September 23, 2018

শুক্রবার বাণিজ্যমেলার উদ্বোধন!

মাসব্যাপী ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলার প্যাভিলিয়ন ও স্টলের নান্দনিকতা বাড়াতে চেষ্টার কোনো ঘাটতি রাখছে না বরাদ্দ পাওয়া কোম্পানিগুলো। আগামী শুক্রবার শুরু হচ্ছে বাণিজ্যমেলার ২১তম আসর। চলছে শেষ মুহূর্তের কাজ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মেলার উদ্বোধন করার কথা রয়েছে। তবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে মেলার পাশের বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) যৌথভাবে মেলাটির আয়োজন করছে। মেলায় একবার প্রবেশে টিকিটের মূল্য প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ৩০ টাকা ও শিশুদের জন্য ২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

বাণিজ্যমেলা প্রাঙ্গণ ঘুরে দেখা গেছে, স্টলের শেষ মুহূর্তে কাজে ব্যস্ত শ্রমিকরা। আকর্ষণীয় নকশায় স্টল সাজানোর জন্য তিনতলা-চারতলা পর্যন্ত অস্থায়ী স্থাপনায় ভরে উঠেছে বাণিজ্যমেলার মাঠ। সেই স্থাপনায় শৈল্পিক ছোঁয়া, আধুনিক ডিজাইন, বাহারি কারুকার্য দিয়ে সাজিয়ে নিতে রাতেও কাজ করছেন বলে জানালেন এক শ্রমিক। গত বারের মতো একইভাবে কার্জন হলের আদলে গেট নির্মাণ শেষ। বেস্টবাই, স্বপ্ন, ওয়ালটন, আক্তার ফার্নিচার, হাতিল ফার্নিচারের মতো বড় প্রতিষ্ঠানের প্যাভিলিয়নের কাজ চলছে দ্রুতগতিতে। প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্টরা জানান, সময়টা কম, তাই কাজ এগিয়ে নিতে রাতেও ব্যস্ত শ্রমিকরা। ওয়ালটন প্যাভিলিয়নের সুপারভাইজার জানান, দর্শনার্থীদের আকৃষ্ট করতে ব্যতিক্রমী ও দৃষ্টিনন্দন প্যাভিলিয়ন নির্মাণ করা হয়েছে।

বিশ্ববাজারে শীর্ষে যাওয়ার আকাঙ্ক্ষা থেকে ওয়ালটন প্যাভিলিয়ন নির্মাণে প্রাধান্য পেয়েছে ‘স্কাই হাই’ থিম। কাঠামো নির্মাণে নিরাপত্তা ইস্যুকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। ব্যবহার করা হচ্ছে উচ্চমানের স্টিলের বিম, ফ্রেম, ফায়ার ও ইলেকট্রিক্যাল সেফটি ইক্যুইপমেন্ট। সবচেয়ে সুন্দর, দৃষ্টিনন্দন তিন তলাবিশিষ্ট প্রিমিয়ার প্যাভিলিয়ন নির্মাণ করা হয়েছে। মূল প্রবেশদ্বারের সঙ্গেই কাঁচবেষ্টিত একটি টাওয়ার নির্মাণ করা হয়েছে। মেলায় ওয়ালটনের দুটি সেলস ও ডিসপ্লে সেন্টার থাকছে। একটি প্রিমিয়ার প্যাভিলিয়ন (নম্বর-২৩) ও অন্যটি স্টল (নম্বর-৩১এ এবং ৩১বি।

প্যাভিলিয়নের নিচতলায় প্রদর্শন করা হবে রেফ্রিজারেটর, ফ্রিজার, এলইডি টেলিভিশন, এয়ার কন্ডিশনারসহ অন্যান্য ইলেকট্রনিক্স পণ্য। থাকছে এলইডি বাল্ব, সুইচ, সকেট, রিচার্জেবল ব্যাটারি, জেনারেটরসহ আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন ইলেকট্রিক্যাল অ্যাপ্লায়েন্সেস। দ্বিতীয় তলায় থাকবে ডিপ ফ্রিজসহ ওয়ালটন ব্র্যান্ডের মোবাইলসেট। রয়েছে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন লিফট। থাকবে পর্যাপ্ত পরিমাণে অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র। ওয়ালটনের পিআর অ্যান্ড মিডিয়া বিভাগের নির্বাহী পরিচালক মো. হুমায়ুন কবীর বলেন, এত অল্প সময়ের মধ্যে এরকম একটি মজবুত প্যাভিলিয়ন বিশেষ করে কাঁচদ্বারা বেষ্টিত স্কাই হাই টাওয়ার নির্মাণ করা খুবই চ্যালেঞ্জিং কাজ।

জানা গেছে, ২০টি দেশের মধ্যে নতুন দেশ হিসেবে অংশ নিচ্ছে মরিশাস ও ঘানা। তবে এ দুটি দেশ ছাড়া থাকবে ভারত, পাকিস্তান, চীন, মালয়েশিয়া, ইরান, যুক্তরাষ্ট্র, তুরস্ক, বৃটেন, জাপান ও আরব আমিরাতের প্রায় অর্ধশতাধিক স্টল। ইপিবি তথ্য অনুযায়ী, মেলায় ১৪টি ক্যাটাগরিতে ৫৪৬টি স্টল ও প্যাভিলিয়ন নির্মাণ করা হচ্ছে। এর মধ্যে তিন ক্যাটাগরিতে মোট স্টল থাকবে ৩৪৭টি। জেনারেল, রিজার্ভ ও বিদেশি এই তিন ক্যাটাগরিতে মোট প্যাভিলিয়ন থাকবে ১১২টি। এছাড়া থাকবে ৫৬টি মিনি প্যাভিলিয়ন ও ২৬টি ফুড স্টলসহ ৫টি রেস্তরাঁ।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts