November 19, 2018

মেয়েদের জন্য কতটা নিরাপদ হলো বাংলা বর্ষবরণ উৎসব?

5680ঢাকা::স্থান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। টিএসসি সংলগ্ন সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ফটকের সামনে তখনো বিকেলের আলো ।

গেটের ভেতরে ও বাইরে হাজার হাজার মানুষ। তার মাঝেই কিছু যুবক নববর্ষের উৎসবে আসা মেয়েদের শরীরে হাত দিতে থাকে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, অনেকের পরনের কাপড় টেনে ছিড়ে দেয়ার ঘটনাও ঘটেছে সেইদিন । মানুষের ব্যাপক ভীড়ের মাঝে হারিয়ে যায় আক্রান্তু মেয়েদের চিৎকার।

ঘটনার পর কয়েকদিন জুড়ে সংবাদমাধ্যমে উঠে আসতে থাকে এ সংক্রান্ত বিভিন্ন ধরনের খবরাখবর।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকাকে ঘিরেই যেহেতু বড় বড় অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়, তাই বিশেষ দিনগুলোতে সেখানেই দেখা যায় হাজারো মানুষের ভিড়। আর ভিড়কেই টার্গেট করে নিপীড়ণকারীরা।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের আরেকটি ফটক চারুকলা ইনস্টিটিউটের উল্টো দিকে ।

সেখানে বিজয় দিবসের একটি অনুষ্ঠানে ভিড়ের মধ্যে নারীদের ওপর হামলা কিভাবে চালানো হয়- সেকথাই বলছিলেন বেসরকারী একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সিলভিয়া ইয়াসমিনতিনি বলেন, “লাখো কণ্ঠে জাতীয় সংগীত গাওয়ার প্রোগ্রাম ছিল। সেখানে ভিড়ের মধ্যে আমাদের ভীষণ ঠাসাঠাসি অবস্থা। সোহরাওয়ার্দীর গ্যেটের সামনে রাস্তায় আমরা। তেমন ভিড় ছিল না। কিন্তু হঠাৎ করে যেন ভিড় তৈরি করা হলো। আমাদের পেছনের একটি মেয়েকে ওরা টার্গেট করে, ওর শরীরে টাচ করছিল। মেয়েটি চিৎকার করে তার বন্ধুদের ডাকছিল। কিন্তু ভিড় আমাদের ঠেলে নিয়ে গেল চারুকলার গ্যেটের দিকে। মেয়েটির শাড়ির আচঁল খুলে গিয়েছিল। সে যেন দম নিতে পারছিল না-এমন অবস্থা”।

কিন্তু ২০১৫ সালে বাংলা নববর্ষ উদযাপন অনুষ্ঠানে মেয়েদের ওপর একের পর এক যৌন হামলাকে নজিরবিহীন বলেছেন অনেকেই। কিন্তু ওই ঘটনার সময় এবং তার পরে পুলিশ প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে তৈরি হয় বিতর্ক। ত্বরিৎ ব্যবস্থা না নেয়ার অভিযোগে সমালোচনা হয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বিরুদ্ধে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এম আমজাদ স্বীকার করেন, সে বছর উদ্যান থেকে বের হওয়ার পথ খোলা ও বন্ধ রাখার কৌশলে তাদের ত্রুটি ছিল। তবে তরিৎ ব্যবস্থা নেয়া হয়নি সেটি তারা মানতে রাজি নন। কিন্তু এই ধরনের প্রকাশ্য যৌন হামলার ঘটনার পর বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় নিরাপত্তার বিষয়ে কতটা আশ্বস্ত করতে পারছেন তারা?

প্রক্টর আমজাদ বলেন, ” আমরা নিরাপত্তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নিচ্ছি । বিকেল ৫টার পর ঢোকার গ্যেট বন্ধ করে দেয়া হবে গতবছরের মত। এছাড়া বিভিন্ন সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবকরা থাকবে। তবে আমরা মনে করি শুধু মেয়েদের বিষয় নয়। এটা আমাদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের ওপর হামলা। সেজন্য মেয়েদেরকেই টার্গেট করা হচ্ছে”।

প্রক্টর বলেন, পুরো ব্ষিয়টি নির্ভর করে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর।

শনাক্ত করেও গ্রেপ্তার নেই

অভিযোগ রয়েছে- ওই ঘটনার পর তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ আক্রান্ত নারীদের সহায়তা দিতে পারেনি।

এমনকি ‘এটি কতিপয় দুষ্টু ছেলের কাজ’ বলে ঘটনাটিকে অনেকটাই মামুলি প্রতিপন্ন করেন পুলিশের দায়িত্বশীল কর্তাব্যক্তিরা।

এ ঘটনায় সমালোচিত হওয়ার পর সিসিটিভি ক্যমেরার ভিডিও ফুটেজ দেখে দোষী বা অভিযুক্ত সন্দেহে কয়েকজনকে ধরিয়ে দিতে বড় অংকের পুরস্কার ঘোষণা করে পুলিশ।

কিন্তু এখনো পর্যন্ত একজন ছাড়া আর কাউকেই আটক করতে পারেনি পুলিশ।

তাহলে কি এ ঘটনায় ব্যর্থ হলো পুলিশ?

ঢাকা মহানগর পুলিশের মুখপাত্র ডেপুটি কমিশনার মাসুদুর রহমান বলেন, শাহবাগ থানায় মামলা হওয়ার পর প্রথমে ডিএমপির গোয়েন্দা বিভাগ তদন্ত করে। তখন সিসিটিভি ফুটেজ দেখে আটজনকে শনাক্ত করা হয়। একজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর তদন্তভার যায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন পিবিআইর হাতে। তারা তদন্ত শেষে একজনকে অভিযুক্ত করে প্রতিবেদন দিয়েছে।

Related posts