September 21, 2018

সংবিধানের আলোকে আগামী জাতীয় নির্বাচন : হাছান মাহমুদ

gবিএনপির নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের দাবি প্রত্যাখান করে আওয়ামী লীগের মুখপাত্র ড. হাছান মাহমুদ এমপি বলেছেন, নির্বাচন কমিশনকে বিতর্কিত করার চেষ্টা যখন সফল হয়নি, তখন খালেদা জিয়া আবদার করছেন ফের নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের রূপরেখা দেবেন। আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই, সংবিধানের আলোকেই বর্তমান সরকার প্রধান শেখ হাসিনার অধীনেই আগামী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এর কোনো হেরফের হবে না। সারা পৃথিবীর এক নিয়ম, আর বিএনপির কাছে আরেক নিয়ম, তা তো হতে পারে না।

আজ বুধবার রাজধানীর সেগুনবাগিচার স্বাধীনতা হলে বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, নির্বাচন কোনো সরকারের অধীনে হয় না। নির্বাচন হয় নির্বাচন কমিশনের অধীনে। ওই সময় সব কাজ করবে নির্বাচন কমিশন। সব কিছু নির্বাচন কমিশনের অধীনেই থাকে। সরকার কেবল তার নিয়মিত কাজগুলো করবে।

খালেদা জিয়াকে বিএনপির চেয়ারপারসনের পদ ছেড়ে দেয়ার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বিশ্বব্যাংক যখন পদ্মাসেতুর অর্থায়ন বন্ধ করে, তখন খালেদা জিয়া বলেছিলেন, নুন্যতম লজ্জা থাকলে শেখ হাসিনার প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করা উচিত। আজ আমি বলতে চাই, উনার নুন্যতম লজ্জা থাকলে রাজনীতি ছেড়ে দেয়া উচিত। বিএনপির চেয়ারপারসনের পদ থেকে পদত্যাগ করুন।

ড. হাছান বলেন, বিশ্বব্যাংকের ওকাম্পো টিম সে সময়ের যোগাযোগমন্ত্রী আবুল হোসনকে রিমান্ডে নিতে বলেছিল। আজ প্রমাণ হয়েছে পদ্মাসেতুতে কোনো দুর্নীতি হয়নি। সুতরাং পদ্মাসেতুতে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়ন বন্ধে যারা ষড়যন্ত্র করেছে, তাদেরকে রিমান্ডে নেওয়া হোক।

আয়োজক সংগঠনের নেতা লায়ন চিত্তরঞ্জন দাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ, আওয়ামী লীগ নেতা এম এ করিম, স্বাধীনতা পরিষদের সভাপতি জিন্নাত আলী খান জিন্নাহ প্রমুখ।

Related posts