November 13, 2018

রুবেলের নববধূ কি সেই হ্যাপিই?

স্পোর্টস ডেস্কঃ  শনিবার (২১ মে) দেশের সবচাইতে আলোচিত বিষয়টি ছিল ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু। যার প্রভাব পড়েছে ক্রীড়াঙ্গনেও। দিনভর বৃষ্টিতে থমকে ছিল ক্রীড়াঙ্গন। তবে এর মাঝেও হঠাৎ জন্ম নেওয়া ঝড়ের মতোই দেশের ক্রিকেটাঙ্গন নাড়া দিয়েছে একটি সংবাদ; তারকা পেসার রুবেল হোসেনের বিয়ের খবর। দেশের একটি শীর্ষস্থানীয় জাতীয় দৈনিকে এই সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর থেকেই এ নিয়ে হৈ চৈ চারিদিকে। মিডিয়াগুলোর সীমাহীন কৌতুহলের বিষয় তো রয়েছেই; সঙ্গে ভক্তদের মাঝেও সৃষ্টি হয়েছে নানা জল্পনা-কল্পনা। রুবেল সত্যিই বিয়ে করেছেন কিনা, কিংবা বিয়ে করলে পাত্রীটি কে; এ নিয়ে ব্যাপক কৌতুহল ভক্তদের মাঝে। যদিও স্বয়ং রুবেল এই বিষয়ে মুখে কলুপ এঁটে রেখেছেন। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বিয়ের খবরটি তিনি স্বীকার করেননি, আবার অস্বীকারও করেননি। যদিও তার কথায় যেন বিয়ে করার প্রচ্ছন্ন স্বীকারোক্তিও রয়েছে!

এদিকে, রুবেলের বিয়ের খবর চাওড় হওয়ার পর আরও একটি গুঞ্জন দৃঢ় ভিত্তি পেয়েছে এই আলোচনায়। গুঞ্জন উঠেছে, রুবেল যাকে বিয়ে করেছেন তিনি আর কেউ নন; তার সাবেক প্রেমিকা মডেল ও অভিনেত্রী নাজনীন আক্তার হ্যাপি। রুবেল-হ্যাপি বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন, এমনটা শুনলে প্রথমেই যে কেউ বলে উঠতে পারেন, ‘অসম্ভব। এ হতে পারে না।’ তবে এই দু’জনের ব্যক্তিগত জীবনের সাম্প্রতিক পরিবর্তন ও কিছু কিছু কাজের ক্ষেত্রে সাদৃশ্য থাকায় রুবেল-হ্যাপির বিয়ের বিষয়টি অসম্ভব নাও হতে পারে।

এমনটা বলার কারণও রয়েছে। কেননা, বছর দুয়েক আগে তাদের দু’জনের প্রেম-ভালবাসার বিষয়টি নিয়ে কম জল ঘোলা হয়নি। বাংলাদেশের উদীয়মান অভিনেত্রী হ্যাপি দাবি করেছিলেন, রুবেলের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। রুবেল তাকে বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে শারিরীক সম্পর্কও স্থাপন করেছেন। তবে প্রথম থেকেই বিষয়টি অস্বীকার করে আসছিলেন ওই সময়টায় বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের পেস ডিপার্টমেন্টের গুরুত্বপূর্ণ তারকা রুবেল হোসেন। হ্যাপির সমস্ত দাবিকে ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছিলেন তিনি। যদিও তাদের দু’জনের ফোনালাপের অডিও রেকর্ডিং ফাঁস হয়ে গিয়েছিল বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের কল্যাণে।

শেষ অব্দি রুবেল-হ্যাপির বিষটি থানা-পুলিশ-মামলা-মোকাদ্দমা-আদালত অব্দি গড়িয়েছিল। এর রেশ ধরে দু’জনকেই যথেষ্ট ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। ক্যারিয়ারও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। হ্যাপি নিজেকে বিনোদন জগত থেকে গুটিয়ে নিতে বাধ্য হয়েছেন। অন্যদিকে, রুবেল তার খেলোয়াড়ি জীবনে ছন্দ হারিয়েছেন। হ্যাপির করা মামলায় শেষ অব্দি জামিন পেয়ে বর্তমানে ঘরোয়া ক্রিকেট ব্যস্ত থাকলেও রুবেলের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার এখন অনিশ্চয়তায় ভরা। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকেও বাদ পরেছেন তিনি। সব মিলিয়ে রুবেল-হ্যাপির সম্পর্কটা বর্তমানে চরম তিক্ততার হওয়ার কথা।

তবে যে সময়টার কথা বলা হচ্ছে ওই সময় রুবেল-হ্যাপি দু’জনই যেন উদ্দাম জীবনের কাছে নিজেদের সঁপে ছিলেন। তবে বর্তমানে তা অতীত। রুবেল বা হ্যাপির জীবনে এসেছে আমূল পরিবর্তন। দু’জনই এখন নিয়ন্ত্রিত জীবনে ফিরেছেন, দু’জনই এখন বেশি ধর্মপরায়ণ মানুষ।

নাজনীন আক্তার হ্যাপি বর্তমানে এতটাই পাল্টেছেন যে ধর্ম-কর্ম করেই সময় কাটছে তার। পুরোপুরি পর্দানুশীল এক নারীতে পরিণত হয়েছেন তিনি। তার ফেসবুক পেজ থেকে সব ধরনের পুরুষকে আনফ্রেন্ড করেছেন। ফ্রেন্ড লিস্টে যারা রয়েছেন তারা সবাই নারী। ফেসবুকের ওই আইডিতে নিজের একটি ছবিও পোস্ট করেননি তিনি। ছবি বা স্ট্যাটাস যা দেন এর সবই ইসলাম ধর্ম কেন্দ্রিক। নিয়তিম তাবলীগ জামাতের হয়ে কাজ করছেন হ্যাপি।

এদিকে, রুবেলের পরিবর্তনটা প্রায় একই রকম। ক্রিকেটীয় জীবনের বাইরে বেশ ধর্মে-কর্মে মন দিয়েছেন এই পেসার। তিনি নিজেও জড়িয়েছেন তাবলীগ জামাতের সঙ্গে। সম্প্রতি রাজধানীর বসন্ধুরা মাদ্রাসায় তাবলীগ জামাতের কাজে অংশ নিতেও দেখা গেছে তাকে। যেখানে রুবেলের সঙ্গে ছিলেন দেশের চলচ্চিত্র অঙ্গনের আরেক তারকা মিশা সওদাগর। নিজের ভরিফাইড ফেসবুক পেজে নিয়মিত স্ট্যাটাস না দিলেও শুক্রবারের দিনগুলোতে একটি স্ট্যাটাস ঠিকই দেন রুবেল। তা হলো, ‘সবাইকে জুম্মা মোবারক।’

দু’জনের এই একইভাবে বদলে যাওয়ার বিষয়টিই রুবেল-হ্যাপির বিয়ে নিয়ে জল্পনার জন্ম দিয়েছে। যারা এটা বিশ্বাস করছেন তাদের যুক্তি, ভুল সবাই করে। আবার সেই ভুল বুঝতে পেরে নিজেদের শুধরেও নেয় রুবেল ও হ্যাপি। অতীত তিক্ততা ভুলে তারা এখন সুখী হওয়ার চেষ্টা করছেন। দু’জনেই এখন ধর্মীয় অনুশাসনের মধ্যে চলার চেষ্টা করছেন। তাই একে অন্যকে ক্ষমাও করতে পেরেছেন তারা। তবে অতীতের সেই লজ্জাকর ঘটনাগুলোর পর বিয়ে করলেও লোক লজ্জা বা নেতিবাচক আলোচনার ভয়ে এই মুহূর্তে তা প্রকাশ করার সাহস পাচ্ছেন না তারা। অবশ্য রুবেলের বিয়ে করা নিয়ে তার কোনো মাথা ব্যথা নেই বলে অভিমত দিয়েছেন হ্যাপী।

যদি সত্যিই বিয়ে করে থাকেন তাহলে হ্যাপিকেই বিয়ে করেছেন রুবেল; এমন ধারণা বা জল্পনা-কল্পনাকে আরও বেশি ভিত্তি দিচ্ছে ফেসবুক পেজে হ্যাপির দেওয়া একটি স্ট্যাটাস। গত ৭ মে রাত পৌনে ১০টার দিকে হঠাৎ করেই একটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন হ্যাপি। এখন অব্দি ফেসবুকে পেজে ওটাই হ্যাপির দেওয়া সর্বশেষ স্ট্যাটাস। যেখানে তিনি লিখেছিলেন, ‘গেটিং ম্যারিড…ইনশাল্লাহ’; অর্থ্যাৎ মহান আল্লাহতায়ালার ইচ্ছেয় শিগগির বিয়ে করতে যাচ্ছি।

হ্যাপির ওই স্ট্যাটাস দেওয়ার ১৪ দিনের মাথায় এল রুবেলের বিয়ের খবর। বিষয়টি কি নিছক কাকতলীয় নাকি জল্পনা-কল্পনাটাই সত্য? দু’জনই এই বিষয়ে চুপ থাকায় উত্তর সময়ের গর্ভেই লুকিয়ে থাকছে আপাতত।দ্য রিপোর্ট

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন ডেরি/২১ মে ২০১৬

Related posts