April 23, 2018

সপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়তে ছাত্রলীগের মধ্যে ইসপাত ঐক্য গড়ে তুলতে হবে: ডা.দীপু মনি

44

এ কে আজাদ, চাঁদপুর : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাবেক পররাস্ট্রমন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি বলেছেন, ছাত্রলীগের ইতিহাস গৌরব ও অর্জনের ইতিহাস। এই ছাত্রলীগ বাংলাদেশের প্রতিটি গনতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়ে বুকের তাজা রক্ত ঢেলে বাংলার রাজপথ রঞ্জিত করে ছিনিয়ে এনেছে সকল গনতান্ত্রিক অধিকার। মায়ের ভাষায় কথা বলবার অধিকার। আজকের এই ছাত্রলীগ আগামী দিনের সপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়বে। সেইজন্য ছাত্রলীগের প্রতিটি নেতা কর্মীকে হতে হবে সোনার ছেলে, সোনার মেয়ে।

তাই ছাত্রলীগের মধ্যে ইসপাত কঠিন ঐক্য গড়তে হবে। কোন ভাবেই নিজেদের মধ্যে বিবাদ করা যাবে না। সকলে আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করবো। ইনশাআল্লাহ জয় আমাদের সু-নিশ্চিত। কোন নেতা-কর্মীর আচার-আচরণে যেন মানুষ কোনভাবে কষ্ট না পায় সে বিষয়ে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। কারণ আমরা দেশের জন্য জনগণের জন্য কাজ করি।
বৃহস্পতিবার (৪ জানুয়ারী) দুপুর ১টায় চাঁদপুর সরকারি কলেজ মাঠে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে র‌্যালী উদ্বোধন পূর্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, আমাদের প্রানপ্রিয় নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা তার নেতৃত্বে দেশ অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে।
যারা দেশের স্বাধীনতা বিশ^াস করেন না। তারা সব সময় দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতিকে বাঁধা দিয়ে আসছে। তারা যুদ্ধাপরাধীদের দোসর হয়ে কাজ করছে। আগামী ১ বছর পরেই জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এ নির্বাচনে আমাদের প্রত্যেক নেতা-কর্মীকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রতিটি ঘরে ঘরে গিয়ে আওয়ামী লীগ সরকারের অর্জনের কথা তুলে ধরতে হবে এবং বিএনপি-জামায়াতের দুঃশাষন, দুস্কর্ম ও দূর্নীতির কথা জানাতে হবে। আর সাধারণ মানুষ যেন এসব জেনে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। জনগণ আগামীতে নৌকা মার্কার জয় সু-নিশ্চিত করে দেশের গণতন্ত্র এবং উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখবেন।

চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতাউর রহমান পারভেজ এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক পারভেজ করিম বাবুর সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ আবু নঈম পাটওয়া দুলাল।

এরপর ছাত্রলীগের সাবেক ও বর্তমান নেতা-কর্মীরা কলেজ ক্যাম্পাস থেকে একটি বিশাল বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করে এবং হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে গিয়ে শেষ হয়। সবশেষে প্রধান অতিথিসহ অন্যান্য অতিথিবৃন্দ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী কেক কাটেন।

Related posts