November 21, 2018

মাদারীপুরে চরম খাদ্য সংকটে ভুগছে বন্য প্রাণী বানর

madaripur-27-10-16-food-crisis-facing-wild-animals-monkey-1বিশেষ প্রতিনিধি: মাদারীপুরের চরমুগরিয়া, কুলপদ্বি, পুরানবাজারসহ আশপাশের এলাকায় প্রচুর বানর থাকলেও দিন দিন তা এখন বিলুপ্তের পথে। তার কারণ বানরের জন্য নেই পর্যাপ্ত পরিমান খাদ্য। madaripur-27-10-16-food-crisis-facing-wild-animals-monkey-04বর্তমানে যে সকল বানর রয়েছে তাদের প্রয়োজনীয় উপকরণ খাদ্য সংকট থাকায় এসব এলকার জন সাধারণকে পোহাতে হচ্ছে চরম ভোগান্তি। তারা এখন বানরের অতিষ্টে অতিষ্ট। তাই এলাকাবাসীর দাবী বান্য প্রানী বানরদের জন্য উপযুক্ত স্থান নির্বাচন করে বানরের সংরক্ষণ অতি জরুরী।madaripur-27-10-16-food-crisis-facing-wild-animals-monkey-02
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, আড়িয়াল খাঁ নদবেষ্টিত মাদারীপুর অঞ্চল এক সময় ঘন বন-জঙ্গলে পূর্ণ ছিল। মাদারীপুরে প্রচুর বনজঙ্গল থাকায় এক সময় বানর বসবাসের সহায়ক পরিবেশ ছিল। এখানকার হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন বানরকে দেবতা মনে করে কলা, মোয়া, মুড়ি, চিঁড়া, বাদাম, বিস্কুট খেতে দিত। এরপর আস্তে আস্তে বানরগুলো পৌরসভার চরমুগরিয়া বন্দরে থাকতে শুরু করে। madaripur-27-10-16-food-crisis-facing-wild-animals-monkey-05এই বানরগুলোর বসবাসের জন্য জেটিসি’র মাঠে একটি অভয়ারণ্য স্থান গড়ে তোলা হয়। কিন্তু সেটিও এখন দখলদারদের কবলে চলে গেছে। বর্তমানে বানরগুলো জেটিসি ও আদমজীর এলাকার পরিত্যক্ত পাট গুদাম, চরমুগরিয়া মহাবিদ্যালয়, আবুবকর সিদ্দিক বিদ্যালয়সহ ইত্যাদি এখানকার প্রায় সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাদেই এরা রাতে মূলত বসবাস করে থাকে।madaripur-27-10-16-food-crisis-facing-wild-animals-monkey-03 সামাজিক বন বিভাগের তত্ত্বাবধানে এ বানরের জন্য খাবার সরবরাহ কর্মসূচি চালু থাকলেও বর্তমানে তা বন্ধ রয়েছে। খাবার সরবরাহ বন্ধ থাকায় বানরেরা লোকালয়ের সাধারণ জনগনের খাবার ছিনিয়ে খেয়ে থাকে। এতে এলাকাবাসীর পোহাতে হয় চরম বিড়ম্বনা। এছাড়াও বানরগুলো বর্তমানে বিভিন্ন বাসা-বাড়িতে হানা দেয়ায় অতিষ্ঠ করে তুলছে স্থানীয় বাসিন্দাদের। এমনকি দোকানপাট ও পথচারীর কাছ থেকে খাবার ছিনিয়ে নিচ্ছে বানরগুলো।madaripur-27-10-16-food-crisis-facing-wild-animals-monkey
স্থানীয় ভোলানাথ কুন্ডু বলেন, বানরের কারণে এখানকার বাচ্চা ছেলে-মেয়েদের স্কুলে আসা যাওয়াসহ খেলা ধুলা করতে খুবই সমস্যা হচ্ছে। বানরের ধাওয়াতে বাচ্চারা পড়ে যেয়ে অহত হয়। এছাড়াও বাসা বাড়িতে জামা কাপড় শুকাতে দিলে সেগুলে টেনে নিয়ে চলে যায়। এমনকি খাবার সংকট থাকায় বানরেরা আমাদের বেশি অতিষ্ট করে তুলছে।
madaripur-27-10-16-food-crisis-facing-wild-animals-monkey-08কালকিনি সৈয়দ আবুল হোসেন কলেজের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগ অধ্যাপক ড. বশির আহম্মদ বলেন, চরমুগরিয়া এক সময় অনেক বানর ছিলো। কিন্তু বর্তমানে তা কমছে। প্রাকৃতিক জীব বৈচিত্র রক্ষার জন্য এ বানরগুলোকে আমাদের রক্ষা করতে হবে। বিশেষ করে বন-জঙ্গল উজার হয়ে যাওয়াতে এ বন্য প্রানীগুলো বিভিন্ন সংকটের মধ্যে রয়েছে। এখনে সবচেয়ে বড় সমস্য খাদ্যের অভাব। মাদারীপুরের এই প্রানী কুলকে রক্ষা করার জন্য সরকার, পরিবেশবাদী সংগঠন, সামাজিক সংগঠনগুলোকে এখনি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। তা না হলে চরমুগরিয়ার এ ঐতিহ্যবাহী বানর এক সময় বিলুপ্ত হয়ে যাবে।madaripur-27-10-16-food-crisis-facing-wild-animals-monkey-01
তবে, ভোগান্তির কথা স্বীকার করে জেলার বন কর্মকর্তা দীপক রঞ্জন সাহা জানালেন, বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে, পেলেই সমস্যার সমাধাণ হবে। তবে প্রতি বছরি আমরা জেলা প্রশাসনের সহযোগীতায় বানরের জন্য খাদ্য সরবারহ করে থাকি। এ বছরো আমরা তাই করবো। আশা করছি খাবার দিলেই বানরের অত্মাচার কমে যাবে। madaripur-27-10-16-food-crisis-facing-wild-animals-monkey-07
উল্লেখ্য, গত ২০০৬-০৭ অর্থ বছরে এই বানরের জন্য খাবারের বরাদ্দ ছিল ১২ লাখ টাকা। সেটি এখন কমতে কমতে গত অর্থ বছরে এসে ঠেকেছে ৩ লাখ টাকায়।

অজয় কুন্ডু, মাদারীপুর।

Related posts