November 15, 2018

সকাল ১০টা নাগাদ জানা যাবে কে হবেন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট

প্রেসিডেন্ট

ডেমোক্রেটিক পার্টির হিলারি ক্লিনটন অথবা রিপাবলিকান পার্টির ডোনাল্ড ট্রাম্প, যে কোনো একজনকে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে বেছে নিতে ভোট দিয়েছেন মার্কিন ভোটাররা। বিভিন্ন সংস্থার জরিপে বলা হয়েছে, ৫৮তম এই নির্বাচনে প্রায় ৫৪ শতাংশ ভোটার ভোট দিয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার ভোট গ্রহণ শেষে এখন চলছে গণনা। বাংলাদেশ সময় আজ বুধবার সকাল ১০টা নাগাদ জানা যাবে কে হবেন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট। এখন পর্যন্ত পাওয়া ফলাফলে জানা গেছে, হিলারি জিতে নিয়েছেন ১০৪টি ইলেক্টোরাল ভোট। আর ট্রাম্প পেয়েছেন ১২৯টি ইলেক্টোরাল ভোট। কোন অঙ্গরাজ্যে কতো ইলেক্টোরাল ভোট: আলবামা-৯, আলাস্কা-৩, আরিজোনা-১১, আরকানসাস-৬, ক্যালিফোর্নিয়া-৫৫, কোলোরাডো-৯, কানেক্টিকাট-৭, ডেলাওয়ের-৩, ডিস্ট্রিক্ট অব কলাম্বিয়া-৩, ফ্লোরিডা-২৯, জর্জিয়া-১৬, হাওয়াই-৪, ইডাহো-৪, ইলিনয়-২০, ইন্ডিয়ানা-১১, আইওয়া-৬, কানসাস-৬, কেন্টাকি-৮, লুইজিয়ানা-৮, মাইনে-৪, ম্যারিল্যান্ড-১০, ম্যাসাচুসেটস-১১, মিশিগান-১৬, মিনেসোটা-১০, মিসিসিপি-৬, মিসৌরি-১০, মনটানা-৩, নেব্রাস্কা-৫, নেভাদা-৬, নিউ হ্যাম্পশায়ার-৪, নিউজার্সি-১৪, নিউ মেক্সিকো-১৪, নিউইয়র্ক-২৯, নর্থ ক্যারোলিনা-১৫, নর্থ ডাকোটা-৩, ওহাইও-১৮, ওকলাহোমা-৭, অরেগন-৭, পেনসিলভানিয়া-২০, রোডে আইল্যান্ড-৪, সাউথ ক্যারোলিনা-৯, সাউথ ডাকোটা-৩, টেনেসে-১১, টেক্সাস-৩৮, উতাহ-৬, ভারমন্ট-৩, ভার্জিনিয়া-১৩, ওয়াশিংটন-১২, ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া-৫, উইকনসিন এবং উইয়োমিং-৩। এর আগে, মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকাল ছয়টায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শুরু হয়। আর এই ৫৮তম নির্বাচনের মাধ্যমে দেশটির জনগণ তাদের ৪৫তম প্রেসিডেন্টকে বেছে নেবেন। উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের সাড়ে ৩২ কোটি মানুষ। এর মধ্যে ভোটারযোগ্য ২২ কোটি। তার মধ্যে যে ভোটার সাড়ে ১৪ কোটি। তবে ভোট না দেওয়ার প্রবণতা রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। কেননা, গতবার ভোটের হার ছিল মাত্র ৫৭ শতাংশ। আর প্রেসিডেন্ট হতে ইলেকটোরাল কলেজের ৫৩৮টি ভোটের মধ্যে ২৭০টি পেতে হবে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পদ্ধতি ও প্রক্রিয়া এমন যে সারা দেশে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটারের সমর্থনও বিজয়ের নিশ্চয়তা দেয় না। জিততে হলে একজন প্রার্থীকে সংগ্রহ করতে হয় ‘ইলেকটোরাল কলেজ’ ভোট, যার মোট সংখ্যা ৫৩৮টি। দুটি অঙ্গরাজ্য ছাড়া বাকি অঙ্গরাজ্যগুলোতে প্রাপ্ত সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে প্রার্থীরা সেই ইলেকটোরাল কলেজ ভোটে বিজয়ী হন, আর তার মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোট, অর্থাৎ ২৭০টি পেলেই একজন প্রার্থী নির্বাচিত হতে পারেন।

Related posts