December 14, 2018

ভারত থেকেই নিখোঁজ হন গুলশানের ঘাতক আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে রোহানঃ ভারতীয় পত্রিকা

ভারত থেকেই নিখোঁজ হয়েছিল আওয়ামি লিগ নেতার ছেলে গুলশনে হামলাকারী জঙ্গিদের অন্যতম রোহান ইমতিয়াজ৷ ঢাকায় জঙ্গি হামলার ঘটনা এমনই চাঞ্চল্যকর মোড় নিল৷ প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে ভারতের কোন শহর থেকে তিনি নিখোঁজ হয়েছেন? সূত্রে প্রকাশ, রোহান তা বাবা মায়ের চিকিৎসার জন্য ভারতে এসেছিল৷তারপর তার কোনও খোঁজ মেলেনি৷ বেশিরভাগ বাংলাদেশী নাগরিক চিকিৎসার জন্য কলকাতায় আসেন৷ তাঁরা থাকেন কলকাতার আশেপাশে ও শহরতলির বিভিন্ন এলাকায়৷ তাহলে কি রোহান কলকাতা থেকেই নিরুদ্দেশ হয়েছেন? উঠতে শুরু করেছে এই প্রশ্ন৷ অনেক বাংলাদেশী চিকিৎসা করাতে চেন্নাই ও মুম্বই যান৷ সেখান থেকেই কি নিখোঁজ হয়েছেন রোহান? উঠছে এই প্রশ্ন৷

গুলশনের ঘাতক হিসেবে চিহ্নিত রোহান বাংলাদেশে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামি লিগের গুরুত্বপূর্ণ নেতা ইমতিয়াজ খান বাবুলের ছেলে৷ তিনি ঢাকা মহানগর আওয়ামি লিগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক৷ একইসঙ্গে বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের পদস্থ কর্তা৷ জঙ্গি হিসেবে ছেলের ছবি প্রকাশ হয়ে যাওয়ার বিষয়ে তিনি নীরব৷ অন্যদিকে আওয়ামি লিগেরই অপর গুরুত্বপূর্ণ নেতা মুকুল চৌধুরীর দাবি, আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ নিয়ে তথ্য দেওয়া সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ যে জঙ্গিদের ছবি প্রকাশ করেছে তাদেরই একজন রোহান৷

একটি প্রথম সারির বাংলাদেশি সংবাদ মাধ্যমের দাবি, ভারত থেকে নিখোঁজ হওয়ার পরই ছেলে রোহানের নামে একটি মিসিং ডাইরি করেন ইমতিয়াজ খান বাবুল৷ গত ৪ জানুয়ারি ঢাকার মহম্মদপুর থানায় এই ডাইরি করা হয়েছিল৷ সংবাদ মাধ্যমের দাবি অনুসারে ওই মিসিং ডাইরিতে লেখা আছে, গত বছরের ২৫ ডিসেম্বর চিকিৎসার জন্য সস্ত্রীক ভারতে গিয়েছিলেন ইমতিয়াজ বাবুল। ভারতে থাকার সময় গত ৩০ ডিসেম্বর রোহান বাসা থেকে বেরিয়ে গিয়েছিল৷ আর ফেরেনি৷ পরে দেশে ফিরে রোহানের বন্ধু-বান্ধবের কাছে সন্ধান করেও খোঁজ মেলেনি ছেলে রোহানের৷ শেষে ৪ জানুয়ারি জিডি করেন ইমতিয়াজ খান বাবুল। সেই হিসেব মতো প্রায় ছ মাসের বেশি রোহান নিরুদ্দেশ৷

জানা গিয়েছে, রোহান ইমতিয়াজ ঢাকার ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএর ছাত্র৷ তার মা একটি নামি প্রতিষ্ঠানের অঙ্কের শিক্ষিকা। নিরুদ্দেশ সংক্রান্ত জিডি-তে লেখা রয়েছে, রোহানের উচ্চতা ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি, গায়ের রং ফর্সা, মুখমণ্ডল লম্বাটে, মাথায় ঘনকালো চুল। বাবা ও মার সঙ্গে রোহানের ছবি ও নিহত এক জঙ্গির মুখের মিল ঘিরে জন্ম নিচ্ছে অনেক প্রশ্ন৷

নিহত জঙ্গিদের ছবিতে রোহান নেই৷ এমনই দাবি তার কয়েকজন আত্মীয়ের৷ আবার রোহানের ঘনিষ্ঠ এক আত্মীয়ের দাবি, ভারতে যাওয়া ও নিখোঁজ হওয়ার কয়েকদিন আগে থেকেই সে ধর্মীয় আচরণে বেশি করে জড়িয়ে পড়েছিল৷
কোলকাতা ২৪

Related posts