November 18, 2018

লেবাননে আঃ লীগের বিজয় উৎসবে প্রবাসীদের ঢল

untitled-1

বাবু সাহা, লেবাননঃ মহান বিজয় দিবস উদযাপন করেছে লেবাননের আওয়ামী লীগ।বৈরুতের আইন-আল রোমানি এলাকায় ‘‘কলেজ ফেরে’’ অডিটোরিয়ামে ১লা জানুয়ারী রবিবার বিকাল ৩.০০ ঘটিকায় অনুষ্ঠিত হয় সংগঠনটির আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।  মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস নতুন প্রজন্মের সামনে তুলে ধরে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে প্রবাসে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে সম্প্রতি এ বিজয় দিবস উদযাপন করে লেবানন আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটি।

সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বাবুল মুন্সী’র সভাপতিত্বে ও সহ-সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন রাব্বানী’র পরিচালনায় এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।অনুষ্টানে প্রধান অতিথি ছিলেন, বাংলাদেশ দূতাবাসের মান্যবর রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার ও বিশেষ অতিথি ছিলেন, দূতাবাসের প্রথম সচিব ও দূতালয় প্রধান সায়েম আহম্মেদ।

পবিত্র কোরাণ তেলওয়াত ও সম্মিলিত কণ্ঠে জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু করা হয়। এসময় মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন এবং তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও মোনাজাত করা হয়।

অনুষ্টানে বিশেষ অতিথি ছিলেন লেবানন আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির প্রধান উপদেষ্টা মোঃ গাউস মিয়া, উপদেষ্টা আসফাক তালুকদার, প্রতিষ্টাতা সদস্য ইসমাইল চৌঃ আকরাম, গ্রীস আঃলীগ উপদেষ্টা হাজী আলাউদ্দিন, সিনিয়র সহ-সভাপতি ইস্কান্দর আলী মোল্লা, সহ-সভাপতি মোঃ সারোয়ার হোসেন, জুলহাস মিয়া, শেখ ফরিদ, বিপ্লব মিয়া, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মোঃ লোকমান হুসেন, আইন-আল রোমানি শাখা কমিটির সভাপতি কাউসার আলম জনি, সাংগঠনিক সম্পাদক ইব্রাহিম খাঁন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আজহারুল ইসলাম জাকির, কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মোকাদ্দেস মিয়া, প্রমুখ।সার্বিক দায়িত্বে ছিলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটি, লেবানন এর সাধারন সম্পাদক বাবু তপন ভৌমিক।

aq

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গমাতা, জাতীয় চার নেতা ও শহীদ বুদ্ধিজীবীসহ ৩০ লক্ষ শহীদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে বক্তারা বিজয় দিবসের আলোচনা পর্বে অংশ নিয়ে বলেন,আমরা যারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করি, জাতির পিতার কন্যার হাতধরে আমরা যে গণতন্ত্র পেয়েছি, সেই গণতন্ত্রের ধারা অব্যাহত রাখতে হবে। এটাই হোক আমাদের বিজয় দিবসের মূল লক্ষ্য।মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রত্যেক বাঙালীর হৃদয়ে বঙ্গবন্ধুর নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে আজীবন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে আগামীর তরুণ প্রজন্ম বাংলাদেশকে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যাবে। এই বিজয় কুড়িয়ে পাওয়া নয়, কারো উপহার দেওয়া নয়। এক সাগর রক্ত ও লাখো প্রাণের বিনিময়ে অর্জিত।

সংগঠনটির বিভিন্ন শাখা কমিটি থেকে আরো বক্তব্য রাখেন, আনোয়ার চৌকদার, মোঃ জবরুল হোসেন, সুজাত মিয়া, মোঃ ইয়াছিন, রানা ভূঁইয়া, সিরাজুল ইসলাম, মহসিন মৃধা, রুবেল হোসেন ও ইমতিয়াজ মজুমদার।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত প্রবাসী বাংলাদেশীদের বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, দেশে যাওয়ার জন্য যে সব প্রবাসীরা নিজ ইচ্ছেমত দূতাবাসের স্বাক্ষর কার্যক্রমে অংশ নিয়েছেন, তাদের অধিকাংশই এখন লেবাননের জেনারেল সিকিউরিটির ছাড়পত্র পাওয়া সত্বেও দেশে যেতে ইচ্ছুক না।এইসব প্রবাসীরা যতদিন দেশে না যাবে, ততদিন পর্যন্ত জেনারেল সিকিউরিটি নতুন কোন ছাড়পত্র ইস্যু করবে না বলে দূতাবাসকে সাফ জানিয়ে দিয়েছে।দূতাবাস তাদের সাথে একাধিবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও বিফল হয়েছে।যার দরুন দূতাবাস দ্বারা প্রবাসী বাংলাদেশীদের দেশে যাওয়ার কর্মসূচী মারাত্মক ভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে।ছাড়পত্র পাওয়া সেই সব প্রবাসীদের খোঁজে বের করতে বা তাদের সম্বন্ধে যে কোন তথ্য দিয়ে দূতাবাসকে সাহা্য্য করতে প্রবাসী বাংলাদেশী কমিউনিটির প্রতি আহব্বান জানান।তিনি আরো বলেন, হুন্ডিতে নয়-বৈধ পথে দেশে রেমিটেন্স প্রেরণ করুন উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত বলেন, হুন্ডি দেশের অর্থনীতির জন্য ক্ষতিকর এবং দন্ডনীয় অপরাধ, সরকার নিজস্ব অর্থায়নে অনেক মেগা প্রকল্প হাতে নিয়েছে। প্রবাসীদের সহযোগিতায় বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে পা রেখেছে। দেশের উন্নয়নের অংশীদারি হওয়ার জন্য বৈধ পথে রেমিটেন্স প্রেরণের আহ্বান  জানান তিনি।

সবশেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পর্বে লেবাননের স্থানীয় শিল্পী রাজু আহমেদ সংগীত পরিবেশন করে উপস্থিত প্রবাসী বাংলাদেশীদের আনন্দে মাতিয়ে তুলেন।

Related posts