September 25, 2018

মোমেনকে পরিচয় করিয়ে দিলেন অর্থমন্ত্রী

ভাই ড. এ কে আবদুল মোমেনকে পরিচয় করিয়ে দিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বললেন, ‘ভাই হিসেবে বলছি না, গেল ৪৫ বছরে জাতিসংঘে আমাদের অবস্থান যতটুকু পাকাপোক্ত হয়েছে তার চেয়ে গেল ৫ বছরেই বেশি হয়েছে। বিশ্বের কাছে বাংলাদেশের অবস্থান সুদৃঢ় হয়েছে। আর সেটি হয়েছে ড. মোমেনের দক্ষতার কারণেই। এখন সে দেশে ফিরে এসেছে। দেশের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কাজ করবে।’ বড় ভাই অর্থমন্ত্রীর বক্তব্য শেষে ড. আবদুল মোমেনও জানালেন, ‘আমি সিলেটের সন্তান। সিলেটেই ফিরে এসেছি। এখন আপনাদের সঙ্গে কাজ করতে চাই।’ গতকাল সিলেটের সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত একপর্যায়ে এভাবেই জাতিসংঘ ফেরত ছোট ভাই ড. একে আবদুল মোমেনকে পরিচয় করিয়ে দেন। প্রশ্ন করা হয়েছিল ড. মোমেন আগামী দিনে সিলেটের রাজনীতিতে নামবেন কিনা। তবে বিষয়টি খোলাসা করেননি অর্থমন্ত্রী। বললেন, ‘প্রধানমন্ত্রী তাকে জাতিসংঘ মিশন থেকে নিয়ে এসেছেন। কেন এনেছেন সেটি জানি না।

প্রধানমন্ত্রী তার সম্পর্কে যা বলেছেন সেটি প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য। প্রধানমন্ত্রীই জানেন এখন তাকে দিয়ে কী করাবেন।’ খোলাসা করলেন না ড. আবদুল মোমেনও। ইতিমধ্যে জাতিসংঘ মিশন থেকে দেশে ফিরেই সিলেটের সঙ্গে সম্পর্ক বাড়ানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছেন তিনি। আর গতকাল মঙ্গলবার যখন তিনি সিলেটে সার্কিট হাউসে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে প্রবেশ করলেন তখন তিনি উপস্থিত সাংবাদিকদের সঙ্গে একে একে হাত মিলিয়ে পরিচিত হন। সিলেটের রাজনীতিতে নামছেন ড. আবদুল মোমেন- সেটি দিন দিন আরও পরিষ্কার হচ্ছে। গতকাল বিকালেও অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত কবি নজরুল অডিটোরিয়ামে আওয়ামী লীগের কর্মিসভায় বক্তব্য রাখেন। সেখানেও সঙ্গে ছিলেন ভাই ড. আবদুল মোমেন। ওই সমাবেশের একপর্যায়ে ড. আবদুল মোমেনকে সবার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন অর্থমন্ত্রী। বলেন, ‘ড. মোমেন দেশে ফিরে এসেছেন। তিনি এখন শেখ হাসিনার সঙ্গে একত্রে দেশের উন্নয়নে কাজ করবেন।’ ওই সমাবেশে ড. মোমেনও বড় ভাই অর্থমন্ত্রী মুহিতের প্রশংসা করেন। তার নেতৃত্ব ও সরকার পরিচালনার ভূয়সী প্রশংসা করেন।

ড. আবদুল মোমেন কয়েক দিন আগে যখন সিলেটে আসেন তখন তাকে নিয়ে দলের হাজার হাজার নেতাকর্মী শোডাউন করেছেন। দুই দিন তিনি বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে ঢাকায় ফিরে যান। গতকাল অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে তিনি ফের সিলেটে আসেন। আর অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সিলেটে যেসব অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন সেখানেও ড. আবদুল মোমেন উপস্থিত ছিলেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। সর্বশেষ গতকাল বিকাল ৩টায় সিলেট সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের কাছে তিনি আনুষ্ঠানিক পরিচয় করিয়ে দেন ড. আবদুল মোমেনকে। এ সময় অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, ‘ড. আবদুল মোমেন জাতিসংঘে বাংলাদেশ মিশনের স্থায়ী প্রতিনিধি ছিলেন। এ কারণে গেল ৫ বছরে তিনি বাংলাদেশকে নিয়ে গেছেন অনন্য উচ্চতায়। তার বলিষ্ঠ ও জোরালো কর্মকাণ্ডের কারণে বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে।’ এদিকে, সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় অর্থমন্ত্রী বলেন, এবার সিলেট সফরে তার অন্য উদ্দেশ্য রয়েছে। এটি হলো প্রতিবারই তিনি এলে তার নির্বাচনী এলাকার গ্রামীণ জনপদে বেশি সময় কাটান। সেভাবে শহরে সময় দেয়া হয় না। এজন্য তিনি সিলেটে কর্মিসভা করলেন।

এক সপ্তাহের মধ্যে পে-স্কেলের গেজেট : আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে পে-স্কেলের গেজেট প্রকাশ করা হবে বলে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। এবং আগামী ১লা জুলাই থেকে সেটি পুরোপুরি কার্যকর হবে বলেও জানান তিনি। এ সময় মন্ত্রী বলেন, সামনের বছরই সিলেটের কেন্দ্রীয় কারাগার স্থানান্তরের প্রক্রিয়া শুরু হবে। কারাগার স্থানান্তরের পর এই স্থানে অনেক কিছুই করা হবে, সেটাকে ‘মহাযুদ্ধ’ আখ্যা দিয়ে মন্ত্রী বলেছেন, এই মহাযুদ্ধটা তাদের হাতেই হবে। গ্যাস সংযোগে নীতিমালা প্রণয়ন না হওয়া পর্যন্ত নতুন করে গ্যাস সংযোগ বন্ধ থাকার কথা বলেন অর্থমন্ত্রী।

আগামী বাজেট ৩ লাখ ৪৫ হাজার কোটি টাকার : আগামী বাজেটের আকার ৩ লাখ ৪৫ হাজার কোটি টাকা হতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। একই সঙ্গে আগামী তিন বছরের মধ্যে দারিদ্র্যের হার ১২ অংকের কোটায় নেমে আসবে বলে জানান মন্ত্রী। মঙ্গলবার দুপুর নগরীর রিকাবীবাজারস্থ কবি নজরুল ইসলাম অডিটরিয়ামে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের কর্মিসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। বিশ্বব্যাংকের হিসাব অনুযায়ী বর্তমানে বাংলাদেশ নিম্ন মধ্য আয়ের দেশ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘২০১৮ সালের জাতিসংঘের বিশেষ কমিটির সভায় বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে স্বীকৃতি পাবে বলে আমাদের ধারণা। এ সময় মধ্য আয়ের দেশে পরিণত হলে ২০২১ সালের মধ্যে আমদানি ও রপ্তানিসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে যেসব সাহায্য-সহযোগিতা পাই সেগুলো কমে আসবে।’

সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগর সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের সভাপতিত্বে ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমানের পরিচানায় সভায় বক্তব্য রাখেন অর্থমন্ত্রীর ছোট ভাই ড. একে মোমেন, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমান, সহ-সভাপতি আশফাক আহমদ, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ প্রমুখ।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts