December 13, 2018

শিক্ষিকা যখন চাঁদাবাজ!

111
মোবাইল ফোনে চাঁদাবাজির অভিযোগে নওরিন ফেরদৌস(২২) নামের এক স্কুল শিক্ষিকাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সোমবার বিকেলে গাংনী থানা পুলিশের একটি টিম তাকে তেরাইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ থেকে গ্রেফতার করে।

নওরিন ফেরদৌস গাংনী চৌগাছা গ্রামের বিশ্বাসপাড়া এলাকার আতাহার আলীর মেয়ে ও তেরাইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষিকা।

গাংনী থানার ওসি আকরাম হোসেন জানান, চৌগাছা গ্রামের আমির হোসেন জেয়ার্দারের ছেলে শহরের কাথুলি মোড় এলাকার ইয়াসিন মেডিসিন কর্নারের মালিক আফতাব হোসেনের কাছ থেকে মোবাইল ফোনে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে। নওরিন ফেরদৌসের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনের বিকাশ নম্বরে এরইমধ্যে ৮৯ হাজার ১৭৪ টাকা পাঠানো হয়েছে। এছাড়া দুই ভরি ওজনের স্বর্ণালংকারও নিয়েছেন তিনি। বাকী টাকা না দিলে আফতাব আলীর শিশুপুত্রকে অপহরণ করে হত্যার হুমকি দিয়ে আসছিল।

ওসি আরো জানান, আফতাব আলী বিষয়টি পুলিশকে জানালে মোবাইল ফোন ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে আসামী নওরিনকে শনাক্ত করে আটক করা হয়। মোবাইল ফোনে চাঁদাবাজির ঘটনার সঙ্গে নিজের জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে সে। তার সাথে জড়িত এ চাঁদাবাজ গ্রুপের সদস্যদের নামের তালিকাও সে দিয়েছে।

আসামীকে আদালতের মাধ্যমে মঙ্গলবার সকালে মেহেরপুর কারাগারে পাঠানো হয়েছে।দ্য রিপোর্ট

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts