November 16, 2018

যে সব কারনে সৌদি আরব হতাশা বাড়ছে প্রবাসীদের

06 Apr, 2016, মধ্যপ্রাচ্য ডেস্কঃঃ বাকালা বা ক্ষুদ্র ব্যবসা (বাকালা) বন্ধ করার জন্য সৌদি আরবের সুরা কমিটির এক সদস্যের সুপারিশের পর সে দেশে প্রবাসী জনগোষ্ঠীর মধ্যে চরম হতাশা শুরু হয়েছে। অন্যদিকে যারা সৌদি আরবের যারা এই প্রস্তাবের পক্ষে তারা যুক্তি দিয়ে বলছেন, এর ফলে সৌদি অর্থনীতিতে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। এই ইস্যু নিয়ে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পক্ষের সাথে কথা বলে আরব নিউজ।

মোহাম্মদ আব্দুল রহমান নামে খাদ্য সামগ্রীর পাইকারী ব্যবসায়ী এক সৌদি নাগরিক এই প্রস্তাবকে সমর্থন জানিয়ে বলেছেন, ‘এর ফলে সৌদি অর্থনীতি অনেক এগিয়ে যাবে এবং সৌদি নাগরিকদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। এমনকি মুদি দোকান বন্ধ হলে বড় বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো মানসম্পন্ন পন্য এবং সেবা দিতে পারবে’।

অন্যদিকে দেশটির অর্থনৈতিক বিশ্লেষকরাও ঢালাওভাবে প্রস্তাবটিকে সমর্থন করছেন। কিন্তু সবগুলো খাতেই প্রবাসীদের সংশ্লিষ্টতা কমিয়ে আনার জন্য সৌদি সরকারের এসব সিদ্ধান্তে ফলে হতাশ হযে পড়েছেন প্রবাসীরা। এসব সিদ্ধান্তে যারা ক্ষতিগ্রস্ত হবে তাদের সাথেও কথা বলে আরব নিউজ। রিহাব এলাকার হারুন নামের একজন ‍মুদি দোকানদার বলেন,
‘সৌদি আরব কাজের জন্য সব সময় ভালো জায়গা। এখানে যারা অন্য দেশের মানুষ কাজ করে তারা তাদের দেশের চেয়ে বেশি উপার্জন করতে পারে। এই সিদ্ধান্ত নিশ্চিতভাবেই আমাদের উপার্জনের উৎসে আঘাত হানবে এবং নতুন কাজ খুঁজে পাওয়াও কঠিন হয়ে পড়বে’।

১৫ বছর ধরে একটি মুদি দোকানে কাজ করা হামজা নামের বাংলাদেশী একজন শ্রমিক এখন দেশে ফিরে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন। আরব নিউজকে হামজা বলেন,
‘সুরা কাউন্সিল যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তাকে শ্রদ্ধা জানাই। এই দেশ আমাদের আর্থিক সন্তুষ্টি থেকে ভালো জীবনমান পর্যন্ত-অনেক কিছু দিয়েছে। এখন আমার মতো কম যোগ্যতার লোকদের জন্য নতুন একটা কাজ পাওয়া অনেক কঠিন হবে। এটা নি:সন্দেহে হতাশাজনক’।
ক্রেতাদের মধ্যে আবার দ্বিধা আছে এই প্রস্তাবের ব্যাপারে। তাদের কেউ কেউ মনে করেন, ঘরের কাছে এসব মুদি দোকান বন্ধ হয়ে গেলে কোন একটা ছোট পণ্য কিনতেও সুপারমার্কেটে যেতে হবে। এর ফলে সময়ের অনেক অপচয় হবে। আবার মুদি দোকান বন্ধের পক্ষের ক্রেতারা বলছেন, সুপারমার্কেট থেকে ন্যায্য মূল্যে পণ্যসামগ্রী পাওয়া যাবে এবং তারা হোম ডেলিভারিও দেবে। তাই কোন সমস্যা হবে না।

Related posts