November 17, 2018

বিশ্বনাথে সুলতান খুনের ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের

IMG_20181103_164759বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি :: সিলেটের বিশ্বনাথে ব্রিক ফিল্ড শ্রমিক সুলতান মিয়া (২৮) হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহতের বড় ভাই লোকমান মিয়া বাদী হয়ে গত রোববার রাতে অজ্ঞাতনামা অভিযুক্ত করে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। বিশ্বনাথ থানার মামলা নং ০৪ (তাং ৪/১১/১৮ইং)। এদিকে ময়না তদন্ত শেষে রোববার রাতেই সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার দুর্বাকান্দা পাতাউরা গ্রামে ব্রিক ফিল্ড শ্রমিক সুলতান মিয়ার জানাযার নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তার দাফন করা হয়েছে। জানাযার নামাজে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন বলে জানা গেছে।

সুলতান মিয়া হত্যাকান্ডের ঘটনায় বিশ্বনাথ থানায় মামলা দায়েরের সত্যতা স্বীকার করে থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মোহাম্মদ শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেন, ঘটনাটি রহস্যজনক। তবে দ্রুতই এর আসল রহস্য উদঘাটন করে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদেরকে আইনের আওতায় আনতে পুলিশ কাজ করছে।

উল্লেখ্য, গত শনিবার ভোরে বিশ্বনাথ উপজেলার রামপাশা দক্ষিণ পাড়া গ্রামের (পেট্টোল পাম্পের উত্তর পার্শ্বে) ইসরাব আলীর বাড়ির সামনে বিশ্বনাথ-রামপাশা সড়কের উপর মস্তকবিহীন সুলতানের দেহ ও সড়কের পাশের বাঁশঝাড়ে ক্ষত-বিক্ষত মাথা দেখতে পান স্থানীয় জনতা। এরপর জনতা পুলিশকে দ্বি-খন্ডিত লাশের খবর দিলে সাথে সাথেই বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মোহাম্মদ শামসুদ্দোহা পিপিএম ও পরিদর্শক (তদন্ত) দুলাল আকন্দ’র নেতৃত্বে থানা পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছান। এরপর জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ওসমানীনগর সার্কেল) সাইফুল ইসলাম ও সিলেটের গোয়েন্দা সংস্থার ক্রাইম সিন ইউনিট ঘটনা স্থলে পৌছেন।

সিআইডি’র ক্রাইম সিন ইউনিট ঘটনাস্থলে আলামত সংগ্রহ করার পর থানা পুলিশ সুরতাহাল শেষে দ্বি-খন্ডিত লাশটি মর্গে প্রেরণ করে। শ্রমিক সুলতান মিয়া দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার দুর্বাকান্দা পাতাউরা গ্রামের আলকাছ আলী ও নূরজাহান বিবি দম্পত্তির পুত্র। তিনি বিশ্বনাথে উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের আজিজনগরস্থ এ.আর ব্রিক ফিল্ডে ইট তৈরীর কারিগর হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

Related posts