April 20, 2019

সম্পর্ক জোরদার হচ্ছে সৌদিআরব এর সাথে

সৌদি আরবের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক নতুন মাত্রায় নিয়ে যেতে আগামী মার্চ থেকে মে মাসের মধ্যে দেশটিতে সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত বুধবার সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদে অনুষ্ঠিত দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের গুরুত্বপূর্ণ এক বৈঠকে উভয় পক্ষ ওই সফরকে অর্থবহ করার ও সফরের সময় কয়েকটি চুক্তি স্বাক্ষরের লক্ষ্যে কাজ করতে সম্মত হয়। সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল বিন আহমেদ আল-জুবেইর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সৌদি সফরের প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়ে বলেছেন, সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানাতে উদগ্রীব হয়ে আছেন। অনেক বছর ধরেই ভ্রাতৃপ্রতিম দুই দেশের মধ্যে চমৎকার সম্পর্ক রয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গতকাল বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে, ‘অর্থবহ সহযোগিতা’র মাধ্যমে সন্ত্রাস ও উগ্রবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সহযোগিতার বিষয়ে উভয় পক্ষ দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করে। সৌদি আরবের জেদ্দাভিত্তিক ইংরেজি দৈনিক আরব নিউজে গতকাল প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ প্রসঙ্গেই বলা হয়েছে, ‘সফররত বাংলাদেশি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী অর্থবহ সহযোগিতার মাধ্যমে সন্ত্রাস ও উগ্রবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সৌদি আরবের সঙ্গে যোগ দেওয়ার বিষয়ে তাঁর দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছেন।’
বিদেশে যুদ্ধ করতে বাংলাদেশের সেনা না পাঠানোর নীতি থাকলেও এ দেশ গত মাসে সৌদি আরবের আমন্ত্রণে সৌদি নেতৃত্বাধীন ৩৪ দেশীয় সন্ত্রাসবিরোধী সামরিক জোটে যোগ দেয়। ওই জোটের কার্যপরিধির বিষয়ে বাংলাদেশের আরো জানার আগ্রহের মধ্যেই বেশ কবছর পর গত রবিবার ঢাকা-রিয়াদ পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ ওই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকের প্রাক্কালে ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ইরানে সৌদি দূতাবাস ও কনস্যুলেটে হামলার নিন্দা জানালেও ইরানের সঙ্গে সৌদি আরবের কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করা নিয়ে কোনো মন্তব্য করেনি।

কূটনৈতিক সূত্রগুলো জানায়, সৌদি আরবের পর বাহরাইনসহ আরো কয়েকটি দেশ ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন বা কূটনৈতিক সম্পর্ক সীমিত করার ঘোষণায় মধ্যপ্রাচ্যে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যে সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আমন্ত্রণে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলীর পূর্বনির্ধারিত রিয়াদ সফরের গুরুত্ব আরো বেড়ে যায়। তবে অত্যন্ত উষ্ণ ও ইতিবাচক আবহে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে বাংলাদেশ-সৌদি দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আরো এগিয়ে নেওয়ার বিষয়টিই বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী গত মঙ্গলবার রিয়াদের বাদশাহ খালিদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছলে তাঁকে স্বাগত জানান সৌদি উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী আজম আবদুল করিম আল-গাইন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী ও সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল বিন আহমেদ আল-জুবেইর গত বুধবার আনুষ্ঠানিক বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের সব দিক নিয়ে আলোচনার পাশাপাশি জাতিসংঘ, ইসলামী সহযোগিতা সংস্থাসহ (ওআইসি) বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফোরামে পারস্পরিক সহযোগিতা এবং পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে মতবিনিময় করেন।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী সৌদি বাদশাহ সালমানকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শুভেচ্ছা পৌঁছে দেন। সে সময় তিনি চলতি বছরের মার্চ থেকে মে মাসের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সৌদি আরব সফরের প্রস্তাব করলে সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে স্বাগত জানান।

প্রধানমন্ত্রীর সম্ভাব্য ওই সফরে বিনিয়োগ, শিক্ষা ও সংস্কৃতি, কৃষি প্রভৃতি খাতে সহযোগিতাবিষয়ক কয়েকটি চুক্তি স্বাক্ষরের লক্ষ্যে সফরের আগেই এ নিয়ে কাজ করার বিষয়ে উভয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী সম্মত হন। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রীর ওই সফরে দুই দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মধ্যে নিয়মিত বৈঠক অনুষ্ঠানে একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষরের বিষয়েও তাঁরা একমত হন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী তাঁর দেশে বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের ভূমিকার প্রশংসা করেন। ওই সম্প্রদায় দুই দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নেই ভূমিকা রাখছে। বাংলাদেশ থেকে চিকিৎসক, নার্সসহ দক্ষ ও আধাদক্ষ আরো বেশিসংখ্যক কর্মী নিয়োগে সহযোগিতা জোরদারেও সৌদি ও বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা একমত হন। ভবিষ্যতে বাংলাদেশি চিকিৎসাকর্মী নিয়োগের লক্ষ্যে মেডিক্যাল ডিগ্রি ও অন্যান্য সেবা পরিদর্শনে সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একটি প্রতিনিধিদল বাংলাদেশে আসবে বলেও বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়।
সম্প্রতি সৌদি আরবে অনুষ্ঠিত যৌথ কমিশনের বৈঠক ও সেখানে গৃহীত সিদ্ধান্ত উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী বাংলাদেশে সাম্প্রতিক অগ্রগতির পাশাপাশি দক্ষ কর্মী এবং বিশ্বমানের পণ্য যেমন তৈরি পোশাক ও ওষুধ সামগ্রী সৌদিতে রপ্তানির সম্ভাবনা তুলে ধরেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, সৌদি আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের ‘বিজনেস ভিসা’ দেওয়ার জন্য ঢাকায় সৌদি দূতাবাসকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিতে বৈঠকে উপস্থিত সৌদি কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন। বৈঠকে উভয় পক্ষই বাণিজ্য ও বিনিয়োগ জোরদারে সৌদি আরবে বাংলাদেশি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর শাখা খোলার বিষয়ে সম্মত হয়। পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী দুই দেশের জনপ্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটগুলোর মধ্যে সহযোগিতার প্রস্তাব দিলে সৌদিপক্ষ একে স্বাগত জানায়। তিনি রিয়াদ, জেদ্দা ও দাম্মামে বাংলাদেশ কমিউনিটি স্কুলগুলোর জন্য জমি বরাদ্দ দিতে সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে অনুরোধ জানান। জবাবে সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সৌদি শিক্ষা মন্ত্রণালয় বিষয়টি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালে তিনি তা গ্রহণ করেন। শিগগিরই উভয় পক্ষের জন্য সুবিধাজনক সময়ে ওই বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

বৈঠকে সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন বিভাগের উপপররাষ্ট্রমন্ত্রীরা এবং বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মশিহ, মিশন উপপ্রধান নজরুল ইসলাম, জেদ্দায় বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল শহীদুল করিম ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক আসিফ রহমান উপস্থিত ছিলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী ওআইসির মহাসচিব ইয়াদ বিন আমিন মাদানির সঙ্গে বৈঠক শেষে আজ শুক্রবার দেশে ফিরবেন।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/মেহেদি/ডেরি

Related posts