December 19, 2018

ব্রাজিলের এগিয়ে যাওয়া আর্জেন্টিনার টিকে থাকার লড়াই

ehgvytfআর্জেন্টিনা ও মেসিকে ছাড়া বিশ্বকাপ অনেকের কাছেই অকল্পনীয়। সর্বশেষ ১৯৭০ বিশ্বকাপে বাছাইপর্ব থেকে বিদায় নিয়েছিল আর্জেন্টিনা। সেই দুঃস্মৃতি এবার ফিরে আসতে পারে ভেবে শংকিত অনেকে। শংকাটা যেমন অমূলক নয়, তেমনি আর্জেন্টিনার পরিস্থিতি খুব মুসূর্ষুও নয়। ১২ ম্যাচে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চম স্থানে রয়েছে তারা। লাতিন আমেরিকা অঞ্চল থেকে ২০১৮ বিশ্বকাপের মূলপর্বে সরাসরি জায়গা পাবে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ চার দল। পঞ্চম দলটিকে খেলতে হবে প্লে-অফ। এখনও ছয়টি করে ম্যাচ বাকি থাকায় সরাসরি মূলপর্বে খেলার ভালো সম্ভাবনা আছে আর্জেন্টিনার। সেই সম্ভাবনাকে বাস্তবে রূপ দিতে আপাতত কঠিন দুটি পরীক্ষায় উত্তরাতে হবে মেসিদের। বড় পরীক্ষা অপেক্ষা করছে ব্রাজিলের জন্যও। দুই লাতিন পরাশক্তিই মাঠে নামবে বাংলাদেশ সময় শুক্রবার ভোরে। নিজেদের আঙিনায় ভোর সাড়ে ৫টায় কোপা চ্যাম্পিয়ন চিলির মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা। আরেকটি হাইভোল্টেজ ম্যাচে ভোর ৫টায় উরুগুয়ের মাঠে নামবে ব্রাজিল। ১২ ম্যাচে ২৭ পয়েন্ট নিয়ে লাতিন আমেরিকা অঞ্চলের শীর্ষে আছে সেলেকাওরা। ২৩ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে থাকা উরুগুয়ের বিপক্ষে জিতলেই বিশ্বকাপের টিকিট একরকম নিশ্চিত হয়ে যাবে ব্রাজিলের। নেইমাররা নামছেন আরও এগিয়ে যাওয়ার মিশনে আর মেসিদের লড়াই টিকে থাকার।চিলি ম্যাচের চারদিন পর জায়ান্টদের ‘মৃত্যুকূপ’ হিসেবে পরিচিত লাপাজে বলিভিয়ার মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা। এই ভেন্যুতে ২০০৫ সালের পর আর জয়ের দেখা পায়নি তারা। তবে আপাতত সব ভুলে ঝাল মেটানোর নীরব সাধনায় ব্যস্ত মেসিরা! টানা দুটি কোপা আমেরিকার ফাইনালে চিলির কাছে হারের ক্ষত এত সহজে শুকানোর নয়। গত জুনেই চিলির ঝাঁজ কাঁদিয়েছিল মেসিকে। এবার সুদে-আসলে তার ঝাল মেটানোর পালা। সেই প্রস্তুতি চলছে একদম নীরবে। গত নভেম্বর থেকেই আর্জেন্টিনার গণমাধ্যমের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ খেলোয়াড়দের। লাভেজ্জির বিরুদ্ধে গাঁজা টানার বানোয়াট খবর প্রচারের প্রতিবাদে মিডিয়া বয়কটের সিদ্ধান্তে এখনও অনড় আছেন মেসিরা। কোচ এদগার্দো বাউজা অবশ্য সেই পথে হাঁটেননি। খেলার স্টাইল নিয়ে না ভেবে তিনি এখন জয়ের মন্ত্র জমছেন, ‘চিলির বিপক্ষে জেতাটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। জয় যেভাবেই আসুক, তাতে কিছু যায়-আসে না।’

২০ পয়েন্ট নিয়ে চিলি আছে চারে। তিনে থাকা ইকুয়েডরের সংগ্রহও সমান ২০ পয়েন্ট। ইকুয়েডর যদি প্যারাগুয়ের মাঠে জয়বঞ্চিত হয়, সেক্ষেত্রে চিলির বিপক্ষে জিতলে এক লাফে তিনে উঠে যাবে আর্জেন্টিনা। আবার চিলির কাছে হারলে ছয়ে নেমে যাওয়ার শংকাও আছে। বুয়েন্স আয়ার্সের রিভার প্লেট স্টেডিয়ামে মেসিরা তাই জয়ের জন্যই ঝাঁপাবেন। ডিফেন্ডার পাবলো জাবালেতা আগেই ছিটকে গেছেন, তরুণ ফরোর্য়াড পাওলো দিবালা লড়ছেন ইনজুরির সঙ্গে। এছাড়া পুরো শক্তির দলই পাচ্ছে আর্জেন্টিনা। অন্যদিকে আর্তুরো ভিদালের অনুপস্থিতিতে চোট নিয়েই চিলির আক্রমণভাগের নেতৃত্বে থাকবেন অ্যালেক্সিস সানচেজ।

চিলি ও বলিভিয়াকে হারাতে পারলে এ যাত্রায় বাউজার চাকরি বেঁচে যাবে। তার অধীনে ছয় ম্যাচে আর্জেন্টিনার জয়, হার ও ড্র দুটি করে। এ ছয় ম্যাচে আট গোল করে সমান আট গোল হজম করেছেন মেসিরা। ঠিক উল্টো চিত্র ব্রাজিল শিবিরে। নতুন কোচ তিতের অধীনে টানা ছয় ম্যাচ জিতে আত্মবিশ্বাসে ফুটছে সেলেকাওরা। কোচকেই সব কৃতিত্ব দিচ্ছেন ব্রাজিলের প্রাণভোমরা নেইমার, ‘আমরা আগেও ভালো দল ছিলাম। পার্থক্য হল আত্মবিশ্বাস। তিতের অধীনে আমাদের আত্মবিশ্বাস অনেক বেড়েছে।’

মন্টেভিডিওতে দুর্বার ব্রাজিলের বিপক্ষে অগ্নিপরীক্ষায় নিজেদের সেরা অস্ত্র লুইস সুয়ারেজকে পাচ্ছে না উরুগুয়ে। সুয়ারেজ নিষিদ্ধ থাকায় বাড়তি দায়িত্ব নিতে হবে এডিনসন কাভানিকে। অন্যদিকে গ্যাব্রিয়েল জেসুস ইনজুরিতে পড়ায় ব্রাজিলের আক্রমণভাগে নেইমারের সঙ্গে ফিরমিনো ও ফিলিপ কুতিনহো খেলবেন। এএফপি/ওয়েবসাইট।

Related posts