September 26, 2018

‘সরকারকে যারা ভ্যাট দেয় না তাদের জন্যই আইন’

ঢাকাঃ  অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেছেন, ভ্যাট আইনের সমস্যা সমাধানে ব্যবসায়ীদের একটু নমনীয় হতে হবে। তাহলেই এটা অনেক সহজ হয়ে যাবে। যারা সরকারকে ভ্যাট দেয় না তাদের জন্যই এ আইন।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘স্বপ্ন পূরণের বাজেট’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ স্টাডি ট্রাস্ট।

অর্থমন্ত্রী বলেন, দেশের উন্নয়নে সরকার কাজ করে যাচ্ছে। আগামী ২০১৯ সালের মধ্যে সারা দেশে গ্যাস দেওয়া সম্ভব হবে। যা আগামী ৫০ বছর চালানো যাবে।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জাতিসংঘের প্রাক্তন স্থায়ী প্রতিনিধি ড. এ কে আবদুল মোমেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রাক্তন গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাস উদ্দিন বলেন, এবারের বাজেটে জিডিপির প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৪ ধরা হয়েছে, এটা উচ্চাভিলাসী নয়। রাজস্ব আদায়ে যে লক্ষ্যমাত্রা তা অর্জনযোগ্য।

সংলাপে জানানো হয়, ৩ লাখ ৪০ হাজার ৬০৫ কোটি টাকার বাজেট জিডিপির ১৭ শতাংশ। তাই এ বাজেট উচ্চাভিলাসী নয়, বাস্তবায়নযোগ্য। অনেক দেশের বার্ষিক বাজেট তাদের জিডিপির তুলনায় অনেক বড় হয়। যুক্তরাজ্যের বাজেট তাদের জিডিপির ৪২ শতাংশ। আমরা যদি যুক্তরাজ্যকে অনুসরণ করি, তাহলে বাংলাদেশের বাজেটের আকার আরো বড় হওয়া উচিত ছিল। যার পরিমাণ প্রায় ৮ লাখ ৪১ হাজার ৪৯৪ কোটি টাকা।

২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে বাজেটের চ্যালেঞ্জ হিসেবে সংলাপে যে বিষয়গুলো উঠে আসে: বাজেট বাস্তবায়ন করা, রাজস্ব আদায়, বিনিয়োগ বৃদ্ধি, কর্মসংস্থান বৃদ্ধি, ট্যাক্সের টাকার যথার্থ ব্যবহার, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, ঘাটতি পূরণ ইত্যাদি।

বক্তারা বলেন, বাজেটের লক্ষ্যগুলো বাস্তবাযনেরর জন্য প্রথমত সম্পদের জোগান দিতে হবে। আয়কর সংগ্রহ করতে হবে, ট্যাক্স দেওয়ার পরিধি ও করদাতার সংখ্যা অবশ্যই বৃদ্ধি করা দরকার।

বর্তমানে ১৬ কোটি লোকের দেশে মাত্র শূন্য দশমিক ৭৫ শতাংশ লোক সরাসরি আয়কর দেয়। যা দেশের জন্য লজ্জার।

আলোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন- জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়াম্যান নজিবুর রহমান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, পলিসি রিসার্চ ইন্সটিটিউটের ভাইস চেয়ারম্যান ড. সাদিক আহমেদ এবং একাত্তরের ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটির সহসভাপতি শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী।

Related posts