September 21, 2018

মাদারীপুরে অনুষ্ঠিত হলো দু’শ বছরের পুরানো দামুদর ঠাকুরের রথযাত্রা

madaripur-11-11-16-rath-yatra-two-hundred-years-old-pic-01অজয় কুন্ডু, বিশেষ প্রতিনিধি: মাদারীপুরে ২দিন ব্যাপি শুরু হল ঐতিহ্যবাহী দামুদর ঠাকুরের রথযাত্রা উৎসব। সদর উপজেলায় চরমুগরিয়া খাদগী পোদ্দার বাড়ির সকল হিন্দু ধর্মালম্বীদের এটি প্রায় ২শ বছরের অধিক পুরানো উৎসব হিসেবে পরিচিত। তারা প্রতি বছর এই দিনে দেশ ও জাতির কল্যানে এ দামুদর ঠাকুরের রথ উৎসব উদযাপন করে থাকে। অনুষ্ঠানে আগমন ঘটে দূর দূরান্তের থেকে আসা ভক্তের সমারহে। অল্প পরিসরে এ অয়োজন হলেও কানায় কানায় ভরে ওঠে এ এলাকার মাঠ ঘাট। কারণ রথযাত্রার মূল অনুষ্ঠানিকতা শুরু হয় এ কুন্ডু বাড়ির মাঠ হতেই।
শুক্রবার বিকালে রথ যাত্রায় প্রভু দামুদরকে স্মরণ করে পূর্জা পার্বন শেষে রাথ টান শুরু হয়। তবে এ অনুষ্ঠান চলবে শনিবারেও। মহাভোগ ও আরতির মধ্যে দিয়ে শেষ হবে দ্বিতীয় দিনের রথ টান। হিন্দু ধর্মালম্বীদের বিশ্বাস অনুসারে যুগ অবতার শ্রী কৃষ্ণের ১০৮টি নামের মধ্যে একটি নাম হল ‘দামুদর’। তাই তার নামনীলা ও মহিমায় ভক্তরা তাকে স্মরণ করে এ অনুষ্ঠানের যাত্রা শুরু করে। তবে এ অনুষ্ঠনটি বাংলাদেশের আর কোথাও হয় না। তাই এ রথ যাত্রাটি দেখতে সকল জেলার থেকেই ভক্তের আগমন ঘটে এখানে। madaripur-11-11-16-rath-yatra-two-hundred-years-old-pic-2
রথযাত্রার আয়োজকরা বলেন, তারা প্রতি বছর এ উৎসবটি আয়োজন করতে চায়। তাই সকলের কাছ থেকে প্রায় ১মাস আগে হতে টাকা তোলা শুরু হয়। বিভিন্ন হিন্দু ব্যবসায়ী ও ভক্তদের দারে দারে গিয়ে আয়োজকেরা টাকা তুলে সকলের সহযোগীতায় এ অনুষ্ঠানটি প্রতি বছরি ছোট পরিসরে হয়ে থাকে। তবে অনুষ্ঠানকে আরও বড় করতে হলে সরকারী সহযোগীতা প্রয়োজন। কিন্তু আমরা সরকার হতে কোন আর্থিক সহযোগীতা পাই না। তাই এ রথ উৎসবকে বড় করতে ও রথযাত্রার মাহাৎ প্রচার করতে পারছি না। এলাকায় সর্বজনীয় মন্দির থাকলেও দামুদর ঠাকুরকে চির স্মরণীর করতে নেই কোন ভিন্ন মন্দির। তাই এলাকার সকল হিন্দু ধর্মালম্বীদের দাবী এ এলাকার রাধা গবিন্দ মন্দিরের পাশে ছোট পরিসরে ভিন্ন মন্দির নির্মান করে দামুদর ঠাকুরকে প্রতিষ্ঠা করা। তাই সকল ভক্তরা সরকারের দিকে বিশেষ অনুরোধ পোষণ করেন। madaripur-11-11-16-rath-yatra-two-hundred-years-old-pic-1
শিবচার থেকে অনুষ্ঠান দেখতে আসা সুদেব চন্দ্র কুন্ডু বলেন, আমি প্রতি বছরি এ ঐতিহ্যবাহী এ রথ যাত্রা উৎসব দেখতে চলে আসি। আমি এখানে বিগত তিন বছর আগে ভগবান দামুদরের কাছে মানদ করেছিলাম যে আমার একটা সুস্থ্য সবল ছেলে সন্তান হলে আমি এখানে এসে এক ছড়া কলা আর ৫০ কেজি চাল ভগবান ও ভক্তের প্রতি দান করবো। আমি তাই এবার এগুলো দিয়ে আমি আমার মানদ পূরণ করতে রথ যাত্রায় পরিবার পরিজন নিয়ে চলে এসেসি। এছাড়াও এলাকার সকলে শ্রেণির লোকের আগমনে ধর্ম বর্ন নির্বেশে এক অসম্প্রদায়িক চেতনায় এ সম্প্রীতি বজিয়ে রাখতে এখানকার এ উৎসবকে সুন্দর এ অন্যন্য পরিবেশে উদযাপন করা হয়ে থাকে।

Related posts