September 25, 2018

‘শফিক-শওকত-মাহমুদুর মুক্তি পরিষদ’ গঠিত নিউইয়র্কে

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বিশেষ সংবাদদাতাঃশফিক রেহমান, শওকত মাহমুদ এবং মাহমুদুর রহমানের অবিলম্বে নি:শর্তে মুক্তি না দিলে প্রবাস থেকে দুর্বার আন্দোলন শুরুর হুমকি দিল নবগঠিত ‘শফিক-শওকত-মাহমুদুর মুক্তি পরিষদ।’ ওয়াশিংটনে বাংলাদেশ দূতাবাস, নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দফতরের সামনে বিক্ষোভ করার হুমকিও দেয়া হলো সাংবাদিকদের মুক্তি দাবিতে। একইসাথে মার্কিন কংগ্রেসসহ আন্তর্জাতিক সংস্থায় স্মারকলিপি প্রদানের কর্মসূচিও ঘোষণা করা হলো।

২৩ এপ্রিল শনিবার রাতে (বাংলাদেশ সময় রোববার সকালে) নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে একটি রেস্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলন থেকে সাংবাদিক শফিক রেহমান, শওকত মাহমুদ এবং দৈনিক দেশ পত্রিকার সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে আটক রাখার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়। অভিযোগ করা হয় যে, ক্ষমতাসীন সরকার নিজেদের অপকর্ম আর দু:শাসন ঢেকে রাখার অভিপ্রায়ে সাহসি সাংবাদিকদের আটক করছে। শফিক রেহমানে বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে তার কোন ভিত্তি নেই বলেও দাবি করা হয় সংবাদ সম্মেলন থেকে।
লিখিত বক্তব্যে ‘শফিক-শওকত-মাহমুদুর মুক্তি পরিষদ’র আহবায়ক এবং বিএনপি নেতা পারভেজ সাজ্জাদ অভিযোগ করেন, ‘বাংলাদেশে এখন এক ত্রুান্তিকাল বিরাজ করছে।

গণতন্ত্রের আবর্তে দেশে চলছে স্বৈরশাসন। স্বাধীন দেশ যেন আজ পরাধীনতার শিকলে আবদ্ধ। দেশে সাধারণ মানুষ থেকে আরম্ভ করে, সাংবাদিক, সুশীল সমাজ কেউ নিরাপদ নয়। সাংবাদিকরা সমাজের দর্পন। জাতির বিবেক। প্রতিদিন সংবাদ পিপাসু মানুষের দ্বারে নতুন নতুন খবর নিয়ে হাজির হয় সাংবাদিকরা। তাদের লেখনি বা সংবাদ উপস্থাপনের মাধ্যমে সকালে চায়ের কাপে ঝড় থেকে শুরু করে মানুষ সুফল পেতে শুরু করে। নির্যাতিত মানুষ শেষ আশ্রয়স্থল হিসাবে সাংবাদিকদের দারস্থ হয়। আর সাংবাদিকরা জাতির সামনে তুলে ধরে সুবিধা বঞ্চিত মানুষের সুখ, দুঃখ, হাসি, কান্না, সাফল্য ব্যর্থতার কথা। কিন্তু সেই সাংবাদিক যখন নির্যাতিত হয় তখন সাধারণ মানুষ কোথায় যাবে?’

লিখিত বক্তব্যে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, ‘প্রবীণ সাংবাদিক শফিক রেহমানকে গ্রেপ্তারে প্রমাণ করে, দেশে গণমাধ্যমের উপর ফ্যাসিবাদের নগ্ন থাবা বিস্তার করেছে আওয়ামী সরকার। যারাই সরকারের দেশ ও গণতন্ত্র বিরোধী ষড়যন্ত্র নিয়ে কথা বলছে তাদের উপরই নেমে এসেছে জুলুম নির্যাতন। শফিক রেহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে একটি হাস্যকর মামলায় জড়িয়ে। রিমান্ডের নামে নির্যাতন করা হচ্ছে। সাংবাদিক নির্যাতনে সরকার অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করেছে।’
সংবাদ সম্মেলনে ‘শফিক-শওকত-মাহমুদুর মুক্তি পরিষদ’র সদস্য-সচিব আব্দুল খালেক বলেন, ‘শফিক রেহমানসহ অন্যসকল সাংবাদিককে মুক্তির জন্যে আমরা জাতিসংঘ, স্টেট ডিপার্টমেন্ট এবং মার্কিন কংগ্রেসে লবিং করবো। আন্তর্জাতিক মহলকে অবহিত করবো ক্ষমতাসীন সরকারের অপকর্মের ধারাবিবরণী।’

সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেতৃবৃন্দের মধ্যে ছিলেন মজিবর রহমান মজুমদার, জাকির এইচ চৌধুরী, আবুল কাশেম, জামাল আহমেদ জনি, ফারুক মজুমদার প্রমুখ।

প্রসঙ্গত: উল্লেখ্য যে, শফিক রেহমানকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে তার মুক্তি দাবিতে এর আগে নিউইয়র্কে আরো ৩টি সভা হয়েছে।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন ডেরি/২৫ এপ্রিল ২০১৬

Related posts