September 25, 2018

‘ব্রিটেন একটি খ্রিস্টান রাষ্ট্র’

‘ব্রিটেন একটি খ্রিস্টান রাষ্ট্র’-এমন শিক্ষা দেবার জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্দেশনা দিয়েছেন সেদেশের শিক্ষামন্ত্রী নিকি মরগান। ধর্মে বিশ্বাসী নয় এমন প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য একটি নির্দেশনা প্রকাশ করে তিনি গতকাল পরিষ্কার করে বলেছেন যে, ধর্মে অবিশ্বাসীদের মতাদর্শকে সমান মর্যাদা দেবার কোন প্রয়োজন নেই। এটি এমন সময় প্রকাশ করা হল যখন কথিত মানবতাবাদীরা হাইকোর্টের যুগান্তকারী একটি রায় পেয়েছে যাতে দেখা যাচ্ছে যে, শিক্ষামন্ত্রী বেআইনিভাবে স্কুল কারিকুলাম থেকে নাস্তিকতাকে বাদ দিয়েছেন।

শিক্ষামন্ত্রী উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, মানবতাবাদীরা আদালতকে ব্যবহার করে যে শিক্ষা দিতে চাচ্ছেন তাতে প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো শিক্ষার্থীদের নাস্তিক্যবাদ শেখাতে বাধ্য হবে। নতুন নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ধর্ম শিক্ষার ক্ষেত্রে ধর্মীয় ও ধর্ম বিরোধী শিক্ষার জন্য অথবা নাস্তিক্যবাদ শেখানোর জন্য সমান সময় দেবার কোন সুযোগ কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে দেয়া হবে না। তবে, নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ধর্মে বিশ্বাস নেই যাদের তাদের মতামত অন্যান্য পাঠে পড়ানো যেতে পারে। এ নির্দেশনাকে ব্রিটিশ হিউম্যানিস্ট অ্যাসোসিয়েশন ‘সার্থক’ বলে অভিহিত করেছে।

একটি আধুনিক সমাজে ধর্মের অবস্থান শীর্ষক এক তদন্ত রিপোর্টের উপক্রমনিকায় বলা হয়েছে যে, ব্রিটেন এখন আর খ্রিস্টান দেশ নয় এবং তার এ ধরনের আচরণ করা উচিত নয়। যদিও মিসেস মরগান বলেন, ‘সরকার অভিভাবক ও স্থানীয় কমিউনিটির ইচ্ছা অনুযায়ী স্কুলগুলোর নিজস্ব ধর্মীয় শিক্ষার কারিকুলাম প্রণয়নের অধিকার সংরক্ষণে বধ্য পরিকর’।

‘আমি আজ যে নির্দেশনা জারি করেছি তাতে এটা পরিষ্কার করে দিয়েছি, বর্তমানে স্কুলগুলোতে যে ধর্মীয় শিক্ষা দেয়া হচ্ছে আদালতের নতুন রায় সত্ত্বেও তাতে কোন হেরফের হবে না। আমি আরো পরিষ্কার করে দিতে চাই যে, ধর্মে বিশ্বাস নেই এমন স্কুল ও ধর্মে বিশ্বাসী স্কুলগুলো চাইলে ধর্মীয় শিক্ষাকে প্রাধান্য দেবার অধিকার রাখে’বলেন মরগান।

সূত্রঃ দি টেলিগ্রাফ ও স্কাই নিউজ
দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts