September 24, 2018

”সমবায়ের মাধ্যমে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ উন্নতির শিখরে”

রফিকুল ইসলাম রফিক, ব্যুরো চীফ, নারায়নগঞ্জঃ  জেলা প্রশাসক মো.রাব্বি মিয়া বলেছেন, আকতার হামিদ সমবায়ের ক্ষেত্রে একটি উজ্জল নক্ষত্র হিসেবেই দেশে সুপরিচিত। তার পথকে অনুসরন করে যদি আমরা দেশকে কিছু দিতে পারি তাহলে আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্ম আমাদের শ্রদ্ধার তরে স্বরন করবে। ১৮৪৪ সাল থেকে সমবায়ের যাত্রা শুরু হয়। শুরুর পর থেকে সমবায়ের মাধ্যমে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ আজ উন্নতির শিখরে পৌছেছে, আমরা যদি চেষ্টা করি তাহলে আমরাও তা পারবো।

দেশকে উন্নয়নশীল রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে প্রয়োজন যোগ্য নেতৃত্ব আর সেই নেতৃত্ব যদি আমরা দিতে পারি তাহলে সফলতার মুখ দেখাটা খুবই সাধারন বিষয়। তিনি সমবায়ের বিভিন্ন সদস্যদেরকে বলেন, শুধু সমাজের মানুষকে আর্থিকভাবে সফল করলেই চলবেনা। সমাজ থেকে সন্ত্রাস, মাদক ও জঙ্গীবাদ নির্মুলে সকলকে সচেতন করতে হবে।

৪৫ তম জাতীয় সমবায় দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে শনিবার সকালে নারায়ণগঞ্জ ক্লাব কনভেনশন হলের তৃতীয় তলায় আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সমাবেশে অন্যান্যেও মধ্যে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক( সার্বিক) মো.গাউসুল আজম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মো.ফারুক হোসেন ও জেলা সমবায় ইউনিয়নের সভাপতি মুহাম্মদ আবুল কাশেম, জেলা সমবায় অফিসার মুহাম্মদ মিজানুর রহমান।

নারায়ণগঞ্জে সমবায়ের দর্শন টেকসই উন্নয়ন শীর্ষক এক আলোচনা সভা ও বর্ণাঢ্য র‌্যালী অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১১টায় চাষাঢ়া বিজয় স্তম্ভের সামনে থেকে র‌্যালীটি বের হয়ে নারায়ণগঞ্জ ক্লাব প্রাঙ্গনে গিয়ে শেষ হবে। এরপর ক্লাব প্রাঙ্গনে জাতীয় পতাকা ও সমবায় পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে তৃতীয় তলায় নারায়ণগঞ্জ ক্লাব কনভেনশন হলে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
জেলা প্রশাসন ও জেলা সমবায় বিভাগের আয়োজনে অনুষ্ঠানে প্রায় ৩২ জনকে সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো.গাউসুল আজম বলেন, একটি দেশকে স্বাবলম্বী করে তুলতে সমবায়ের বিকল্প নেই। দেশকে উন্নত করতে সকলকেই সমবায়ের সাথে সম্পৃক্ত হওয়া উচিত। তিনি আরো বলেন,দেশে প্রথম সমবায়ী হিসেবে সফলতার মুখ দেখেছেন আকতার হামিদ। তিনি তার প্রচেষ্টায় সর্বপ্রথম দেশে বিরি প্রজাতির ধানের বীজের উদ্ভাবন করেন যার ফলে দেশে এখন ৮২ প্রজাতির ধান উৎপাদন করছে দেশের কৃষকরা। আমি আশাবাদী দেশের সকল মানুষই সমবায়ের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে নিজের পাশাপাশি দেশের সার্বিক উন্নয়নের অংশীদার হবেন।

নারায়ন গঞ্জের আরো সংবাদঃ 

সালমা ওসমান লিপি ও বিদায়ী ইউএনও আফরোজা একে অপরকে জড়িয়ে অঝোর কান্না

সদর উপজেলা পরিষদের সংবর্ধনায় নবাগত ও বিদায়ী ইউএনও
নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদে সদ্য বিদায়ী সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আফরোজা আক্তার ও নবাগত তাসনিম জেবিন বিনতে শেখকে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। শনিবার সকাল ১১ টায় নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের মিলনায়তনে এই জাকজমক পূর্ণ সংর্বধনার আয়োজন করে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের কর্তকর্তা ও কর্মচারীরা। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় মহিলা সংস্থা, নারায়ণগঞ্জ’র চেয়ারম্যান ও নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান এর সহধর্মিনী সালমা ওসমান লিপি।
এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন- নারায়ণগঞ্জ জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ড. শিরীন আক্তার, ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি এম সাইফুল্লাহ বাদল, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ মজিবর রহমান, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফাতেমা মনির, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার সাতটি ইউনিউন পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ ও নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার কর্মকর্তা-কর্মচারী বৃন্দরা ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে সালমা ওসমান লিপি বলেন, বর্তমানে আপনাদের সবার প্রিয় জনদরদী নেতা শামীম ওসমানের বিরুদ্ধে একটা সংঘবদ্ধ চক্র তার জনপ্রিয়তা কমানোর জন্য উঠে পড়ে লেগেছে, তাই, আপনাদের সকলকে এ ব্যাপারে সজাগ থাকার আহবান জানাচ্ছি।
তিনি বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার আফরোজা আকতার চৌধুরী সদর উপজেলায় গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করেছেন তার জন্য তাকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই এবং তার মঙ্গল কামনা করি একই সাথে নতুন উপজেলা ইউএনও তাসনিম জেবিন বিনতে শেখকে অভিনন্দন জানাই। তার সাথে সদর উপজেলার সফলতা কামনা করছি।
এ সময়, অশ্রুতে শিক্ত হলেন এমপি শামীম ওসমানের পতœী সালমা ওসমান লিপি ও বিদায়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আফরোজা আক্তার চৌধুরী । একে অপরকে জড়িয়ে ধরে অঝোরে কেদেঁছেন। এ দৃশ্যে সকলের চোঁখও ছলছল হয়ে উঠে যেন মনে হয়, যেতে নাহি দিতে চাই তবু যেতে দিতে হয় ।
পরে উপস্থিত অতিথি ও উপজেলা পরিষদের কর্মকর্তরা তাঁদেরকে ফুল ও উপহার সামগ্রী দিয়ে সংবর্ধনা জানান।
সোনারগাঁ রিজোর্ট সিটির বালু ভরাট কাজ বন্ধে হাইকোর্টের নির্দেশ
না’গঞ্জের সোনারগাঁয়ে ইউনিক গ্রুপের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের এ নির্দেশ এলাকায় সাধারন কৃষকদের মাঝে স্বস্তি¡র নিঃশ্বাস
নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার পিরোজপুর এলাকায় কৃষকের আবাদী জমিতে ড্রেজারের পাইপ লাগিয়ে জোরপূর্বক বালু ভরাট শুরু করেছিল ইউনিক গ্রুপের “সোনারগাঁ রিজোর্ট সিটি” নামের একটি অঙ্গপ্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটি নিজেদের ক্রয়কৃত প্রায় সাড়ে ৪‘শ বিঘা জমি ভরাট করার নাম করে কৃষকের আবাদী জমিসহ প্রায় ২ হাজার বিঘা জমিতে জোরপূর্বক বালু ভরাট কাজ শুরু করে। এতে ফুঁসে উঠে ওই এলাকার ১০ গ্রামের কৃষকসহ হাজার হাজার সাধারন মানুষ। এব্যাপারে এলাকাবাসী তাদের আবাদী জমি রক্ষার্থে প্রশাসনের উধ্বর্তন মহলে আবেদন করেও কোন ফল পায়নি। পরবর্তীতে বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) হাইকোর্টে এব্যাপারে একটি আবেদন করেন। বেলার আবেদনের প্রেক্ষিতে গত বৃহস্পতিবার হাইকোর্ট ডিভিশনের একটি বে কৃষকের কৃষিজমি, জলাভূমি ও নিচু জমি ভরাট করে সোনারগাঁ রিজোর্ট সিটির উন্নয়ন কাজ পরিচালনার অনুমতির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। হাইকোর্টের এ নির্দেশে এলাকার সাধারন কৃষক ও হাজার হাজার মানুষের মাঝে স্বত্ত্বির নিঃশ্বাস ফিরে এসেছে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের কান্দারগাঁও, জৈনপুর, ছয়হিস্যা, চরভবনাথপুর, রতনপুর, বিরেষেরগাঁও ও ভাটিবন্দরসহ ১০ গ্রামের মধ্যবর্তী মেঘনা নদীর তীর ঘেঁষা ৫টি মৌজায় প্রায় ২ হাজার বিঘা আবাদী জমি রয়েছে। এসব জমিতে এলাকার সাধারন কৃষকরা ধান, গম, শাকসবজিসহ বিভিন্œ মৌসুমী ফসল উৎপাদন করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিল। অভিযোগ উঠেছে, বিগত ২০০০ সালে আদম বেপারী নূর আলীর মালিকানাধীন ইউনিক গ্রুপের নজরে পড়ে কৃষককের চাষাবাদ করা ওইসব আবাদী জমি। আবাসন প্রকল্প নির্মান করার কথা বলে সোনারগাঁ রিজোর্ট সিটি নামকরণ করে ৫টি মৌজা থেকেই অল্প অল্প করে জমি ক্রয় শুরু করে ইউনিক গ্রুপ। ২০০০ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত প্রায় ২ হাজার বিঘা জমির মধ্যে প্রায় ৪/৫‘শ বিঘা জমি ক্রয় করে প্রতিষ্ঠানটি। এরই মধ্যে ৩ দফা তাদের ক্রয়কৃত জমি ভরাট করার নামে কৃষকের আবাদী জমিতেও বালু ভরাট কাজ শুরু করে ইউনিক গ্রুপ। এ ঘটনায় ফুঁসে উঠে এলাকার সাধারন কৃষকসহ হাজার হাজার মানুষ। এলাকাবাসী তাদের আবাদী জমি রক্ষার্থে বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন, ইউএনও অফিস ঘেরাও ও প্রশাসনের উধ্বর্তন মহলে আবেদনসহ বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করে। এ সংক্রান্ত বিষয়ে বিভিন্ন প্রিন্ট মিডিয়া ও ইলেক্ট্রনিক্্র মিডিয়ায় ধারাবাহিক সংবাদ পরিবেশন করা হয়। এছাড়াও বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) কৃষকের কৃষিজমি, জলাভূমি ও নিচু জমি ভরাট করে সোনারগাঁ রিজোর্ট সিটির উন্নয়ন কাজ বন্ধ করতে হাইকোর্টে একটি আবেদন করেন। ২০১৪ সালের ২ মে হাইকোর্ট ডিভিশনের একটি বে এব্যাপারে শুনানী শেষে সোনারগাঁ রিজোর্ট সিটি নির্মানে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। এলাকাবাসীর অভিযোগ, ইকোনোমিক জোন নামকরন করে ও হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইউনিক গ্রুপ বিগত দেড় মাস আগে এলাকার চিহিৃত চাঁদাবাজ, হত্যাসহ একাধীক মামলার আসামী জাকির ওরফে পলিথিন জাকির ও নোয়াবের নেতৃত্বে ২৫/৩০ জনের একটি সিন্ডিকেট তৈরী করে এলাকায় আবারও জোরপূর্বক কৃষকের আবাদী জমিতে বালু ভরাট কাজ শুরু করে। এব্যাপারে এলাকাবাসী তাদের আবাদী জমি রক্ষার্থে এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল বের করলে ও বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞার আদেশ উপস্থাপন করে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের কাছে আবেদন ও সোনারগাঁ থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করলে টনক নড়ে প্রশাসনের। পরবর্তীতে সোনারগাঁ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুবায়েত হায়াত শিপলুর নেতৃত্বে একটি ভ্রাম্যমান আদালত সোনারগাঁ রিজোর্ট সিটির বালু ভরাট কাজে নিয়োজিত ড্রেজার স্থাপন করা এলাকায় অভিযান চালায়। এসময় আদালত হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কৃষকের জমিতে জোরপূর্বক বালু ভরাট করার অভিযোগে ইউনিক গ্রুপের ভাড়াটিয়া ৫ সন্ত্রাসীকে হাতেনাতে আটকের পর ১ মাসের করে কারাদন্ড প্রদান করেন। আদালত এসময় সোনারগাঁ রিজোর্ট সিটির বালু ভরাট কাজও বন্ধ করে দেয়। এ ঘটনার পর উপজেলার ভাটিবন্দর এলাকায় পুলিশের আইজিপি শহীদুল হকের স্টাফ অফিসার এডিশনাল এসপি আক্তার হোসেনের পিতা হাজী মাঈনুদ্দীন বেপারীর কুলখানী অনুষ্ঠানে পুলিশের আইজিপি শহীদুল হক, ডিআইজি মাহফুজুল হক নূরুজ্জামানসহ পুলিশের উধ্বর্তন কর্মকর্তারা অংশগ্রহণ করতে এসে ইউনিক গ্রুপের জোরপূর্বক বালু ভরাট করার এলাকা ও ভূমিদস্যুতা করার এলাকা পরিদর্শন করেন। এসময় পুলিশের আইজিপি ইউনিক গ্রুপের ভূমিদস্যুতা দেখে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেন।
এদিকে বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) ইউনিক গ্রুপের “সোনারগাঁ রিজোর্ট সিটি”র বালু ভরাট করার কাজের স্থগিতাদেশ চেয়ে সাম্প্রতি হাইকোর্টে আরেকটি আবেদন করেন। হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন আপীল বিভাগের চার বিচারপতির বে গত বৃহস্পতিবার শুনানী শেষে কৃষকের কৃষিজমি, জলাভূমি ও নিচু জমি ভরাট করে সোনারগাঁ রিজোর্ট সিটির উন্নয়ন কাজ পরিচালনার অনুমতির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। আদালতে ওইসময় বেলার পক্ষে আইনজীবি ছিলেন- এ এম আমিন উদ্দিন ও সহযোগি আইনজীবি হিসেবে ছিলেন মিনহাজুল হক চৌধুরী। এ ঘটনার পর এলাকার সাধারন কৃষক ও হাজার হাজার মানুষের মধ্যে স্বত্ত্বির নিঃশ্বাস ফিরে আসে।
নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক ভাটিবন্দর ও বিরেষেরগাঁও এলাকার কয়েকজন ব্যক্তি জানান, হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে বালু ভরাট কাজ বন্ধ করে দেওয়ার পর সোনারগাঁ রিজোর্ট সিটির মালিক আদম বেপারী নূর আলী ফুঁসে উঠেন সোনারগাঁ থানার ওসি শাহ্ মোঃ মঞ্জুর কাদের পিপিএম এর উপর। নিজের চরিতার্থ ও স্বার্থ হাসিলে ব্যর্থ হয়ে নূর আলী তার মালিকানাধীন একটি পত্রিকায় পর পর দুইদিন ওসির বিরুদ্ধে মিথ্যা, বিভ্রান্তিমূলক ও কাল্পনীক সংবাদ পরিবেশন করে এলাকাবাসী ও পাঠকদের মনে বিভ্রান্তি ছড়ান। কৃষকের আবাদী জমি জোরপূর্বক দখল করতে সে দালাল চক্র, ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী ও নিজের মালিকানাধীন একটি পত্রিকাকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছেন। এ ঘটনায় এলাকার হাজার হাজার মানুষের মাঝে চরম ক্ষোভ ও উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।
স্থানীয় সাংবাদিক মনির হোসেন জানান, ইউনিক গ্রুপের বালু ভরাট ও ভূমিদস্যুতার কারনে এলাকার অনেক সাধারন কৃষক সর্বশান্ত হয়ে গেছে। অনেক কৃষক তাদের আবাদী জমিতে চাষাবাদ করতে না পারায় অনাহারে-অর্ধাহারে জীবন যাপন করছে।
পিরোজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ইি নিয়ার মাসুদুর রহমান মাসুম জানান, হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইউনিক গ্রুপের মালিকানাধীন সোনারগাঁ রিজোর্ট সিটির ভেতরে ইকোনোমিক জোনের নামে কৃষকের শতশত বিঘা আবাদী জমিতে জোরপূর্বক বালু ভরাট কাজ শুরু করা হয়েছিল বলে তিনি জানতে পেরেছেন। এ ঘটনার পর এলাকার শতশত মানুষ বিক্ষোভ মিছিল বের করলে ও বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) হাইকোর্টের পূর্বের নিষেধাজ্ঞার আদেশ উপস্থাপন করে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের কাছে আবেদন ও সোনারগাঁ থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করলে ভ্রাম্যমান আদালত ইউনিক গ্রুপের বালু ভরাট কাজ বন্ধ করে দেয়।
সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহ্ মোঃ মঞ্জুর কাদের পিপিএম জানান, ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে পিরোজপুর এলাকায় ইউনিক গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান সোনারগাঁ রিজোর্ট সিটির বালু ভরাট কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। এ ঘটনায় ইউনিক গ্রুপের মালিক তার উপর ফুঁসে উঠেন ও একটি পত্রিকার মাধ্যমে তার বিরুদ্ধে নানা রকম বিভ্রান্তিমূলক, মানহানিকর ও মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করেন। এছাড়াও গত বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের একটি বে ওই এলাকায় বালু ভরাট কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন বলে তিনি জানতে পেরেছেন। তবে, এব্যাপারে তিনি সরকারীভাবে কোন আদেশের কপি হাতে পাননি। বর্তমানে ওই এলাকায় বালু ভরাট কাজ বন্ধ রয়েছে।
—————-বিদেশ পাঠানোর নামে প্রতারণা—————-
সোনারগাঁয়ে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে
নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয় বিদেশ পাঠানোর কথা বলে ৪০ জনের কাছ থেকে এক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে স্থানীয় নুরুজ্জামান নামের এক মানব পাচারকারী। টাকা ফেরত চাওয়া উল্টো প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এ মানব পাচারকারীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় গতকাল শনিবার দুপুরে এটিএম তাজুল ইসলাম নামের এক ব্যাক্তি সোনারগাঁ থানায় সাধারন ডায়েরী করেছেন।
জানা গেছে, ময়মনসিংহের ফুলবাড়ীয়ার হুরবাড়ী গ্রামের মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে এটিএম তাজুল ইসলামের সঙ্গে তার এক বন্ধুর মাধ্যমে সোনারগাঁয়ের কাঁচপুর ইউনিয়নের ললাটি গ্রামের নুরুজ্জামান ওরফে রশিদ নামের এক মানব পাচারকারীর গত ২০০৩ সালে পরিচয় ঘটে। ওই পরিচয়ের সূত্র ধরে নুরুজ্জামান ওরফে রশিদ ফুলবাড়ীয়ার হুরবাড়ী গ্রামের তাজুল ইসলামের বাড়িতে বেড়াতে যায়। এসময় তিনি বিদেশে (ব্রুনাই) লোক পাঠানোর কথা বলে তাজুলের মাধ্যমে ৪০ জনের কাছ থেকে পাসপোর্টসহ ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা করে ১ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। পরবর্তীতে প্রত্যেককে ভূয়া ভিসা ও বিমান টিকেট হাতে ধরিয়ে দিলে তার বিমানবন্ধরে গিয়ে প্রতারনার বিষয়টি নিশ্চিত হয়। এ ঘটনায় মানব পাচারকারী নুরুজ্জামানের কাছ থেকে সমুদয় টাকা ও পাসপোর্ট ফেরত চাইলে সে তাল বাহানা করতে থাকে। এ অবস্থা চলতে থাকলে গত ২ নভেম্বর ভূক্তভোগী তাজুল ইসলাম তার দুই আত্মীয়কে সঙ্গে নিয়ে ললাটি গ্রামে প্রতারক নুরুজ্জামান বাড়িতে উপস্থিত হলে তার ছেলে মুন্না ও স্ত্রী শিরিনা আক্তারসহ ৩/৪ জন লোক তাদের গালমন্দ করে টাকা ফেরত দিবে না বলে প্রাণনাশের হুমকি দেয়।
এব্যাপারে এটিএম তাজুল ইসলাম জানান, নুরুজ্জামান তার সঙ্গে সু-সম্পর্ক গড়ে তুলে বিদেশে লোক পাঠানো কথা বলে তার মাধ্যমে ৪০ জনের কাছ থেকে ১ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এখন টাকা ফেরত চাওয়ায় উল্টো প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে।
সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহ মো: মঞ্জুর কাদের পিপিএম জানান, প্রতারনার মাধ্যমে কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে সাধারন ডায়েরী গ্রহণ করা হয়েছে। তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
সোনারগাঁয়ে জাতীয় সমবায় দিবসের র‌্যালী
সমবায়ের দর্শন টেকসই উন্নয়ন এ শ্লোগানকে সামনে রেখে শনিবার নারায়নগঞ্জের সোনারগোঁওয়ে ৪৫ তম জাতীয় সমবায় দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা প্রশাসন ও সমবায় কার্যালয়ের উদ্যেগে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সোনারগাঁও উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু নাছের ভূঁঞার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান নাসিমা আক্তার, সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এডভোকেট সামসুল ইসলাম ভূইয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক সুলতান আহমেদ মোল্লা বাদশা, উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা সারোয়ার আলম, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা নঈম জাহাঙ্গীর, উপজেলা রিসোর্স সেন্টারের ইন্সট্রাকটার নাসরিন জাহান পপি , সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কোহিনুর ইসলাম রুমা, উপজেলা সমবায় অফিসার নাসিমা আক্তার ডলি প্রমূখ। আলোচনা সভা শেষে একটি সমবায় র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালী উপজেলা পরিষদ চত্বর এলাকা প্রদক্ষিন করেন।
সোনারগাঁয়ে বৈদ্যেরবাজার ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তর চলমান রেকর্ডে অন্তর্ভূক্ত না করায়
জমির খাজনাপত্র পরিশোধ নামজারী হস্তান্তরে বাধা
নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের পূর্ব দামোদরদী (জে.এল নং-৪৫০) মৌজার জমির চলমান জরিপে (আর.এস) রেকর্ড ভূক্ত না করায় জমির মালিকদের কোন নামপত্তন, নামজারী ও খাজনাপত্র পরিশোধ করতে পারছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। ফলে ওই মৌজার প্রকৃত জমির মালিকরা তাদের জমি হস্তান্তর ও জমি বিক্রিসহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারছে না।
অভিযোগ উঠেছে, এস.এ রেকর্ড জরিপে নাম ও ভূমি ভোগ দখল অবস্থায় থাকার পরও অজ্ঞাত কারনে তৎকালীন ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা পূর্ব দামোদরদী মৌজার জমি মাঠ জরিপের সময় আর.এস রেকর্ডে অন্তর্ভূক্ত করেননি। এব্যাপারে এলাকাবাসী বছরের পর বছর স্থানীয় প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও কোন ফল পাননি। সম্প্রতি এলাকাবাসী ও ভূক্তভোগীরা তাদের জমি আর.এস রেকর্ডভূক্ত করতে ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ প্রশাসনের উধ্বর্তন মহলে একটি স্বারকলিপি প্রদান করেন।
জানা যায়, উপজেলার বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের পূর্ব দামোদরদী (জে.এল নং-৪৫০) মৌজায় প্রায় ৩০-৪০ বিঘা জমি রয়েছে। এসব জমির প্রকৃত মালিকদের নাম সি.এস ও এস.এ রেকর্ডে অন্তর্ভূক্ত করা হলেও চলমান জরিপে (আর.এস) রেকর্ডভূক্ত করা হয়নি। অভিযোগ রয়েছে, ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা তৎকালীন সময়ে পূর্ব দামোদরদী মৌজার জমি মাঠ জরিপ করতে গিয়ে প্রকৃত জমির মালিকদের তথ্য সংগ্রহ ও তাদের জমি ভোগ দখল থাকা অবস্থায় দেখে তথ্য সংগ্রহ করলেও অজ্ঞাত কারনে আর.এস রেকর্ডে অন্তর্ভূক্ত করেনি। তবে এব্যাপারে ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরের একটি সূত্র জানায়, পূর্ব দামোদরদী (জে.এল নং-৪৫০) মৌজাটি মেঘনা নদীর তীরবর্তী এলাকায় হওয়ায় ও নদী ভাঙনের কবলে পড়ায় তা রেকর্ডভূক্ত করা হয়নি। আবার ওই জমি খাস হিসেবেও রেকর্ডভূক্ত করা হয়নি।
বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন পরিষদের ৯নং ওয়ার্ডের সদস্য আব্দুল বাছেদ মেম্বার জানান, পূর্বদামোদরদী (জে.এল নং-৪৫০) মৌজায় তার পরিবারের সদস্যদের নামে এস.এ রেকর্ড মোতাবেক প্রায় ৯ বিঘা জমি রয়েছে। জমিটির বেশীরভাগ অংশ মেঘনা নদীর ভাঙনের কবলে পড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হলেও অবশিষ্ট অনেক অংশ নদীর তীরবর্তী এলাকায় এখনও বিদ্যমান রয়েছে। ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা আর.এস রেকর্ড জরিপ করার সময় তার পরিবারের সদস্যদের এসব জমি আর.এস রেকর্ডভূক্ত করেননি। আবার খাস সম্পত্তি হিসেবেও ঘোষনা দেয়নি। এস.এ রেকর্ডভূক্ত ওইসব সম্পতি নিজেদের নামে নামজারি ও অন্যত্র বিক্রি করতে চেয়ে তারা বার বার ব্যর্থ হয়েছেন। তার পরিবারের সদস্যদের মতো একই অবস্থা এলাকার অনেক সাধারন মানুষের। ভূক্তভোগীদের অভিযোগ, সরকারের ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা তৎকালীন সময়ে রহস্যজনক কারনে পূর্ব দামোদরদী (জে.এল নং-৪৫০) মৌজার জমি আর.এস রেকর্ডভূক্ত করেননি। যদি ওই মৌজার সম্পত্তিগুলো মেঘনা নদীর ভাঙনের কবলে পড়েছে জেনে তা রেকর্ডভূক্ত করা হয়নি বলে জরিপ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা দাবী করে থাকেন সেক্ষেত্রে তো তারা সম্পত্তিগুলো খাস সম্পত্তি হিসেবেও রেকর্ডে অর্ন্তভূক্ত করেনি। তিনি আরও জানান, পূর্বদামোদরদী মৌজার অনেক জমি মেঘনা নদীর ভাঙনের কবলে পড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হলেও এখনও পর্যন্ত অনেক জমি আনন্দবাজার হাটের একপাশে নদীর তীরবর্তী এলাকায় বিদ্যমান রয়েছে। বর্ষা মৌসুমে পানির নিচে তলিয়ে গেলেও স্বাভাবিক অন্যসময় গুলোতে ওইসব জমি দখলদার ও জমির মালিকরা ভোগদখল করে থাকেন। এছাড়াও আনন্দবাজার হাটে আগত বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা নৌঘাট ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে জমিগুলো ব্যবহার করে আসছেন। রহস্যজনক কারনে ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তর এ জমি আর.এস রেকর্ডে অন্তর্ভূক্ত করেনি।
আমিনপুর ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা ও বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন ভূমি অফিসের অস্থায়ী দায়িত্বে থাকা ভূমি কর্মকর্তা জালাল আহমেদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আর.এস মাঠ জরিপ ১৯৬৯-১৯৭০ সালে পরিচালনা করা হয়। মাঠ জরিপের পর ১৯৭৮ সালে আর.এস রেকর্ড ফাইনাল করা হয়। ২০০৭ সাল থেকে ওই রেকর্ড মোতাবেক খাজনা আদায় ও সরকারী সকল কার্যক্রম শুরু হয়। পূর্বদামোদরদী মৌজাটি আর.এস রেকর্ডভূক্ত না হওয়ায় অনেক জমির মালিক (এস.এ মোতাবেক) দাবীদার নামপত্তন, নামজারী, খাজনাপত্র পরিশোধ ও জমি হস্তান্তর করতে পারছে না এটা সত্য। বিষয়টি একাধীকবার ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরসহ প্রশাসনের উধ্বর্তন মহলকে লিখিতভাবে অবগত করা হয়েছে।
সোনারগাঁও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুবায়েত হায়াত শিপলু জানান, পূবর্ দামোদরদী মৌজাটি আর.এস রেকর্ডভূক্ত না হওয়ায় বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ বিষয়টি তদন্ত করে সংশ্লিষ্ট উধ্বর্তন মহলকে অবশ্যই লিখিত আকারে জানানো হবে।
(ছবি-০০২)
রূপগঞ্জে জাতীয় সমবায় দিবসে র‌্যালী
নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে জাতীয় সমবায় দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার বেলা ১১টার উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনের আলোচনা পুর্বক র‌্যালীটি বের করা হয়। র‌্যালিটি উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। র‌্যালী শেষে ”সমবায় দর্শন টেকসই উন্নয়ন” শীর্ষক আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফারহানা ইসলাম। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর (বীর প্রতিক)। বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শাহজাহান ভুইয়া, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফেরদৌসি আলম নিলা, মু. হাবিবুর রহমান হারেজ। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সমবায় বিষয়ক কর্মকর্তা মির্জা ফারজানা শারমিন, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আওলাদ হোসেন, মুড়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোফায়েল আহাম্মেদ আলমাছ প্রমুখ।
(ছবি-০০৩)
রূপগঞ্জে মাদক জঙ্গী বিরোধী সভা
নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে মাদক ও জঙ্গী বিরোধী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার দুপুরে উপজেলার যাত্রামুড়া এলাকার লায়ন মুহাম্মদ মোজাম্মেল হক ভুইয়া কারিগরি স্কুল এন্ড কলেজ মিলনায়তনে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন, রূপগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি, কলামিস্ট ও গবেষক লায়ন মীর আব্দুল আলীম। রূপগঞ্জ প্রেসক্লাবের আয়োজনে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, মারুফ শারমিন স্মৃতি সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আলহাজ্ব লায়ন মুজাম্মেল হক ভুইয়া।
এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন,সাংস্কৃতিক মন্ত্রনালয়ের কর্মকর্তা মোঃ কামাল হোসেন, হাজী এখলাছ উদ্দিন ভুইয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ শহিদুল্লাহ ভুইয়া, সাংবাদিক আলম হোসেন, মনির হোসেন মনু, মকবুল হোসেন, এ হাই মিলন, আবুল কালাম শাকিল, খলিল সিকদার, সাত্তার আলী সোহেল, নজরুল ইসলাম, জিএম সহিদ, আশিকুর রহমান হান্নান, এসএম শাহাদাত, জাহাঙ্গীর আলম হানিফ, এম এ মোমেন, শফিকুল আলম ভুইয়া প্রমুখ।
সভায় মাদক নির্মূল ও জঙ্গী বিরোধী কর্মসূচী নিয়ে কাজ করতে সকল শ্রেণী পেশার মানুষকে আহবান জানানো হয়।
(ছবি-০০৪)
রূপগঞ্জে ছাত্রদলের প্রস্তুতি সভায় জেলা বিএনপির সভাপতি এড. তৈমুর আলম খন্দকার
না’গঞ্জে বিপ্লব ও সংহতি দিবস পালন করা হবেই
হয়তো কোন ভাবে বাঁধা আসতে পারে। ”ডু অর ডাই” যে ভাবেই হোক দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশ মোতাবেক ৭ নভেম্বর ঐতিহাসিক বিপ্লব ও সংহতি দিবস পালন করা হবে বলে বলেছেন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাড তৈমুর আলম খন্দকার। শনিবার দুপুরের নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার ভুলতা এলাকায় ছাত্রদলের উদ্যেগে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, দেশ, জাতি এবং বিএনপি এখন গভীর ষড়যন্ত্রের শিকার। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এ দেশ বাংলাদেশ কিন্তু সরকার দলের উস্কানিতে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন মন্দিরে হামলা চলছে এবং এ উস্কানির অভিযোগ করেছেন মন্দির কর্তৃপক্ষই। এ কারনে সরকার দলের এক জন হাইব্রীড নেতাও নাজেহাল হয়েছেন।
জেলা ছাত্রদলের যুগ্ন আহবায়ক মাহাবুবুর রহমান মাহবুবের সভাপতিত্বে বক্তব্যে রাখেন, আব্দুল কাইয়ুম, আব্দুল হালিম, তারিকুল ইসলাম বিপুল, মালেক মিয়া, আমির হোসেন, ইদ্রিস আলী, কামরুল হাসান, ইব্রাহীম মিয়া, ফজলু মিয়া, একে আজাদ, ডাঃ কামাল দেওয়ান প্রমুখ।
রূপগঞ্জে ১০ বছরের
সাজাপ্রাপ্ত পলাতক
আসামী গ্রেফতার
নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে দশ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী মোহন ওরজে মহিন (৩৫) কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার দুপুরে উপজেলার কায়েতপাড়া ইউনিয়নের চনপাড়া পূর্ণবাসন কেন্দ্র এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত মোহন ওরজে মহিন ওই এলাকার নুর মিয়ার ছেলে।
রূপগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফরিদ আহাম্মেদ জানান, গত ২০০৬ সালের ডিসেম্বর মাসে বিমান বন্দর থানায় একটি ডাকাতি মামলা দায়ের করা হয়। ওই মামলায় দশ বছরের সাজা হয় মোহন ওরজে মহিনের। দীর্ঘ দিন ধরে রাজধানীসহ আশ-পাশের এলাকায় আতœগোপনে ছিলো মহিন। দুপুরে তার নিজের বাড়ি চনপাড়া পূর্ণবাসন কেন্দ্রে এসেছে এমন সংবাদের ভিত্তিত্বে পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে মোহন ওরজে মহিনকে গ্রেফতার করে।
সিদ্ধিরগঞ্জে দুর্ধর্ষ ডাকাতি ॥ অস্ত্রাঘাতে আহত ১
সিদ্ধিরগঞ্জের সাইলোগেট এলাকায় দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। সশস্ত্র একদল ডাকাত গতকাল শনিবার ভোর রাত ৩ টার দিকে সাইলোগেট এলাকার শাহজাহান ওরফে কোটিপতি শাহজাহানের বাড়ির গেটের তালা ভেঙ্গে প্রবেশ করে। এ সময় ডাকাতরা বাড়ির নিচ তলা ও দোতালায় প্রবেশ করে ঘরের সবাইকে হাত মুখ ও পা বেঁেধ ডাকাতি কার্য চালায়। শাহজাহানের সাউথ আফ্রিকা প্রবাসী ছেলে আলমগীরের স্ত্রী খাদিজা ডাকচিৎকার দিলে ডাকাতরা তাকে কুপিয়ে আহত করে। ডাকাতরা খাদিজার ঘরের আলমারী ও ওয়াড্রোব ভেঙ্গে ১৫ ভরি স্বর্ণালংকার, ৫ টি মোবাইল ফোন, ১ টি ল্যাপটপ, ১ টি ট্যাব ও নগদ ১০ হাজার টাকা লুটে নেয় ডাকাতরা। রাত ৩ টা থেকে ৪ টা পর্যন্ত ডাকাতরা ওই বাড়িতে অবস্থান করে ঘরের মালপত্র তছনছ করে ডাকাতি করে চম্পট দেয়। গৃহকর্তার শাহজাহান ও তার বড় মেয়ে সাজেদা জানায়, ডাকাতদের মধ্যে খালিদ নামে একজনকে তারা চিনতে পেরেছে। খালিদের বাড়ি একই এলাকায় তার পিতার নাম নুরু মিয়া।গৃহকর্তা কোটিপতি শাহজাহান ও তার মেয়ে সাজেদা আরো জানায়, শাহজাহানের ছেলে জাহাঙ্গীর সাউথ আফ্রিকা প্রবাসী। সেখানে সিদ্ধিরগঞ্জের একই এলাকার নূরু মিয়ার ছেলে খালিদ সাউথ আফ্রিকায় জাহাঙ্গীরের দোকানের কর্মচারী ছিল। সে সুবাধে খালিদ জাহাঙ্গীরের নিকট ২ লাখ টাকা পাওনা রযেছে এই দাবি করে গত কয়েক দিন পূর্বে খালিদ জাহাঙ্গীরের বাবা কোটিপতি শাহজাহানের কাছে গিয়ে ওই ২ লাখ টাকা দাবি করে। কিন্তু শাহাজাহান এর কিছুই জানেননা বলে জানালে এক পর্যায়ে খালিদ বৃদ্ধ কোটিপতি শাহজাহানকে চর থাপ্পড় দেয়। এ নিয়ে গত মঙ্গলবার এলাকায় সাবেক সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভার প্রশাসক আলহাজ্ব আব্দুল মতিন প্রধানসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে এক শালিস বৈঠক হয়। বৈঠকের সিদ্ধান্ত খালিদ, তার বাবা নূরু মিয়া ও চাচা বদর উদ্দিন মেনে নেয়নি। যার কারনে তারা এই ডাকাতির ঘটনাটি ঘটিয়েছে বলে সাজেদা ও তার বাবা কোটিপতি শাহজাহান জানায়।এ ব্যাপারে গৃহকর্তা কোটিপতি শাহজাহান বাদী হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।
চাঁদাবাজির অভিযোগে অভিযুক্ত নারায়নগঞ্জ জেলা সমবায় কর্মকর্তা মিজানুর রহমান
সমবায় দিবস পালনে ৩২ লাখ টাকার চাঁদাবাজির অভিযোগ
সমবায়িরা স্বেচ্ছায় এ দিবস পালনে সহযোগিতা করেছেন বলে সমবায় কর্মকর্তার দাবী
৪৫তম জাতীয় সমবায় দিবস পালন উপলক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ জেলা সমবায় অফিসের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে মোটা অংকের চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। জেলা সমবায় কর্মকর্তা এ প্রসঙ্গে বলেছেন, সরকারি যে বরাদ্দ দেয়া হয় তা দিয়ে অনুষ্ঠান ভালোভাবে করা সম্ভব না। তাই সমবায়িরা স্বেচ্ছায় এ দিবস পালনে সহযোগিতা করেছেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ও বন্দর উপজেলার একাধিক সমবায় সমিতির কর্মকর্তা জানান, জেলা সমবায় অফিসের অধীনে নারায়নগঞ্জ জেলায় নিবন্ধিত সমবায় সমিতির সংখ্যা ১২২০ ও নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলায় ৫৩৪। ৫ নভেম্বর সমবায় দিবসকে সামনে রেখে প্রায় দুই মাস আগে থেকে বিভিন্ন সমিতির সাথে যোগাযোগ করে জেলা সমবায় অফিসের বিভিন্ন কর্মকর্তা। সমবায় দিবস পালনের জন্য কাউকে টুপি বাবদ, কাউকে গেঞ্জি, কাউকে খাবার বা অডিটোরিয়ামের ভাড়া বাবদ চাঁদা ধরা হয়। বিভিন্ন সমিতির কাছ থেকে খাবার ও অডিটোরিয়ামের ভাড়া বাবদ ৫০০০ করে, গেঞ্জি বাবদ ৩০০০ করে, টুপি বাবদ ২০০০ টাকা করে চাঁদা আদায় করা হয়। চাঁদা আদায় করা হলেও এ ব্যাপারে কোনো রশিদ সমবায় সমিতির কর্মকর্তাদের দেয়া হয়নি। বন্দর উপজেলার একটি সমবায় সমিতির কর্মকর্তা বলেন, আমাদের সমিতি একটিভ হলেও আয় বেশ কম। দুই হাজার টাকা চাঁদা আমাদের জন্য অনেক বেশি হয়ে যায় বললেও তারা আমাদের কাছ থেকে চাঁদা নিয়েই ছাড়েন। জেলা সমবায় ব্যাংকের চেয়ারম্যানকে দিয়ে তারা আমাকে বলায় যে, চাদা না দিলে সদস্যপদ নিয়ে ও অডিটে সমস্যা হবে। ফলে আমরা বাধ্য হয়ে চাঁদা দেই।
এ বিষয়ে জেলা সমবায় কর্মকর্তা মোহাম্মদ মিজানুর রহমানের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সমবায় দিবস পালনে সরকারি বরাদ্দ আসে মাত্র পনের হাজার টাকা। সরকারি বরাদ্দ দিয়ে অনুষ্ঠান ভালোভাবে করা সম্ভব না। কারন আমাদের অনুষ্ঠান হয়েছে নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের মতো অডিটোরিয়ামে। বর্নাঢ্য র‌্যালি হয়েছে। র‌্যালির সবাইকে গেঞ্জি, টুপি দেয়া হয়েছে। তাই সমবায়িরা স্বেচ্ছায় এ দিবস পালনে সহযোগিতা করেছেন। সাড়া দেশে এভাবেই সমবায় দিবসের অনুষ্ঠান হয়। তিনি বলেন, আমরা কোনো টাকা কারো কাছ থেকে নেইনি। সমবায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান সমবায় সমিতিগুলির সাথে যোগাযোগ করে পুরো অনুষ্ঠানটির ব্যবস্থা করেছেন। তিনি কার কাছ থেকে কত টাকা নিয়েছেন এটার হিসাব তার কাছে আছে।
এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ জেলা সমবায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান আবুল কাশেমের মোবাইল ফোনে কল করা হলে তিনি ফোন ধরেননি। #
বন্দরে জাতীয় সমবায় দিবসে র‌্যালী
বন্দর উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা সমবায় কার্যালয়ের উদ্দ্যোগে জাতীয় সমবায় দিবস ২০১৬ উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে উপজেলা চত্বরে এ র‌্যালী অনুষ্ঠিত হয়। বন্দর উপজেলা পরিষদের র্নিবাহী র্কমর্কতা মৌসুমী হাবিবের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বন্দর উপজেলা পল্লী উন্নয়ন র্কমর্কতা অসিম কুমার বাড়ৈই। আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন বন্দর উপজেলা পরিষদের সমবায় র্কমর্কতা মাফরোজা আক্তার। আলোচনা সভায় এ সময় উপস্থিত ছিলেন বন্দর ইউসিসি সভাপতি মোঃ আলাউদ্দিন, বন্দর সিএনজি ও অটো রিক্সা মালিক সমিতির সভাপতি মোঃ দুলাল হোসেন, সাধারন সম্পাদক মোঃ মোয়াজ্জেম, সমাজ সেবক জসিমউদ্দিন জসু, শান্তিনগর আশ্রায়ন প্রকল্পের সভাপতি আব্দুস সালাম, শান্তিনগর ভূমিহীন সমবায় সমিতির সভাপতি আমির হোসেন, বন্দর ১নং খেয়াঘাট মাঝি সমবায় সমিতির সভাপতি মোঃ শরিফ, সহ-সভাপতি পিয়ার মোহাম্মদ, সাধারন সম্পাদক রবিউল আলম, সদস্য মাসুদ, পান্না, অসখ দাস, পরিবেশ যুব স য় ও ঋনদান সমবায় সমিতির সভাপতি ফরিদ উদ্দিন, সহ-সভাপতি রয়িাজউদ্দিন, সাধারন সম্পাদক মোঃ হাসান, আশার আলো স য় ঋনদান সমবায় সমিতি মোঃ লিটন, সেলিম, কামাল, সুমন, রহিম, সহিদ মিয়া ও পল্লী দারিদ্র বিমচন ফাউন্ডেশনের মোঃ ফুল মিয়া, জামিনুর, মিন্টু, আল আমিন ও শাকিল প্রমুখ। ৪৫ তম জাতীয় সমবায় দিবস ২০১৬ ইং উপলক্ষে আলোচনা সভা শেষে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের হয়।
বন্দরে ইয়াবাসহ
রনি গ্রেপ্তার
১৬ পিছ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ রনি (২৫) নামে এক ইয়াবা ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করেছে বন্দর থানা পুলিশ। গত শুক্রবার রাতে বন্দর থানার লাঙ্গলবন্ধ এলাকা থেকে তাকে ইয়াববাসহ গ্রেপ্তার করা হয়। ইয়াবা উদ্ধারের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে বন্দর থানায় মাদক আইনে মামলা রুজু করেছে। যার মামলা নং-৩(১১)১৬। ধৃত ইয়াবা ব্যবসায়ী রনী বন্দর থানার লাঙ্গলবন্ধ নগর এলাকার খাজা আব্দুর রশিদ মিয়ার ছেলে। ধৃত মাদক ব্যবসায়ী রনীকে উক্ত মাদক মামলায় গতকাল শনিবার দুপুরে আদালতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।
(ছবি-০০১৩)
র‌্যাব ও পুলিশের অভিযানে
বন্দরে গ্রেপ্তার ৫
বন্দর থানা পুলিশ ও র‌্যাব ১১ পৃথক অভিযান চালিয়ে হত্যা মামলার পলাতক আসামীসহ বিভিন্ন মামলার ৫ পলাতক আসামীকে গ্রেপ্তার করেছে। গত শুক্রবার রাতে গতকাল শনিবার সকালে বন্দরসহ নরসিংদী জেলার মাধবদী এলাকায় পৃথক অভিযান চালিয়ে এদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। থানা সূত্রে জানা গেছে, বন্দর থানার এএসআই আলম সোরয়ার্দী রুবেলসহ তার সঙ্গীয় র্ফোস গত শুক্রবার রাতে মদনগঞ্জ সৈয়ালবাড়ীর ঘাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে উক্ত এলাকার আদু মিয়ার ছেলে বন্দর থানার একাধিক মাদক মামলা ও মারামারি মামলার পলাতক আসামী সন্ত্রাসী রুমান (৩২)কে গ্রেপ্তার করে। পরে পুলিশ একই রাতে বন্দর শাহীমসজিদ এলাকায় অভিযান চালিয়ে উক্ত এলাকার আব্দুল খালেক মিয়ার ছেলে নারী ও শিশু র্নিযাতন মামলার পলাতক আসামী রহিম (২৭)কে গ্রেপ্তার করে। এছাড়াও মারামারি করার অপরাধে পুলিশ একই রাতে চাঁদপুর জেলার মতলব থানার সরদারকান্দী এলাকার নুরু গাজী মিয়ার ছেলে রায়হান (২২)কে গ্রেপ্তার করে। একই রাতে র‌্যাব ১১ দক্ষিন লক্ষনখোলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২(৭)০৪ নং হত্যা মামলার ওয়ারেন্টভূক্ত পলাতক আসামী কালু (২৫)কে গ্রেপ্তার করে। এদিকে গতকাল শনিবার ভোরে র‌্যাব ১১ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নরসিংদী জেলার মাধবদী এলাকায় অভিযান চালিয়ে বন্দর থানার কাইতাখালি এলাকার মৃত সফিউদ্দিন মিয়ার ছেলে সিআর মামলার পলাতক আসামী ও ভূয়া আদম বেপারী রিপন সিকদার (৪০)কে গ্রেপ্তার করে। এ রির্পোট লেখা পর্যন্ত ধৃত ৫ আসামীর মধ্যে ৪ জনকে পৃথক ওয়ারেন্টে ও অপরধৃত রায়হানকে পুলিশ আইনের ১৫১ ধারায় গতকাল শনিবার দুপুরে আদালতে প্রেরণ করেছে।
সিদ্ধিরগঞ্জে সন্ত্রাসী মাদক বিক্রেতা চক্র বেপরোয়া
নারায়ণগঞ্জ সিদ্ধিরগঞ্জের টপটেরর অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী ও একাধিক মামলার আসামী শাহ্জাহান গ্রেফতার হলেও আইলপাড়া পাঠানটুলী এলাকায় সক্রীয় রয়েছে পুলিশের তালিকাভূক্ত মাদক ব্যবসায়ী শহিদুল্লাহ্ ওরফে কালা মানিক, চোকলা সাইদুল, ডেক্সী বাবুল ও চাঁদাবাজ হিমেল বাহিনী। এই বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে উঠেছে এলাকাবাসী। সম্প্রতি দুধর্ষ কিলার মাষ্টার দেলু র‌্যাবের হাতে বন্ধুক যুদ্ধে নিহত হলে দেলুর কেইস পাঠনার ও মাদক সন্ত্রাসবাহিনী শাহ্জাহানের নেতৃত্বে এলাকায় নিজেদের বাঁচাতে মিষ্টি বিতরণ করে নাটক সাজিয়েছিল। যার কারণে প্রশাসন নড়ে চড়ে বসে। গত বৃহস্পতিবার জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ডিবি’র একটি টিম অভিযান চালিয়ে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী শাহ্জাহানকে গ্রেফতার করলেও অন্য সন্ত্রাসীরা এখনো বহাল তবিয়তে রয়েছে।
এলাকাবাসী জানায়, পুরাতন আইলপাড়া এলাকার মৃত আজিজুর রহমানের ছেলে শাহ্জাহান ওরফে কৃষ্ণা ও আব্দুল হকের ছেলে শহিদুল্লাহ ওরফে কালামানিক এলাকার মধ্যে অরাজকতা সৃষ্টি করে এক বিশাল অস্ত্রধারী বাহিনী গড়ে তোলে বিভিন্ন সরকার আমলে তারাই রাজনৈতিক ক্যাডার হিসাবে পরিচিতি লাভ করে। যদিও তাদের কোন দলীয় পরিচয় নেই। তার পরও অবৈধভাবে রাজনৈতিক পরিচয় দিয়ে এবং কতিপয় অসাধু পুলিশকে ম্যানেজ করে এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করে বিভিন্ন অপরাধ কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। শাহ্জাহানের কাছে অবৈধ অস্ত্র রয়েছে এমন একটি অডিও ফাঁস হলেও অস্ত্র উদ্ধারে পুলিশের তেমন কোন তৎপরতা নেই। তার পরেও এলাকাবাসী শাহ্জাহানকে গ্রেফতার করায় ডিবি পুলিশের প্রতি সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে। নারায়ণগঞ্জ সদরে একটি হত্যা মামলায় ০৪/১০/১৬ গ্রেফতার দেখিয়ে সাত দিনের রিমান্ড চেয়েছে ডিবি পুলিশ। রবিবার নারায়নগঞ্জ চিফ জুডিশিয়াল ম্যানেষ্ট্রেট আদালতে রিমান্ড শুনানী হবে। ইতিমধ্যে ডিবির কাছে প্রাথমিক ভাবে কিছু স্বীকার উক্তি দিয়েছে বলে জানা যায়। নিহত মাষ্টার দেলু ও জেল হাজতে কারাবন্ধি ছোট দেলুর সাথে শাহ্জাহানের অবৈধ সখতার কথা অকপটে স্বীকার করেছে বলে সূত্রে প্রকাশ। এছাড়া এলাকার সাইদুলকে দিয়ে বিভিন্ন অপকর্ম চালিয়েছে বলে জানা গেছে। অন্যদিকে ছোট দেলুর আশ্রয় ও প্র¯্রয় দাতা আব্দুর রহমান সেন্টু এলাকার মধ্যে বিভিন্ন নারীদের উত্যক্ত ও বিভিন্ন নারীদের সাথে অপকর্মে লিপ্ত থাকায় সেন্টুর মেয়ে জুতা পেটা করার পরও সুদরায়নি। খোরশেদ ভান্ডারীর কুখ্যাত ছেলে চাঁদাবাজ হিমেল এলাকার নতুন বাড়ি ঘর ও দোকান পাঠ থেকে চাঁদা দাবি করে মানুষদের হয়রানী করছে। পুলিশ সোর্স হিয়াইলা ইয়াছিন মোড়ের মধ্যে বিভিন্ন দোকান পাটে অত্যাচার করে জোরপূর্বক সদাই নিচ্ছে এবং মাঝে মধ্যে লাথি মেরে দোকানের মালামাল ফেলে দেয়। মঝার ব্যাপার হচ্ছে মাষ্টার দেলুর সহযোদ্ধা শাহ্জাহান, শহীদুল্লাহ্, ছোট দেলু, ইয়াছিন, সাইদুল, হিমেল, সেন্টু সহ আরো কয়েকজন বিভিন্ন মামলায় কেইস পাটনার হিসাবে রয়েছে। এলাকায় এখন জোরেসরে উচ্চারিত হচ্ছে নিরবহত্যা ও মামলাটি। কারণ শাহ্জাহান শহিদুল্লার হুমুকে নিরবকে দেলু বাহিনী খুন করেছে। সকলের নাম মামলায় থাকলেও বাদী পক্ষ শাহ্জাহান শহীদুল্লাহর ভয়ে মামলায় আসামী করতে পারেনি। তবে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় হত্যার ঘটনার পরের দিন শাহ্জাহান শহীদুল্লাহর জড়িত থাকার বিষয়টি প্রকাশ পেয়েছে। শহীদুল্লাহর ফেন্সিডিল এর খবর নিরব গোপন ভাবে পুলিশকে জানালে পুলিশ ফেন্সিডিলসহ শহীদুল্লহর বাহিনীকে গ্রেফতার করে। যার দরুন শহীদুল্লাহ্ দেলু বাহিনীকে দিয়ে জের হিসাবে হত্যা করায়। এছাড়া এই বাহিনীর অন্যান্য সক্রীয় সদস্যের মধ্যে সেনাপতি হিসেবে রয়েছেন সজিব ও রাজীব। তাছাড়া মিষ্টি নাটকের সাথে জড়িত স্বপন, পিলার মনির, রাশেদুল ইসলাম রাশেদ, জিলানী, শওকত আলী মোহন, সোহেল, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ের তালিকাভূক্ত মাদক বিক্রেতা কেটু সুমন, রাজু, উজ্জল, ইস্তি, সাজাপ্রাপ্ত আসামী চ ল সহ আরো কয়েকজন। বিভিন্ন অপরাধের অপরাধী পা ায়েত কমিটির নেতা পরিচয় দানকারী দেলোয়ার হোসেন বাবুল ওরফে ডেক্সী বাবুল, বিমান ও কেরাম বাবুল সহ আরো চিহ্নিত মাদক সন্ত্রাসীরা আইলপাড়া, পাঠানটুলী এলাকায় সাধারণ মানুষদের বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করছে। তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে মিথ্যা মামলা। যখনই উক্ত সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করে তাহলে তার জীবন যেমন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠে তেমনি ভাবে ঐ সকল মাদক সন্ত্রাসীরা সমাজকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করে নিজেরাই স্বাক্ষী হিসেবে থেকে হয়রানী করছে। এদিকে শাহ্জাহানের কাছের লোক হলেও এক সময়ে ডি.এইচ বাবুলকে ভাই ভাই সংঘ থেকে বহিস্কার করলে সেই ক্ষোভের কারণে ডি.এইচ বাবুলের নেতৃত্বে সেন্টু ও বিমান বাহিনী শাহ্জাহানের গ্রেফতারের খবরে এলাকায় মিষ্টি বিতরণ করেছে। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসনের পাশাপাশি র‌্যাব দ্রুত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করবে বলে এলাকাবাসী আশাবাদী।
গ্রাহকদের কোটি কোটি টাকা নিয়ে চম্পট দিচ্ছে জেলার অনেক মাল্টিপারপাস কোম্পানী
জেলা সমবায় কর্মকর্তাদের তদারকির অভাব
কালিবাজারের স্বর্নপট্রি এলাকার পতেঙ্গা মাল্টিপারপাস। মালিক মোবাশ্বের হোসেন । ভোলা জেলা থেকে নারায়ণগঞ্জে এসে মাল্টিপারপাস কোম্পানী খোলে। কথা ছিল প্রতিমাসে নির্দিষ্ট পরিমানের লাভ দিবে গ্রাহকদের। নানা প্রলোভন দেখিয়ে মোবাশ্বের গ্রাহকদের টাকা হাতিয়ে নেয়। অনেকে প্রলোভনে পড়ে পতেঙ্গা মাল্টিপারপাসে তাদের গচ্ছিত টাকা জমা রেখেছে । কিন্তু লাভ তো দুরের কথা আসল টাকা নিয়ে রাতারাতি চম্পট দিয়েছে পতেঙ্গা মাল্টিপারপাস কোম্পানী । এজন্য ভুক্তভোগী গ্রাহকরা দোষ চাপাচ্ছে জেলা সমবায় অফিসের উপর। তারা বলছে, উৎকোচের বিনিময় ব্যাঙ্গের ছাতার মত মাল্টিপারপাস কোম্পানীকে নিবন্ধন দিচ্ছে জেলা সমবায় অফিস। আর তাদের তদারকির অভাবে গ্রাহকের টাকা নিয়ে চম্পট দিচ্ছে এরা।
অভিযোগ আছে, নারায়ণগঞ্জে ব্যাঙের ছাতার মত গজে উঠা মাল্টিপারপাস, সমবায় সমিতি ও ভুঁইফোড় এনজিও গুলো হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। ফলে প্রতারণার শিকার হচ্ছে হাজার হাজার সাধারণ মানুষ।
এসব প্রতিষ্ঠান গুলো সামাজিক সংগঠনের আড়ালে মূলত সুদের ব্যবসা পরিচালনা করে থাকে। মাল্টিপারপাস-কো অপারেটিভ, সমবায় সমিতির কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সমবায় অধিদপ্তরের নিবন্ধন নেয়ার বাধ্যবাধকতা থাকায়, সমবায় অফিসের একশ্রেনীর অসাধু কর্মকর্তাদের সহযোগীতায় অনেক প্রতিষ্ঠান চলছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।
গত কয়েক বছরে উপজেলায় কয়েকটি মাল্টিপারপাস, সমবায় সমিতি ও এনজিও গ্রাহকদের লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে উদাও হয়ে গেছে। সরকারী কোন তদারকি না থাকার ফলে এমন প্রতারণার ঘটনা ঘটছে বলে জানান ভুঁক্তভোগী সাধারণ গ্রাহকরা।
গত কয়েক বছরে জেলার বেশ কয়েকটি মাল্টিপারপাস, সমবায় সমিতি ও এনজিও গ্রাহকদের লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে উধাও হয়ে গেছে। সমবায় অধিদপ্তরের কোন তদারকি না থাকার ফলে এমন প্রতারণার ঘটনা ঘটছে বলে জানান ভুঁক্তভোগী সাধারণ গ্রাহকরা।
নারায়ণগঞ্জ জেলা সমবায় সূত্রমতে, সমবায় সমিতির মোট সংখ্যার মধ্যে কেন্দ্রীয় সমিতি ১৭ টি, প্রাথমিক সমিতি ৩১৯৩ টি ও জাতীয় সমিতি ১টি। অকার্যকর সমিতির মধ্যে প্রাথমিক অকার্যকর ৫১৭ টি। এসকল সমিতি পরিচালনার জন্য প্রাথমিক অনুমোদন জেলা সমবায় নারায়ণগঞ্জ অফিস থেকে দেয়া হয়েছে। অডিটও তারাই করে থাকেন। এদিকে জেলায় প্রায় ৩৫টি এনজিও রয়েছে বলে জানা গেছে জেলা প্রশাসন সূত্রে।
আর ঢাকা থেকে যেসকল বহুমুখী সমিতির শাখা অফিস এ জেলায় এসেছে তাদের অডিট ও মনিটরিং ঢাকা থেকে করা হয়। তবে গ্রাহকদের অভিযোগ, যারাই অডিট করে তারাই অডিটের নামে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়। ফলশ্রুতিতে সমিতিগুলো সাধারণ মানুষের টাকা আত্মসাৎ করে পালিয়ে যেতে পারছে।
অনুসন্ধানে ভুক্তভোগী গ্রাহকসহ সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সর্বশেষ ফতুল্লায় নিরীহ লোকদের প্রায় ২ কোটি টাকা নিয়ে পালিয়েছে পল্লী সেবা ফাউন্ডেশন (পিএসএফ) নামের একটি এনজিও। লোন দেয়ার কথা বলে এনজিও সংস্থার লোকজন প্রায় দুই হাজার নারী-পুরুষের জমানো টাকা নিয়ে রাতারাতি উধাও হয়ে যায় তারা।
১৮ অক্টোবর আড়াইহাজার মানবদরদী ইসলামী ডিবিএস মাল্টিপারপাস কর্মকর্তারা প্রায় কোটি টাকা নিয়ে উধাও গিয়েছে। হাইজাদী ইউনিয়নের ইলুমদী গ্রামের আব্দুল আউয়ালের পরিচালনায় আড়াইহাজার উপজেলার সমবায় অফিস থেকে ‘মানব দরদী ইসলামী ডিবিএস মাল্টিপারপাস’ যার রেজি নং- ২৩৯/২০১০ সনে অনুমতি নেয়।
ভুক্তভূগিরা জানায়, আড়াইহাজার উপজেলা ইলুমদী বঙ্গারবাজার মানবদী দরদী ইসলামী ডিপিএস দুটি শাখা খুলে প্রতিটি এলাকায় স য় আমানত ও শেয়ার হোল্ডার ঋণ দেওয়ার নামে প্রায় দেড় হাজার সাধারণ মানুষের কাছ থেকে।
এর আগে, ২০১৩ সালের ১১ জুন নারায়নগঞ্জের বিবি রোডের ফাইভ স্ট্যান্ডার্ড মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটির প্রধান কার্যালয় গ্রাহকদের কয়েক কোটি টাকা নিয়ে উধাও হয়ে যায়। এরপর এই মাল্টিপারপাসের শাখা বন্দরের নবীগঞ্জ, ফতুল্লার প বটি, সিদ্ধিরগঞ্জের ভুইগড়, গোদনাইলের শাখা কার্যালয়ও একে একে গ্রাহকদের মজুদকৃত টাকাসহ উধাও হয়ে যায়।
একই বছরের ৩০ মে ফতুল্লার প্রগতি সমবায় সমিতি, ৫ মে ফতুল্লার আর এম বহুমুখী সমবায় সমিতি, ২২ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ শহর ও সোনারগাঁ শাখায় অগ্রণী কমার্স এন্ড ফাইনান্স এমসিএস লিমিটেড, ২ এপ্রিল সান গ্রুপ পল্লী সমবায় ও রিনদান সমবায় সমিতি, ২৩ ফেব্রুয়ারী সিদ্ধিরগঞ্জের মেরিডিয়ান গ্রুপের মেরিডিয়ান কমার্স এন্ড ফাইনান্স এমসিএস লিমিটেড, ২০ ফেব্রুয়ারি আইডিয়েল কো- অপারেটিভ সোসাইটি (আইসিএল) সিদ্ধিরগঞ্জ শিমড়াইল শাখার ও ১৩ ফেব্রুয়ারি আড়াইহাজার ইউনাইটেড সোস্যাল শ্রমজীবি সমিতি গ্রাহকদের কোটি কোটি টাকা নিয়ে চম্পট দেয়।
এব্যাপারে মতামত জানতে জেলা সমবায় অফিসার মুহাম্মদ মিজানূর রহমানের সাথে একাধীক বার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তা সম্ভব হয়নি।
এদিকে নারায়ণগঞ্জ ক্লাবে অনুষ্ঠিত সমবায় দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায় জেলা প্রশাসক বলেন, যে সমস্ত অবৈধ মাল্টিপারপাস ও সমিতিগুলো আছে সেগুলোর তালিকা তৈরী করে তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
না’গঞ্জ জেলা আইনজীবি সমিতির নির্বাচন————————————————–
নেতৃত্ব ফিরে পেতে মরিয়া বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা
নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় হারানো নেতৃত্ব ফিরে পেতে মরিয়া হয়ে উঠছে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা। জেলা আইনজীবি সমিতির নির্বাচনকে সামনে রেখে পুরোদমে কাজ শুরু করেছে তারা। নির্বাচনে জাতীয়তাবাদী ফোরামকে বিজয়ী করতে সকল ধরনের কোন্দল ভুলে বিজয় নিশ্চিত করতে চায় তারা। তার’ই অংশ হিসেব আগে ভাগেই প্যানেল ঘোষণা করে। আওয়ামীলীগপন্থী আইনজীবীদের প্যানেল ঘোষণার আগেই নিজেদের প্যানেল চূড়ান্ত করেছেন এবং গত শুক্রবার মনোনয়নপত্রও সংগ্রহ করেছেন। নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে বরাবরই বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা জয়লাভ করলেও গত বছর তারা শুধুমাত্র কয়েকটি পদ বাদে পুরা প্যানেলেই ভরাডুবি হয়েছে। এর কারণ হিসেবে তারা নিজেদের মধ্যে অর্šÍদ্বন্দ্ব-কলহে লিপ্ত থাকা উল্লেখ করেছেন। এবারের নির্বাচনে তারা সবাই একত্র হয়ে বেশ জোড়েসোড়েই মাঠে নামবে বলে শোনা যাচ্ছে। আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে জয় লাভের মধ্যে দিয়ে নারায়ণগঞ্জে বিএনপিকে শক্তিশালী করতে চায় তারা ।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের জয় লাভের জন্য ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে। তারা তাদের হারানো কর্তৃত্ব ফিরে পেতে চায়। নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি এড. তৈমূর আলম খন্দকার নিয়মিত আইনজীবীদের সাথে যোগাযোগ করে যাচ্ছেন। তাদের অন্যতম শরীক ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী জামায়াতপন্থী আইনজীবীদের সাথে যোগাযোগ করছেন। নির্বাচন উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির দুই মেরুর নেতাদেরকে এক টেবিলে বসতে দেখা যাচ্ছে। সব মিলিয়ে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা আট-ঘাঁট বেধেই মাঠে নেমেছে ।
গত ০৩ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বিকেলে বিএনপির প্যানেল ঘোষণার লক্ষ্যে বার ভবনের একটি মতবিনিময় সভা করেছেন। ঐ মতবিনিময় সভাতে এড. তৈমূর ও এমপি আবুল কালামের অনেক অনুসারীদেরকেই এক টেবিলে দেখা মিলেছে। যদিও মতবিনিময় সভা চলাকালিন অবস্থায় থেমে থেমে তাদের উচ্চ বাক্য বিনিময়ের ঘটনাও ঘটেছে। এড. জাকির হোসেন তৈমূরপন্থী দুই আইনজীবীকে বেয়াদব হিসেবেও আখ্যায়িত করেছেন এবং তৈমূরকে বলেছেন এসব লোকদের পরামর্শ গ্রহণ না করতে। ঐ মতবিনিময় সভায় এড. তৈমূর আলম ঘোষণা দিয়েছেন দলের স্বার্থে তিনি যে কোন সিদ্ধান্ত মেনে নিতে প্রস্তুত রয়েছেন। তিনি আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে সর্বাত্মকভাবে সহযোগিতা করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এবং অন্যান্য আইনজীবীদের মতামতগুলো নোট করেছেন। এড. সাখাওয়াত হোসেন খান বলেছেন নারায়ণগঞ্জ আদালত অঙ্গনে বিএনপি পন্থী আইনজীবীরা ঐক্যবদ্ধ। তাদের মধ্যে কোন দ্বিমত নেই। তিনি নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন।
মতবিনিময়ে উপস্থিত আইনজীবীরা জানিয়েছেন, নির্বাচন করতে টাকার প্রয়োজন হয়। তাই নির্বাচনে যারা প্রার্থীতা করবে তাদেরকে আর্থিকভাবে সহযোগিতার করার জন্য জেলার সিনিয়র নেতাদের সাথে আলোচনায় বসবেন। নির্বাচনে বিএনপির প্যানেলকে জয়ী করার জন্য সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকবেন বলে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়েছেন। প্রয়োজন হলে পবিত্র কোরআন শরীফ নিয়ে শপথ করবেন বলেও ঘোষণা দিয়েছেন।

(ছবি-০০৬)
সদরে নবাগত-বিদায়ী ইউএনও’র সংবর্ধনা
নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদে সদ্য বিদায়ী সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আফরোজা আক্তার ও নবাগত তাসনিম জেবিন বিনতে শেখকে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। শনিবার সকাল ১১ টায় নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের মিলনায়তনে এই জাকজমক পূর্ণ সংর্বধনার আয়োজন করে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের কর্তকর্তা ও কর্মচারীরা। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় মহিলা সংস্থা, নারায়ণগঞ্জ’র চেয়ারম্যান ও নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান এর সহধর্মিনী সালমা ওসমান লিপি।
এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন- নারায়ণগঞ্জ জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ড. শিরীন আক্তার, ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি এম সাইফুল্লাহ বাদল, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ মজিবর রহমান, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফাতেমা মনির, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার সাতটি ইউনিউন পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ ও নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার কর্মকর্তা-কর্মচারী বৃন্দরা ।
পরে উপস্থিত অতিথি ও উপজেলা পরিষদের কর্মকর্তরা তাঁদেরকে ফুল ও উপহার সামগ্রী দিয়ে সংবর্ধনা জানান।
কুতুবপুরে মনির হত্যা——
মামলার এজাহারভুক্ত
২ আসামি গ্রেফতার
জনতা লীগ নেতা মনির হোসেন হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত ২ আসামিকে গ্রেফতার করেছেন পুলিশ। শুক্রবার রাতে ঢাকার গুলিস্থান থেকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাদের গ্রেফতার করেন উপপরিদর্শক (এসআই) মিজানুর রহমান-২।
গ্রেফতাররা হলেন শরীফ (২৮) ও রাজিব ওরফে ভিপি রাজিবকে (২৬) তারা সন্ত্রাসী মীরু বাহিনীর অন্যতম সদস্য।
ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। পাশাপাশি আসামিদের রিমান্ড নিয়ে হত্যাকান্ডের রহস্য উৎঘটন হবে বলে জানা গেছে।
প্রসঙ্গত, গত ১৮ অক্টোবর রাতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে কুতুবপুরের রসুলপুর এলাকায় সন্ত্রাসী মীরু বাহিনীর সন্ত্রাসীরা পরিকল্পিতভাবে স্ত্রী সন্তানের সামনে জনতা লীগ নেতা মনির হোসেনকে কুপিয়ে হত্যা করে।
এ ঘটনায় নিহত মনিরের স্ত্রী পারভীন আক্তার মেঘলা বাদী হয়ে সন্ত্রাসী মীরু বাহিনীর সদস্য আলমগীর, শাকিলসহ ৮ জনের নাম উল্লেখ করে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছে।

পরিবারের কাছে নাঈম
হারিয়ে যাওয়া শিশুকে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিয়েছেন ফতুল্লা থানা পুলিশ।
জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার ফতুল্লার শাসনগাও এলাকা থেকে মোঃ নাঈম নামের ১১ বছরের এক শিশুকে উদ্ধার করে ফতুল্লা থানা পুলিশ। পরে শিশুটির কাছে জানতে পারে তিনি ভোলা সদর থানার কোরাইল গ্রামের জসিম মিয়ার ছেলে ও শিশুটির মায়ের নাম রহিমা বেগম।
পরে শিশু নাঈমের বাসায় সংবাদ দিলে গত শুক্রবার (৪ নভেম্বর) বড় ভাই ফয়সাল এসে ফতুল্লা থানা থেকে নাঈমকে নিয়ে যায়।
গ্রেপ্তার আতংকে না’গঞ্জ বিএনপি নেতাকর্মী
আসন্ন ৭ নভেম্বরকে ঘিরে ঘরে বাইরে গ্রেফতার আতংকে ভুগছেন নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীরা। ইতোমধ্যে দলের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হচ্ছে তাদেরকে গ্রেপ্তারের জন্য নেতাকর্মীদের বাসা বাড়িতে অভিযান শুরু করেছে পুলিশ ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।
শুক্রবার রাতে জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করে জানানো হয়, তাকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশ রাতে তার বাড়িতে গিয়েছিল। জানানো হয়, দলীয় নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করার জন্য সরকারের নির্দেশ তামিলে মাঠে নেমে পুলিশ প্রশাসন তাদের নিরপেক্ষতা হারাতে শুরু করেছে। নগ্ন দলীয়করনের পথে হেটে দেশে গনতন্ত্র হত্যার পথকে সুগম করতে সরকার পুলিশকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে বলে দলের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়।
এদিকে ৭ নভেম্বরকে কেন্দ্র করে ঘর ছেড়ে অনত্র থাকতে শুরু করেছে জেলা বিএনপির নেতাকর্মীরা। দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, দলীয় কোন কর্মসূচী আসলেই প্রশাসনের গ্রেফতার অভিযানের কারনে তারা বাড়িতে থাকতে পারেন না। রাত হলেই গ্রেফতার অভিযান চালায় পুলিশ। আর এ কারণেই আগেভাগেই দলীয় কর্মসূচী আসলে বাড়ি ছাড়েন তারা।
জানা যায়, বিগত আন্দোলন সংগ্রামের সময় প্রায় ৩মাস জেলায় বিএনপি নেতাকর্মীরা বাড়িতে থাকতেন না। মুলত পুলিশের গ্রেপ্তার ও হয়রানি থেকে নিজেদের বিরত রাখতেই দলীয় নেতাকর্মীরা জেলায় থাকতেন না।
জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার জানান, পুলিশ বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের উপর ষ্টিম রুলার চালাচ্ছে। আমাদের স্বাভাবিক গণতান্ত্রিক মত প্রকাশের পথকে তারা বন্ধ করে দেশকে সম্পূর্ন একদলীয় শাসনের রাজ্য বানাতে চায়। কোন সাধারণ মানুষকে তারা স্বাভাবিক মতামত প্রকাশ করতে দেয়না। আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা প্রকাশ্যে অস্ত্র নিয়ে চলাচল করলেও তা প্রশাসনের দৃষ্টিতে ধরা পড়েনা কিন্তু আমরা বাড়িতে প্রবেশ করলেই তাদের সমস্যা। মূলত বিরধী দলের নেতাকর্মীদের তারা এতটাই ভয় পায়, যে ক্ষমতা হারানোয় ভয়ে ভীত সরকার দেশকে প্রয়োজনে কারাগার বানাতেও প্রস্তুত।
তৈমূর বলেন, আমাদের অনুমোদিত কর্মসূচীতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে, আমাদের গ্রেফতার করে আর ক্ষমতাসীনদের যেকোন কর্মসূচীতে তাদের কোন সমস্যা হয়না। পুলিশ প্রশাসনের দুচোখা নীতি আমাদেরকে দারুণভাবে ব্যথিত করে। আশা করবো আমাদের নেতাকর্মীদেরকে হয়রানি করা থেকে আগামীতে তারা বিরত থাকবে।
(ছবি-০০৭)
শীতল বৃষ্টিতেও নগরীতে ব্যাপক যানজট
শীতল বৃষ্টির দিনেও ব্যাপক যানজটে নাকাল অবস্থার শিকার হতে হয়েছে নারায়ণগঞ্জ শহরবাসীকে। শনিবার সকাল থেকেই গুড়ি গুড়ি বৃষ্টির পাশাপাশি শীতল বাতাসের কারণে কাজ ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হয়নি তেমন একটা। তবুও সকাল ১১ টার পর থেকেই শহরের মূল সড়ক চাষাঢ়া থেকে পশ্চিম দিকে জামতলা ছাড়িয়ে, দক্ষিন দিকে ২ নং রেলগেট পর্যন্ত, নিতাইগঞ্জ মোড়, কালির বাজার, পুর্বে মিশনপাড়া পর্যন্ত আর উত্তরে ভাঙ্গা সড়কের সাথে জমে থাকা পানির সড়কে ব্যাপক যানজটে স্বাভাবিক যাত্রা ব্যহত হয় নগরবাসীর।
জানা যায়, শনিবার অনার্সের পরীক্ষা থাকায় সকাল থেকেই শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন কলেজের সামনে ভীড় করতে থাকে। কিন্তু পরীক্ষায় সময়ের পূর্বে কোন কলেজের মূলফটক না খোলায় ছাত্রছাত্রীদের চাপে রাস্তা প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। শিক্ষার্থীদের কারনে মুল যানজটে বাড়তি চাপ যুক্ত হয়। সেই সাথে সকাল থেকে বিভিন্ন স্কুল কলেজগামী ছাত্রছাত্রী, অফিসগামী চাকুরীজীবী ও ব্যবসায়ীদের কারনে যানজট আরো বেড়ে যায়।
সরকারী তোলারাম কলেজে পরীক্ষা দিতে যাওয়া কলেজছাত্রী আসমা আক্তার জানান, আমি পরীক্ষার ২ ঘন্টা আগে রওনা করেও সঠিক সময়ে আসতে পারিনি। সকালে কেন এত যানজট আমি নিজেও বুঝতে পারছিনা।
সরকারী চাকুরীজীবী অফিসগামী আসিফ জানান, আমি আজকে অফিসে যেতে অনেক দেরি করে ফেলবো, মুলত যানজটের কারনেই এই দেরি। তবে অফিসের কর্মকর্তারা এই দেরির কারন বুঝতে চায়না। এরকম যানজট থাকলে আসলেই আমাদের অনেক সমস্যার সৃষ্টি হয়ে যায়।
মুলত শীতল ও বৃষ্টির দিনে শহরে যানজট একেবারে কম থাকলেও শনিবার সকাল থেকেই শহরের প্রতিটি সড়কে একটু ভিন্ন চিত্র দেখা যায়। আর এই যানজটের চিরচেনা দৃশ্য মূলত অনেকের সময়ানুবর্তীতার চর্চাকে ব্যহত করে।
নগরীতে ছিনতাইয়ের
অভিযোগে আটক ১
নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা লিংক রোডে উৎসব বাসে ছিনতাই ঘটনার জড়িত থাকার অভিযোগে সুরুজ বেপারী (৪৩) নামে ছিনতাইকারীকে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার রাতে সাইনবোর্ড এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়েছে বলে শনিবার দুপুরে নিশ্চিত করেছেন পুলিশ। আটক সুরুজ বেপারী সাইনবোর্ড এলাকার আব্দুর রব বেপারীর ছেলে।
ফতুল্লা থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) কামরুল ইসলাম জানান, উৎসব বাসে ছিনতাই ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে সুরুজ বেপারীকে আটক করা হয়েছে। সে চিহ্নিত ছিনতাইকারী তার বিরুদ্ধে পূর্বে ছিনতাইয়ের মামলা রয়েছে।
প্রসঙ্গত গত ২৭ অক্টোবর স্বর্ণ ব্যবসায়ী ফালান ঘোষ স্বর্ন ও রূপা বিক্রি করে উৎসব পরিবহনের একটি বাসে (ঢাকা মেট্রো ব-১৪-১৮০১) করে নারায়ণগঞ্জ আসছিল। লিংক রোডের ভূইগড় এলাকাতে বাসটি যাত্রী নামানোর সময়ে দুটি মোটরসাইকেল দিয়ে আসা ৬ জন ছিনতাইকারী বাসটিতে উঠে যাত্রীদের জিম্মী করে ফেলে। তখন ছিনতাইকারীরা ফালান ঘোষ ও প্রদীপ ঘোষের সঙ্গে থাকা ৭ লাখ টাকার ব্যাগটি জোর করে ছিনিয়ে নিয়ে যায়।
(ছবি-০০১৪)
দুর্যোগ মোকাবেলায় এনসিসি’র ১৫ নং ওয়ার্ডে প্রশিক্ষণে কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস
আমাদের শহর ওয়ার্ডকে আমরাই ঝুঁকিমুক্ত রাখবো
নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস বলেছেন, ‘দুর্যোগ থামিয়ে দেওয়া সম্ভব না। তবে দুর্যোগের ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলায় আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারি। আমাদের শহর ও আমাদের ওয়ার্ডকে আমরাই ঝুঁকিমুক্ত রাখবো। সিটি করপোরেশনের অন্য ওয়ার্ডের তুলনায় ১৫নং ওয়ার্ড বেশি ঝুঁকিপূর্ণ। কারণ এখানে ঘণবসতি ও শিল্প এলাকা রয়েছে। দুর্যোগ মোকাবেলায় জেলা প্রশাসন ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের কমিটি রয়েছে শুধু তৃণমূল পর্যায়ে কোন ব্যবস্থা নেই। তাই এখন থেকে পরিকল্পনা করতে হবে আমাদের। যে কোন ঝুঁকিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে হবে।’
শনিবার (৫ নভেম্বর) বেলা ১১টায় নারায়ণগঞ্জ শহরের মন্ডলপাড়াব্রীজ এলাকার ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স নারায়ণগঞ্জের প্রশিক্ষণ কক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। পরে তিনি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় দুইদিনব্যাপী প্রশিক্ষনের উদ্বোধন ঘোষনা করেন।
সিপ ও সেভ দ্য চিলড্রেনের প্রয়াস প্রকল্পের সহায়তায় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৫নং ওয়ার্ডের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যদের নিয়ে দুই দিনব্যাপী প্রশিক্ষন উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।
প্রশিক্ষক কমিউনিকেশন মিডিয়া স্পেশালিস্ট সৈয়দ আশরাফ বলেন, ‘লাইফে কোন ব্যক্তি কখনো পারফেক্ট হয় না। শিখার শেষ নেই। বয়স হয়ে গেলেও তারপরও পারে না আবার ছোট থেকে শেখা যায়। আপনার ও আপনার শহরের ওয়ার্ডে সুরক্ষার জন্য এ প্রশিক্ষণ।’
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ পরিচালক দিনমনি সরমা, প্রশিক্ষক কমিউনিকেশন মিডিয়া স্পেশালিষ্ট সৈয়দ আশরাফ, ঢাকা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর প্রোগ্রামার প্রবীর কুমার দাস, সেভ দ্য চিলন্ড্রেন প্রকল্প কর্মকর্তা মো. ফরহাদ হোসেন, প্রয়াস সিপ নারায়ণগঞ্জের প্রকল্প সমন্বয়কারী কাজী এনামুল কবির প্রমুখ।
মিষ্টি মেয়ে বৃষ্টির
বলো সাথিয়া
বতর্মান সময়ের জনপ্রিয় সঙ্গীত পরিচালক ও কন্ঠশিল্পী ইমরান মাহমুদুল ও বাংলাদেশ আইডল খ্যাত নুসরাত বৃষ্টির নতুন মিউজিক ভিডিও ‘বলো সাথিয়া’ প্রকাশিত হয়েছে। কন্ঠশিল্পী ইমরানের নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে মিউজিক ভিডিওটি উন্মুক্ত করা হয়। বৃষ্টি নারায়ণগঞ্জ শহরের প্রাণকেন্দ্র চাষাঢ়ার মেয়ে।
‘বলো সাথিয়া’ গানটি লিখেছেন স্বনামধন্য গীতিকার রবিউল ইসলাম জীবন। গানটির সুর ও সঙ্গীতায়োজন করছেন ইমরান নিজেই। সৈকত রেজার নির্দেশনায় ভিডিওতে মডেলও হয়েছেন দুই কন্ঠশিল্পী। প্রযোজনা করছেন সঙ্গীতার ব্যানারে গানটি প্রকাশিত হয়েছে। নতুন প্রজন্মের শিল্পী বৃষ্টির কাছে এ গানটির বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন চেষ্টা করেছি দশর্কদের ভালো একটি গান ও মিউজিক ভিডিও উপহার দেয়ার। আশা করছি সবার ভালো লাগবে।
(ছবি-০০৮)
পুলিশ প্রশাসন হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতা ও স্থানীয় ইমামদের মতবিনিময়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান
সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি নষ্ট করতে একটি দুষ্ট চক্র চেষ্টা করছে
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর ও হবিগঞ্জে হিন্দুদের মন্দির ভাঙচুর ও বাড়ি ঘরে হামলার ঘটনায় নারায়ণগঞ্জে সচেতনতা সৃষ্টি করতে পুলিশ প্রশাসন, হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতা ও স্থানীয় মসজিদের ইমামদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তারা কোন সাম্প্রদায়িক উস্কানিতে কান না দেওয়ার আহবান জানান। এছাড়াও যে কোন সাম্প্রদায়িক সমস্যায় সকলের ঐক্যবদ্ধ হয়ে সমাধান করার প্রত্যায় ব্যক্ত করেন।
শনিবার (৫ নভেম্বর) বিকাল সাড়ে ৪টায় নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লা মডেল থানার সম্মেলন কক্ষে ওই সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি নষ্ট করতে একটি দুষ্ট চক্র বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা করছে ও করবে। কারো কান কথা শুনে কোন অঘটন ঘটানো যাবে না। একটি ছেলের ফেইসবুকে কে বা কারা এ ছবি পোস্ট করছে। যার কারণে ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে ওই ঘটনা ঘটেছে। তাই সবাইকে এসব বিষয়ে আরো বেশি সচেতন হতে হবে। কোন ভাবেই সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি নষ্ট করতে দেওয়া যাবে না। আমরা সকলে সর্তক থাকবো।
এদিকে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রঞ্জিত মন্ডল বলেন, ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি যাতে নষ্ট না হয় সেইজন্য হিন্দু মুসলিম বৌদ্ধ ও খ্রিষ্টান সবাই ঐক্যবদ্ধ ভাবে থাকবো। সকলে ঐক্যবদ্ধ ভাবে সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি বজায় রাখবো। কোন প্রকার কটুক্তিতে কান দেওয়া যাবে না। এমনকি কোন কিছু ঘটলে সবাই মিলে সমাধান করবো। আর এ ধরনের সভা প্রতি সপ্তাহে একবার কিংবা প্রতিমাসে একবার করা উচিত। এতে আমাদের সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি আরো মজবুত হবে।
নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কামাল উদ্দিনের সভাপতিত্ব ও সেকেন্ড অফিসার গোলাম মোস্তফার স ালনায় বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সহকারী পুলিশ সুপার শরফুদ্দিন, নারায়ণগঞ্জ মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শিপন সরকার শিখন, সদর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রঞ্জিত মন্ডল, হিন্দু নেতা অরুন দাস, তারাপদ আর্চায্য সহ ফতুল্লা বিভিন্ন মসজিদের ইমাম, মন্দির কমিটির সভাপতি সহ সর্বস্তরের এলাকাবাসী।
ট্রাক কাভার্ডভ্যান মালিক
শ্রমিক ধর্মঘট প্রত্যাহার
সরকারের সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনার পর সারা দেশে অনির্দিষ্টকালের জন্য ডাকা পণ্যবাহী যানবাহন ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নিয়েছে বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান অ্যান্ড ট্রান্সপোর্ট এজেন্সি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ।
সাপ্তাহিক ছুটির দিন শনিবার (৫ নভেম্বর) বিকেলে সচিবালয়ে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ে সরকারের দুই মন্ত্রীর সঙ্গে মালিক-শ্রমিকদের তিন ঘণ্টার বৈঠক শেষে এ ঘোষণা দেওয়া হয়।
বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান অ্যান্ড ট্রান্সপোর্ট এজেন্সি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সদস্য সচিব কাউসার আহমেদ পলাশ সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় এই ঘোষণা দেন।
তিনি বলেন, নৌমন্ত্রীর সমঝোতায় অনির্দিষ্টকালের জন্য ডাকা ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নিলাম। পুলিশ মহাপরিদর্শক সাত দিনের মধ্যে সমস্যা সমাধানের দায়িত্ব নিয়েছেন। বিকল্প ব্যবস্থা না করা পর্যন্ত সায়েদাবাদে ট্রাক স্ট্যান্ড পুনর্বহাল, প্রতি জেলায় ট্রাক স্ট্যান্ড স্থাপনসহ ৮ দফা দাবিতে ৬ নভেম্বর থেকে সারা দেশে এই ধর্মঘট পালনের ঘোষণা দিয়েছিল বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান অ্যান্ড ট্রান্সপোর্ট এজেন্সি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ।
নৌমন্ত্রী শাজাহ‍ান খান বলেন, ‘পুলিশি হয়রানির’ বিষয়টি আগামী সাত দিনের মধ্যে সমাধানের আশ্বাস দিয়েছেন পুলিশ মহাপরিদর্শক। বাম্পার এবং অ্যাঙ্গেল খোলার বিষয়ে ১৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বেনাপোলে গিয়ে ভারতের গাড়িগুলো দেখে মতামত দেবে। তবে ১ ডিসেম্বর থেকে যারা অ্যাঙ্গেল ও বাম্পার খুলবে না, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
ইংলিশ রোডে রাত ১২টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত সিঙ্গেল লেনে ট্রাক লোড-আনলোড করা যাবে। আর সায়েদাবাদ বাস টার্মিনালের বিষয়টি বাস্তবতার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
অন্য দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে, ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, পিকআপ, মিনি ট্রাকের বাম্পার ও সাইড এঙ্গেল খোলার আদেশ প্রত্যাহার, জরিমানা মওকুফ করে গাড়ির কাগজপত্র নবায়নের সুযোগ, ঢাকার ইংলিশ রোডে মালামাল লোড-আনলোড করার অনুমতি, গাড়ির সামনের বাম্পার ও সাইড অ্যাঙ্গেল খোলার আদেশ প্রত্যাহার, দিনের বেলায় ঢাকা শহরে দেড় থেকে তিন হাজার কেজি পর্যন্ত মালামাল পরিবহনের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার, মেয়াদোত্তীর্ণ গাড়ি বাতিল না করা, রেজিস্ট্রেশন সংক্রান্ত জটিলতা দূর করা, সব সড়ক-মহাসড়কে পুলিশ এবং হাইওয়ে পুলিশের চাঁদাবাজি বন্ধ, রেকার বাণিজ্য বন্ধ, সড়ক-মহাসড়কে চুরি-ডাকাতি বন্ধে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ, সহজ শর্তে ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান, দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে একতরফা ট্রাক চালকদের দোষারোপ না করা এবং নিয়োগপত্রের ব্যবস্থা করা।
সোনারগাঁয়ের সনমান্দী ইউপি
চেয়ারম্যানের কথিত পিএস
ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী
মিন্টু গ্রেপ্তার
নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের পাশে অলিপুরা বাজার এলাকা হতে শনিবার বিশেষ ট্রাইব্যুনাল মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী মনতাজ উদ্দিন মিন্টুকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
সোনারগাঁ থানার এএসআই আবুল কালাম আজাদ জানায়, ২০১৫ সালের ৫ জানুয়ারী সোনারগাঁ থানায় বিস্ফোরক আইনে দায়ের করা একটি মামলার এজাহার নামীয় আসামী মনতাজ উদ্দিন মিন্টু। দীর্ঘ দিন পলাতক থাকায় পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। ইতি মধ্যে মামলাটির অভিযোগ পত্র আদালতে জমা হলে পলাতক থাকায় মিন্টুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারী পরোয়ান জারি করেন আদালত। বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে দুপুরে সনমান্দী ইউনিয়ন পরিষদের পাশে অলিপুরা বাজার থেকে মনতাজ উদ্দিন মিন্টুকে গ্রেপ্তার করা হয়।
এলাকাবাসী জানায়, বিগত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে সনমান্দী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ঐ ইউনিয়ন বিএনপি সভাপতি বিল্লাল হোসেনের একান্ত সহযোগী মনতাজ উদ্দিন মিন্টু বহু নিরীহ মানুষের জমি-জমা অবৈধভাবে দখল সহ বহু অপকর্ম করে আসছিল। বিএনপি নেতা মিন্টু গাড়িতে অগ্নিসংযোগসহ কিছুদিন পূর্বে সনমান্দী ইউনিয়নের ফতেহপুর গ্রামের রিক্সা চালক আলামিন কে অপহরণের পর হত্যার দায়ে মামলার এজাহার নামীয় আসামী হয়েও গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক পাওয়া জাহিদ হাসান জিন্নাহর পক্ষে নির্বাচন করে সে হয়ে যায় হিরো। চেয়ারম্যান হিসাবে নির্বাচিত হলে মিন্টু স্থান পেয়ে যায় নির্বাচিত চেয়ারম্যান জিন্নাহর প্রাইভেট গাড়িতে। বিভিন্ন মামলা ও ওয়ারেন্ট থাকা সত্বেও উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অবাধে বিচরণের বিষয়টি প্রশাসনের নজরে পরলে মিন্টুকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। সে ফতেহপুর গ্রামের মোসলেউদ্দিন এর পুত্র।
সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুর কাদের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানিয়েছেন রবিবার গ্রেপ্তারকৃত আসামী মনতাজ উদ্দিন মিন্টুকে আদালতে পাঠানো হবে।
আড়াইহাজারে প্রবাসীর
বাড়ীতে ডাকাতি
আড়াইহাজারে দুর্ধর্ষ ডাকাতি সংঘঠিত হয়েছে। শুক্রবার রাতে উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নের জোকার দিয়া গ্রামে প্রবাসী ওবাদুল্লাহর বাড়ীতে এই ঘটনা ঘটে। এলাকাবাসী জানান, রাত ২টার দিকে ৭/৮ জনের মুখোশ পরিহিত ডাকাত দল দরজা ভেঙ্গে ওবায়দুল্লার বাড়ীতে প্রবেশ করে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে দেড় ভরি স্বর্নালংকার ও অন্যনা মালামাল সহ প্রায় লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুটে নেয়। এ সময় ডাকাতের হামলায় গৃহকর্তার ছেলে রহমানকে (২০) কুপিয়ে আহত করেছে। আড়াইহাজার থানার ওসি সাখাওয়াত হোসেন জানান, খবর পেয়ে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।
বন্দরে মুছাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের গ্যাড়াকলের শিকার
হারানোর পথে মহিলা গ্রাম পুলিশ জোসনা
বন্দরের মুছাপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের গ্যাড়াকলে পড়ে চাকরি হারানোর পথে মহিলা গ্রাম পুলিশ জোসনা বেগমের। বিগত ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে সমর্থন করায় তার চাকরি হারানোর অবস্থা। ইতোমধ্যে মুছাপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাকসুদ মহিলা গ্রাম পুলিশ জোসনাকে চরিত্রহীনা আখ্যা দিয়ে ও কাজের অবহেলার অভিযোগ এনে সরকারের বিভিন্ন দফতরে অভিযোগ দাখিল করেছে।
গ্রাম পুলিশ জোসনা বেগম বলেন, আমি সাধারণ মহল্লাদার। আমি নিন্মমানের চাকরি করি। আমি আনসার ভিডিপি প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত। দীর্ঘ ১৫ বছর যাবত মুছাপুর ইউনিয়নে চাকরি করে আসছি। বিগত নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভালবেসে নৌকা প্রতীকের পক্ষে থাকায় আমাকে চেয়ারম্যান মাকসুদ আমাকে পরিষদ থেকে বিতারিত করার জন্য উঠেপড়ে লাগে। তিনি আমাকে কথায় কথায় গালাগাল, হুমকি ধমকি দিয়ে যাচ্ছেন। আমার স্বামী সংসার আছে আমাকে চরিত্রহীনা বলায় আমার মান সম্মান ক্ষুন্ন হয়েছে। তাই আমি বর্তমান এমপি ও আওয়ামী লীগের সকল নেতা-কর্মীর কাছে আমার বিচার দাবি কেন আমাকে অহেতুক মান সন্মান ক্ষুন্ন করা হলো এবং আমার চাকরি থেকে বরখাস্ত করায় পায়তারা করা হচ্ছে।
বন্দর উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মমতাজ মোর্শেদ জানান, গ্রাম পুলিশের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি।
মুছাপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাকসুদ জানান, গ্রাম পুলিশ মানে সরকারি চাকরিজীবী আর তাই কোন সরকারি চাকরিজীবী কোন প্রার্থীর পক্ষে প্রকাশ্যে অবস্থান নিতে পারেনা। কিন্তু সে বিগত ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে প্রকাশ্যে কাজ করেছে এবং আমার বিরোধীতা করেছে।
বন্দরে দুলালী হত্যা
মামলার আসামী আল
আমিন ৫ দিনের রিমান্ডে
বন্দরের স্বামী পরিত্যক্তা দুলালী হত্যা মামলায় গ্রেফতারকৃত আল আমিন ৫ দিনের পুলিশ রিমান্ডে রয়েছে। শনিবার রিমান্ডে ৩ দিন অতিবাহিত হয়েছে। পুলিশ তার কাছ থেকে হত্যাকান্ডের লোমহর্ষক তথ্য পেয়েছে। গত সপ্তাহে দুলালী ১০ দিন চিকিৎসার পর ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মারা যায়। এ দিকে দুলালীর অন্যান্য খুনীদের গ্রেফতারের দাবিতে এলাকাবাসী মানববন্ধন করেছে। দুলালীকে পরকিয়া প্রেমিক নূরুল ইসলাম বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে অমানসিক ভাবে নির্যাতন করে। দুলালী মরে গেছে ভেবে গভীর রাতে চন্ডিতলা নামক নির্জন বিলে ফেলে চলে যায়। ভোরে এলাকাবাসী দুলালী পড়ে আছে দেখে তাকে উদ্ধার করে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যায়। টাকার অভাবে তার সঠিক চিকিৎসা হয়নি। অবশেষে ১০ দিন হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে সে মারা যায়। এ ঘটনায় পুলিশ পরকিয়া প্রেমিক নূরল ইসলামের ছেলে আল আমিনকে গ্রেফতার করে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠায়। আদালত তার ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।
এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দারোগা ফরিদ জানান, গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। তদন্ত স্বার্থে প্রকাশ করা যাচ্ছেনা। দুলালীকে হত্যার কথা আল আমিন স্বীকার করেছে।
(ছবি-০০৯)
কেন্দ্রে পদ বি ত হওয়ায় শামীমভক্তদের অভিযোগ বড় ভাইয়ের বিতর্কিত কর্মকান্ড
শামীম ওসমানের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার হুমকির মুখে!
বড় ভাই সেলিম ওসমানের বিতর্কিত কর্মকান্ডের কারনে কেন্দ্রে শামীম ওসমান পদ বি ত হয়েছেন বলে মনে করছেন নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের তৃণমূল নেতৃবৃন্দ। সেই সাথে বড় ভাইয়ের একের পর অনাকাঙ্খিত কার্যকলাপে শামীম ওসমানের বর্নাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ার হুমকির মুখে বলে মনে করছেন তারা। আর তাই অবিলম্বে বড় ভাইয়ের ছায়া থেকে বেড়িয়ে এসে নিজের ক্যারিয়ার রক্ষার জন্য শামীম ওসমানের প্রতি আহবান জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের আপামর শামীম অনুসারীরা।
ঘটনার বিবরনে প্রকাশ, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের জন্মস্থান নারায়ণগঞ্জ সব সময়ই আন্দোলন সংগ্রামের সুতিকাগার হিসেবে পরিচিত হয়ে আসছে। রাজধানী ঢাকার পার্শ্ববর্তী জেলা হওয়ায় কেন্দ্রীয় রাজনীতিতেও নারায়ণগঞ্জ গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে। আর এই গুরুত্বের প্রধাণ চালিকাশক্তি হিসেবে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমানের অবদান অনস্বীকার্য। প্রায় দুই যুগ ধরে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের ভার একাই বহন করে আসছেন এই কিংবদন্তী রাজনীতিবীদ। আর তাই বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের গত সম্মেলনে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটিতে নারায়ণগঞ্জের এই কৃতি সন্তানের অন্তভূক্তি সময়ের প্রয়োজন হিসেবে মনে করেছিলো নারায়ণগঞ্জবাসী। কিন্তু নারায়ণগঞ্জের মানুষকে হতাশ করে শামীম ওসমানকে ছাড়াই ঘোষণা করা হয় বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি। বুক ভেঙ্গে যায় আশায় থাকা অগনিত শামীম ভক্তদের। সেই সাথে চুলচেরা বিশ্লেষন শুরু হয়ে যায় এই অপ্রাপ্তির কারন অনুসন্ধানে।
আর শামীম ওসমান অনুসারীদের এই বিশ্লেষণে বেড়িয়ে এসেছে থলের বিড়াল। বড় ভাই সেলিম ওসমানের একের পর এক বিতর্কিত কর্মকান্ড ও বক্তব্যে নাকি নাখোশ কেন্দ্র! যার প্রভাব বয়ে বেড়াতে হচ্ছে শামীম ওসমানকে। বিশেষ করে শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্ত ইস্যুতে সাংসদ সেলিম ওসমানের কর্মকান্ড ও কেন্দ্রীয় নেতাদের কটাক্ষ করে বক্তব্য প্রদানকে গুরুত্বের সাথে নিয়েছে আওয়ামীলীগের হাই কমান্ড। স্বাস্থ্যমন্ত্রী মো: নাসিম, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফকে উদ্দেশ্য করে সেলিম ওসমান অশালিন মন্তব্য করায় খোদ দলীয় সভানেত্রী প্রধাণমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওসমান পরিবারের উপর আস্থা হারিয়ে ফেলছেন বলে ধারনা করছে নারায়ণগঞ্জের সচেতন মহল। সেলিম ওসমান জাতীয় পার্টির সাংসদ হওয়ায় শাস্তির খড়গ শামীম ওসমানের উপরই চালানো হয়েছে বলে মনে করেন তারা।
তাছাড়া সম্মেলনের ঠিক কয়েকদিন আগে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার আসামী কিসমত হাশেমের ছোট ভাই ১৬ জুন চাষাঢ়ায় বোমা হামলা মামলার অন্যতম প্রধাণ আসামী নারায়ণগঞ্জের বিতর্কিত বিএনপি নেতা শওকত হাশেম শকুর জনসভায় উপস্থিত হয়ে আবারো বিতর্কের জন্ম দেন সেলিম ওসমান। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ১২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে বিএনপি নেতা শকুর জন্য সেলিম ওসমানের ভোট প্রার্থনার খবর জাতীয় মিডিয়ায় ফলাও করে প্রকাশিত হয়। আর এতে করে কেন্দ্রে শামীম ওসমানের ভাবমূর্তি আবারো প্রশ্নের মুখে পরে বলে ধারনা করছেন সবাই। আর এসব কারন পর্যবেক্ষণ করেই নাকি কেন্দ্রীয় কমিটিতে শামীম ওসমানকে পদ প্রদান থেকে বিরত থাকে দলের নীতিনির্ধারকরা। যার ফলশ্রুতিতে দীর্ঘদিনের তিল তিল করে গড়ে তোলা শামীম ওসমানের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার তারই বড় ভাইয়ের কারনে আজ হুমকির সম্মুখিন হচ্ছে বলে মনে করছেন নারায়ণগঞ্জের অগনিত শামীম অনুসারীরা। আর তাই সময় থাকতে বড় ভাইয়ের ছায়া থেকে বেড়িয়ে এসে নিজের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার রক্ষার জন্য শামীম ওসমানকে সতর্ক থাকতে অনুরোধ জানিয়েছেন তারা।
(ছবি-০০১০)
সৌদী বাদশাহ’র আমন্ত্রণে
এমপি নজরুর ইসলাম
বাবুর সৌদী গমন
স্টাফ রিপের্টার
সৌদী সরকার, মজলিশে সূরা ও পার্লামেন্টের স্পিকারের আমন্ত্রণে শনিবার (৫ নভেম্বর) নারায়নগঞ্জ-২ আসনের সাংসদ নজরুল ইসলাম বাবুসহ ধর্ম মন্ত্রনালয়ের ছয় সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল সৌদি আরব যাত্রা করেছেন। রাষ্ট্রীয় এ সফরে এমপি নজরুল ইসলাম বাবুর সঙ্গে আছেন ধর্ম মন্ত্রনালয়ের চেয়ারম্যান বি এইচ হারুন, নুরুর ইসলাম সুজন, এম এ আউয়াল সহ মোট ছয়জন। এ সফরে উভয় দেশের স্বার্থ সংশ্লিষ্ঠ গুরুত্বপূর্ন বিষয়ে আলোচনা হবার কথা রয়েছে। রাষ্ট্রীয় এ সফরে আলোচনার পাশাপাশি সৌদী রাজ পরিবারের আমন্ত্রনে ওমরাহ হজ পালন করবেন এ প্রতিনিধি দল। হজ পালন শেষে আগামী ১৩ নভেম্বর তারা দেশে ফিরবেন। শনিবার বিকেলে হযরত শাহ জালাল (র:) আর্ন্তজাতিক বিমান বন্দর থেকে রিয়াদের উদ্যেশ্যে যাত্রা করে প্রতিনিধি দল।
মাসদাইরে ব্যবসায়ীদের
উপর বড় মিজান
বাহিনীর হামলা
থেমে নেই নারায়ণগঞ্জ ফতুল্লার ঝুট সন্ত্রাসী বড় মিজানসহ তার বাহিনীর অপকর্ম। স্থাণীয় গণমাধ্যমে সন্ত্রাসী বড় মিজানসহ তার বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে একাধিক সংবাদ ছাপানো হলেও রহস্যজনক কারনে নীরব রয়েছে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ। স্থাণীয় প্রশাসনের রহস্যজনক নীরবতাই বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বড় মিজানসহ তার বাহিনীর সদস্যরা। গত শুক্রবার রাতে সদর উপজেলার ফতুল্লার মাসদাইর এলাকায় বিভিন্ন অস্ত্র সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে একাধিক ঝুট ব্যবসায়ীকে মারধর করেছে বলেও অভিযোগ উঠেছে ঝুট সন্ত্রাসী বড় মিজানসহ তার বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে। নিরীহ ঝুট ব্যবসায়ীকে মারধর করা হলেও সন্ত্রাসী বড় মিজানের ভয়ে আইনশৃংখলা বাহিনীর সহযোগিতাও চাইতে সাহস পাচ্ছে না সাধারন ঝুট ব্যবসায়ীরা। বরং সাধারন ঝুট ব্যবসায়ীদের অভিমত, সন্ত্রাসী বড় মিজানসহ তার বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে আইনশৃংখলা বাহিনীর সহযোগিতা চাওয়া হলে তাদের এলাকা ছাড়তে হবে। ঝুট ব্যবসায়ীরা মনে করেন, তাদের শান্তিপ্রিয় মাসদাইর এলাকাকে বর্তমানে অশান্ত করে তুলার পেছনে ঝুট সন্ত্রাসী বড় মিজানের ভূমিকাই সবচেয়ে বেশি। তাই মাসদাইর সহ আশেপাশের এলাকায় শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোতে শান্তি ফিরিয়ে আনতে অনতিবিলম্বে ঝুট সন্ত্রাসী বড় মিজানসহ তার বাহিনীর সদস্যদের আইনের আওতায় আনার জন্য জরুরী ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের হস্তক্ষেপ জরুরী হয়ে পড়েছে।
সূত্রে জানা যায়, ফতুল্লার মাসদাইর এলাকায় ঝুট সন্ত্রাসী বড় মিজানের বসবাস। তার বিরুদ্ধে সৈনিকলীগ নেতা মোখলেছ হত্যাসহ একাধিক মামলা রয়েছে। প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ফতুল্লার চৌধুরী কমপ্লেক্্েরর সামনে সন্ত্রাসী বড় মিজানসহ তার বাহিনীর সদস্য ফয়েজ, মিন্টু, রাজু, টিটু, আমান, খলিল, ফরহাদ, হিরা, কবিরসহ একদল সন্ত্রাসী সাধারন শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালিকদের মধ্যে আতংক সৃষ্টি করার জন্য অবস্থান নেন। তারা নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজামের নাম ভাঙ্গিয়ে তাদের অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।
তবে মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম এ বিষয়ে টাইমস নারায়ণগঞ্জকে জানিয়েছেন, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমান সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলরেন্সে রয়েছেন। সে হিসেবে আমি তার নগন্য একজন কর্মী হিসেবে সাংবাদিকদের মাধ্যমে বলতে চাই, কেউ যদি আমার নাম ব্যবহার করে কোন ধরনের অপকর্ম করে থাকে তাহলে তাকে আইনশৃংখলা বাহিনীর হাতে তুলে দিতে হবে। কেন না কোন সন্ত্রাসী আমার কর্মী হতে পারে না। আর কোন সন্ত্রাসীকে আমি প্রশ্রয় দেই না। আমি মনে করি দলের সুনাম নষ্টের পিছনে যে দায়ী থাকবে, তাকে যেন ছাড় দেয়া না হয়।
এ ব্যাপারে ফতুল্লা মডেল থানার ওসি কামাল উদ্দিন জানান, ঝুট ব্যবসায়ীদের মারধরের ঘটনায় এখনো কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। তবে কেউ অভিযোগ করলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে যত প্রভাবশালী ব্যাক্তিই জড়িত থাকুক না কেন তাকে ছাড় দেয়া হবে না। যে কোন মূল্যে ফতুল্লায় আইনশৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে হবে।
(ছবি-০০১১)
কাশিপুরের সামসুজ্জামান
স্মরণে দোয়া মাহফিল
কাশিপুর ইউনিয়নের কৃতি সন্তান মরহুম সামসুজ্জামান স্মরনে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (৫ নভেম্বর) সন্ধ্যায় ফতুল্লার কাশিপুরস্থ আমবাগান সামাজিক সংগঠন তিয়াসের কার্য্যালয়ে পূর্ব আমবাগান প ায়েত কমিটির সভাপতি খলিলুর রহমানের সভাপতিত্বে এ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
অনুষ্ঠানে কাশিপুর ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান হাজ্বী আইয়ুব আলী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে তার বক্তব্যে বলেন, কাশিপুরের কৃতি সন্তান সামসুজ্জামান আমাদের মাঝে নেই এটা ভাবতে কষ্ট হয়। কিন্তু এটাই বিধির বিধান। সবাইকে একদিন পরপারে চলে যেতে হবে। কিন্তু রয়ে যাবে পরপারের বাসিন্দাদের ভাল কাজের সুনাম। ভাল কাজের মাধ্যমেই তারা আমাদের মাঝে সারাটা জীবন বেঁচে থাকবেন। সামসুজ্জামান ভাই ভাল কাজ করে গেছেন বিধায় আমরা কাশিঁপুর আমবাগানবাসী এখনো তাকে প্রান ভরে স্মরণ করি।
পরে মরহুম সামসুজ্জামানের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া ও মিলাদের আয়োজন করা হয়। এ সময় দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন কাশিপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক এম এ সাত্তার, আমবাগান এলাকার বিশিষ্ট সমাজেসেবক আলহাজ্ব মোঃ আলী, কাশিঁপুর ইউপির মহিলা প্যানেল চেয়ারম্যান এড.মরিয়ম বেগম, স্থাণীয় সমাজসেবক সালাউদ্দিন আহাম্মেদসহ স্থাণীয় গণ্যমাণ্য ব্যাক্তিবর্গ। অনুষ্ঠানের সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা রাকিবুজ্জামান শ্যামল।
(ছবি-০০১২)
———————–পরিবহনে হাফভাড়ার দাবি——————
সিদ্ধিরগঞ্জে শিক্ষার্থীদের মানবন্ধন বিক্ষোপ
সিদ্ধিরগঞ্জে স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের পরিবহনে হাফ ভাড়ার দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে থানা এলাকার সকল স্কুল কলেজের ছাত্র/ছাত্রীরা। শনিবার দুপুর ১২ টায় থেকে ১টা পর্যন্ত চাষাড়া- শিমড়াইল সড়কে আদমজী এলাকায় হাফপাশ নির্ণায়ক কমিটির ব্যানারে শিক্ষার্থীরা এ কর্মসূচী পালন করেন। এসময় শিক্ষার্থীরা বলেন, চাষাড়া- শিমড়াইল সড়কে চলাচল রত দূরান্ত, শীতলক্ষা, কোমল, রেগুনা, বেকার পরিবহন ও ব্যাটারী চালিত ইজিবাইক চাললক,হেলপাররা প্রতিনিয়ত ছাত্র/ছাত্রীদের সাথে ভাড়া নিয়ে অসুবো আচরন করে। আমাদের সাথে তাদের হাতাহাতি হয়। এজন্য আমরা এ সব পরিবহন মালিকদের কাছে দাবি জানাচ্ছি ছাত্র/ছাত্রীদের জন্য হাফ ভাড়া নির্ধারন করুন। অন্যথায় আমাদের সাথে এসব পরিবহনের চালক ও হেলপারদের সাথে কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটালে তার দায় ভার আপনাদের নিতে হবে। পরে সড়কটিতে বিক্ষোপ করে শিক্ষার্থীরা।
জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি
দিবস পালনে আড়াইহাজারে
বিএনপির প্রস্তুতি সভা
জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে ঢাকায় বিএনপি আয়োজিত জনসভা সফল করতে আড়াইহাজারে সাবেক থানা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি আতাউর রহমান খান আঙ্গুরের উদ্যোগে বিএনপির প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়।
গতকাল শনিবার বিকালে উপজেলার ইলমদী এলাকায় বিএনপির প্রস্তুুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
সাবেক থানা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি আতাউর রহমান খান আঙ্গুরের সভাপতিত্বে প্রস্তুতি সভায় বক্তব্য রাখেন,নারায়ণগঞ্জ জেলা ওলামা দলের সভাপতি শামসুর রহমান খান বেনু,বিএনপি নেতা আহসান হাবিব ভুইয়া,যুবদল নেতা রুহুল আমিন ভুইয়া,সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, মোঃ হানিফা ও আবু তাহের।
সভায় দেশব্যাপী আওয়ামীলীগের লোকজন দ্বারা হিন্দু সম্প্রদায়ের মন্দিরে ও বাড়িঘরে হামলার নিন্দা জানানো হয় । বক্তারা জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে আগামী ৮ নভেম্বর ঢাকায় বিএনপি আয়োজিত জনসভা সফল করতে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের সকল স্তরের নেতাকর্মীদের ঢাকায় উপস্থিত থেকে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার হাতকে শক্তিশালী করার আহবান জানানো হয়।
নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন নিয়ে ধূম্রজাল তৈরীর চেষ্টা //
ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা একটি প্রভাবশালী মহলের
# ডাঃ শাহনেওয়াজ চৌধুরী পদত্যাগ করেননি
নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচনের ব্যাপারে করা লিভ টু আপিল হাইকোর্ট ডিসমিস করায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন করতে কোনো বাধা নেই। এর প্রেক্ষিতে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন কমিশন ৫ নভেম্বর নির্বাচনের তারিখ ঘোষনা করেছিলো। কিন্তু নির্বাচনের দুইপ্রার্থীসহ তিনজনের আবেদনের প্রেক্ষিতে নির্বাচনের তারিখ আগামী ১১ নভেম্বর শুক্রবার নির্ধারন করেন নির্বাচন কমিশন। তবে নির্বাচন নিয়ে ধূ¤্রজাল তৈরীর চেষ্টা করছে নারায়ণগঞ্জের একটি চিহ্নিত কুচক্রি মহল। নির্বাচন কমিশনের কোনো সদস্য পদত্যাগ না করলেও তারা প্রচারের চেষ্টা করে যে, কমিশনের অন্যতম সদস্য ডাঃ শাহনেওয়াজ কমিশন থেকে পদত্যাগ করেছেন। এছাড়া তারা কমিশনের আরেক সদস্যের ব্যাপারে মিথ্যা তথ্য দিয়ে তার চরিত্র হননেরও চেষ্টা চালায়।
প্রেসক্লাব সূত্র জানায়, নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গত শুক্রবার একটি জরুরি সভায় মিলিত হয়। নির্বাচন কমিশনের কাছে সভাপতি প্রার্থী মোস্তফা করিম, সাধারন সম্পাদক প্রার্থী বিল্লাল হোসেন রবিন ও স্থায়ী সদস্য আরিফ আলম দীপু নির্বাচনের নতুন সিডিউল করে নির্বাচনের তারিখ পুনঃ নির্ধারনের আবেদন করেন। এর বিরোধীতা করে বক্তব্য রাখেন মাসুম-সবুজ প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী মাহবুবুর রহমান মাসুম, সাধারন সম্পাদক প্রার্থী শরীফ উদ্দিন সবুজ, প্রেসক্লাবের বর্তমান সভাপতি হালিম আজাদ, সাধারন সম্পাদক নাফিজ আশরাফ, সাবেক সাধারন সম্পাদক খন্দকার শাহ্ আলম। এসময় দুইপক্ষের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। উত্তেজনা তৈরী হয়। এসময় নির্বাচন কমিশনের সদস্য ডাঃ শাহনেওয়াজ বলেন, ‘আপনারা এরকম করলে আমি নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্বে থাকতে পারবো না।’ কিন্তু এ বিষয়টিকে একটি পক্ষ তিনি পদত্যাগ করেছেন বলে প্রচারনা চালায়। এবং সংবাদ পরিবেশন করে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (শনিবার রাত সাড়ে আটটা) নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবে কমিশনের প্রধান এডভোকেট আহসানুল করিম চৌধুরী ও কমিশনের সদস্য ডাঃ শাহনেওয়াজ চৌধুরী নির্বাচন সংক্রান্ত বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্তের বিষয়ে সভা করছিলেন।
দুই পক্ষের বক্তব্য শোনার পর নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের তারিখ পিছিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন। তবে মোস্তফা-রবিন পক্ষ বিষয়টি তা না মানায় নির্বাচন কমিশন এ নিয়ে সভা করছিলেন।
এর আগে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান এডভোকেট আহসানুল করিম চৌধুরী বাবুল সাক্ষরিত একটি নোটিশ বৃহস্পতিবার রাতে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের নোটিশ বোর্ডে টানানো হয়। এ নোটিশে বলা হয় যে, এতদ্বারা সংশ্লিষ্ট সম্মানিত সকল সদস্যদের অবগতির জন্যে জানানো যাচ্ছে যে, ‘ইতিপূর্বে প্রেস ক্লাবের নির্বাচন সংক্রান্ত মহামান্য হাইকোর্টের সিভিল রিভিশন নম্বর ২৯৩৯/১৬ মামলায় নারায়ণগঞ্জ ১ম যুগ্ম জেলা জজ আদালত কর্তৃক দেঃ ১৫৭/১৬নং মোকদ্দমায় অন্তর্বর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞার উপর ১(এক) বছরের জন্য স্থগিতাদেশ প্রদান করেন। যার পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশন বোর্ডের সভায় সর্বসম্মত সিদ্ধান্তক্রমে নির্বাচন সংক্রান্ত পুনঃ সংশোধিত তফসিল প্রনয়ন পূর্বক ২৮ অক্টোবর নির্বাচন তথা ভোট গ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করা হয়। গত ২৬ অক্টোবর ২০১৬ইং তারিখে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আপীল বিভাগের অবকাশকালীন চেম্বার জজ ঈওঠওখ গওঝঈঊখখঅঘঊঙটঝ চঊঞওঞঙঘঘঙ, ১৩৫০ ০ঋ২০১৬ -মোতাবেক মহামান্য হাই কোর্টের আদেশটির উপর স্থগিতাদেশ প্রদান করেন। যার ফলে নির্বাচন কমিশন বোর্ডের সভায় সর্বসম্মত সিদ্ধান্তক্রমে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন (২০১৬-২০১৮)-এর সকল কার্যক্রম আদালতের পরবর্তী নির্দেশ না পাওয়া পর্যন্ত মূলতবী রাখার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ৩ নভেম্বর ২০১৬ইং তারিখে মহামান্য সুপ্রীম কোর্টের আপীল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বে ঈওঠওখ চঊঞওঞঙঘঋঙজ খঊঅঠঊ ঞঙ অচচঊঅখ ঘঙ, ৩৪২০ ০ঋ২০১৬ পিটিশনটি শুনানীর পর ডিসমিস করেন।
মহামান্য সুপ্রীম কোর্টের আপীল বিভাগের আদেশ প্রাপ্তির পর ৩ নভেম্বর ২০১৬ইং তারিখে সন্ধা ৭টায়নির্বাচন কমিশনের এক জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সর্বসম্মত সিদ্ধান্তক্রমে আগামী ৫ নভেম্বর শনিবার বেলা ২টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত নির্বাচন তথা ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। তবে শেষ পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত বহাল থাকেনি।
নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচনে মাসুম-সবুজ পরিষদের নয় প্রার্থীকে এর আগে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী ঘোষনা করে প্রেসক্লাবের নির্বাচন কমিশন। গত ২৫ অক্টোবর প্রেসক্লাবের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান আহসানুল করিম চৌধুরী বাবুল সাক্ষরিত এক নোটিশে বলা হয়, প্রতিদ্বন্দ্বি কোন প্রার্থী না থাকায় ও একজন প্রার্থী ( বিল্লাল হোসেন রবিন) সদস্য পদ থেকে নিজের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নেয়ায় নয়জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিতরা হচ্ছেন, সহ-সভাপতি বিমল রায়, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মজিবুল হক পলাশ, কোষাধক্ষ রফিকুল ইসলাম জীবন, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রফিক, কার্যকরী সাধারন সদস্য সদ্য সাবেক সভাপতি কবি হালিম আজাদ, সদ্য সাবেক সাধারন সম্পাদক নাফিজ আশরাফ, আনিসুর রহমান আনিস, হাসানুজ্জামান শামীম ও ফয়সল পরাগ।
একই দিন সকালে অনুষ্ঠিত হবে প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন। মাসুম-সবুজ প্যানেলের বিপরীতে শুধুমাত্র দুইটি পদে প্রতিদ্বন্দ্বি রয়েছেন। সভাপতি পদে দৈনিক খবরের পাতা সম্পাদক এডভোকেট মাহবুবুর রহমান মাসুমের বিপরীতে মিলেনিয়াম ডন পত্রিকার সম্পাদক মোস্তফা করিম ও সাধারন সম্পাদক পদে দৈনিক সকালের খবরের ষ্টাফ রিপোর্টার শরীফ উদ্দিন সবুজের বিপরীতে দৈনিক মানব জমিনের জেলা প্রতিনিধি বিল্লাল হোসেন রবিন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।#
আধুনিক নারায়ণগঞ্জ গড়তে পরিবর্তন প্রয়োজন চেঞ্জ অর ডাই : সেলিম ওসমান
চীনের বিখ্যাত একটি প্রবাদ বাক্যের উদ্ধৃতি টেনে নারাণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান বলেছেন ‘চেঞ্জ অর ডাই, পরিবর্তন করো অথবা মরো।’
তিনি বলেছেন, আমি কেমন যেন সবার কাছে মুরুব্বি হয়ে গেছি। আমাদের মাঝে দেখা যায়, আইনজীবী-আইনজীবীদের মাঝে ঝগড়া, রাজনীতিদের মাঝে ঝগড়া এমনকি নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের মাঝেও ঝগড়া। কিন্তু আমার সাথে কারো সাথে ঝগড়া হয় না। কোন সংসদ সদস্যের সাথে ঝগড়া হয় না। সবাই আমাকে মুরুব্বি মনে করে দায়িত্ব দেন। কিন্তু আমাদেরকে এ অবস্থার পরিবর্তন আনতেই হবে। কবে এই ঝগড়া বন্ধ হবে? চীনে একটি প্রবাদ আছে ‘চেঞ্জ অর ডাই’। আধুনিক নারায়ণগঞ্জ গড়তে আমাদেরকে পরিবর্তন আনতে হবে। সামনে সিটি করপোরেশনের নির্বাচন আসছে। বার বার ক্ষমতা আসলে নিজের মাঝে কেমন যেন একটা ক্ষমতার দম্ভোক্তি চলে আসে। এই দম্ভোক্তির পরিবর্তন করতে হবে।
শনিবার ৫ নভেম্বর বিকেল ৫টায় নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের গ্রীণলন গ্রাউন্ডে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে ‘একজন শেখ মুজিবের বঙ্গবন্ধু হয়ে উঠা’ শীর্ষক রচনা প্রতিযোগীতার বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
বঙ্গবন্ধুর উপর আয়োজিত রচনা প্রতিযোগীতা সম্পর্কে তিনি বলেন, একটা সময় ছিল আমরা জয় বাংলা স্লোগান দিতে পারতাম না। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর ২১টি বছর আমাদের কলা টিপে ধরে হয়েছিল। আমরা নিজেদের মুক্তিযুদ্ধা হিসেবে পরিচয় দিতে লজ্জাবোধ করতাম। স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় যাদের বাবা মায়ের বিয়ে হয়নি তাদেরকেও মুক্তিযোদ্ধার সার্টিফিকেট নিতে দেখেছি। রাজাকারদের গাড়িতে বাংলাদেশের পতাকা তুলে দেওয়া হয়েছে। তাদেরকে মন্ত্রীত্ব দিয়ে পবিত্র সংসদে বসানো হয়েছে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা সেই অবস্থার পরিবর্তন আনতে পেরেছি। এবছর নারায়ণগঞ্জ এবং বন্দরের মানুষ বুঝতে পারবে বিজয়ের আনন্দ কাকে বলে স্বাধীনতার আনন্দ কাকে বলে।
নারায়ণগঞ্জের ইতিহাস এবং ঐতিহ্য সম্পর্কে তিনি বলেন, আগে নারায়ণগঞ্জের মানুষ পাট ছাড়া কিছুই চিনতো না। কিন্তু একটা সময় নারায়ণগঞ্জ থেকে পাটকে ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। এখন পাটের উপর সিআইপি পায় খুলনার মানুষেরা। মেট্টো পলিটিন চেম্বারকে ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে। জুট অ্যাসোসিয়েশনকে ডাক্তারের চেম্বারে পরিণত করা হয়েছে। আমি এ জন্য কোন সরকারের দোষ দেব না। এই দোষ আমাদের নিজেদের। এরপর আমরা নারায়ণগঞ্জের ৭০ জন মানুষ বিকেএমইএ গঠন করেছি। আজকে বিকেএমইএ এর মাধ্যমে নীট পন্য রপ্তানিতে আমরা বিশ্বে দ্বিতীয় স্থানে অবস্থান করছি। তারপরও আমি বলবো আমরা নারায়ণগঞ্জের মানুষ অবহেলিত বি ত। আমি নারায়ণগঞ্জে যারা ইতিহাসের ছাত্র আছেন বিশেষ করে জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ব বিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. শাহনেওয়াজ চৌধুরীকে অনুরোধ করবো নারায়ণগঞ্জের ইতিহাস তুলে ধরেন। নারায়ণগঞ্জের ইতিহাস লেখার মধ্য দিয়ে তুলে ধরেন আমরা কি হারিয়েছি।
ঐতিহ্যের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, বন্দরের শাহী মসজিদটি একটি ঐহিত্য এটি সংরক্ষনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। এছাড়াও নারায়ণগঞ্জের হাজীগঞ্জে কেল্লা এবং বন্দরে সোনাকান্দা কেল্লা রয়েছে। যেখানে একটি ফুলের গাছ নেই। অথচ শহরে ছেলেমেয়েদের বসার কোন স্থান নেই। কোন অনুষ্ঠান করতে আমাদের নারায়ণগঞ্জ ক্লাবে আসতে হয়। কিন্তু সবার পক্ষে ক্লাবে অনুষ্ঠান করা সম্ভব নয়। তাই এই কেল্লা দুটি রক্ষনাবেক্ষন প্রয়োজন। আমি এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসককে প্রয়োজনী ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করছি।
মাদক দূরীকরণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, শুধু মাদক মাদক বলে বক্তব্য দিলেই মাদক দূর করা যাবে না। হতাশা নিয়ে মাদক দূর করা সম্ভব নয়। আগে আমাদেরকে তরুণ সমাজের মাঝ থেকে হতাশা দূর করতে হবে। হতাশা দূর করতে তাদের কর্মসংস্থান দিতে হবে, তাদেরকে সাংস্কৃতিক চর্চার মধ্যে আনতে হবে। বিভিন্ন ইভেন্টে প্রতিযোগীতার আয়োজন করে তাদেরকে সম্মানিত করতে হবে। তরুণ সমাজের মধ্য থেকে হতাশা দূর করতে পারলে সমাজ থেকে মাদক দূর হয়ে যাবে।
জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান, জেলা পুলিশ সুপার মঈনুল হক। মূখ্য বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. শাহনেওয়াজ চৌধুরী। আরো উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক আবুল জাহের, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(শিক্ষা ও আইসিটি) শাহীন আরা বেগম, বন্দর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী হাবিব, সদর উপজেলা বিদায়ী নির্বাহী কর্মকর্তা আফরোজা আক্তার চৌধুরী প্রমুখ। অনুষ্ঠান স ালনা করেন ভূমি কর্মকর্তা নাহিদা বারী।
স্কুলের গন্ডি না পেরুতেই ৩ শিক্ষার্থীকে লাখোপতি বানালেন সেলিম ওসমান
বঙ্গবন্ধুর উপর রচনা প্রতিযোগীতায় অংশ নিয়ে স্কুলের গন্ডি না পেরুতেই লাখোপতি হলো ৩ শিক্ষার্থী। প্রতিযোগীতায় অংশ নেওয়া তিনজন বিজয়ীর মধ্যে যথাক্রমে প্রথম, দ্বিতীয়, ও তৃতীয় স্থান অধিকারীকে ৫ লাখ, ৩লাখ ও ২লাখ টাকা করে পুরস্কার প্রদান করা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের পৃষ্ঠপোষকতায় ও জেলা প্রশাসকের আয়োজনে জাতীয় শোক দিবস ও ১৫ই আগস্ট উপলক্ষ্যে ‘একজন শেখ মুজিবের বঙ্গবন্ধু হয়ে উঠা’ শীর্ষক রচনা প্রতিযোগীতার আয়োজন করা হয়েছিল।
শনিবার ৫ নভেম্বর বিকেল ৫টায় নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের গ্রীণলন গ্রাউন্ডে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে আনুষ্ঠানিকভাবে বিজয়ী তিন শিক্ষার্থীর হাতে পুরস্কারের মোট ১০ লাখ টাকা তুলে দেওয়া হয়। এছাড়াও জাতীয় পর্যায়ে শ্যূটিংয়ে স্বর্ণ ও রোপা পদক অর্জনকারী ৬জন প্রতিভাবান এবং বির্তক প্রতিযোগীয় অংশ নেওয়া নবীগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৩জন শিক্ষার্থী সহ মোট নয়জনকে ৯টি ল্যাপটপ প্রদান করা হয়েছে।
রচনা প্রতিযোগীতায় অংশ নেওয়া বিজয়ীদের মধ্যে প্রথম পুরস্কার পেয়ে ৫ লাখ টাকা জিতেছেন ফতুল্লার আহসান উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেনীর শিক্ষার্থী আয়েশা আক্তার, দ্বিতীয় হয়ে ৩ লাখ টাকা পুরস্কার জিতেছেন শহরের আদর্শ স্কুল নারায়ণগঞ্জ এর ১০ শ্রেনীর শিক্ষার্থী আব্দুর রহমান, তৃতীয় হয়ে ২ লাখ টাকা পুরস্কার জিতেছেন মর্গ্যাণ গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের ১০ম শ্রেনীর শিক্ষার্থী তাজরিয়া খান।
ল্যাপটপ প্রাপ্তরা হলেন শ্যূটার আরফিন আশা, সুরাইয়া আক্তার, শারমিন আক্তার, শারমিন শিল্পা মাহমুদুল হাসান, রিসালাতুল ইসলাম। নবীগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের আনজিমা কবির নাজিক, নুহে ইরাম লাসিয়া, সুমাইয়া সরকার সিনথি।
পুরস্কারের ১০ লাখ টাকা ও ৯টি ল্যাপটপ নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের ব্যক্তিগত তহিবল থেকে প্রদান করা হয়। প্রসঙ্গত, ইতোপূর্বে সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের পৃষ্ঠপোষকতা এবং জেলা প্রশাসনের উদ্যোগো আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে ‘মহান ভাষা আন্দোলন ও নারায়ণগঞ্জের ভূমিকা’ শীর্ষক রচনা প্রতিযোগীতার আয়োজন করা হয়েছিল। ওই প্রতিযোগীতায় অংশ নেওয়া ৩জন বিজয়ীকে পুরস্কার হিসেবে ১০ লাখ টাকা প্রদান করে ছিলেন এমপি সেলিম ওসমান।
প্রতিযোগীদের জমাকৃত রচনা পর্যবেক্ষন করেছেন জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড.শাহনেওয়াজ চৌধুরী, সরকারী তোলারাম কলেজের সহযোগী অধ্যাপক ড. নাজনীন ফাতেমা ও রওনক জাহান, জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ইমরুল হাসান।
সেলিম ওসমান তার বক্তব্যে বিজয় দিবস ১৬ ডিসেম্বর এবং ২০০৯-২০১৪ সালে গঠিত বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড এবং সরকারের কাছে নারায়ণগঞ্জের প্রত্যাশা’ শীর্ষক দুটি রচনা প্রতিযোগীতার ঘোষণা দেন। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসনকে প্রয়োজন উদ্যোগ গ্রহণের অনুরোধ করেন তিনি।
পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রচনা প্রতিযোগীতার বিজয়ীদের উদ্দেশ্যে সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান বলেন, তোমরা যারা বিজয়ী হয়েছো তোমাদের কাছে আমার অনেক চাওয়া রয়েছে। তোমরা যারা আজকে টাকা পেয়েছ তারা একটি টাকাও অপচয় করবে না। তোমাদেরকে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে হবে। তোমাদের হাত ধরে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ। তোমরা আজকে থেকেই তোমাদের আশেপাশে থাকা দরিদ্র শিশুদের সহযোগীতা করা শুরু করবে। তোমরা তাদেরকে ঘৃণা করবে না। তাদেরকে একটু সহযোগীতা করবে। তোমাদের শিক্ষার জ্ঞান তাদের মাঝে ছড়িয়ে দিবে। তোমাদের পুরান হয়ে যাওয়া বই গুলো বিক্রি না করে তাদেরকে দিলে তারা পড়ালেখার সুযোগ পাবে। তোমাদের পুরনো স্কুল ড্রেস ফেলে না দিয়ে তাদেরকে দিয়ে দিলে তারা স্কুলে যেতে পারবে। আজকে তোমরা স্কুল শিক্ষার্থী আগামী দিনে তোমরাই বাংলাদেশ গড়ার কারিগর হয়ে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করবে।
জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান, জেলা পুলিশ সুপার মঈনুল হক। মূখ্য বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. শাহনেওয়াজ চৌধুরী। আরো উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক আবুল জাহের, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(শিক্ষা ও আইসিটি) শাহীন আরা বেগম, বন্দর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী হাবিব, সদর উপজেলা বিদায়ী নির্বাহী কর্মকর্তা আফরোজা আক্তার চৌধুরী প্রমুখ। অনুষ্ঠান স ালনা করেন ভূমি কর্মকর্তা নাহিদা বারী।
আওয়ামীলীগের চূড়ান্ত প্যানেল ঘোষণা : সভাপতি দিপু-সেক্রেটারি পলু
নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির ২০১৬-১৭ অর্থ বছরের নির্বাচনে চূড়ান্ত প্যানেল ঘোষণা করেছে আওয়ামীলীগের সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ। শনিবার সন্ধায় সম্মিলিত সমন্বয় পরিষদের সভায় সিদ্ধান্ত হয় প্যানেলের সভাপতি হিসেবে অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে অ্যাডভোকেট হাবিব আল মুজাহিদ পলু এ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। এর আগের দিন শুক্রবার বিএনপির জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদ প্যানেলের চূড়ান্ত প্রার্থী ঘোষণা করেছিল বিএনপি।
শনিবার সন্ধায় সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম প্যানেল ঘোষণা করেছেন। তিনি আরো জানিয়েছেন, আওয়ামীলীগের সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ প্যানেলের সিনিয়র সহ-সভাপতি হিসেবে অ্যাডভোকেট আলাউদ্দীন আহম্মেদ, সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট দেলোয়ারা বেগম রানী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে অ্যাডভোকেট কামাল হোসেন, কোষাধ্যক্ষ হিসেবে অ্যাডভোকেট সোহেল মিঞা, আপ্যায়ন সম্পাদক অ্যাডভোকেট একেএম ওমর ফারুক ভুইয়া, লাইব্রেরী বিষয়ক সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট আসাদুর রহমান বিপ্লব, ক্রীড়া সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট মাহামুদুল হক মমিন, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট শরীফ হোসেন, সমাজ সেবা সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম, আইন ও মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট রাজিয়া আমিন কানচি এবং কার্যকরী সদস্য পদে অ্যাডভোকেট রাশেদ ভুইয়া, অ্যাডভোকেট সাজ্জাদুল হক সুমন, অ্যাডভোকেট মাসুম ভুইয়া, অ্যাডভোকেট রনজিৎ চন্দ্র দে, অ্যাডভোকেট রাশেদ ভুইয়া ও অ্যাডভোকেট স্বপন ভূইয়া।
এর আগে আওয়ামীলীগের সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ থেকে এককভাবে অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছিলেন। সাধারণ সম্পাদক পদে সমিতির বর্তমান পরিষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ মোহসীন মিয়া, সমিতির সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আনোয়ার হোসেন, বন্দর থানা যুবলীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট হাবিব আল মুজাহিদ পলু ও সোনারগাঁও থানা যুবলীগের সাবেক সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছিলেন। বিভিন্ন পদে মোট ২৮ জন প্রার্থী মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছিলেন।
নারায়ণগঞ্জের সেচ্ছাসেবক দল নেতাদের কেন্দ্রের নির্দেশনা
জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের নবনির্বাচিত সভাপতি শফিউল বারী বাবু এবং সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভূইয়া জুয়েলকে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক আকরাম প্রধান এবং যুগ্ম আহবায়ক রিয়াদ মোহাম্মদ চৌধুরী সহ নারায়ণগঞ্জ জেলার বিভিন্ন থানা ও মহানগরের নেতারা।
এসময় কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক শফিউল বারী বাবু ও আব্দুল কাদের ভূইয়া জুয়েল আগামী দিনের আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয় ভূমিকা রাখার আহবান জানান সকলকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করার আহবান জানান। ওই সময়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের পক্ষ থেকে সম্প্রতি বন্দর থানার স্বেচ্ছাসেবক যুগ্ম আহবায়ক মোস্তাক আহম্মেদ গ্রেপ্তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়। নেতারা বলেন, ‘সরকারের জুলুম নির্যাতনের অংশ হিসাবে সারাদেশের মত মোস্তাক আহম্মেদকেও মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠায়। আমরা আশা করি অতি দ্রুত আইনের মাধ্যমে ম্ক্তু হয়ে চলমান সরকার বিরোধী চলমান আন্দোলন ও সংগ্রামে পূর্বের ন্যায় সক্রিয় ভূমিকা পালন করবে মোস্তাক আহম্মেদ।’
রফিকুল ইসলম রফিক
নারায়ণগঞ্জ
তাং ০৫-১১-২০১৬

Related posts