November 21, 2018

‘শীঘ্রই বেনাপোল স্থলবন্দরের পন্যজট-যানজটের সমাধান হবে’

aখুলনা;:বেনাপোল স্থলবন্দরে যে পন্যজট-যানজট লেগে থাকে তা অতি তাড়াতাড়ি সমাধান হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান।

তিনি বলেন, আপনারা জানেন ৩টি ইয়ার্ডে ১শ’ কোটি টাকা ব্যায়ে ৮টি শেড নির্মান করা হচ্ছে। এগুলো নির্মাণ হলে যানজট আর থাকবে না। বেনাপোল স্থল বন্দরকে অটোমেশান এবং বেনাপোল থেকে যশোর পর্যান্ত ফোর লেন রাস্তা তৈরী করা হবে। বন্দরের নিরাপত্তার জন্য খুব দ্রুত বেনাপোল বন্দরকে সিসি ক্যামেরার আওতায় নেওয়া হবে।

শুক্রবার বিকালে বেনাপোল আন্তর্জাতিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনালের শুভ উদ্বোধন উপলক্ষে সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে নৌপরিবহন মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বেনাপোল পৌর মেয়রের প্রশংসা করে বলেন, না দেখলে বোঝা যাবে না এত অল্প সময়ের ভিতর একজন তরুণ নেতা কত বিচক্ষণ হলে বেনাপোলের এত উন্নয়ন করতে পারে।

বেনাপোল বন্দর কর্তৃপক্ষ আয়োজিত শুক্রবার বেলা ২টার সময় স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান তপন কুমার চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে নৌপরিবহনমন্ত্রী শাহজাহান খান এমপি বেনাপোল আন্তর্জাতিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনালের ফিতা কেটে শুভ উদ্বোধন করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন নৌপরিবহন মন্ত্রনালয়ের সচিব অশোক কুমার মাধব রায়, বেনাপোল পৌরমেয়র আশরাফুল আলম লিটন, শার্শা উপজেলা চেয়রম্যান সিরাজুল হক মঞ্জু , শার্শা উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুস সালাম, ৪৯ বিজিবি’র সিও লে. কর্নেল আরিফুল হক, বেনাপোল স্থলবন্দরের সিবিএ সাধারন সম্পাদক মনির হোসেন মজুমদার প্রমুখ।

২০০৬ সনে নির্মিত এ প্যাসেঞ্জার টার্মিনালটি পাসপোর্টযাত্রীদের জন্য তৈরী করা হলেও দীর্ঘ ১১ বছরে তা যাত্রীদের জন্য ব্যবহার করা হয়নি। স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ নানা গড়িমসি করে তাদের প্রশাসনিক ভবন বানিয়ে রেখেছিল। ২০১৩ সনে ২৩ আগষ্ট একবার নৌপরিবহন মন্ত্রী এ টার্মিনাল ভবনটি উদ্বোধন করলেও তা চালু হয়নি একমাত্র বেনাপোল স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষের কারণে।

নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান এমপি এর আগে বেনাপোল কাষ্টমস ও স্থল বন্দরের নবনির্মিত ১শ’ কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত শেডগুলো

Related posts