September 19, 2018

সংস্কৃতির মাধ্যমেই মানুষের মাঝে দেশ প্রেম জাগ্রত হবে : জেলা প্রশাসক চাঁদপুর

Exif_JPEG_420
Exif_JPEG_420

এ কে আজাদ, চাঁদপুর : ‘সৃজনে উন্নয়নে বাংলাদেশ’ এই শ্লোগানকে ধারন করে সারাদেশের ন্যায় চাঁদপুরে সাংস্কৃতিক উৎসব শুরু হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে সাংস্কৃতিক উৎসব উপলক্ষে চাঁদপুর শিল্পকলা একাডেমির সামনে থেকে একটি বণ্যার্ঢ র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক পদক্ষিণ করে পূনরায় শিল্পকলার সামনে এসে শেষ হয়। পরে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়নে সাংস্কৃতিক উৎসবের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খান। প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, সরকারের ভালো কাজের মধ্যে ২ দিন ব্যাপি সাংস্কৃতিক উৎসব দৃশ্যমান। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে তা জলন্ত প্রমাণ সরকার নিজস্ব অর্থায়নে দেশের ৬৪ জেলায় এই সাংস্কৃতিক উৎসব এক যোগে শুরু করেছে। যে সব শিল্পী হারিয়ে যাচ্ছে, তাদের তুলে আনার চেষ্টা করছে সরকার। সরকারের ভিষন বাস্তবায়নে এই সাংস্কৃতিক উৎসব একটি উজ্জল দৃষ্টান্ত। সুন্দর ও আনন্দে ভরে উঠুক আমাদের মাঝে। দেশপ্রেমের সাথে সম্পৃক্ত থেকে আমরা সরকারের উন্নয়নে কাজ করে যাবে। তিনি আরো বলেন, আমরা এই সাংস্কৃতি উৎসবের মধ্যদিয়ে সকলে উপস্থাপনা করার চেষ্টা করছি এই জেলার শিকড়ের সন্ধানে রয়েছি আমরা। আমরা এই উৎসব ঘিরে একটি আনন্দ উৎসবে রূপান্তরিত করি। শিল্প-সংস্কৃতির মাধ্যমে আমাদের মাঝে দেশ প্রেম জাগ্রত করতে হবে। শিল্প-সংস্কৃতিকে ঘিরে চাঁদপুরকে আরো এগিয়ে নিতে যেতে হবে। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোহাম্মদ মঈনুল হাসানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল আরো বক্তব্য রাখেন, জেলা স্কউটস কমিশনার ও জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাবেক সাধারণ সম্পাদক অজয় কুমার ভৌমিক। স্বরলিপি নাট্যদলের সভাপতি সাংবাদিক এম আর ইসলাম বাবুর সমন্বয়ে আবৃত্তিকার দ্বিপান্বিতা দাস ও এহসানুল ফেরদৌসের যৌথ সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ জামান, চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ওয়ালী উল্লাহ অলী। অনুষ্ঠানে শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট চাঁদপুর জেলা শাখার সভাপতি তপন সরকার। এ সময় উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কানিজ ফাতেমা, এন এস আই উপ-পরিচালক এবি এম ফারুক, শিল্পকলা একাডেমীর নির্বাহী সদস্য শহীদ পাটওয়ারী, রূপালী চম্পক, জেলা ক্রীড়া সংস্কার সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তাফা বাবুসহ জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকর্তাগন। উৎসবের প্রথম দিন সংা¯ৃ‹তি অনষ্ঠান ও সংগীত পরিবেশ করেন হরে কৃষ্ণ ঘোষ ও তাঁর দল, চাঁদপুর সরকারি মহিলা কলেজ এর ছাত্রীবৃন্দ, আনন্দধ্বনি সংগীত শিক্ষায়তন, সপ্তরূপা নৃত্য শিক্ষালয়, সপ্তসুর সংগীত একাডেমি, সরকারি শিশু পরিবার, চাঁদপুর হিজড়া সম্প্রদায়, অনন্যা নাট্যগোষ্ঠী ও চাঁদপুর ড্রামা, রূপালী চম্পক, চম্পক সাহা, দীপান্বিতা দাস,. সামীম খান, তাহমিনা হারুন, মৃণাল সরকার।

Related posts