September 19, 2018

মুক্তিযুদ্ধবিরোধী আমেরিকা-চীনের সাথে সম্পর্কচ্ছেদ কবে?

আমেরিকা-চীন

আবু ইউসুফ

পাকিস্তানের সাথে সম্পর্কচ্ছেদের শুরু হল বাংলাদেশে। আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর ভীষণ আস্থাভাজন রাজনৈতিক চরিত্র এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সুদর্শন ভিসি অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের অতিউৎসাহে আজ (১৪ ডিসেম্বর) সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয় পাকিস্তানের সাথে সব ধরনের সম্পর্কচ্ছেদ করেছে।

এর মানে, এখন থেকে ওই দেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে দ্বিপক্ষীয় কোনো আদান-প্রদান বা এ ধরনের কোনো সম্পর্কই থাকবে না। তবে এটা নিশ্চিত হওয়া যায়নি যে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চালু থাকা উর্দু সাহিত্য বিভাগের কী হবে? বিভাগটি কি বন্ধ করে দেয়া হবে? কিন্তু এরকম কোনো তথ্য খবরে পাওয়া যাচ্ছে না।

যাই হোক। পাকিস্তানের সাথে ঢাবির সম্পর্কচ্ছেদ দিয়ে শুরু হল। আওয়ামী লীগ নেতারা, এমনকি পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচএম মাহমুদ নিজেও দেশটির সাথে সব ধরনের সম্পর্কচ্ছেদের পক্ষে। ক’দিন আগে জানিয়েছিলেন যে, তার সরকার এটা নিয়ে ভাবছে।

এসবই ভাল লক্ষণ। কিন্তু সাথে যে খারাপ লক্ষণ যে একেবারে নেই তা কিন্তু নয়! ভিসি আরেফিনের নেত্রী শেখ হাসিনার সুপুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের ‘শ্বশুর বাড়ি’ আমেরিকা ছিল ৭১ এর যুদ্ধের মূল নাটের গুরু। তৎকালীন বিশ্বরাজনীতির গুটির চাল হিসেবে রাশিয়ার বিরোধিতা করতে গিয়ে ভারতের বিরুদ্ধে থাকা পাকিস্তানকে সর্বাত্মক সমর্থন দিয়েছিল আমেরিকা। তখনকার একচেটিয়া বিশ্বমোড়লদের সাথে ছিল চীনও। এমনকি শেখ মুজিব নিহত হওয়ার পর পঁচাত্তরের পট পরিবর্তন হলেই কেবল চীন বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয় । তার আগে দেয়নি । তাছাড়া বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতায় ব্যবহৃত পাকিদের সব অস্ত্রই ছিল চীন-আমেরিকায় তৈরি। আমেরিকা ও চীনের সাহসেই পাকিস্তান বাংলাদেশীদের ওপর বর্বরতা চালানোর দুঃসাহস দেখায়।

৭১ এর যুদ্ধে শুধু পাকিস্তানীদের মৌখিক সমর্থন নয়, একেবারে সপ্তম নৌবহর বঙ্গোপসাগরে পাঠিয়ে দিতে চেয়েছিল আমেরিকা!

পাশপাশি স্বাধীনতা কয়েক বছর পর শেখ হাসিনার পিতা শেখ মুজিবকে যারা হত্যা করেছিলেন তাদেরকেও আশ্রয় দিয়েছে এই আমেরিকাই। এখন সেখানে মুজিবের একাধিক হত্যাকারী আশ্রয় নিয়ে আছেন।

আমেরিকার এই যে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধিতার দীর্ঘ ইতিহাস, তা অত্যন্ত নিন্দনীয়। কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে বাবার খুনিদের আশ্রয়দাতা দেশেই নিজের একমাত্র ছেলেকে বিয়ে দিয়েছেন তিনি! নিজে একটু অসুস্থ হলে বা অবকাশ যাপন করতে চাইলে দৌড় মেরে আমেরিকায় চলে যান আওয়ামী ‘জননেত্রী’! উনার পূত্র বছরের ১০ মাস মুক্তিযুদ্ধে বিরোধী দেশটিতে থাকেন! এই বিজয়ের মাসেও আছেন!

হাসিনা পরিবারের স্বাধীনতাবিরোধী আমেরিকা-প্রেমে এত হাবুডুবু খাওয়ার মধ্যে পাকিস্তানের সাথে সম্পর্কচ্ছেদে প্রশ্ন উঠেছে, পাকিদের মূল উৎসাহদাতাদের সাথে সম্পর্কচ্ছেদ হবে কবে?

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts