September 19, 2018

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে পিছু হঠলো রুয়েট কর্তৃপক্ষ: ৩৩ ক্রেডিট পদ্ধতি বাতিল

pic ruetস্টাফ রিপোর্টার: শিক্ষার্থীদের লাগাতার আন্দোলনে অবশেষে পিছু হঠলো রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট) প্রশাসন। গতকাল শনিবার দুপুর থেকে শুরু করে রাতভর ভিসিসহ ২৫ জন শিক্ষককে ভিসির কার্যালয়ে অবরুদ্ধ করে রাখে শিক্ষার্থীরা। পরে রোববার সকাল পৌনে ১০টা থেকে একাডেমিক কমিটির দীর্ঘ বৈঠক শেষে দুপুর দেড়টায় পরীক্ষার ন্যূনতম ৩৩ ক্রেডিট পদ্ধতি বাতিল এবং পূর্বের নিয়ম বহালের সিদ্ধান্তের কথা জানান সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক ও একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য প্রফেসর ইকবাল মতিন।
রুয়েট সূত্রে জানা যায়, রুয়েটে ১৩ সিরিজের ব্যাচ বা ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষ থেকে পরবর্তী বর্ষে উত্তীর্ণ হওয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের নূন্যতম ৩৩ ক্রেডিট প্রাপ্তি বাধ্যতামূলক করা হয়। ২০১৩-১৪ ও ২০১৪-১৫ এই দুই শিক্ষাবর্ষের মোট ১৬০০ শিক্ষার্থীর মধ্যে প্রায় ১৫০ জন শিক্ষার্থী ৩৩ ক্রেডিট অর্জন করতে না পারায় ইয়ার ড্রপ হয়ে যায়। ফলে গত সপ্তাহের শনিবার থেকে ক্লাস বর্জন করে আন্দোলনে নামে ঐ দুই সিরিজের শিক্ষার্থীরা।
তবে প্রথম থেকেই শিক্ষার্থীদের এই অন্দোলনকে অযৌক্তিক আখ্যায়িত করে প্রশাসন চলমান আন্দোলন বন্ধ করতে গত মঙ্গলবার আন্দোলনরত দুই সিরিজের একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা এবং হল ছাড়ার নির্দেশ দেয়। কিন্তু শিক্ষার্থীরা হলে ছেড়ে মেসে অবস্থান নিয়ে নিজেদের দাবি নিয়ে গতকাল শনিবার সকাল ১০টা থেকে শহীদ মিনারে অবস্থান করে এবং ক্যাম্পাসে মিছিল করে। এসময় প্রায় দুইশতাধিক শিক্ষার্থী  সিরিঞ্জের মাধ্যমে নিজেদের শরীরের রক্ত দিয়ে নিজেদের দাবির কথা লেখে। দুপুর ২টা থেকে শুরু করে রাতভর ভিসির কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিয়ে আন্দোলন করতে থাকে।
তীব্র আন্দোলনের ফলে রোববার দুপুর দেড়টার দিকে অনুষ্ঠানিকভাবে একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য প্রফেসর ইকবাল মতিন শিক্ষার্থীদের সামনে ৩৩ ক্রেডিট পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত এবং পূর্বের নিয়ম বহালের সিদ্ধান্তের কথা জানান। কিন্তু লিখিত সিদ্ধান্তের দাবি করে আন্দোলন অব্যাহত রেখেছে শিক্ষার্থীরা। এদিকে প্রশাসনের সাথে কথা বলতে ভিসির কার্যলয়ে ঢুকেছে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন ও সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার।

Related posts