November 17, 2018

রংপুর বিভাগে সাড়ে ৫ হাজার রাজাকারের তালিকা চুড়ান্ত

razakarতোফায়েল হোসেন জাকির, গাইবান্ধা (রংপুর) থেকে: রংপুর বিভাগের ৫ জেলায় ৫ হাজার ৬শ’ ৬৬ জন রাজাকারের তালিকা চূড়ান্ত করা হয়েছে। এ তালিকা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের মাধ্যমে বিভাগীয় প্রশাসনের কার্যালয়ে রয়েছে। যা পরবর্তী নির্দেশের অপেক্ষায়। এদিকে রাজাকারের জনসম্মুখে প্রকাশ করে তাদের দ্রুত বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে বিভিন্ন মহল।

রংপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, রংপুর, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, নীলফামারী ও গাইবান্ধা জেলায় রাজাকারের চূড়ান্ত তালিকা হয়েছে। আনুষ্ঠানিকভাবে এ তালিকা প্রত্যেক জেলা প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে জেলা কমান্ড থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, চূড়ান্ত তালিকায় কোনো রাজাকারের নাম বাদ পড়লে পরে তাদের তালিকাভুক্ত করা হবে।

সূত্র মতে রংপুর জেলা:razakar

জেলার আট উপজেলায় ১ হাজার ১৫ রাজাকারের নাম তালিকাভুক্ত হয়েছে। এর মধ্যে বদরগঞ্জে ৩শ ৫ জন, সদরে ১শ ৮৪, কাউনিয়ায় ৭৯, মিঠাপুকুরে ১শ ৩৪, পীরগঞ্জে ১শ ৫০, গঙ্গাচড়ায় ৩৩ ও পীরগাছায় ১শ ২৯ জন রয়েছে। নীলফামারীতে রাজাকারের সংখ্যা এক হাজার ৪শ ৯৩ জন। এর মধ্যে সদরে ৩শ ২৯ জন, জলঢাকায় ৩শ ১২, কিশোরগঞ্জে ১শ ৫১, ডোমারে ২শ ৫৯, ডিমলায় ২শ ৩৯ ও সৈয়দপুরে ২শ ২৩ জন রয়েছে।

লালমনিরহাট:

জেলার তিন উপজেলায়  ৬শ ৮১ রাজাকারের নাম চূড়ান্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে সদরে ৩শ ২৫ জন, কালীগঞ্জে ২শ ৫৪, হাতীবান্ধায় ১শ ০২ জন রয়েছে।

কুড়িগ্রাম:

জেলার চার উপজেলায় ১ হাজার ৪শ ২২ রাজাকারের নাম তালিকাভুক্ত হয়েছে। এর মধ্যে কুড়িগ্রাম সদরে ৩শ ৭৯ জন, উলিপুরে ৩শ ৫২, চিলমারীতে ২শ ৮৭ ও নাগেশ্বরীতে ৪শ ৪ জন রয়েছে।

গাইবান্ধা:

জেলার সাত উপজেলায় ১ হাজার ৫৫ রাজাকারের নামের তালিকা করা হয়েছে। এর মধ্যে সদরে ৮৮ জন, সুন্দরগঞ্জে ৭০, সাদুল্যাপুরে ২শ ১১, পলাশবাড়ীতে ১শ ৫২, গোবিন্দগঞ্জে ৩শ, সাঘাটায় ৬৩ ও ফুলছড়িতে ১শ ৭১ জন রয়েছে।

‍আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান রংপুর জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান বাবলু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাজি মারুফ, মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ইসমাইল হোসেন সাজুর দাবি, রাজাকারদের তালিকা প্রকাশ করে তাদের দ্রুতবিচারের আওতায় এনে দেশকে কলঙ্কমুক্ত করা হোক।

রংপুর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মোসাদ্দেক হোসেন বাবলু জানান, ‘বাংলাদেশ রিসার্চ অ্যান্ড পাবলিকেশন্স প্রকাশিত এএসএম শামসুল আরেফিনের গ্রন্থনা ও সম্পাদনায় প্রকাশিত বৃহত্তর রংপুরের রাজাকারের তালিকা গ্রন্থকে অনুসরণ এবং যাচাই করে এ তালিকা প্রণয়ন করা হয়েছে। এ তালিকার প্রতিটি রাজাকারের তথ্যেই সত্য। সেই তালিকা আমরা সরকারের নির্দেশে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে জমা দিয়েছি। পরবর্তী পদক্ষেপ সরকার গ্রহণ করবে।
razakar
এ প্রসঙ্গে রংপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) তানিমা তাসমিন জানান, তালিকা চূড়ান্ত করা হয়েছে। এ তালিকা আমরা বিভাগীয় প্রশাসকের কার্যালয়ে জমা দিয়েছি। সেখান থেকেই সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Related posts