November 21, 2018

ভিখারিনীর ট্র্যাঙ্কে ২ কোটি রুপি, অতঃপর……।

বিজয় দাসঃ মৃত্যুর পর ভিখারিনীর ট্র্যাঙ্কে পাওয়া গেল ২ কোটি রুপির ব্যাংক হিসাবের কাগজপত্র। বিভিন্ন ব্যাংকে ফিক্সড ডিপোজিট করে রাখা এ বিপুল অর্থের প্রকৃত উত্তরাধিকারী খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না!

ভারতের রাজস্থানের আজমিরে নালা বাজার এলাকায় একটি মন্দির চত্বরে ভাঙা বাড়িতে থাকতেন ভিখারিনী কনকলতা। তার সঙ্গে থাকতেন স্বামী প্রেম নারায়ণ। গত বছর প্রেম নারায়ণ মারা গেছেন। দীর্ঘদিন তারা নালা বাজারে বসবাস করতেন। তারা ছিলেন নিঃসন্তান।

দুই দিন আগে মারা গেছেন ৭০ বছর বয়সি কনকলতা। কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে প্রতিবেশীরা মন্দিরের পুরোহিতকে সঙ্গে নিয়ে দরজা ভেঙে তার ঘরে ঢুকে দেখেন কনকলতার নিথর দেহ পড়ে আছে। তার ঘরের অবস্থা এতটা খারাপ ছিল যে, কোনোভাবে বোঝার উপায় নেই, তার ঘরেই আছে ২ কোটি রুপি সঞ্চয়ের কাগজপত্র। প্রতিবেশীরা চাঁদা তুলে তার মৃতদেহ সৎকারের ব্যবস্থা করেন।

পরে পুলিশ তার ঘরে তল্লাশি চালানোর সময় উদ্ধার করে একটি পুরোনো ট্র্যাঙ্ক। ট্র্যাঙ্ক ভাঙতেই বেরিয়ে আসে ব্যাংকে রুপি জমানোর অনেক রশিদ। হিসাব করে দেখা যায়, বিভিন্ন ব্যাংকে কনকলতার নামে ফিক্সড ডিপোজিট আছে ২ কোটি রুপির কিছু বেশি।

ব্যাংকে রুপি জমানোর রশিদ ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পুলিশের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেওয়া হয়েছে। এখন কনকলতার প্রকৃত উত্তরাধিকারী খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে ব্যাংকগুলো।

এরই মধ্যে ছত্তিশগড় থেকে মাঝ বয়সি এক ব্যক্তি এসে দাবি করেছেন, তিনি কনকলতার ভাতিজা। এ অর্থ তিনি বুঝে পেলে তা দিয়ে একটি মন্দির নির্মাণ করবেন। কিন্তু তার দাবি কতটা সঠিক, তা খতিয়ে দেখছে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন ডেরি/২ মে ২০১৬

Related posts