November 18, 2018

যান্ত্রিকভাবে তৈরি চালে থাকছে না পুষ্টিমান

439
চাল তৈরি থেকে রান্না পর্যন্ত বিভিন্ন ধাপে কয়েক ধরণের পুষ্টি হারায় চাল। আর দিনের পর দিন এসব চাল খাবার ফলে নানা ধরনের শারীরিক সমস্যায় আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। এজন্য এ পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনার পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকরা।

একসময় ধান থেকে চাল তৈরির প্রধান পদ্ধতি ছিলো ঢেঁকি। সনাতন পদ্ধতিতে তৈরি এসব চালের পুষ্টিগুণও ছিলো পর্যাপ্ত। কিন্তু যান্ত্রিক উপায়ে চাল তৈরি ও তা খাবার উপযোগী করা পর্যন্ত ফলিক এসিড, আয়রণ, ভিটামিন-বি এবং জিংকসহ অন্তত ছয় ধরনের খনিজ পুষ্টিমান হারাচ্ছে চাল।

এজন্য চাল তৈরি ও রান্নার পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনার কথা বলছেন গবেষকরা।

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার সহযোগিতায় সরকার এখন ৫৫ হাজারের বেশি পরিবারে প্রতিমাসে ৩০ কেজি করে পুষ্টি চাল দিচ্ছে বিনামূল্যে। যা উপকারভোগীদের ওপর ফেলেছে ইতিবাচক প্রভাব।

আগামীতে এ সুবিধা আরও বাড়ানোর সরকারি উদ্দ্যোগের কথা জানালেন এই কর্মকর্তা।

উত্তরাঞ্চলের কুড়িগ্রাম ও সিরাজগঞ্জে প্রায় তিন বছর আগে প্রথম চালু করা হয় পুষ্টিচাল প্রকল্প। এখন তা চলছে বগুড়াসহ ১১টি জেলার ২৩টি উপজেলায়।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts