ইনজুরির সমস্যা আছে। আর অধিনায়ক মাশরাফির নিত্যসঙ্গী তো ইনজুরি। তাই পেস বিভাগের ঘাটতি মেটাতে দল যে তরুণ রনির দিকে তাকিয়ে আছে সেটিও স্পষ্ট। রনি বলেন, ‘শুরুতে একটু নার্ভাস ছিলাম। বিশেষ করে যে ওভারে ১৮ দিলাম। কিন্তু এরপরই নিজেকে শক্ত করেছি।  শেষ পর্যন্ত পুরোপুরি সফল না হলেও ৪০ রানে দু’টি উইকেট নিয়েছি। শেষ ম্যাচে ক্যাচ না ছাড়ালে আরও একটু বেশি উইকেট নিতে পারতাম। তবে আমি মনে করি এখনও আমাকে অনেক বড় পরীক্ষা দিতে হবে। আরও কঠিন হবে তা। নিজের উপর বিশ্বাস রেখেছি দলে সুযোগ এলে যেন সেরাটাই দিতে পারি।’

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts