September 25, 2018

লেবাননে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বর্ণিল আয়োজনে হোলি উৎসব উদযাপন

Untitled-1

বাবু সাহা,লেবাননঃ রঙের ছোঁয়ায় ভাসতে হোলি উৎসবের চেয়ে এগিয়ে কোন উৎসব রয়েছে— এমন প্রশ্নের উত্তর হুট করে দেওয়াটা কঠিন। কারণ রং বাহারি উৎসবের কথা উঠলে হোলির কথা সামনের দিকেই বলতে হয়। হোলি বা দোলযাত্রা হিন্দু বৈষ্ণব উৎসব।

লেবাননে প্রবাসী সনাতন সেবা কল্যান সংঘ আয়োজিত হোলি উৎসব উদযাপন করতে প্রথম বারের মত পরিবার সহ এসেছিলেন বৈরুতে জাতিসংঘের অধীনে কর্মরত বিধান লস্কর।খুব অল্প দিনের পরিচয়ে আমরা সবাই উনাকে “দাদা” বলেই সম্বোধন করি।উনি ২০১২ সাল থেকে লেবাননে আছেন।লেবাননে থাকলেও দাদা দীর্ঘ ৪ বছর কর্মরত ছিলেন লেবাননের দক্ষিণ প্রান্তের শহর শুরে।বর্তমানে তিন মাস যাবত উনি বৈরুতে কর্মরত আছেন।হোলি উৎসবে অংশগ্রহন করে উনি বলেন, আমি অনেক বছর লেবাননে থাকলেও আমি জানতাম না এখানে প্রবাসী বাংলাদেশী হিন্দুরা অতি উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্যে তাদের ধর্মীয় উৎসব গুলো পালন করে।প্রবাসে প্রবাসী সনাতন ধর্মের অনুসারীরা যে সুন্দর ও সুশৃঙ্খল ভাবে এই হোলি উৎসব উদযাপন করছে, আমি নিজের চোখে না দেখলে বিশ্বাসই করতে পারতাম না।আমি সত্যিই আনন্দিত ও গর্বিত এরকম একটি ধর্মীয় অনুষ্টানে পরিবার সহ উপস্থিত হতে পেরে।পরে তিনি অনুষ্ঠানে উপস্থিত সবার সাথে কুশল বিনিময় করে সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

লেবাননের দাওড়ায় নিউ ইন্দো-লংকা স্টোরে ১২ই মার্চ রোববার আন্তরিক ও সৌহার্দ্যপূর্ণ আচরণের মধ্য দিয়ে একে অপরকে নানা রঙের আবীরে রাঙিয়ে পালন করা হয় দোলযাত্রা বা হোলি উৎসব। এই উৎসবের আয়োজন করে প্রবাসী সনাতন সেবা কল্যান সংঘ লেবানন।

Untitled-2

সংগঠনটির প্রধান আহব্বায়ক বাবু সন্তোষ ভৌমিক এর পরিচালনায় পূজা অর্চ্চনা করেন শ্রী গৌরাঙ্গ বৈষ্ণব।দোল উৎসবে বিশেষ আয়োজনের মধ্যে ছিল কীর্তন, ভোগ আরতি ও প্রসাদ বিতরন।কীর্তন পরিবেশন করেন প্রবাসী সনাতন সেবা কল্যান সংঘের ভক্তবৃন্দরা।

উপস্থিত ছিলেন, লেবানন ইসকন এর প্রতিনিধি শ্রী প্রেমাধান দাস ও শ্রী মধুকরন, আমরা সনাতনী ও  প্রবাসী সংগঠনের সকল ভক্তবৃন্দ, প্রবাসী সনাতন সেবা কল্যান সংঘ এর সদস্য প্রশান্ত পাল বিমল কর্মকার, রিপন দেবনাথ, অশ্বিনী দাস, নিতাই সাহা, গণেশ মজুমদার, রনজিৎ পাল, বিষ্ণুযানা, বিপ্লব ভক্ত, শোধন সূত্রধর, খোকন, দুলাল ভূঁইয়া, নয়ন কর্মকার, বাবু সাহা, পলাশ দেবনাথ, রকি সাহা্, মেট্রো সুপার সপ এর সকল ভক্তবৃন্দ সহ আরো অনেকে।এদিন সাপ্তাহিক ছুটি থাকায় দোল পূর্ণিমায় প্রচুর ভক্তবৃন্দের সমাগম ঘটেছিল।সবশেষে উপস্থিত সকলের মাঝে প্রসাদ বিতরন করা হয়।

Related posts