November 19, 2018

বেলজিয়ামে আরব আমিরাতের আট রাজকুমারীর কারাদণ্ড

aইউরোপ ::

গৃহকর্মী নির্যাতনের দায়ে বেলজিয়ামে সংযুক্ত আরব আমিরাতের আট রাজকুমারীকে শুক্রবার কারাদণ্ড দিয়েছেন বেলজিয়ামের একটি আদালত। প্রায় এক দশক ধরে তদন্ত ও বিচার চলার পর এ রায় দেওয়া হলো।

এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে এনডিটিভি।

রায়ে রাজকন্যাদের ১৫ মাস করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। দীর্ঘ সময় ধরে বিচার চলাকালে কোনো রাজকুমারীই আদালতে হাজির ছিলেন না।

১০ বছর আগে বেলজিয়ামের ব্রাসেলসে বিলাসবহুল হোটেলে অবস্থানকালে নিজস্ব কাজের মানুষদের  সঙ্গে রূঢ় আচরণ করায় তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বেলজিয়াম কর্তৃপক্ষ।

দণ্ডপ্রাপ্ত আট রাজকুমারী সংযুক্ত আরব আমিরাতের ক্ষমতাসীন আল নাহিয়ান পরিবারের সদস্য। সংশ্লিষ্ট আইনজীবী স্টিফেন মনোদ জানান, ১৫ মাসের কারাদণ্ড দেয়ার পাশাপাশি রাজকুমারীদের জরিমানাও করা হয়েছে।

কী অভিযোগ ছিল তাদের বিরুদ্ধে?
২০০৮ সালে শেখ হামদা আল নাহিয়ান তার সাত কন্যাকে নিয়ে বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে গিয়েছিলেন। সেখানে একটি বিলাসবহুল হোটেলের একটি ফ্লোরের সব রুম ভাড়া নিয়ে তারা আট মাস অবস্থান করেছিলেন।

সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে আসা তাদের লোকলস্করের মধ্যে ২০ জনেরও বেশি গৃহকর্মী ছিল। এসব গৃহকর্মীকে তারা ক্রীতদাসের মতো করে রেখেছিল বলে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

অভিযোগে প্রকাশ, বেলজিয়ামে ভ্রমণে গিয়ে গৃহকর্মীদের সঙ্গে উপযুক্ত মানবিক আচরণ করেননি রাজকন্যারা। তারা তাদের পর্যাপ্ত খাবার দেননি, হোটেল বন্দি করে রেখেছিলেন এবং তাদের পাসপোর্ট-ভিসাও নেওয়া হয়নি।

অভিযোগে বাদী জানিয়েছেন, এসব গৃহকর্মীকে হোটেল থেকে বের হতে দেওয়া হতো না এবং রাজকুমারীদের উচ্ছিষ্ট খাবার খেতে বাধ্য করা হতো। তাদের ঘুমের পর্যাপ্ত সুবিধা ছিল না এবং দীর্ঘ সময় কাজ করতে হত, এসব অভিযোগও রয়েছে। এসব ঘটনায় বেলজিয়ামের শ্রম আইন লঙ্ঘন হয়েছে বলে অভিযোগ উঠে।
একজন গৃহকর্মী অবশ্য তাদের সে প্রায় বন্দিদশা থেকে পালিয়ে বের হয়েছিলেন। পরবর্তীতে তিনি পুলিশকে এ বিষয়ে একটি অভিযোগ করেন। এরপর পুলিশ বিষয়টির তদন্ত শুরু করে। তথ্যপ্রমাণ পাওয়া যাওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে এখন বিচারকাজ শুরু হয়েছে। তবে বিচারে সেই রাজকন্যাদের কেউই উপস্থিত নেই।

Related posts