November 17, 2018

সাদুল্যাপুর শিক্ষা অফিসের অফিস সহকারীর বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত সম্পন্ন

ddd
তোফায়েল হোসেন জাকির, গাইবান্ধা: গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসের অফিস সহকারী নুরবানু আকতার দীর্ঘ ১৪ বছর যাবৎ শিক্ষকদের নিকট থেকে ঘুষ গ্রহন ও অসভোনীয় আচারণসহ বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্ণীতি করায় তার বদলীর দাবিতে রংপুর বিভাগীয় উপ-পরিচালকের বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা । অভিযোগের প্রেক্ষিতে সোমবার সকালে সাদুল্যাপুর উপজেলা অডিটরিয়াম হল রুমে উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকদের উপস্থিতিতে তদন্ত কার্যক্রম সম্পাদন করেন তদন্ত কমিটি। তদন্তের ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটিতে ছিলেন, গাইবান্ধা জেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আসাদুজ্জামান, ফিরোজ এফতেখার ও গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা অফিসার জালাল উদ্দিন।
উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কর্মরত শিক্ষকরা জানান, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর নুরবানু আকতার গত ১১ এপ্রিল ২০০২ইং সালে যোগদান করেন। তিনি অত্র উপজেলার স্থায়ী বাসিন্দা ও শিক্ষা অফিস সংলগ্ন বাসা-বাড়ির হওয়ার দাপটে বিভিন্ন প্রভাব খাটিয়ে শিক্ষকদের জিম্মি করে ঘুষ, দুর্ণীতি-বানিজ্য করে আসছে। শিক্ষকদের বার্ষিক ইনক্রিমেন্ট, টাইম স্কেল, এরিয়া বিল, মাতৃত্বকালীন ছুটি, বিদ্যুৎ বিল সহ বিভিন্ন কারণে নুরবানুর শরানাপন্ন হলে তার দাবিকৃত টাকা না দিলে তিনি অশ্লীল ভাষায় শিক্ষকদের গালমন্দ করেন এবং অফিস থেকে তাড়িয়ে দেন।
এবিষয়ে শিক্ষকরা অতিষ্ঠ হয়ে রংপুর বিভাগীয় উপ-পরিচালক সহ সংশ্লিষ্ঠ বিভিন্ন দপ্তরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। নুরবানু আকতারের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে সোমবার সকালে ৩ সদস্য বিশিষ্ঠ একটি তদন্ত কমিটি তদন্ত কার্যক্রম সম্পাদন করেন।
অফিস সহকারী নুরবানু আকতার জানান, কতিপয় শিক্ষকরা ঈর্ষাণিত হয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছেন।
সাদুল্যাপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার গোলাম মোস্তফা তদন্তের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, নুরবানুর বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ প্রামানিত হলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Related posts