December 11, 2018

বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাক্তার নেই, রোগী দেখছেন নার্স, চিকিৎসা না পেয়ে বাড়ি ফিরলেন রোগী

uphবিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি :: সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সময় মতো কর্তব্যরত চিকিৎসক উপস্থিত না থাকায় রোগীদের চরম দূর্ভোগের শিকার হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে । তাই ডাক্তারের পরিবর্তে রোগীদেরকে চিকিৎসা দিচ্ছেন নার্স লাকী আরা।

রোগীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরেজমিনে আজ বুধবার বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায়, ছোট শিশু এক্সিডেন্ট করেছে। সাথে সাথে নিয়ে আসা হয়েছে হাসপাতালে। কিন্তু কোন ডাক্তার নেই। আছে শুধু একজন নার্স। নার্সের কাছেও নেই কোন ডাক্তারের নাম্বার। এভাবেই চলছে বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কার্যক্রম।

এসময় সাংবাদিকরা তার পরিচয় জানতে চাইলে তিনি নিজে নার্স বলে পরিচয় দেন। তবে রোগীদের কেন চিকিৎসা দিচ্ছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোন সদোত্তর দিতে পারেননি।

আজ বুধবার অনেক রোগী এসেছিলেন বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে (কাদিপুর)। বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা নিতে এসে রোগীরা পাননি ডাক্তারের দেখা। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাসহ অন্যান্য ডাক্তারেরা নেই কর্মস্থলে। এছাড়া হাসপাতালে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকার কথা থাকলেও দেখা যায় অপরিস্কার। সরকার পরিস্কার রাখার জন্য বরাদ্ধ দিলেও সেই টাকা যায় কোথাও জাতী জানতে চায়?

IMG_20181205_211819এ ব্যাপারে হাসপাতালে আসা আমতৈল গ্রামের শাহানা বেগম বলেন, ৭ দিন ধরে আমি হাসপাতালে আছি। আমাদেরকে প্রতিদিন সামান্য জুল দিয়ে খাবার দেয়া হয়। আমরা সবজি কিংবা মাছ চাইলে আমাদেরকে ধমক দেন তারা। তিনি বলেন, হাসপাতালে ভর্তি হয়েছি ৭দিন হয়েছে কিন্তু আজ পর্যন্ত বিছানা পরিবর্তন করা হয়নি।

শ্রীপুর গ্রামের পিয়ারা বেগম বলেন, আজ বুধবার সারাদিনের মধ্যে একবারও ডাক্তার আসেননি। হাসপাতালে সেবা নিতে এসে আমরা মহাবিপদে আছে।

IMG_20181205_211750পশ্চিম ধলিপাড়া গ্রামের সখিনা বেগম বলেন, বাইরে থেকে নিজের টাকা দিয়ে সিরিঞ্জ কিনে দিতে হয় ডাক্তারের কাছে। আর কোন ঔষধ চাইতে আমাদের ধমক শুনতে হয়। এভাবেই আমরা আছি।

পুরানগাঁও গ্রামের হতদরিদ্র আফিজ আলী বলেন, আমার ছেলের শ্বাসকষ্ট রোগ। হাসপাতালে নিয়ে আসলে ও কোন সুচিকিৎসা পাচ্ছিনা। ডাক্তারের দেখা ও পাচ্ছিনা। আমি কি যে করি, আমার শিশুকে নিয়ে ভেবে পাচ্ছিনা।

ভোক্তভোগী অনেকেই বলেছেন, হাসপাতালে এসে ডাক্তার না পেয়ে আমরা চলে গেলাম। তারা দু:খ জনক বলেন, আমাদের সরকার অনেক টাকা খরছ করে ভবন নির্মাণ করে। বিনামূলে আমাদের ঔষধ দেয়। কিন্তু হাসপাতালে এসে আমরা কোন চিকিৎসা পাই না, পাইনি ডাক্তারের দেখা। প্রায় সময়ই আমাদের হাসপাতালে ডাক্তার থাকেনা বলেও তারা অভিযোগ করেন।

কর্ত্বব্যরত নার্স লাকী আরা সাংবাদিকদের বলেন, কোন ডাক্তারের মোবাইল নাম্বার আমার কাছে নেই আমি শুধু রোগী নাম টিকানা লিখে রাখি।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও) ডাঃ আব্দুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, হাসপাতালে ডাক্তার থাকার কথা। কিন্তু কেন নেই তা আমি দেখছি।

Related posts