September 22, 2018

‘মামাতো ভাইয়ের মাধ্যমেই ভুল পথে, চায়ের দোকানে নেয়া হতো ক্লাস’

ঢাকাঃ ‘মামাতো ভাইয়ের মাধ্যমেই ভুল পথে যাত্রা, চায়ের দোকানে আড্ডার মধ্যেই নেয়া হতো ক্লাস’যশোরে আরো এক জঙ্গি আত্মসমর্পণ করেছে। গতকাল রোববার দুপুরে যশোর পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি এসএম মনিরুজ্জামানের উপস্থিতিতে ওই জঙ্গি আত্মসমর্পণ করেন। তার নাম ফখরুল আলম তুষার (২২)। তিনি সদর উপজেলার আরবপুর গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে। তুষার ছিলেন হিযবুত তাহ্রীরের শাবাব (প্রাথমিক) সদস্য। এ নিয়ে এ মাসেই যশোরে মোট ৪ জঙ্গি আত্মসমর্পণ করল এবং তারা ৪ জনই একই এলাকার বাসিন্দা।

জঙ্গি তুষারের আত্মসমর্পণ উপলক্ষে যশোরের পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান দুপুরে তার কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ের আয়োজন করেন। সেখানে ফখরুল ইসলাম তুষার বলেন, দুই বছর আগে শহরের ধর্মতলা এলাকার চায়ের দোকানে আড্ডায় হিযবুত তাহ্রীরের সদস্যদের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। এই পরিচয় ঘটিয়ে দেয় তারই মামাতো ভাই রায়হান আহমেদ। যে (রায়হান) দশদিন আগে (১১ আগস্ট) হিযবুত তাহ্রীর সদস্য হিসেবে যশোর পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করে। তুষার জানায়, ‘মামাতো ভাই রায়হানের মাধ্যমেই সে ভুল পথে চলে যায়। এরপর চায়ের দোকানে আড্ডার মধ্যেই তাদের ক্লাস নেয়া হতো। সেখানেই বুঝিয়ে দেয়া হতো কেন হিযবুত তাহ্রীর করতে হবে।

সদস্য হিসেবে তাদের করণীয় কী।’

তুষার আরো জানায়, দলটির ২-৩ জন সদস্য তাকে ধর্মীয় নানা বিষয় সম্পর্কে তাদের ভাবনার কথা বলত। প্রথম দিকে ধর্মীয় সাধারণ বিষয়বস্তু নিয়েই তার সঙ্গে আলোচনা করা হতো। এরপর ইসলামী আইনকানুন সম্পর্কে তারা তাদের মতো করে ব্যাখ্যা করত। বলত ইসলামিক দৃষ্টিতে দেশ পরিচালিত হচ্ছে না। তাই তারা ইসলামিক আইনে রাষ্ট্র পরিচালনা করতে চায়। তবে একপর্যায়ে আমি বুঝতে পারি, এরা জঙ্গি সংগঠনের সদস্য। আমাকে ভুল বুঝিয়ে ভুল পথে নেয়ার চেষ্টা করছে তারা। বুঝতে পারি দলটিতে যোগ দিয়ে ঠিক করিনি। এরপর থেকে আমি ওই সংগঠন ত্যাগ করার চেষ্টা করে আসছিলাম।

বিরাজমান অবস্থায় সরকার বিপথগামীরা ফিরে আসলে আইনি সহায়তা দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাওয়ার সুযোগ প্রদান করার ঘোষণা দেয়ায় আমি আত্মসমর্পণ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি। বিষয়টি জানালে পরিবারের সদস্যরা প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করে আমার আত্মসমপর্ণের ব্যবস্থা গ্রহণ করে। তারই অংশ হিসেবে আজ আমি আত্মসমর্পণ করেছি।

সংবাদ সম্মেলনে ডিআইজি মনির-উজ-জামান বলেন, ভুল বুঝতে পেরে তুষার স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে চায়। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী যারা স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে চায় আমরা তাদের অপরাধের ধরন বিশ্লেষণ করে আইনি সহায়তা প্রদান করব।

পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান বলেন, যারা বিপথগামী হয়েছে তারা যাতে সুপথে ফিরে আসে আমরা সে জন্য জনসচেতনতা সৃষ্টি করছি। তারই অংশ হিসেবে এ নিয়ে ৪ জঙ্গি আত্মসমর্পণ করলো। এ ভাবে আরো যদি কেউ আত্মসমর্পণ করে তাহলে তাদেরও আইনী সহায়তা দেয়া হবে।

উল্লেখ্য, গত ১১ আগস্ট যশোর পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে ডিআইজি মনির-উজ-জামানের উপস্থিতিতে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হিযবুত তাহ্রীরে তিন সদস্য পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেছিল। সংগঠনটির মোশরেফ ও সাবাব পদবির তিনজন ভুল বুঝতে পেরে আত্মসমর্পণ করে। তারা হলেন যশোর শহরতলির খোলাডাঙ্গা কদমতলা এলাকার মৃত শফিয়ার রহমানের ছেলে সাদ্দাম ইয়াসির সজল (৩২), ধর্মতলা মোড় এলাকার আবদুস সালামের ছেলে রায়হান আহমেদ (২০) ও কদমতলা এলাকার একেএম শারাফত মিয়ার ছেলে মেহেদী হাসান পলাশ (২০)।

Related posts