November 14, 2018

ম্যানেজিং কমিটির সদস্য কতৃক চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ!

শামসুজ্জোহা পলাশ
চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ  চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার বাঘাডাঙ্গা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মিলনের (৩২) বিরুদ্ধে ওই বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। সে উপজেলার বাঘাডাঙ্গা গ্রামের গোয়ালপাড়ার আব্দুল মজিদের ছেলে।

এঘটনায় সোমবার রাত ১১ টার দিকে স্থানীয় মন্ডল মাতুব্বদের বিচার সালিশে ৮০ হাজার টাকা মিমাংসা হয়েছে এলাকাবাসী জানিয়েছে।

ধর্ষিতার বাবা জানায়, তার মেয়েকে খেলা করতে যাওয়ার কথা বলে সোমবার দুপুর ২টার দিকে ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মিলন তার ঘরের ভিতরে ডেকে ধর্ষণের চেষ্টা করলে সে চিৎকার করে। চিৎকার শুনে এলাকার আশপাশের লোকজন মিলনকে আটক করতে গেলে সে পালিয়ে যায়।

এলাকাবাসী জানায়, ধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার জন্য মিলন স্থানীয় মন্ডল মাতুব্বদের কাছে ধন্না দিলে সোমবার রাত ১১ টার দিকে স্থানীয় মন্ডল মাতুব্বদ আ: লীগ নেতা,আরশাফ আলী, নাজমুল হক, জুয়েল,সমির সহ বেশ কয়েক জনদের নিয়ে বিচার সালিশে বসে। এ সময় মিলন কে ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করে মিমাংসা করে দেয়। ওই টাকা ১ সপ্তার মধ্যে ৫০ হাজার আর বাকি ৩০ হাজার টাকা ৩ মাস পর দেওয়ার কথা হয়েছে।

এ ঘটনায় মিলনের মোবাইল ফোনে কল করলে তিনি রিসিপ না করে কল কেটে দেন ।
তবে ধর্ষীতার পরিবার টাকা নিয়ে মিমাংশা কথা অস্বীকার করেছে।

চুয়াডাঙ্গার কার্পাসডাঙ্গা পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ পুলিশ উপ-পরিদর্শক জিয়াউল হক জানান, বাঘাডাঙ্গা ছাত্রী ধর্ষণের ব্যাপারটি তার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন ডেরি/১৭ মে ২০১৬

Related posts