November 21, 2018

মাগুরাকে প্রস্তাবিত ফরিদপুর বিভাগের সাথে যুক্ত করার তীব্র প্রতিবাদ

630
​আব্দুর রহিমঃ  যশোর বিভাগ আন্দোলন পরিষদ ও বৃহত্তর যশোর সমিতি, ঢাকার যৌথ উদ্যোগে বৃহত্তর যশোর ভবনে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে প্রস্তাবিত ফরিদপুর বিভাগের সাথে মাগুরাকে যুক্ত করার ষড়যন্ত্রের তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয়েছে।

সেখানে দীর্ঘ পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে বলা হয়, বৃহত্তর যশোর তথা মাগুরা, নড়াইল, ঝিনাইদহ ও যশোরকে নিয়ে একটি পৃথক বিভাগ ঘোষণার দাবি নিয়ে যখন আন্দোলন চলছে, সে সময় মাগুরাকে ফরিদপুর বিভাগের সাথে সংযুক্ত করার অপচেষ্টা একটি নতুন ষড়যন্ত্র ছাড়া আর কিছুই না। বৃহত্তর যশোরের কোটি মানুষ চেয়ে আছে কখন বৃহত্তর যশোরকে নিয়ে একটি আলাদা বিভাগ করা হবে। কিন্তু সে দাবি যেন পুরণ না হয় সে লক্ষ্যে কিছু ব্যক্তি সরকারপ্রধানকে ভুল বুঝিয়ে এই পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে বলে বক্তারা দাবি করেন। ইতোমধ্যে জানা গেছে মাগুরার লক্ষ লক্ষ মানুষ ফরিদপুর বিভাগের সাথে যেতে চাই না, কারণ তাদের পৃথক পরিচয় আছে। বৃহত্তর যশোরের সাথে মাগুরার ভাষা, সাস্কৃতিসহ সকল দিক দিয়ে মিল রয়েছে। এই ঐতিহ্য কয়েকশত বছরের।

একটি পৃথক জেলা হওয়া সত্বেও এখনও মাগুরাবাসী যশোরের মানুষ বলে পরিচয় দেয়। অন্যদিকে ফরিদপুরের সাথে মাগুরার এই সম্পর্ক অনেক দুরের। মাগুরার সাথে যশোরের সহজ যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে, সড়ক পথে যাতায়াত করতে ১ ঘন্টারও কম সময় প্রয়োজন হয়। তাই মাগুরাকে ফরিদপুর বিভাগের সাথে যুক্ত করার নতুন এই তৎপরতা মাগুরাবাসী কিছুতেই মানবে না। অবিলম্বে এই তৎপরতা বন্ধ করে বৃহত্তর যশোরকে নিয়ে যশোর বিভাগ করার দাবি জানানো হয় প্রতিবাদ সভায়, একই সাথে এই ধরনের তৎপরতা অব্যাহত থাকলে মাগুরাবাসীর পক্ষ থেকে জোর আন্দোলন গড়ে তোলার কথা বলা হয়। আগামী ৯ ফেব্রুয়ারির মধ্যে এই তৎপরতা বন্ধ না করলে ১০ ফেব্রুয়ারি ঢাকা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করার বিষয়ে উপস্থিত সকলেই একমত পোষন করেন।

বৃহত্তর যশোরবাসীকে যশোর বিভাগ আন্দোলনের সাথে যুক্ত হয়ে সোচ্চার কন্ঠে আওয়াজ তোলার জন্য আহবান জানানো হয়েছে।

বৈঠকে বক্তব্য রাখেন বৃহত্তর যশোর সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাজী রফিকুল ইসলাম, যশোর বিভাগ আন্দোলন পরিষদ, ঢাকা-এর আহবায়ক ইঞ্জি. আব্দুস সাত্তার, সদস্য সচিব হাসানূজ্জামান বিপুল, ন্যাপের কেন্দ্রিয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও যশোর বিভাগ আন্দোলন পরিষদ, যশোর-এর আহবায়ক এ্যাড. এনামুল হক, লায়ন্স ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল হাবিব ফিরোজ, যশোর ইনফো ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন সিদ্দিকী, বৃহত্তর যশোর ওয়েবসাইট কমিটির সভাপতি ভবোতোষ মুখার্জী সুবীর, বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ অধ্যাপক হাসান আব্দুল কাইয়ুম, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের সহকারি এ্যাটর্নি জেনারেল এ্যাড. মিয়া সিরাজুল ইসলাম, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ সৈলন্দ্র নাথ সাহা, জামাল উদ্দিন আহমেদ, মোজাফর এইচ. জেয়ারদার, মুহা. আকতারুজ্জামান, নাসিরুল ইসলাম নাসির, হাবিবুর রহমান, মোঃ জাকির হোসেন, মেহেদী আল মামুন, তৌহিদ আহম্মেদ পিন্টু, মনিরুল ইসলাম মুন্না প্রমুখ।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts