September 24, 2018

মানুষের মনে মোটেরাম-অরিত্র

85
সুপ্রকাশ চৌধুরী,বর্ধমানঃ  বহু প্রতীক্ষার পর অরিত্র-র নবতম প্রযোজনা ‘মোটেরামের সত্যাগ্রহ’ দলগত অভিনয়ে নাট্যপ্রিয় মানুষজনের মন জয় করে নিয়েছে। পুরাতন দক্ষ অভিনেতা নীলেন্দু সেনগুপ্ত,শিবতোষ বোস,সাধন চন্দ্রের সঙ্গে নিজেদের প্রয়োগ করেছে অনির্বাণ হাজরা,অভিষেক মণ্ডল,সুপ্রকাশ চৌধুরীরা। বাচিক অভিনয় এবং অঙ্গিককে চমৎকার ব্যাবহার করেছেন সুমন্ত রায় এবং নান্টু মণ্ডল। ঢ্যাঁরাদার চরিত্রে নিজের দায়িত্ব যথাযত পালন করেছে বিশু পাল। মোটেরামের স্ত্রী চরিত্রে মৌসুমী মুখোপাধ্যায় দক্ষতার ছাপ রাখে।
84
পার্থ বসু-র সংগীত পরিচালনা ছিল অনবধ্য। পার্থর দুই সাথী প্রশান্ত রায় ও অদিতি বসুও নিজেদের ভালো মেলে ধরে। সল্প সময়ে অল্প পরিসরে সুভাষ চক্রবর্তী এবং শুভ দে নিজেদের মেলে ধরে। অন্যদিকে শিল্পী মনের অনুভুতি নিয়ে পোশাক পরিকল্পনা করেছে অভিষেক মণ্ডল।সংলাপের মধ্যে যে বাস্তবতার ইঙ্গিত ছিল তাকে পূর্ণতা দিতে একই রকম পোশাকের ইঙ্গিতটা প্রয়োজন ছিল। অভিষেক মণ্ডলের পোশাক পরিকল্পনা দর্শকদের মধ্যে আলোচনার বিষয় ছিল।
83
নাটক শুরু হয় দর্শক ও লেখককে  বন্দনা করে।মুলকাহিনিকে সুর ছন্দে সহজ-সরল করেছিল শিবতোষ বোস ও কোরাস শিল্পীরা। আগাগোড়া মসকরা বললেও নাটকে দ্বন্দ্ব ছিল। ভুখা মোটেরামের খাবার খাওয়ার দৃশ্য বেস ভালো লাগে। নাজির শেষ কথা বলে না,বলে জনগন-স্বদেশীর মুখে এই সংলাপের সঙ্গে রবীন্দ্র গান উপযুক্ত। সুতরাং বলাই যায় দীর্ঘদিন পর মঞ্চে ফিরেই বর্ধমানের নাট্য সংসারে অরিত্র এখন আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে।
82
দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts